ঢাকা,রবিবার,২৮ শ্রাবণ ১৪২৭,১১,এপ্রিল,২০২১
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * বাংলাদেশ ১৬-২০ গ্রেড সরকারি কর্মচারী সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন   * বিএনপির অপরাজনীতিতে বিভ্রান্তির কারণে করোনা বাড়ছে : কাদের   * ক্যান্সার আক্রান্ত আম্পায়ার নাদির শাহর পাশে পিচ ফাউন্ডেশন   * পেঁয়াজের দাম কমেছে   * আবারও বাড়ল আমদানির চাল বাজারে আনার সময়   * ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা   * ঢাকা আসছেন ভারতের সেনাপ্রধান   * ঝড়-বৃষ্টি বাড়ছে, তাপমাত্রা আরও কমবে   * ভারতে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ, সোয়া লাখ শনাক্তে ফের রেকর্ড   * ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের মধ্যেই শুরু হলো টিকার দ্বিতীয় ডোজ  

   জাতীয় -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
পেঁয়াজের দাম কমেছে

সরকারঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধে আতঙ্ক ছড়ানোয় রাজধানীর বাসিন্দাদের অতিরিক্ত কেনাকাটার কারণে পেঁয়াজের দাম দুই দফা বাড়লেও এখন নিত্যপ্রয়োজনীয় এ পণ্যটির দাম কমেছে। গত দুইদিনে খুচরা পর্যায়ে কেজিতে ৫ টাকা এবং পাইকারিতে ৭ টাকা পর্যন্ত কমেছে পেঁয়াজের দাম। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে এখন ভালো মানের হালি পেঁয়াজে ভরপুর। বাজারে পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকলেও ক্রেতা কম। যে কারণে দামও কমে গেছে। ক্রেতারা আবার অস্বাভাবিক আচরণ না করলে সহসা পেঁয়াজের দাম বাড়ার সম্ভাবনা কম তারা বলছেন, লকডাউনের আতঙ্কে দুইদিন মানুষ প্রচুর পেঁয়াজ কিনেছেন। ক্রেতাদের বাড়তি ক্রয়ের কারণে বাজারে পেঁয়াজের সরবরাহ কমে যায়। এ কারণে দাম বাড়ে। বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, ভালো মানের দেশি পেঁয়াজের খুচরা পর্যায়ে কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকা। দু’দিন আগে এই পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছিল ৪০ টাকা কেজি। অপরদিকে পাইকারিতে দেশি পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৮-২৯ টাকা, যা দু’দিন আগে ছিল ৩৫ টাকা। মালিবাগ হাজীপাড়ার ব্যবসায়ী মো. জাহাঙ্গীর বলেন, পাইকারিতে দাম বাড়ায় দু’দিন আমরা পেঁয়াজের কেজি ৪০ টাকায় বিক্রি করেছি। এখন পাইকারিতে দাম কমেছে। এ কারণে আমরাও দাম কমিয়ে ৩৫ টাকা কেজি বিক্রি করতে পারছি। রামপুরার ব্যবসায়ী মিলন শেখ বলেন, পেঁয়াজের দাম কখন কী হয় বলা মুশকিল। দু’দিন আগেই দু’দফা দাম বেড়ে কেজি ৪০ টাকা হয়েছিল। এখন আবার দাম কমে ৩৫ টাকা হয়েছে। দাম কমলেও ক্রেতা পাওয়া যাচ্ছে না। দু’দিন ধরে পেঁয়াজের বিক্রি নেই বললেই চলে। এ অবস্থা থাকলে সামনে পেঁয়াজের দাম আরও কমতে পারে। বাড্ডার ব্যবসায়ী আলী ইমাম বলেন, হঠাৎ করে পেঁয়াজের দাম কমে যাওয়ায় লোকসানের মধ্যে পড়েছি। আড়ৎ থেকে ৩৫ টাকা কেজি কিনে আনা পেঁয়াজ এখন ৩৫ টাকা কেজি বিক্রি করতে হচ্ছে। ৩৫ টাকা কেজি কেনা পেঁয়াজ এখনও এক মণের ওপরে রয়েছে। সামনে দাম কমে গেলে লোকসান আরও বাড়বে। তিনি বলেন, কঠোর লকডাউনের খবরে যেভাবে পেঁয়াজের দাম বেড়েছিল, তাতে ধারনাও করতে পারিনি দু’দিনের মধ্যে দাম কমে যাবে। এমনি ব্যবসার পরিস্থিতি ভালো না। এ পরিস্থিতে পেঁয়াজ কিনে লোকসান গুনতে হচ্ছে। আমাদের কষ্ট দেখার মতো কেউ নেই। কারওয়ানবাজারের ব্যবসায়ী গৌতম বাবু বলেন, পাইকারি বাজারে এখন যে পেঁয়াজ পাওয়া যাচ্ছে, তার সবই হালি পেঁয়াজ। বাজারে ভালো মানের এই পেঁয়াজের প্রচুর সরবরাহ রয়েছে। কিন্তু ক্রেতা খুব কম। এ কারণে দাম কমে গেছে। তিনি বলেন, এর আগে লকডাউন আতঙ্কে ক্রেতারা বাড়তি পরিমাণে পেঁয়াজ কিনে রেখেছেন। যে কারণে এখন তারা পেঁয়াজ কিনছেন না। দু’দিন বাড়তি কেনার কারণে পেঁয়াজের একটু দাম বেড়ে ছিল। বিক্রি কমে যাওয়া দামও কমেছে। পেঁয়াজের এই পাইকারি বিক্রেতা আরও বলেন, এখন পাইকারিতে ভালো মানের দেশি পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৮-২৯ টাকা। রোজার আগে পেঁয়াজের দাম নতুন করে বাড়ার সম্ভাব না খুব কম। বরং কেজিতে দাম আরও এক-দুই টাকা কমতে পারে।

