ঢাকা,বৃহস্পতিবার,৬ কার্তিক ১৪২৭,২২,অক্টোবর,২০২০
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * বাংলাদেশকে দারিদ্র মুক্ত করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী   * বাংলাদেশকে একশ অত্যাধুনিক ভেন্টিলেটর দিবে আমেরিকা   * বীজ ধানের কেজিতে ১০ টাকা ভর্তুকি দেয়া হবে: কৃষিমন্ত্রী   * মুক্তি পাচ্ছেন বেগম খালেদা জিয়া   * প্রধানমন্ত্রীর দশ নির্দেশনা   * সব ধরনের যাত্রীবাহী নৌযান চলাচল বন্ধ   * টিসিবি এবং ভোক্তা অধিদফতরের সকলের ছুটি বাতিল   * প্রয়োজনে দেশে জরুরি অবস্থা জারির পরামর্শ   * করোনায় বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা ১১ হাজার ছাড়াল!   * ঢাকা স্যানিটেশন ব্যবস্থার উন্নয়নে বিশ্বব্যাংকের অনুমোদন!  

   ফিচার -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সচেতনতা ও আমাদের করণীয়

অনলাইন ডেস্কঃ বর্তমানে করোনা ভাইরাস মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমিত একটি বহুল আলোচিত রোগ। এটি মানুষ ছাড়াও বিভিন্ন পশু, বিড়াল, উট ও বাদুড়ের মধ্যে দেখা যায়। সাধারণত প্রাণিদেহে সংক্রমিত করোনা ভাইরাসগুলি মানুষকে আক্রান্ত করে না। সম্প্রতি চীনের উহান নামক একটি শহরে প্রথম এই ভাইরাস শনাক্ত করা হয়। জানা গেছে বর্তমানে শনাক্তকৃত বেশির ভাগ রোগী উহান শহরের একটি সামুদ্রিক খাবার ও পশুর বাজার থেকে আক্রান্ত হয়েছে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী এখন পর্যন্ত এই রহস্যজনক ভাইরাস থেকে ২ হাজার ৭৪৪ জন ব্যক্তি আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ৮১ জন ইতিমধ্যে মারা গেছেন। আক্রান্তদের অধিকাংশই চীনের হুবেই প্রদেশের অন্তর্গত উহান শহরের কোনো না কোনোভাবে ভ্রমণ করেছিলেন, নয়তো সেখানকার বাসিন্দা। এছাড়া চীনে ভ্রমণজনিত কারণে দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, তাইওয়ান, থাইল্যান্ড, আমেরিকা, ভিয়েতনাম, সিঙ্গাপুর, হংকং, মেকাউ, অস্ট্রেলিয়া, ফ্রান্সসহ ১৩টি দেশে এ পর্যন্ত করোনা ভাইরাসের রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। যেভাবে ছড়ায় করোনা ভাইরাস: বিশেষজ্ঞরা নিশ্চিত হয়েছেন যে, এ ভাইরাসটি একজন মানুষের দেহ থেকে আরেকজন মানুষের দেহে দ্রুত ছড়াতে পারে। করোনা ভাইরাস মানুষের ফুসফুসে সংক্রমণ ঘটায় এবং শ্বাসতন্ত্রের মাধ্যমেই এটি একজনের দেহ থেকে আরেকজনের দেহে ছড়ায়। লক্ষণ সমূহ : ১. জ্বর ও কাশি। ২. শ্বাসকষ্ট ও নিউমোনিয়া। ৩. অরগ্যান ফেইলিওর বা দেহের বিভিন্ন প্রত্যঙ্গ বিকল হয়ে যাওয়া। ৪. ভাইরাসটি শরীরে ঢোকার পর সংক্রমণের লক্ষণ দেখা দিতে প্রায় পাঁচ দিন লাগে। প্রথম লক্ষণ হচ্ছে জ্বর। তারপর দেখা দেয় শুকনো কাশি। এক সপ্তাহের মধ্যে দেখা দেয় শ্বাসকষ্ট। ভ্রমণসংক্রান্ত পরামর্শ : যেহেতু এটি সম্পূর্ণ নতুন একটি ভাইরাস এবং এর ভয়াবহতা ও বিস্তার সম্পর্কে সম্পূর্ণভাবে জানা এখনো সম্ভব হয় নাই, তাই ভ্রমণকালীন বিশেষ করে চীন থেকে বাংলাদেশ ও বাংলাদেশ থেকে চীনে ভ্রমণকারীগণ সম্ভাব্য ঝুঁকি থেকে মুক্ত থাকার জন্য স্বাভাবিক শ্বাসতন্ত্রেও প্রতিরোধব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। অথবা কিছুদিনের জন্য বেশি জরুরি কিছু না হলে চীন ভ্রমণে বিরত থাকাই ভালো। ভাইরাস থেকে বাঁচতে যা যা করতে হবে : ১. আক্রান্ত ব্যক্তি হতে কমপক্ষে দুই হাত দূরে থাকতে হবে। ২. বারবার প্রয়োজনমতো সাবান পানি দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলা, বিশেষ করে আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে এলে কিংবা সংক্রমণস্থলে ভ্রমণ করলে। ৩. জীবিত অথবা মৃত গৃহপালিত।বন্যপ্রাণী থেকে দূরে থাকা। ৪. ভ্রমণকারীগণ আক্রান্ত হলে কাশি শিষ্টাচার অনুশীলন করতে হবে (আক্রান্ত ব্যক্তি হতে দূরত্ব বজায় রাখা, হাঁচি-কাশির সময় মুখ ঢেকে রাখা, হাত ধোয়া, যেখানে-সেখানে কফ কাশি না ফেলা)। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় কর্তৃক গৃহীত ব্যবস্থাদি : ১. দেশের বিভিন্ন স্থল।নৌ ও বিমানবন্দরগুলোতে ইমিগ্রেশন ও স্বাস্থ্য ডেস্কসমূহে সতর্কতা ও রোগের সার্ভেল্যান্স জোরদার করা হয়েছে। ২. হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরসহ দেশের বিভিন্ন প্রবেশপথগুলোতে নতুন করোনা ভাইরাস স্ক্রিনিং কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। পাশাপাশি হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরসহ দেশের সাতটি প্রবেশপথে ডিজিটাল থার্মাল স্ক্যানারের মাধ্যমে আক্রান্ত দেশ থেকে আগত রোগীদের স্পর্শ না করে জ্বর পর্যবেক্ষণ কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। ৩. বিমানবন্দর স্ক্রিনিং কার্যক্রম এই পর্যন্ত (২৭ জানুয়ারি, ২০২০) ২ হাজার ৪৭০ জনকে স্ক্রিনিং করা হয়েছে। ৪. নতুন ভাইরাস সম্পর্কে চিকিত্সক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে। ৫. চিকিত্সা কাজে স্বাস্থ্যকর্মীদের ব্যবহারের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ রোগ প্রতিরোধী পোশাক (PPE) মজুত রাখা হয়েছে। ৬. কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ড নভেল করোনা ভাইরাস রোগীদের জন্য রেফারেল হাসপাতাল হিসেবে নির্দিষ্ট রাখা। ৭. হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরসহ কোয়ারেন্টাইন ওয়ার্ড প্রস্তুত রাখা। ৮. বিমানের ভেতরের আক্রান্ত রোগীদের দ্রুত শনাক্তকরণের জন্য বিমানের ক্রুদের মাধ্যমে যাত্রীদের মধ্যে হেলথ ডিকলারেশন ফর্ম ও প্যাসেঞ্জার লোকেটের ফর্ম বিতরণের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ৯. ঝুঁকি সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য ভাইরাস প্রতিরোধসংক্রান্ত গাইডলাইন প্রস্তুত করা হয়েছে এবং দ্রুত যোগাযোগের জন্য আঈডিসিআরে মোট চারটি হটলাইন প্রস্তুত রাখা হয়েছে। (হট লাইন নাম্বারসমূহ: +৮৮০১৯৩৭০০০০১১। +৮৮০১৯৩৭১১০০১১। +৮৮০১৯২৭৭১১৭৮৪। +৮৮০১৯২৭৭১১৭৮৫) ১০. গণমাধ্যমকে এ বিষয়ে অবহিত করার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ বিভাগের মাধ্যমে প্রেস ব্রিফিং করা হয়েছে। ১১. সব জেলার সিভিল সার্জনদের এ বিষয়ে সতর্ক থাকার জন্য এবং চিকিত্সার লক্ষ্যে প্রয়োজনে পৃথক ওয়ার্ড।বেডের ব্যবস্থা করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। চিকিত্সা এবং শনাক্তকরণের জন্য গৃহীত কার্যক্রম : ১. দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে আইসীউতে কর্মরত চিকিত্সকদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। ২. ক্লিনিক্যাল ব্যবস্থাপনা প্রণয়ন করা হয়েছে। ৩. আঈডিসিআর ল্যাবরেটরিতে এই ভাইরাস শনাক্তরকরণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ৪. WHO এবং US CDC - এর সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রেখে চিকিত্সা ও ল্যাবরেটরি শনাক্তকরণে সহায়তা নেওয়া হচ্ছে। ৫. আইইডিসিআর Corona Control Room খোলা হয়েছে। সার্বক্ষণিক সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। এছাড়া স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কন্ট্রোল রুম বিষয়টি সার্বক্ষণিক মনিটর করছে। অতীতের মার্স করোনা ভাইরাস (MERS—CoV) এবং সার্স করোনা ভাইরাস (SARS—CoV) থেকে বলা যায় সামনের দিনগুলোতে আরো মানুষ আক্রান্ত হতে পারে। মানুষের ভৌগোলিক অবস্থান এবং আন্তর্জাতিক ভ্রমণকারীদের মাধ্যমে যে কোনো সময়ে এই রোগ বাংলাদেশে প্রবেশ করার আশঙ্কা আছে। তাই এদেশে রোগটি যাতে আশঙ্কাজনকভাবে বৃদ্ধি পেতে না পারে, সেজন্য সংশ্লিষ্ট সকল সংস্থাকে সতর্ক অবস্থায় থাকতে হবে। লেখক : মো. মাইদুল ইসলাম প্রধান তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়
করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সচেতনতা ও আমাদের করণীয়
                                  
অনলাইন ডেস্কঃ বর্তমানে করোনা ভাইরাস মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমিত একটি বহুল আলোচিত রোগ। এটি মানুষ ছাড়াও বিভিন্ন পশু, বিড়াল, উট ও বাদুড়ের মধ্যে দেখা যায়। সাধারণত প্রাণিদেহে সংক্রমিত করোনা ভাইরাসগুলি মানুষকে আক্রান্ত করে না। সম্প্রতি চীনের উহান নামক একটি শহরে প্রথম এই ভাইরাস শনাক্ত করা হয়। জানা গেছে বর্তমানে শনাক্তকৃত বেশির ভাগ রোগী উহান শহরের একটি সামুদ্রিক খাবার ও পশুর বাজার থেকে আক্রান্ত হয়েছে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী এখন পর্যন্ত এই রহস্যজনক ভাইরাস থেকে ২ হাজার ৭৪৪ জন ব্যক্তি আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ৮১ জন ইতিমধ্যে মারা গেছেন। আক্রান্তদের অধিকাংশই চীনের হুবেই প্রদেশের অন্তর্গত উহান শহরের কোনো না কোনোভাবে ভ্রমণ করেছিলেন, নয়তো সেখানকার বাসিন্দা। এছাড়া চীনে ভ্রমণজনিত কারণে দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, তাইওয়ান, থাইল্যান্ড, আমেরিকা, ভিয়েতনাম, সিঙ্গাপুর, হংকং, মেকাউ, অস্ট্রেলিয়া, ফ্রান্সসহ ১৩টি দেশে এ পর্যন্ত করোনা ভাইরাসের রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। যেভাবে ছড়ায় করোনা ভাইরাস: বিশেষজ্ঞরা নিশ্চিত হয়েছেন যে, এ ভাইরাসটি একজন মানুষের দেহ থেকে আরেকজন মানুষের দেহে দ্রুত ছড়াতে পারে। করোনা ভাইরাস মানুষের ফুসফুসে সংক্রমণ ঘটায় এবং শ্বাসতন্ত্রের মাধ্যমেই এটি একজনের দেহ থেকে আরেকজনের দেহে ছড়ায়। লক্ষণ সমূহ : ১. জ্বর ও কাশি। ২. শ্বাসকষ্ট ও নিউমোনিয়া। ৩. অরগ্যান ফেইলিওর বা দেহের বিভিন্ন প্রত্যঙ্গ বিকল হয়ে যাওয়া। ৪. ভাইরাসটি শরীরে ঢোকার পর সংক্রমণের লক্ষণ দেখা দিতে প্রায় পাঁচ দিন লাগে। প্রথম লক্ষণ হচ্ছে জ্বর। তারপর দেখা দেয় শুকনো কাশি। এক সপ্তাহের মধ্যে দেখা দেয় শ্বাসকষ্ট। ভ্রমণসংক্রান্ত পরামর্শ : যেহেতু এটি সম্পূর্ণ নতুন একটি ভাইরাস এবং এর ভয়াবহতা ও বিস্তার সম্পর্কে সম্পূর্ণভাবে জানা এখনো সম্ভব হয় নাই, তাই ভ্রমণকালীন বিশেষ করে চীন থেকে বাংলাদেশ ও বাংলাদেশ থেকে চীনে ভ্রমণকারীগণ সম্ভাব্য ঝুঁকি থেকে মুক্ত থাকার জন্য স্বাভাবিক শ্বাসতন্ত্রেও প্রতিরোধব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। অথবা কিছুদিনের জন্য বেশি জরুরি কিছু না হলে চীন ভ্রমণে বিরত থাকাই ভালো। ভাইরাস থেকে বাঁচতে যা যা করতে হবে : ১. আক্রান্ত ব্যক্তি হতে কমপক্ষে দুই হাত দূরে থাকতে হবে। ২. বারবার প্রয়োজনমতো সাবান পানি দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলা, বিশেষ করে আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে এলে কিংবা সংক্রমণস্থলে ভ্রমণ করলে। ৩. জীবিত অথবা মৃত গৃহপালিত।বন্যপ্রাণী থেকে দূরে থাকা। ৪. ভ্রমণকারীগণ আক্রান্ত হলে কাশি শিষ্টাচার অনুশীলন করতে হবে (আক্রান্ত ব্যক্তি হতে দূরত্ব বজায় রাখা, হাঁচি-কাশির সময় মুখ ঢেকে রাখা, হাত ধোয়া, যেখানে-সেখানে কফ কাশি না ফেলা)। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় কর্তৃক গৃহীত ব্যবস্থাদি : ১. দেশের বিভিন্ন স্থল।নৌ ও বিমানবন্দরগুলোতে ইমিগ্রেশন ও স্বাস্থ্য ডেস্কসমূহে সতর্কতা ও রোগের সার্ভেল্যান্স জোরদার করা হয়েছে। ২. হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরসহ দেশের বিভিন্ন প্রবেশপথগুলোতে নতুন করোনা ভাইরাস স্ক্রিনিং কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। পাশাপাশি হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরসহ দেশের সাতটি প্রবেশপথে ডিজিটাল থার্মাল স্ক্যানারের মাধ্যমে আক্রান্ত দেশ থেকে আগত রোগীদের স্পর্শ না করে জ্বর পর্যবেক্ষণ কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। ৩. বিমানবন্দর স্ক্রিনিং কার্যক্রম এই পর্যন্ত (২৭ জানুয়ারি, ২০২০) ২ হাজার ৪৭০ জনকে স্ক্রিনিং করা হয়েছে। ৪. নতুন ভাইরাস সম্পর্কে চিকিত্সক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে। ৫. চিকিত্সা কাজে স্বাস্থ্যকর্মীদের ব্যবহারের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ রোগ প্রতিরোধী পোশাক (PPE) মজুত রাখা হয়েছে। ৬. কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ড নভেল করোনা ভাইরাস রোগীদের জন্য রেফারেল হাসপাতাল হিসেবে নির্দিষ্ট রাখা। ৭. হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরসহ কোয়ারেন্টাইন ওয়ার্ড প্রস্তুত রাখা। ৮. বিমানের ভেতরের আক্রান্ত রোগীদের দ্রুত শনাক্তকরণের জন্য বিমানের ক্রুদের মাধ্যমে যাত্রীদের মধ্যে হেলথ ডিকলারেশন ফর্ম ও প্যাসেঞ্জার লোকেটের ফর্ম বিতরণের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ৯. ঝুঁকি সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য ভাইরাস প্রতিরোধসংক্রান্ত গাইডলাইন প্রস্তুত করা হয়েছে এবং দ্রুত যোগাযোগের জন্য আঈডিসিআরে মোট চারটি হটলাইন প্রস্তুত রাখা হয়েছে। (হট লাইন নাম্বারসমূহ: +৮৮০১৯৩৭০০০০১১। +৮৮০১৯৩৭১১০০১১। +৮৮০১৯২৭৭১১৭৮৪। +৮৮০১৯২৭৭১১৭৮৫) ১০. গণমাধ্যমকে এ বিষয়ে অবহিত করার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ বিভাগের মাধ্যমে প্রেস ব্রিফিং করা হয়েছে। ১১. সব জেলার সিভিল সার্জনদের এ বিষয়ে সতর্ক থাকার জন্য এবং চিকিত্সার লক্ষ্যে প্রয়োজনে পৃথক ওয়ার্ড।বেডের ব্যবস্থা করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। চিকিত্সা এবং শনাক্তকরণের জন্য গৃহীত কার্যক্রম : ১. দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে আইসীউতে কর্মরত চিকিত্সকদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। ২. ক্লিনিক্যাল ব্যবস্থাপনা প্রণয়ন করা হয়েছে। ৩. আঈডিসিআর ল্যাবরেটরিতে এই ভাইরাস শনাক্তরকরণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ৪. WHO এবং US CDC - এর সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রেখে চিকিত্সা ও ল্যাবরেটরি শনাক্তকরণে সহায়তা নেওয়া হচ্ছে। ৫. আইইডিসিআর Corona Control Room খোলা হয়েছে। সার্বক্ষণিক সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। এছাড়া স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কন্ট্রোল রুম বিষয়টি সার্বক্ষণিক মনিটর করছে। অতীতের মার্স করোনা ভাইরাস (MERS—CoV) এবং সার্স করোনা ভাইরাস (SARS—CoV) থেকে বলা যায় সামনের দিনগুলোতে আরো মানুষ আক্রান্ত হতে পারে। মানুষের ভৌগোলিক অবস্থান এবং আন্তর্জাতিক ভ্রমণকারীদের মাধ্যমে যে কোনো সময়ে এই রোগ বাংলাদেশে প্রবেশ করার আশঙ্কা আছে। তাই এদেশে রোগটি যাতে আশঙ্কাজনকভাবে বৃদ্ধি পেতে না পারে, সেজন্য সংশ্লিষ্ট সকল সংস্থাকে সতর্ক অবস্থায় থাকতে হবে। লেখক : মো. মাইদুল ইসলাম প্রধান তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়
গাধার দুধ দিয়ে তৈরি পনির, প্রতি কেজি ৭৯ হাজার টাকা!
                                  