পেঁয়াজের দাম কমেছে
                                  

সরকারঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধে আতঙ্ক ছড়ানোয় রাজধানীর বাসিন্দাদের অতিরিক্ত কেনাকাটার কারণে পেঁয়াজের দাম দুই দফা বাড়লেও এখন নিত্যপ্রয়োজনীয় এ পণ্যটির দাম কমেছে। গত দুইদিনে খুচরা পর্যায়ে কেজিতে ৫ টাকা এবং পাইকারিতে ৭ টাকা পর্যন্ত কমেছে পেঁয়াজের দাম। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে এখন ভালো মানের হালি পেঁয়াজে ভরপুর। বাজারে পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকলেও ক্রেতা কম। যে কারণে দামও কমে গেছে। ক্রেতারা আবার অস্বাভাবিক আচরণ না করলে সহসা পেঁয়াজের দাম বাড়ার সম্ভাবনা কম তারা বলছেন, লকডাউনের আতঙ্কে দুইদিন মানুষ প্রচুর পেঁয়াজ কিনেছেন। ক্রেতাদের বাড়তি ক্রয়ের কারণে বাজারে পেঁয়াজের সরবরাহ কমে যায়। এ কারণে দাম বাড়ে। বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, ভালো মানের দেশি পেঁয়াজের খুচরা পর্যায়ে কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকা। দু’দিন আগে এই পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছিল ৪০ টাকা কেজি। অপরদিকে পাইকারিতে দেশি পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৮-২৯ টাকা, যা দু’দিন আগে ছিল ৩৫ টাকা। মালিবাগ হাজীপাড়ার ব্যবসায়ী মো. জাহাঙ্গীর বলেন, পাইকারিতে দাম বাড়ায় দু’দিন আমরা পেঁয়াজের কেজি ৪০ টাকায় বিক্রি করেছি। এখন পাইকারিতে দাম কমেছে। এ কারণে আমরাও দাম কমিয়ে ৩৫ টাকা কেজি বিক্রি করতে পারছি। রামপুরার ব্যবসায়ী মিলন শেখ বলেন, পেঁয়াজের দাম কখন কী হয় বলা মুশকিল। দু’দিন আগেই দু’দফা দাম বেড়ে কেজি ৪০ টাকা হয়েছিল। এখন আবার দাম কমে ৩৫ টাকা হয়েছে। দাম কমলেও ক্রেতা পাওয়া যাচ্ছে না। দু’দিন ধরে পেঁয়াজের বিক্রি নেই বললেই চলে। এ অবস্থা থাকলে সামনে পেঁয়াজের দাম আরও কমতে পারে। বাড্ডার ব্যবসায়ী আলী ইমাম বলেন, হঠাৎ করে পেঁয়াজের দাম কমে যাওয়ায় লোকসানের মধ্যে পড়েছি। আড়ৎ থেকে ৩৫ টাকা কেজি কিনে আনা পেঁয়াজ এখন ৩৫ টাকা কেজি বিক্রি করতে হচ্ছে। ৩৫ টাকা কেজি কেনা পেঁয়াজ এখনও এক মণের ওপরে রয়েছে। সামনে দাম কমে গেলে লোকসান আরও বাড়বে। তিনি বলেন, কঠোর লকডাউনের খবরে যেভাবে পেঁয়াজের দাম বেড়েছিল, তাতে ধারনাও করতে পারিনি দু’দিনের মধ্যে দাম কমে যাবে। এমনি ব্যবসার পরিস্থিতি ভালো না। এ পরিস্থিতে পেঁয়াজ কিনে লোকসান গুনতে হচ্ছে। আমাদের কষ্ট দেখার মতো কেউ নেই। কারওয়ানবাজারের ব্যবসায়ী গৌতম বাবু বলেন, পাইকারি বাজারে এখন যে পেঁয়াজ পাওয়া যাচ্ছে, তার সবই হালি পেঁয়াজ। বাজারে ভালো মানের এই পেঁয়াজের প্রচুর সরবরাহ রয়েছে। কিন্তু ক্রেতা খুব কম। এ কারণে দাম কমে গেছে। তিনি বলেন, এর আগে লকডাউন আতঙ্কে ক্রেতারা বাড়তি পরিমাণে পেঁয়াজ কিনে রেখেছেন। যে কারণে এখন তারা পেঁয়াজ কিনছেন না। দু’দিন বাড়তি কেনার কারণে পেঁয়াজের একটু দাম বেড়ে ছিল। বিক্রি কমে যাওয়া দামও কমেছে। পেঁয়াজের এই পাইকারি বিক্রেতা আরও বলেন, এখন পাইকারিতে ভালো মানের দেশি পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৮-২৯ টাকা। রোজার আগে পেঁয়াজের দাম নতুন করে বাড়ার সম্ভাব না খুব কম। বরং কেজিতে দাম আরও এক-দুই টাকা কমতে পারে।