অনেকে বাড়িতে পনির কিনে রাখেন নানা পদের সঙ্গে খাবেন বলে। কিন্তু পনিরের দাম যদি ৭৯ হাজার টাকা প্রতি কেজি হয়, তাহলে তা আর ক’জনের ঘরে থাকবে বলুন। অবিশ্বাস্য মনে হলেও প্রতি কেজি পনিরের দাম প্রায় ৭৯ হাজার টাকা। কারণ এটা তো কোনো সাধারণ চিজ নয়, এ পনির তৈরি গাধার খাঁটি দুধ দিয়ে। বলকান প্রজাতির গাধার দুধ থেকে তৈরি এই পনির ঘন, সাদা আর এর গন্ধ বেশ কড়া। জানা গেছে, উত্তর সার্বিয়ার জাসাভিচার এলাকার একটি খামারে দু’শোরও বেশি বলকান গাধার দুধ থেকে বছরে প্রায় ১৫ কেজি পনির তৈরি হয়। এই পনির মূলত এখানে আসা পর্যটকরা কিনে নিয়ে যান। এই পনির প্রস্তুতকারী স্লোবোদান সিমিচের দাবি, বলকান গাধার দুধ থেকে তৈরি এই পনির উচ্চ পুষ্টিগুণ আর ওষধিগুণ সম্পন্ন। অ্যালার্জি, হাঁপানি বা ব্রঙ্কাইটিসের মতো অসুখ নিয়ন্ত্রণে রাখতে এই পনিরের জুড়ি নেই। তাই যাদের গরুর দুধে সমস্যা হয়, তারা অনায়াসেই গাধার দুধ খেতে পারেন। বলকান গাধার দুধ থেকে পনির ছাড়াও প্রসাধনী তৈরি হয়। স্লোবোদান সিমিচ জানান, বলকান গাধা দিনে ১ লিটারেরও কম দুধ দেয়। তাছাড়া, বলকান গাধার দুধে ‘কেসিন’ নামের প্রোটিনের পরিমাণ খুবই কম থাকে। তাই এই দুধ দিয়ে পনির তৈরি করা বেশ কঠিন। তবে সমস্যা যাই থাকুক না কেন, এই পনিরেরর দামটাও তো কম নয়! বলকান গাধার দুধ থেকে তৈরি ১ কেজি চিজের দাম টাকার হিসাবে ৭৯,০০০ টাকা।
দর্শনার্থীর মোবাইল ছিনিয়ে নিয়ে বানরের সেলফি!
                                  
ইন্দোনেশিয়ার বালি দ্বীপে একটি পার্কে বেড়াতে আসা একদল পর্যটকের মোবাইল কেড়ে নিয়ে তাদের সঙ্গে সেলফি তুলছে বানর। সেলফি তোলা নিয়ে বানরটি যা করেছে তা নিয়ে টুইটারে ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে। এ ঘটনাটি ঘটেছে অস্ট্রেলিয়ার নারী পর্যটক জুডি হিকস, তার স্বামী ও ছেলে-মেয়েদের সঙ্গে। অস্ট্রেলিয়ার ওই দম্পতি ছুটি কাটাতে গিয়েছিলেন ইন্দোনেশিয়ার বালিতে। বালির পাশের উবুদ মানকি ফরেস্টে তারা ঘুরতে গিয়েছিলেন। ওই পার্কটি বানরদের অভয়ারণ্য হিসেবে পরিচিত। বালিতে ট্যুর গাইডকে ছবি তোলার জন্য মোবাইলটি হস্তান্তর করেন তারা। মোবাইলে ছবি তোলার জন্য সবাই প্রস্তুত। জুডির পরিবারে সবাই যখন পোজ দিচ্ছিলেন তখনই এমন মোবাইল কেড়ে নিয়ে নিজেই সেলফি তোলা শুরু করে বানরটি। মোবাইল দেখামাত্রই বানরটি দূর থেকে ছুটে আসে। এসেই ঝাঁপিয়ে পড়ে ট্যুর গাইডের হাত থেকে কেড়ে নেয় মোবাইলটি। তারপরই সবার সামনে দাঁড়িয়ে সুন্দর পোজ দিয়ে ছবি তোলেন। বানরের তোলা সেই সেলফি টুইটারে পোস্ট করে ঘটনার কথা সবাইকে জানান অস্ট্রেলীয় ওই পর্যটক। পরে সেই ছবি ভাইরাল হয়।
হংকং-এর অদ্ভুদ উৎসব `বান ফেস্টিভ্যাল`!
                                  

পৃথিবীতে বড়ই বৈচিত্রময়। প্রতিনিয়ত এখানে কত রকমের ঘটনাই না ঘটে! এসব ঘটনার কিছু চলে আসে খবরের শিরোনামেও। বিশ্বের ব্যতিক্রমী ও মজার উৎসবের মধ্যে হংকং-এর `বান ফেস্টিভ্যাল` বেশ জনপ্রিয়। জানা যায়, গৌতম বুদ্ধের জন্মদিনকে ঘিরে প্রতিবছর সপ্তাহব্যাপী এ উৎসব উদযাপন করা হয়। এতে কয়েকশ` রুটি দিয়ে ঢাকা একটি টাওয়ার থেকে রুটি পেড়ে আনার প্রতিযোগিতার পাশাপাশি আয়োজন করা হয় ড্রাগন নাচ, ও শোভাযাত্রাসহ বিভিন্ন প্রদর্শনীর। উৎসবের আরো একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো `পিউ সিক` নামের শোভাযাত্রা। এতে শিশুরা ঐতিহ্যবাহী পোশাক পড়ে অংশ নেয়। 

বয়স ৫০ হওয়ার আগেই দৃষ্টি হারান যে গ্রামের সব পুরুষ!
                                  

সবুজ গাছে ঘেরা ছোট্ট একটা পাহাড়ি গ্রাম। এই গ্রামে বসবাস করেন সব মিলিয়ে সাড়ে তিনশো জন মানুষ। তবে এই গ্রামের প্রায় ৭৫ শতাংশ মানুষই অন্ধত্বের শিকার। আরও অনেকেই ক্রমশ তাদের দৃষ্টিশক্তি হারাচ্ছেন। পেরুর ‘প্যারান’ নামের এই গ্রামটি তাই ‘অন্ধদের গ্রাম’ বা ‘দৃষ্টিহীনদের গ্রাম’ নামেই বেশি পরিচিত।
প্রায় ৩ হাজার ফুট উচ্চতায় অবস্থিত এই গ্রামের বেশির ভাগ মানুষই চোখের একটি জিনগত রোগে আক্রান্ত। চোখের এই রোগটির নাম ‘রেটিনাইটিস পিগমেনটোসা’। এই রোগটির নাম আমাদের তেমন ভাবে জানা না থাকলেও ‘রাতকানা’ রোগের নাম আমরা অনেকেই জানি।
চক্ষু চিকিৎসকদের মতে, ‘রাতকানা’ রোগের জন্য প্রধনত দায়ি এই ‘রেটিনাইটিস পিগমেনটোসা’। এই রোগের চোখের ‘টানেল ভিশন’ নষ্ট হয়ে যায়। চোখের ভিতরে রেটিনা নামের যে গুরুত্বপূর্ণ পাতলা মেমব্রেন থাকে, তার প্রধান দুটি অংশ হল রড ও কোণ। এই রড আর কোণ ‘ফটো রিসেপ্টর’র কাজ করে। এই রোগের ফলে রেটিনার রড কোষ ধীরে ধীরে তার কার্যক্ষমতা হারিয়ে ফেলে।
‘প্যারান’ গ্রামের বেশির ভাগ মানুই ‘রেটিনাইটিস পিগমেনটোসা’য় আক্রান্ত। এই রোগের কারণে এ গ্রামের বাসিন্দাদের মধ্যে কারও শৈশব থেকেই দৃষ্টিশক্তি ক্ষীন, কারও আবার বয়স পঞ্চাশ পার না হতেই চোখের সামনে অন্ধকার নেমে আসে।
জানা গেছে, একটা সময় এই অঞ্চলে সোনা, রুপার খোঁজে হাজির হয় একটি খনন সংস্থা। এই খনন সংস্থার দৌলতেই এ গ্রামের বাসিন্দারা প্রথম চিকিৎসার সুযোগ পান। সে সময়ই এই গ্রামে আসা একদল চিকিত্সক পরীক্ষা করে জানিয়ে দেন, চোখের এই রোগ আসলে জন্মগত। এক্স ক্রোমোজোমের সমস্যা থেকেই এই রোগের সৃষ্টি হয়।
নারীদের চেয়ে ‘রেটিনাইটিস পিগমেনটোসা’-এ পুরুষরাই বেশি আক্রান্ত হন। পর পর বেশ কয়েকটি ঘটনায় দেখা গেছে, এই গ্রামে পুত্র সন্তান জন্মালে তার অন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা অনেকটাই বেশি। এই কারণেই এই গ্রামের বাসিন্দারা অন্য কোনো এলাকার মানুষের সঙ্গে বৈবাহিক সম্পর্কে জড়ান না। তাই সভ্যতার আলো পৌঁছালেও, পেরুর এই গ্রামটি আজও দেশের অন্যান্য জনপদ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে রয়েছে।

গভীর সাগর দিয়ে ছুটবে ট্রেন
                                  

অনলাইন ডেস্ক
সমুদ্রের তলা দিয়ে ছুটবে ট্রেন। সে জন্য ইউরোপে তৈরি হচ্ছে পৃথিবীর দীর্ঘতম সুড়ঙ্গ রেলপথ। জেনে নিন তার খুঁটিনাটি।
উত্তর ইউরোপের দুই দেশ ফিনল্যান্ড ও এস্তোনিয়া। তাদের মাঝে রয়েছে ফিনল্যান্ড উপসাগর। তার নীচ দিয়ে ৯০ কিলোমিটার দীর্ঘ সুড়ঙ্গ রেলপথ তৈরি হতে চলেছে। এই প্রকল্পে খরচ পড়বে দেড় হাজার কোটি ইউরো।
ইংল্যান্ড ও উত্তর ফ্রান্সের মাঝে ৫০ কিলোমিটার দীর্ঘ চ্যানেল টানেলই এতদিন পৃথিবীর মধ্যে দীর্ঘতম সুড়ঙ্গ রেলপথ ছিল। তার চেয়েও দীর্ঘ হতে চলেছে এস্তোনিয়ার রাজধানী তালিন থেকে ফিনল্যান্ডের রাজধানী হেলসিঙ্কি পর্যন্ত বিস্তৃত নয়া সুড়ঙ্গ রেলপথ।
ফেরিতে চড়ে তালিন থেকে হেলসিঙ্কি পৌঁছতে এই মুহূর্তে দু’ঘণ্টা সময় লাগে। সুড়ঙ্গ রেলপথ তৈরি হলে সময় লাগবে মাত্র ২০ মিনিট। প্রতিদিন দু’ঘণ্টা পেরিয়ে তালিন থেকে হেলসিঙ্কি যান বহু মানুষ। সুড়ঙ্গ রেলপথ তৈরি হলে তারা সকলেই উপকৃত হবেন।
সুড়ঙ্গ তৈরির কাজ যদিও এখনও শুরু হয়নি। তবে এখন থেকেই তা নিয়ে উন্মাদনা শুরু হয়েছে দু’দেশের মানুষের মধ্যে। গতবছরের ডিসেম্বর থেকে অনলাইন টিকিট বুকিংও শুরু হয়ে গেছে। ভাড়া ৫০ ইউরো।

‘ব্রেক-আপ’ করতে বিজ্ঞাপন!
                                  

অনলাইন ডেস্ক:
প্রেমে প্রতারিত হয়ে অনেকেই অনেক কিছু করে। কিন্তু কখনও কি শুনেছেন প্রেমে ব্রেক-আপ করতে বিজ্ঞাপন দিতে? ইন্দোনেশিয়ার এক যুবক প্রেমে প্রতারিত এমই এক কাণ্ড ঘটালেন। প্রেমে ব্রেক-আপ করতে বিজ্ঞাপন দিয়েছেন তিনি।
এই ব্যক্তির ব্রেক-আপ পদ্ধতিটি সত্যিই অভিনব। শহরজুড়ে বান্ধবীর পোস্টার সাঁটিয়েছেন তিনি। পোস্টার না বলে বিজ্ঞাপন বলাই ভালো। কারণ অন্যান্য বিজ্ঞাপনের পাশে এবং সেগুলোর মতোই শহরের রাস্তায় রাস্তায় শোভা পাচ্ছে মেয়েটির ছবি। নিচে লেখা, ‘তুমি আমার হৃদয় ভেঙেছ। আমার সঙ্গে প্রতারণা করেছ। আমি তোমার সঙ্গে ব্রেক-আপ করতে চাই।’ এদিকে, ছবিগুলো এরইমধ্যে ভাইরাল হয়ে গেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। এছাড়া একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে। সেখানে দেখা গেছে, ব্যস্ত সড়কে ঝগড়া করছেন ওই যুবক ও তার বন্ধবী। এক ব্যক্তি তাদের সমস্যা সমাধান করতে আসেন। কিন্তু তার কথা পাত্তায় পায়নি।

অদ্ভুত কিছু তথ্য
                                  

অনলাইন ডেস্ক
পৃথিবীতে বড়ই বৈচিত্রময়। প্রতিনিয়ত এখানে কত রকমের ঘটনাই না ঘটে! এসব ঘটনার কিছু চলে আসে খবরের শিরোনামেও। তেমনি কিছু অদ্ভুত তথ্য নিচে দেওয়া হল-

● পৃথিবীর মোট উৎপাদিত খেলনার মধ্যে ৭০ ভাগই চীন তৈরি করে থাকে!