আবারও বাড়ল আমদানির চাল বাজারে আনার সময়
                                  

বেসরকারিভাবে আমদানির জন্য বরাদ্দ পাওয়া যেসব আমদানিকারক গত ১৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে এলসি খুলেছেন তাদের সব চাল আগামী ২০ এপ্রিলের মধ্যে বাজারজাত করতে হবে। চাল আনার সময় বাড়িয়ে বুধবার (৭ এপ্রিল) খাদ্য মন্ত্রণালয় থেকে বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। এর আগে এলসির সব চাল বাজারে আনার বেঁধে দেয়া সময় শেষ হয়েছে বুধবার। চিঠিতে বলা হয়, বেসরকারিভাবে চাল আমদানির জন্য বরাদ্দপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে যেসকল আমদানিকারকরা ১৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে এলসি খুলেছেন কিন্তু চাল বাজারজাত করতে পারেননি, তাদের এলসি করা সম্পূর্ণ চাল বাজারজাতকরণের জন্য আগামী ২০ এপ্রিল পর্যন্ত সময় বাড়ানো হলো। খাদ্যশস্যের বাজারমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রবণতা রোধ, নিম্নআয়ের জনগোষ্ঠীকে সহায়তা এবং বাজারদর স্থিতিশীল রাখতে বেসরকারি পর্যায়ে চালের আমদানি শুল্ক ৬২ দশমিক ৫০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২৫ শতাংশ নির্ধারণ করে সরকার। খাদ্য মন্ত্রণালয় থেকে গত বছরের ২৭ ডিসেম্বর বেসরকারিভাবে চাল আমদানির জন্য বৈধ আমদানিকারকদের প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্রসহ ১০ জানুয়ারির মধ্যে খাদ্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন করতে বলা হয়। খাদ্য মন্ত্রণালয় বিভিন্ন শর্তে বেসরকারি পর্যায়ে সর্বমোট ৩২০ ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানকে ১০ লাখ ১৪ হাজার ৫০০ টন চাল আমদানির অনুমতি দিয়েছে। এই অনুমতির চিঠি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। কিন্তু বরাদ্দের বেশির ভাগ চালই আনতে পারেনি আমদানিকারকরা। নির্দিষ্ট সময়ে ঋণপত্র বা এলসি খুলতে না পারায় অনেকের বরাদ্দপত্র বাতিল করা হয়। যারাও ঋণপত্র খুলতে পেরেছেন, পুরো চাল বাজারে আনতে পারছেন না তারা। বার বার তাদের চাল বাজারে আনার সময় বাড়ানো হচ্ছে।

‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা
                                  

রাষ্ট্রবিরোধী উস্কানিমূলক বক্তব্য দেয়া ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অভিযোগে কথিত ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয়েছে। গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) গাছা থানায় মামলাটি দায়ের করা হয়। বুধবার দিবাগত রাত ২টার দিকে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের গাছা থানায় র‌্যাব বাদী হয়ে মামলা করে। পরে র‌্যাব রফিকুলকে গাছা থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে। বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) সকালে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, রফিকুল ইসলাম মাদানীর বিরুদ্ধে গাজীপুরের গাছা থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয়েছে। মামলার পর তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। জানা গেছে, মামলায় রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে ২০১৮ সালের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫, ২৮ ও ৩১ ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে। যেখানে ধর্মীয় মূল্যবোধ ও অনুভূতিতে আঘাত করে আক্রমণাত্মক ও মিথ্যা ভীতি প্রদর্শন; তথ্য উপাত্ত ইলেকট্রনিক্স বিন্যাসে প্রকাশ ও সম্প্রচার করে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতি ঘটনোর অপরাধের কথা বলা হয়েছে। এর আগে বুধবার দুপুরে নেত্রকোনা থেকে শিশুবক্তা হিসেবে পরিচিত রফিকুল ইসলামকে আটক করে র‌্যাব। এসময় তার কাছ থেকে চারটি মোবাইল জব্দ করা হয়। র‌্যাব সূত্র জানিয়েছে, প্রাথমিকভাবে রফিকুলের কাছ থেকে জব্দ করা ফোন তল্লাশি চালিয়ে বেশ কিছু পর্ন ভিডিও পাওয়া গেছে। এছাড়া আসমা বেগম নামের এক নারীকে গোপনে বিয়ে করেছেন তিনি। সেই নারী সম্পর্কে তার ভাবির চাচাতো বোন। ২০১৯ সালের শেষদিকে তিনি ওই নারীকে বিয়ে করলেও তার পরিবারের কেউ তা জানতেন না। গত ২৫ মার্চ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে রাজধানীর মতিঝিল শাপলা চত্বর এলাকায় বিক্ষোভ চলাকালে রফিকুল ইসলামকে আটক করেছিল পুলিশ। অবশ্য সেদিন রাতেই তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। রফিকুল ইসলাম রাজধানীর জামিয়া মাদানীয়া বারিধারা মাদরাসায় লেখাপড়া করেন। শারীরিক আকৃতিতে ছোট হওয়ায় তাকে সবাই শিশুবক্তা বলে থাকেন এবং এ হিসেবেই পরিচিতি পান তিনি। রফিকুল ইসলামের গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনায়। থাকেন ঢাকার অদূরে গাজীপুরে। তিনি বিএনপি-জামায়াত জোটের শরিকদল জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের অঙ্গসংগঠন যুব জমিয়তের নেত্রকোনা জেলার সহ-সভাপতি।