● ভারতে অন্য যেকোনো দেশের চেয়ে বেশি সংখ্যক পোস্ট অফিস রয়েছে?
● ইংরেজি ‘level’ শব্দটির অক্ষরগুলো উল্টে দিলেও তা একই থাকবে!

● ইংরেজি বর্ণমালায় সর্বাধিক ব্যাবহার করা বর্ণ হলো ‘E’ এবং সবচেয়ে কম ব্যবহার করা বর্ণ হলো ‘Q’।

● একটি ডিমে শুধু ভিটামিন সি বাদে অন্য সব প্রকার ভিটামিন থাকে!

● পৃথিবীর মোট বিক্রি হওয়া ৯৬% মোমবাতিই মেয়েরা কিনে।

● পাবলিক টয়লেট বা বাথরুম ব্যবহার করার পর বিশ্বের ৪২% পুরুষ এবং ২৫% মহিলাই তাদের হাত পরিষ্কার করেন না।

● সুইজারল্যান্ডের মানুষরা বিশ্বে সবচেয়ে বেশি চকোলেট খায়। বছরে গড়ে প্রতিজন খায় প্রায় ১০ কেজি করে।

● প্রতি মিনিটে পুরো বিশ্বে ৬০০০ বা তার অধিকবার বজ্রপাত হয়!

● আফ্রিকা মহাদেশে অন্য যেকোনো প্রাণীর আক্রমণের চেয়ে জলহস্তীর আক্রমণে বছরে বেশি মানুষ মারা যায়।

● ফ্রেন্স ফ্রাইয়ের জন্মস্থান ফ্রান্সে নয়, বরং বেলজিয়ামে।

● কোথাও ভ্রমণ করার সময় মানুষ টুথব্রাশ নিতে সবচেয়ে বেশি ভুলে যায়।

● আগস্ট মাসে জন্মহার অন্য সব মাসের চেয়ে বেশি। অর্থাৎ বিশ্বে আগস্ট মাসেই সবচেয়ে বেশি জন্মদিন পালন করা হয়।

● যতক্ষণ পর্যন্ত কোনো খাবার আপনার মুখের লালার সাথে না মিশে আপনি ততক্ষণ সেই খাবারের স্বাদ উপভোগ করতে পারেন না।

● অধিকাংশ লিপস্টিক তৈরিতে মাছের আঁশ ব্যবহার করা হয়।

● পাখিদের খাদ্য গেলার জন্য অভিকর্ষজ বলের প্রয়োজন হয়। অর্থাৎ কোনো পাখিকে যদি চাঁদে নিয়ে খাবার খেতে দেয়া হয় তবে সেটি খাবার গিলতে পারবে না।

● মেয়েদের হার্ট ছেলেদের হার্টের চেয়ে দ্রুত স্পন্দিত হয়।

● শুধু হৃৎপিণ্ডই নয়, মেয়েরা ছেলেদের চেয়ে এমনকি চোখের পাতাও দ্রুত ফেলে!! (প্রায় দিগুন দ্রুত)

● প্রাচীনকালে মিশরে মমি পুড়িয়ে আগুন তৈরি করা হতো। কারণ, সেখানে কাঠের সল্পতা ছিলো, কিন্তু মমির সল্পতা ছিলো না।

● অ্যান্টার্কটিকাতে সবচেয়ে মোটা (প্রস্থে) বরফের টুকরাটির ব্যাসার্ধ ৩ মাইল!

টেডি বিয়ারের অজানা ইতিহাস
                                  

বিশ্বজুড়ে চলছে ভ্যালেন্টাইন সপ্তাহ। ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ১৪ ফেব্রুয়ারি। এরমধ্যে ১০ ফেব্রুয়ারি দিনটিকে বেছে নেওয়া হয়েছে ‘টেডি ডে’ হিসেবে। প্রিয়জনের মন ভোলাতে এই সফ্ট টয়ের জুড়ি মেলা ভার। কিন্তু এই টেডি বিয়ারের ইতিহাস জানেন? এই ইতিহাসের সঙ্গে জড়িয়ে আছে আমেরিকার ২৬তম প্রেসিডেন্ট থিওডোর রুজভেল্টের নাম। যিনি ‘টেডি’ নামেই বেশি পরিচিত ছিলেন। মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সফ্ট টয়েজ বা ভল্লুকের কী সম্পর্ক?

ঘটনার সূত্রপাত ১৯০২ সালের নভেম্বর মাসে, যখন মিসিসিপির জঙ্গলে ভল্লুক শিকার করতে বেরিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট থিওডোর রুজভেল্ট। সারাদিন কেটে গেলেও তিনি সে দিন ভাল শিকার পাননি। ততক্ষণে অন্য শিকারিরা সকলেই অন্তত একটি করে ভল্লুক শিকার করে ফেলেছিলেন।

 

এই অবস্থায় দিনের প্রায় শেষে প্রেসিডেন্টকে খুশি করতে তাঁর সঙ্গীরা ধরে আনেন এক কালো রঙের ছোট্ট ভল্লুক ছানাকে। তাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে প্রেসিডেন্টকে বলা হল, গুলি করতে। কিন্তু প্রেসিডেন্ট ভল্লুকটিকে গুলি করতে অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, এটা অত্যন্ত অমানবিক একটা কাজ। এই কাজ তিনি করতে পারবেন না। ভল্লুকটিকে দেখে তাঁর মায়াই লাগছে বরং।

সেই সময়ে শিকার নিয়ে গোটা বিশ্বে কোন কড়া আইন ছিল না। সামাজিক ভাবেও শিকার ছিল এক বীরত্ব প্রদর্শনেরই খেলা। প্রেসিডেন্ট থিওডোর রুজভেল্টের এই মানবিক দৃষ্টিভঙ্গী গোটা সমাজকে নাড়া দেয়। পরদিনই সেই সময়ের সংবাদমাধ্যমগুলোতে উঠে আসে এই মানবিকতার কাহিনি।

‘ড্রইং দ্য লাইন ইন মিসিসিপি’ নামের একটি কার্টুনে এই গল্প তুলে ধরেন ওয়াশিংটনের তারকা কার্টুনিস্ট বেরিম্যান। সেই কার্টুন দেখে অনুপ্রাণিত হয়ে আমেরিকার খেলনা কোম্পানি ‘আইডিয়াল নভেলটি অ্যান্ড টয় কোম্পানি’`র মালিক মরিস মিকটম এবং তার স্ত্রী প্রথম তৈরি করেন খেলনা ভল্লুক। আর তার নাম দেওয়া হয় টেডি’স বিয়ার, অর্থাৎ টেডির বিয়ার। পরে যা টেডি বিয়ার নামেই পরিচিতি লাভ করে।

সময়ের সঙ্গে সঙ্গে অনেক বদল হয়েছে টেডি বিয়ারের, বদল হয়েছে আকারে এবং রঙে। তবুও একশ` বছরের বেশি সময় ধরে মানুষের মনে নিজের জায়গা ধরে রেখেছে টেডি বিয়ার।

ট্রাক চালক লটারিতে জিতলেন ২০০০ কোটি টাকা!
                                  

কিছুদিন আগেও পেশায় তিনি ছিলেন একজন ট্রাক চালক। কিন্তু একটা লটারির টিকিট বদলে দিয়েছে তার জীবন। কারণ ২৯৮ মিলিয়ন ডলারের লটারির টিকিট জিতে যান তিনি। টাকার হিসাবে যার পরিমাণ ২০০০ কোটি টাকারও বেশি। তাই এবার নতুন করে জীবন শুরু করতে চাইছেন ৫৬ বছরের ডেভিড জনসন।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের বাসিন্দা ডেভিড গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর ট্রাকে গ্যাস ভরতে গিয়ে ৫ ডলার দিয়ে কিছু লটারির টিকিট কিনেছিলেন। কিন্তু তারপরেই অসুস্থ হয়ে পড়ায় আর তার পক্ষে ওই লটারির নম্বর মিলিয়ে দেখা সম্ভব হয়নি। 

কিছুদিন পরে তার বন্ধু তাকে ফোন করে জানান যে, এবারের লোটোর বিজয়ী টিকিটটি বিক্রি হয়েছে ওই গ্যাস স্টেশন থেকেই। তখনও নিজের ভাগ্যের উপরে অতটা ভরসা করতে পারেননি জনসন। তাই তিনি মিলিয়েও দেখেননি নিজের টিকিটের নম্বর।

 

এরপর গত ২৫ জানুয়ারি নিজের টিকিটের নম্বর মিলিয়ে চোখ কপালে ওঠে তার। তিনি দেখেন, পাওয়ার বল নামে পরিচিত লটারির জ্যাকপট জিতেছেন তিনি। তখনই তিনি ঠিক করেন যে, আর ট্রাক চালানোর মতো শারীরিক পরিশ্রমের কাজ করবেন না। বাড়িতে তার স্ত্রীও প্রথমে তার এই কথা বিশ্বাস করেননি।

তবে আবেগ বশে রেখেছিলেন ডেভিড। সঙ্গে সঙ্গে পুরস্কার দাবি করে বসেননি তিনি। বরং লটারির টিকিটটি যত্ন করে রেখে দিয়েছিলেন যাতে সেটি হারিয়ে না যায়। এই টাকায় একটি লাল পোর্শে গাড়ি ও নিজের স্ত্রী ও মেয়ের জন্য নিউইয়র্কে একটি সুন্দর বাড়ি কেনার ইচ্ছা আছে ডেভিডের।

চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয় এই নারীর মল!
                                  

ক্লডিয়া ক্যাম্পেনেলা যুক্তরাজ্যের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনিক কাজ করেন। কিন্তু অবসর সময়ে তিনি যে কাজ করেন - সেটাই সবচেয়ে চমকপ্রদ। কাজের ফাঁকে ফাঁকে তিনি নিজের মল অন্যদের দান করেন। কারণ ডাক্তাররা বের করেছেন যে ক্লডিয়ার মলে এমন `উৎকৃষ্ট মানের ব্যাকটেরিয়া আছে, যা অন্যের দেহে প্রতিস্থাপন করে বিভিন্ন পেটের রোগের চিকিৎসা করা সম্ভব। ক্লডিয়ার বয়স ৩১। তিনি এটাকে রক্তদানের মতই স্বাভাবিক ব্যাপার বলে মনে করেন।

তিনি বলছিলেন, “আমার অনেক বন্ধু মনে করে এটা একটা জঘন্য এবং উদ্ভট ব্যাপার। কিন্তু এটা আমাকে বিচলিত করে না। এটা দান করা খুবই সহজ এবং আমি চিকিৎসা গবেষণায় অবদান রাখতে পেরে খুশি।”

এই ‘মল প্রতিস্থাপন’ কিভাবে কাজ করে তা বলা দরকার এখানে। মনে রাখতে হবে এটা কোন জঘন্য ব্যাপার নয়, বরং একটা জীবনরক্ষাকারী চিকিৎসা।

মানুষের পেটের ভেতরকার নাড়িভুঁড়ি অর্থাৎ অন্ত্রের মধ্যে বাস করে অসংখ্যরকম অণুজীব। কিন্তু বর্তমান যুগে মানুষ যে এ্যান্টিবায়োটিক খায় - তা অনেকসময় শরীরের ভালো এবং খারাপ দু`ধরনের ব্যাকটেরিয়াকেই নির্বিচারে মেরে ফেলে।

ব্যাকটেরিয়া নির্মূল হয়ে যাবার পর যে বিরান পরিবেশ তৈরি হয় -তাতে `ক্লস্ট্রিডিয়াম ডিফিসিল` নামে বিশেষ এক ধরনের ব্যাকটেরিয়া বংশবৃদ্ধি ঘটাতে থাকে।

এর ফলে এমন ডায়রিয়া হয় যার সাথে রক্তপাত, জ্বর এবং পেট ব্যথা হতে পারে - এবং অনেকক্ষেত্রে এটা এত গুরুতর রূপ নেয় যে রোগী মারা যায়।

এই পরিস্থিতিতে আরো এ্যান্টিবায়োটিক দেওয়ার চাইতে ভালো বিকল্প হিসেবে বেরিয়ে এসেছে এই `মল প্রতিস্থাপন` চিকিৎসা। অর্থাৎ একজন সুস্থ ব্যক্তির মল থেকে ভালো ব্যকটেরিয়াগুলো সংগ্রহ করে তা রোগীর মলদ্বার দিয়ে শরীরে ঢুকিয়ে দেওয়া।

ক্লডিয়ার মলে নাকি এত বেশি ভালো ব্যাকটেরিয়া আছে যে তা রীতিমত বিরল।

বিজ্ঞানীরা একে বলছেন ‘সুপার পু’ (super poo) - যার মধ্যে ভালো ব্যাকটিরিয়ার চমৎকার সমন্বয় ঘটেছে এবং ক্লডিয়া হচ্ছেন একজন ‘সুপার ডোনার’ বা দাতা।

ক্লডিয়া একজন ভেজিটারিয়ান অর্থাৎ নিরামিষভোজী, আর নিরামিষভোজীরা ভালো মল-দাতা হতে পারেন - এটা জানার পরই তিনি একজন ডোনার হতে আগ্রহী হন।

সূত্র: বিবিসি বাংলা

মাটির নিচে মিলল ৪ টনের সোনার মুখোশ!
                                  

কলম্বিয়ার ককা উপত্যকায় একটি আখের খেতে ট্রাক্টর চালাচ্ছিলেন এক কৃষিজীবী। হঠাৎ ধাতব এক শব্দ। মাটির নীচ থেকে উদ্ধার হয় প্রায় চার টনের আস্ত সোনার মুখোশ। ফলে প্রকাশ্যে আসে মালাগানা সংস্কৃতির বেশ কিছু অজানা কথা। শুধুমাত্র একটা সোনার মুখোশকে কেন্দ্র করে খুন, লুটপাট- একের পর এক ঘটনায় সরগরম হয়ে ওঠে ওই এলাকা।

কলম্বিয়ার ককা উপত্যকায় পাওয়া এই সোনার মুখোশ প্রথম লুকিয়ে রেখেছিলেন ওই কৃষিজীবী। কিন্তু এই খবর চাপা থাকেনি। প্রায় ৫০০ বর্গমিটার বিস্তৃত ছিল এই চাষের জমি, যা পরে প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানের খ্যাতি পায়।

এই মুখোশের জন্য খুনোখুনিও হয়। ১৯৯২ সালে ওই একই এলাকা থেকে মালাগানা সংস্কৃতির বেশ কিছু প্রত্নতাত্ত্বিক সামগ্রী উদ্ধার হয়। এর মধ্যে অন্যতম একটা সোনার চিমটে, যা ভ্রূ ঠিক করতে ব্যবহার করতেন প্রাচীনকালের অভিজাত ব্যক্তিরা। প্রত্নস্থল থেকে সোনা লুটের সময় ১৯৯৩ সালে এক ব্যক্তি এখানে খুন হন।

 

চার টনের মুখোশ মেলায় শত শত সমাধি ধ্বংস করা হয়। আরও বেশি সোনা খুঁজে পাওয়ার লোভে লুট হতেই থাকে। ধীরে ধীরে প্রত্নতত্ত্ববিদদের কাছে ওই সংস্কৃতির নানা অজানা তথ্য সামনে আসে। স্থানীয় লুটেরাদের হাত থেকে ওই স্থানটি রক্ষা করতে সচেষ্ট হন তাঁরা।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

পালিয়ে বিয়ে করা দম্পতিদের সাহায্য করবে পুলিশ!
                                  