ঢাকা আসছেন ভারতের সেনাপ্রধান
                                  

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের আমন্ত্রণে পাঁচ দিনের সফরে ঢাকা আসছেন ভারতীয় সেনাপ্রধান জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নরভানে। বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) তিনি ঢাকা পৌঁছাবেন। ভারতীয় হাইকমিশনের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, মনোজ মুকুন্দ নরভানের সঙ্গে তার স্ত্রী শ্রীমতী বীণা নরভানে এবং দুই সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল থাকবে। ঢাকা সফরকালে বাংলাদেশ সেনা, নৌ ও ভারপ্রাপ্ত বিমান বাহিনী প্রধান এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন ভারতীয় সেনাপ্রধান। তিনি বাংলাদেশের বিভিন্ন সামরিক ঘাঁটিও পরিদর্শন করবেন। এছাড়া ঢাকা সেনানিবাসের শিখা অনির্বাণের বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে আত্মত্যাগকারী বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদেরও শ্রদ্ধা জানাবেন ভারতীয় সেনাপ্রধান। অপরদিকে জাতিসংঘের শান্তির সমর্থনে অপারেশন সম্পর্কিত সেমিনারে অভিজ্ঞতা বিনিময় করবেন তিনি। যৌথ সামরিক অনুশীলন-শান্তির অগ্রসেনার সমাপনী অনুশীলন, হার্ডওয়্যার প্রদর্শনী এবং সমাপনী অনুষ্ঠানেও উপস্থিত থাকবেন। ভারতীয় হাইকমিশন জানায়, এই সফর দুই দেশের সশস্ত্র বাহিনীর মধ্যে বিদ্যমান ঘনিষ্ঠ ও ভ্রাতৃত্বপূর্ণ সম্পর্ককে আরও জোরদার করবে।

ঝড়-বৃষ্টি বাড়ছে, তাপমাত্রা আরও কমবে
                                  

বসন্তের শেষে এসে বাড়ছে ঝড়-বৃষ্টির প্রবণতা। ঝড়-বৃষ্টির সম্ভাষণে গ্রীষ্মকে বরণের অপেক্ষা যেন প্রকৃতির। দূর হয়েছে জনজীবনে হাঁসফাঁস তোলা তাপপ্রবাহ। একে তো করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে বিধিনিষেধের জীবন, এর ওপর গরম কমে বসন্তের প্রকৃতি পেয়েছে এক মনোরম রূপ। বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) বসন্তের দ্বিতীয় মাস চৈত্রের ২৫ তারিখ। আর ৫ দিন পরই পহেলা বৈশাখ, প্রকৃতিতে পা রাখবে ‘রুদ্র তাপস’ গ্রীষ্ম। আবহাওয়া বিভাগ জানিয়েছে, মঙ্গলবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল রাজশাহীতে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। একদিনের ব্যবধানে বুধবার তা কমে হয়েছে ৩৬ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, ঢাকায় এই তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। আবহাওয়া দফতর পাঁচ বিভাগে ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে। এ সময়ে তাপমাত্রা আরও কমার সম্ভাবনার কথাও জানিয়েছে সংস্থাটি। বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, কুমিল্লা অঞ্চলসহ রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, ময়মনসিংহ, সিলেট বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলাসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। এ সময়ে রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগে দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে এবং অন্যত্র তা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। তবে সারাদেশে রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে বলেও পূর্বাভাসে উল্লেখ করা হয়েছে। আগামী তিন দিনের আবহাওয়া পূর্বাভাসে অধিদফতর জানিয়েছে আবহাওয়া মোটামুটি এ রকমই থাকবে। তবে সামান্য পরিবর্তন হতে পারে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই ঢাকার আকাশে রোদ-মেঘের লুকোচুরি খেলা চলছে। বৃহস্পতিবার ঢাকায় সকালে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৫ দশমিক ৬ ডিগ্রি। বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় রংপুর বিভাগে কয়েকটি স্থানে বৃষ্টি হয়েছে। রংপুরে ২ মিলিমিটার, সৈয়দপুরে ১ মিলিমিটার ও রাজারহাটে ৫ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের মধ্যেই শুরু হলো টিকার দ্বিতীয় ডোজ
                                  

দেশে করোনাভাইরাসের টিকার দ্বিতীয় ডোজ দেয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৮টায় রাজধানীসহ সারাদেশে বিভিন্ন কেন্দ্রে দ্বিতীয় ডোজের টিকাদান শুরু হয়। সরকারঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যেও যাদের দ্বিতীয় ডোজ দেয়ার তারিখ নির্ধারিত ছিল, তারা টিকা নিতে কেন্দ্রে আসছেন। তবে এখন পর্যন্ত যারা টিকা নেননি তাদেরকে প্রথম ডোজ দেয়ার কার্যক্রমও চলছে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে দেশে প্রতিদিন র্বোচ্চ আক্রান্ত ও মৃত্যুর রেকর্ড-এর মধ্যেই টিকার দ্বিতীয় ডোজ প্রদানের কার্যক্রম শুরু হলো। সবশেষ বুধবারও (৭ এপ্রিল) ২৪ ঘণ্টায় এখন পর্যন্ত দেশে সর্বোচ্চ ৭ হাজার ৬২৬ জন শনাক্ত হয়েছেন। এনিয়ে টানা চারদিন ৭ হাজারের বেশি রোগী শনাক্তের তথ্য জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, প্রথম ডোজ নেয়া প্রায় সবার কাছে এসএমএস-এর মাধ্যমে দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার তারিখ ও কেন্দ্র জানিয়ে দেয়া হয়েছে। তবে কোনো কারণে কেউ যদি প্রথম ডোজ নেয়ার পরও দ্বিতীয় ডোজের সময় ও কেন্দ্রের তথ্য এসএমএস-এ না পেয়ে থাকেন, সেক্ষেত্রে প্রথম ডোজ নেয়ার ঠিক দুইমাস পর আগের কেন্দ্রে গিয়ে টিকা কার্ড দেখিয়ে দ্বিতীয় ডোজ নিতে পারবেন। এদিকে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) কেন্দ্রে বৃহস্পতিবার আটটি বুথে টিকা দেয়া হচ্ছে। এরমধ্যে সাতটি বুথে দ্বিতীয় ডোজের টিকা এবং একটি বুথে প্রথম ডোজের টিকা দেয়া হচ্ছে। আজ সর্বমোট দুই হাজার টিকা দেয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন বিএসএমএমইউ-এর কর্মকর্তারা। গত ২৭ জানুয়ারি টিকাদান কার্যক্রম শুরুর পর থেকে বুধবার (৭ এপ্রিল) পর্যন্ত দেশে মোট টিকাগ্রহণকারীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৫ লাখ ৬৮ হাজার ৭০৩ জন। যারা টিকা নিয়েছেন তাদের মধ্যে পুরুষ ৩৪ লাখ ৫৩ হাজার ২৯১ ও নারী ২১ লাখ ১৫ হাজার ৪১২ জন। তাদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার উপসর্গ নিয়ে রিপোর্ট করেছেন মোট ৯৩৯ জন। এদিকে সর্বশেষ গত ২৪ ঘণ্টায় (৭ এপ্রিল) আরও ১৩ হাজার ২৮ জন টিকা নিয়েছেন। তাদের মধ্যে পুরুষ সাত হাজার ৯৮০ জন ও নারী পাঁচ হাজার ৪৮ জন।

মানুষ বাঁচাতে আরও কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী
                                  

করোনাভাইরাস থেকে মানুষকে বাঁচানোর জন্য ভবিষ্যতে আরও কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে বিসিএস কর্মকর্তাদের ৭১তম বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কোর্সের সমাপনী অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ভবিষ্যতে কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে, মানুষকে বাঁচানোর জন্য। আপনারাও স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি মেনে চলবেন। সবাইকে উৎসাহিত করবেন। মাস্ক পরবেন। ঘরে ফিরে গরম পানির ভাপ নেবেন। গড়গড়া করবেন। বিসিএস কর্মকর্তাদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমরা উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে জাতিসংঘের সুপারিশ পেয়েছি। ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠন করবো। আপনাদের ওপরই ওই দায়িত্ব পড়বে। ৪১-এ উন্নত বাংলাদেশ গড়ার মূল সৈনিক আপনারা। সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্বপালন করতে হবে। তিনি বলেন, মনে রাখতে হবে- আমরা বাঙালি, আমাদের মর্যাদার সঙ্গে দাঁড়াতে হবে। এজন্য মানুষের সার্বিক উন্নয়ন নিশ্চিত করতে আপনাদের কাজ করতে হবে। জনগণ প্রজাতন্ত্রের মালিক, সেটা মাথায় রেখে তাদের সেবা দিবেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০২০-২১ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী। এ উপলক্ষে নানা কর্মসূচি নিয়েছিলাম। করোনার কারণে অনেক কিছু করতে পারিনি। তবে সব ভূমিহীন ও গৃহহীনকে ঘর দিচ্ছি, কেউ যেন বাদ না যায় সবাই এদিকে নজর দিন। গ্রামে শহরের সেবা দেব, এটা নিশ্চিত করতে চাই। এজন্য মাঠ প্রশাসনের সবাই আমাকে সহযোগিতা করছেন, কাজ করছেন। এজন্য সবাইকে ধন্যবাদ জানাই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, গণমুখী প্রশাসন করতে নানা কার্যকর উদ্যোগ নিয়েছি। উচ্চতর ডিগ্রি ও প্রশিক্ষণের জন্য ফেলোশিপ বৃত্তি প্রদানসহ সব পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। বিজ্ঞানের নতুন প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাওয়ার জন্য প্রশিক্ষণকে গুরুত্ব দিচ্ছি। অবশ্য নতুন প্রজন্ম প্রযুক্তির উৎকর্ষের সঙ্গে সঙ্গে তাদের চিন্তা-ভাবনা ও শিক্ষায় অন্যান্যদের চেয়ে অগ্রগামী। ‘স্বাস্থ্য সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়া, শিক্ষায় গুরুত্ব দেয়া এবং মানুষের সার্বিক উন্নয়ন নিশ্চিত করতে চাই’ যোগ করেন সরকার প্রধান। প্রধানমন্ত্রী বলেন, এটা আমার জন্য অত্যন্ত দুঃখজনক যে, করোনার কারণে আমি শারীরিকভাবে এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত হতে পারিনি। ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠন করেছি, যার কল্যাণে ভার্চুয়ালি আপনাদের সঙ্গে যুক্ত আছি। এ সময় জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে কোর্সে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অর্জনকারীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

ইডেন পার্কে টানা বৃষ্টি, অনিশ্চয়তায় বাংলাদেশের ম্যাচ
                                  

নিউজিল্যান্ড সফরে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের এখন পর্যন্ত প্রাপ্তির খাতা পুরোপুরি শূন্য। তামিম ইকবালের নেতৃত্বে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর, টি-টোয়েন্টিতে প্রথম দুই ম্যাচ হেরে গেছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল। আজ (বৃহস্পতিবার) অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে টি-টোয়েন্টি সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে ঘুরে দাঁড়ানোর শেষ চেষ্টাটা চালানোর অপেক্ষায় রয়েছে বাংলাদেশ দল। কিন্তু এতে বাগড়া বাধাচ্ছে বৃষ্টি। প্রকৃতির বেখেয়ালে সিরিজের শেষ ম্যাচটিতে টস হতে বিলম্ব হচ্ছে। শুধু তাই নয়, পুরো ম্যাচ নিয়েই দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা। কেননা একই মাঠে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড নারী দলের মধ্যকার টি-টোয়েন্টি ম্যাচ মাত্র ২.৫ ওভার খেলা হওয়ার পরই পরিত্যক্ত ঘোষণা করে দেয়া হয়েছে। উল্লেখ্য, এই ম্যাচে ঊরুর ইনজুরির কারণে থাকছেন না নিয়মিত টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তার জায়গায় বাংলাদেশের সপ্তম টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক হতে চলেছেন লিটন দাস। বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ: মোহাম্মদ নাঈম শেখ, নাজমুল হাসান শান্ত, সৌম্য সরকার, লিটন দাস (অধিনায়ক), মোহাম্মদ মিথুন, আফিফ হোসেন ধ্রুব, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, নাসুম আহমেদ, রুবেল হোসেন ও শরিফুল ইসলাম।

বেখেয়ালি চলাফেরা আরও বিপর্যয় নিয়ে আসবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
                                  

করোনা নিয়ন্ত্রণে সরকারের ১৮ নির্দেশনা মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, আমাদের বেখেয়ালি চলাফেরা আগামীতে আরও বিপর্যয় নিয়ে আসবে। বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) সকালে ভার্চুয়াল মাধ্যমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নতুন ১০টি আইসিইউ বেডের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ আশঙ্কার কথা জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। জাহিদ মালেক বলেন, ‘আমরা যতই হাসপাতালগুলোতে বেড বৃদ্ধি করি এতে কোভিড আক্রান্ত রোগী কমাতে পারবো না। আমাদের আক্রান্তের উৎপত্তিতে আরও সচেতন হতে হবে। কোভিড নিয়ন্ত্রণে সরকারের ১৮ নির্দেশনা মেনে চলতে হবে। মনে রাখতে হবে, মাস্ক ছাড়া আমাদের বেখেয়ালি চলাফেরা আগামীতে আরও বিপর্যয় নিয়ে আসবে।’ স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘গত এক বছরের করোনা মোকাবিলায় আমাদের সফলতা রয়েছে। এ সময়ে চিকিৎসকেরা সেবা করতে গিয়ে নিজেরা পরিশ্রান্ত হয়ে পড়েছেন। নিজেরা পরিবারকে সময় দিতে পারেন না, আমরাও তাদের ছুটির ব্যবস্থা করতে পারিনি। যেহেতু এ মহামারি কমে যায়নি এরপরও আমাদের সেবা চালিয়ে যেতে হবে।’ তিনি আরও বলের, ‘সম্প্রতি করোনাভাইরাসের যে আক্রান্তের হার তা গত চার মাস অপেক্ষা বহুগুণে বেশি। আমরা প্রস্তুতি হিসেবে হাসপাতালে বেডের সংখ্যা বাড়াচ্ছি কিন্তু এটা সমাধান না। আমরা সব মিলিয়ে সাড়ে ৩ হাজার বেড বৃদ্ধি করলাম কিন্তু এর বিপরীতে দিনে ৫০০ জন করে রোগী এলো। এটাতে এক সপ্তাহে এসব বেড রোগীতে পূর্ণ হয়ে যাবে। এ থেকে বাঁচতে হলে আমাদের সচেতনতা জরুরি। মাস্ক ছাড়া সামাজিক, ধর্মীয়সহ সব অনুষ্ঠান কিংবা চলাফেরা বন্ধ করতে হবে।’ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হকের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও আমন্ত্রিত অতিথিরা উপস্থিত ছিলেন।

আজ যেসব জায়গায় কালবৈশাখী হতে পারে
                                  

সিলেট বিভাগের বেশকিছু অঞ্চলের ওপর দিয়ে কালবৈশাখী বয়ে গেছে মঙ্গলবার (৩০ মার্চ)। আজও দেশের ৬টি বিভাগ ও দুটি অঞ্চলের ওপর দিয়ে ঝড়বৃষ্টি বা কালবৈশাখী বয়ে যেতে পারে। বুধবার (৩১ মার্চ) সকাল ৯টা থেকে বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) সকাল ৯টা পর্যন্ত আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এসব তথ্য জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, যশোর ও কুষ্টিয়া অঞ্চলসহ সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী, রংপুর, ময়মনসিংহ, ঢাকা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা/ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। এদিকে গোপালগঞ্জ, রাজশাহী ও পাবনা অঞ্চলসহ খুলনা বিভাগের উপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে। মঙ্গলবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে যশোরে ৩৭ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে। দেশের পশ্চিমাঞ্চলে রাতের তাপমাত্রা সামান্য হ্রাস পেতে পারে এবং অন্যত্র তা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে

নেই কঠোর নির্দেশনা, স্বাস্থ্যবিধি সবাই জানে কিন্তু মানে না
                                  

দেশে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস পরিস্থিতি ক্রমেই ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে। গত ২৯ ও ৩০ মার্চ টানা দুইদিন নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত রোগী পাঁচ হাজারের বেশি। ২৯ মার্চ পাঁচ হাজার ১৮১ জন এবং ৩০ মার্চ ছিল পাঁচ হাজার ৪২ জন। এ নিয়ে দেশে শনাক্ত হওয়া মোট রোগীর সংখ্যা ছয় লাখ ছাড়িয়ে গেছে। গত বছর অর্থাৎ ২০২০ সালের ৮ মার্চ প