ভারতজুড়ে সম্মান রক্ষার্থে হত্যা দুঃখজনক সত্য। এই একবিংশ শতাব্দীতেও পরিবারের অমতে বিয়ে করলে প্রাণ দিতে হচ্ছে অনেক নর-নারীকে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে গোত্র, ধর্ম কিং আর্থিক মানমর্যাদার  মিল না হওয়ায় ভারতের অনেক স্থানে পরিবারগুলো সন্তানের বিয়ে বা সম্পর্ক মেনে নিতে পারে না।

সেক্ষেত্রে `পরিবারের সম্মান রক্ষার্থে` নিজের সন্তানকেই হত্যা করেন তারা। এ জন্য জেলেও যেতে হয় তাদের। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে নিরাপত্তা বাহিনী যুগলদের সহায়তা না করে পরিবারের সঙ্গেই থাকে। 

তবে এক্ষেত্রে ভারতের রাজস্থান পুলিশ এ ব্যতিক্রমী অবস্থান নিয়েছে। তারা পালিয়ে বিয়ে করা যুগলদের নিরাপত্তা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে। রাজস্থান হাই কোর্টের আদেশের ওপর ভিত্তি করেন সেখানকার পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিচালক জঙ্গা শ্রীনিবাস রাও বলেছেন, তারা এসব দম্পতির জন্য একটি হেলপলাইনও চালু করবেন। এরইমধ্যে সব জেলা পুলিশ প্রধানকে হেলপলাইন চালুর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি একজন জ্যেষ্ঠ নারী পুলিশ কর্মকর্তা নিয়োগের কথাও বলা হয়েছে।
সূত্র: ইন্ডিয়া টাইমস

৮ বছর সন্ন্যাসিনী হওয়ার প্রশিক্ষণ নিয়ে হলেন `পর্নস্টার`!
                                  

ইউডি পিনেডা। কলম্বিয়া তোলপাড় ২৮ বছরের এই নারীকে নিয়ে। ১৩ জানুয়ারি মুক্তি পাবে তার প্রথম পর্নছবি। পিনেডার ভাষায়, ‘আর্টিস্টিক পর্নফিল্ম’। কিন্তু এই পিনেডার অতীত কিন্তু একেবারেই অন্যরকম। সেই ইতিহাসের পাতাগুলোতেই চোখ বুলিয়ে নেওয়া যাক।

দশ বছর বয়সেই তিনি কনভেন্ট স্কুলে পাড়ি দিয়েছিলেন সন্ন্যাসিনী হবেন বলে। ইউডির কথায়, ‘‘কনভেন্ট স্কুলে জীবনটা খুব আনন্দের সঙ্গেই কাটাচ্ছিলাম।’’ জীবন যখন আনন্দেই কাটছিল, তখন আবার আট বছর কনভেন্ট স্কুলে থাকার পর মত পরিবর্তন কেন?

কারণ ১৮ বছর বয়সে সেখানেই প্রেমে পড়ে যান এক ধর্মীয় প্রশিক্ষকের। আর প্রেমে পড়া মাত্রই নিয়মে বাঁধা জীবন থেকে একটু বের হয়ে আসতে চাইছিলেন তিনি। তখনই কনভেন্টের গণ্ডি পেরিয়ে অন্য কিছু করবেন বলে মনস্থির করেন কলম্বিয়ার ইউডি পিনেডা।

 

কলম্বিয়ার শহর মেডেল্লিনে চলে আসেন তিনি। ‘নেসলে’ কোম্পানিতে চাকরিও জোগাড় করে ফেলেন। কিন্তু ইউডির মন বলছিল এক, আর তিনি দিনের পর দিন করে যাচ্ছিলেন অন্যকিছু।

এক দিকে প্রেম। আর এক দিকে চাকরি জীবন। সব মিলিয়ে টালমাটাল জীবন নিয়ে হতাশ হয়ে যাচ্ছিলেন ইউডি। হঠাৎই খবর পান জুয়ান বুস্টোস নামের এক ভদ্রলোক মডেলের খোঁজ করছেন নিজের অ্যাডাল্ট ওয়েব পোর্টালের জন্য। খবর পাওয়া মাত্রই, জুয়ান বুস্টোসের দলে নাম লিখিয়ে নেন ইউডি।

ইউডির কথায়, ‘‘আমি বেশ কিছু অডিশন দিয়েছিলাম। তার পর জুয়ান বুস্টোসের নজরে আসি। অডিশন শেষ হওয়া মাত্র উনি আমাকে ফাইনাল করেন।’’

কিন্তু কোথায় সন্ন্যাসিনী হওয়ার প্রশিক্ষণ নিচ্ছিলেন, সেখান থেকে ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে গিয়ে পর্নস্টার? পরিষ্কার ভাবে ইউডি বললেন, ‘‘প্রথম প্রথম একটু খারাপ লাগছিল। কিন্তু এখন বেশ ভালই লাগছে। যখন চার্চে যাই তখনও আমার খুব ভাল লাগে। ’’

তবে এমনতর জীবিকা বদলের ইচ্ছে ইউডির মুখ থেকে শুনে রেগে গিয়েছিলেন তার কনভেন্ট স্কুলের শিক্ষিকারাও। ইউডির কথা অনুযায়ী, বহু বাধার দেওয়ারও চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু কারও কোনো বারণ শোনেননি অভিনেত্রী।

নবাগতা এই পর্নস্টার তার নতুন এই ক্যারিয়ারকে বলছেন, ‘শালীন এবং শৈল্পিক।’ আর বললেন, ‘পর্ন ছবিতে অভিনয় করার মধ্যে আমি খারাপ কিছুই দেখি না।’

কনভেন্ট স্কুলের গণ্ডির মধ্যে বেড়ে ওঠা। তাই ইউডির প্রথম ছবির থিম ওই কনভেন্ট নিয়েই। আর ছবিটির প্রযোজনা এবং পরিবেশনা করবেন ‘ব্যাংব্রোস’।

`কী দিয়ে তৈরি করা হয়েছিল সাইকেল?`
                                  

কী দিয়ে তৈরি করা হয়েছিল সাইকেল?` সম্প্রতি এমন প্রশ্নই ঘুরপাক খাচ্ছে চীনের সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া একটি ছবিতে। সেখানে দেখা যাচ্ছে একটি সাইকেলের ধাক্কায় বেঁকে গেছে গাড়ির সামনের অংশ। সেই ছবিতে কমেন্টের পাশাপাশি বিস্ময়ের শেষ নেই নেটিজেনদের।

এই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ চীনের শেনজেন শহরে। আশ্চর্যজনক ভাবে সাইকেলের ধাক্কায় গাড়িটির সামনের অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হলেও সাইকেলটির বিন্দুমাত্র ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি!

এই ছবিটি সামনে আসতে স্বাভাবিক ভাবেই আলোচনায় মেতেছেন নেটিজেনরা। কেউ কেউ ছবিটিকে এডিটিংয়ের কারসাজি বলেও উল্লেখ করেছেন। কিন্তু সেই দাবি নস্যাৎ করেছে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন। তারা জানিয়েছে, ঘটনাটি সত্যি। এ সম্পর্কিত সিসিটিভি ফুটেজও প্রকাশ করেছে স্থানীয় পুলিশ। সূত্র: আনন্দবাজার

শীতকালে চিকেন স্যুপে রসুন
                                  

চিকেন স্যুপ, শীতকালের অন্যতম একটি খাবার। হালকা ঠান্ডা, সর্দি বা জ্বরে চিকেন স্যুপ তো প্রায় অপরিহার্য। মুহূর্তে চাঙ্গা করে তুলতে এর জুড়ি নেই।  চিকেন স্যুপ শীতকালের জন্য আরও উপযোগী হয়ে ওঠে যখন তাতে দেওয়া হয় রসুন। এই রেসিপিতে তৈরি চিকেন স্যুপ মাত্র ২০ মিনিটেই রান্না করে ফেলা যায় প্রেশার কুকারে। আর এরপর মুখের মাঝে গলে যায় রসুনের কোয়াগুলো।  দেখে নিন রেসিপিটি-

উপকরণ

১ টেবিল চামচ মাখন

 

১ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল

৪০ কোয়া রসুন

২টি বোনলেস, স্কিনলেস চিকেন ব্রেস্ট

১ লিটার চিকেন ব্রথ

২ টেবিল চামচ ময়দা

লবণ স্বাদমতো

পরিবেশনের জন্য ধনেপাতা কুচি

প্রণালী

১) প্রেশার কুকার গরম করে নিন। এতে মাখন, তেল ও রসুন দিয়ে নাড়তে থাকুন। ৫ মিনিটের মাঝে রসুন ভাজা ভাজা হয়ে আসবে। এরপর এতে মুরগির মাংস ও চিকেন ব্রথ দিয়ে দিন।  ঢাকনা আটকে দিন। রান্না হতে দিন ৮ মিনিট।  নিজের পছন্দের কোনো মশলা দিতে পারেন, যেমন গোলমরিচ গুঁড়ো, অরিগানো, বেসিল।

২) প্রেশার কুকারের চাপ কমে আসলে ঢাকনা খুলে নিন। এরপর চিকেন ব্রেস্ট বের করুন ও দুইটি কাঁটাচামচ দিয়ে ছিঁড়ে ছিঁড়ে নিন।

৩) ছোট একটি পাত্র ১ কাপ চিকেন ব্রথ নিন ও এতে ময়দা গুলে নিন। ময়দার বদলে অ্যারারুট দিতে পারেন।  এরপর স্যুপের সাথে ছিঁড়ে নেওয়া মুরগি, ময়দার মিশ্রণ ও স্বাদমতো লবণ দিন। ভালো করে নাড়ুন যাতে মিশে যায়।  এরপর চুলা থেকে নামিয়ে নিন।

গরম গরম পরিবেশন করুন ওপরে ধনেপাতা কুচি দিয়ে।

সূত্র: পপসুগার


   Page 1 of 12
     ফিচার
করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সচেতনতা ও আমাদের করণীয়
.............................................................................................
গাধার দুধ দিয়ে তৈরি পনির, প্রতি কেজি ৭৯ হাজার টাকা!
.............................................................................................
দর্শনার্থীর মোবাইল ছিনিয়ে নিয়ে বানরের সেলফি!
.............................................................................................
হংকং-এর অদ্ভুদ উৎসব `বান ফেস্টিভ্যাল`!
.............................................................................................
বয়স ৫০ হওয়ার আগেই দৃষ্টি হারান যে গ্রামের সব পুরুষ!
.............................................................................................
গভীর সাগর দিয়ে ছুটবে ট্রেন
.............................................................................................
‘ব্রেক-আপ’ করতে বিজ্ঞাপন!
.............................................................................................
অদ্ভুত কিছু তথ্য
.............................................................................................
টেডি বিয়ারের অজানা ইতিহাস
.............................................................................................
ট্রাক চালক লটারিতে জিতলেন ২০০০ কোটি টাকা!
.............................................................................................
চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয় এই নারীর মল!
.............................................................................................
মাটির নিচে মিলল ৪ টনের সোনার মুখোশ!
.............................................................................................
পালিয়ে বিয়ে করা দম্পতিদের সাহায্য করবে পুলিশ!
.............................................................................................
৮ বছর সন্ন্যাসিনী হওয়ার প্রশিক্ষণ নিয়ে হলেন `পর্নস্টার`!
.............................................................................................
`কী দিয়ে তৈরি করা হয়েছিল সাইকেল?`
.............................................................................................
শীতকালে চিকেন স্যুপে রসুন
.............................................................................................
জেল থেকে পালিয়ে পুলিশের কাছেই সাহায্য আসামির, অতঃপর...!
.............................................................................................
মা কুকুর, সন্তান বিড়াল!
.............................................................................................
ফেনীতে মোবাইল বিস্ফোরণে কলেজছাত্র নিহত
.............................................................................................
নায়িকার সঙ্গে পুলিশের ডিস্কো নাচ, অতপর...
.............................................................................................
রাজধানীতে সিটি করপোরেশনের গাড়ির ধাক্কায় নারী নিহত
.............................................................................................
যৌনতার জন্য বিশেষ ছুটি ঘোষণা!
.............................................................................................
শিশুর শ্বাসনালিতে আটকে গেল চার্জারের পিন! অতঃপর...
.............................................................................................
৩য় সন্তান জন্ম নিলে মা-বাবাকে দেওয়া হবে চাষযোগ্য জমি!
.............................................................................................
ব্যারিস্টার মইনুলের বিচার দাবিতে বরিশালে মানববন্ধন
.............................................................................................
পৃথিবীর ভয়ংকর গুহা হ্যাংসন ডুং!
.............................................................................................
৪০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে বোতল ভর্তি `বিশুদ্ধ হাওয়া`
.............................................................................................
রহস্যময় জুতা জোড়া, দাম ১৪১ কোটি টাকা!
.............................................................................................
বিবস্ত্র হয়ে ঘর পরিষ্কার করে মাসিক আয় ৪ লাখ টাকা!
.............................................................................................
বিচিত্র `বিয়ে`, রাত ফুরালেই সঙ্গিনীকে ছেড়ে যায় সঙ্গী!
.............................................................................................
৩৩ বছরের কর্মজীবনে এক দিন ছুটি!
.............................................................................................
৫০ হাজার বছর আগের নেকড়ের দেহাবশেষের সন্ধান!
.............................................................................................
বিলুপ্ত প্রজাতির বানর রক্ষার্থে বন তৈরি!
.............................................................................................
হার্ট অ্যার্টাকে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কাদের বেশি, জানাল গবেষণা!
.............................................................................................
নামের প্রথম অক্ষর বলে দেবে আপনি কেমন!
.............................................................................................
লো কার্ব ডায়েটে কমে যেতে পারে আয়ু!
.............................................................................................
যে দেশে পুরুষসঙ্গী ছাড়া বাসা ভাড়া পায় না মেয়েরা
.............................................................................................
জাবালে নূর পরিবহনের ৬ বাস জব্দ
.............................................................................................
৪০ হাজার বছর পর ঘুম ভাঙল পোকাটির!
.............................................................................................
বয়স কম, তবুও বয়স্ক দেখালে মেনে চলুন ৩ উপায়
.............................................................................................
বদহজম-কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে লবঙ্গ
.............................................................................................
অ্যালার্জির সমস্যায় বিপদ বাড়িয়ে দেয় ৫ ভুল
.............................................................................................
দিনাজপুর বোর্ডে যে ১২টি কলেজের কেউ পাস করেনি
.............................................................................................
অ্যালার্জির সমস্যায় বিপদ বাড়িয়ে দেয় ৫ ভুল
.............................................................................................
লটকনের পুষ্টিগুণ
.............................................................................................
লটকনের পুষ্টিগুণ
.............................................................................................
বিদ্যুৎ বিল কমানোর ৬ উপায়
.............................................................................................
১৭ একর জমিতে অগ্নিকাণ্ডের নেপথ্যে পাখি!
.............................................................................................
রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় কাঁঠাল
.............................................................................................
রান্নাঘরের খুঁটিতে ১৩ ফুটের অজগর! অতঃপর...
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো : মাহবুবুর রহমান ।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মো: হাবিবুর রহমান । সম্পাদক কর্তৃক বিএস প্রিন্টিং প্রেস ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, সুত্রাপুর ঢাকা খেকে মুদ্রিত
ও ৬০/ই/১ পুরানা পল্টন (৭ম তলা) থেকে প্রকাশিত বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৫১,৫১/ এ রিসোর্সফুল পল্টন সিটি (৪র্থ তলা), পুরানা পল্টন, ঢাকা -১০০০।
ফোনঃ-০২-৯৫৫০৮৭২ , ০১৭১১১৩৬২২৬

Web: www.bhorersomoy.com E-mail : dbsomoy2010@gmail.com
   All Right Reserved By www.bhorersomoy.com Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD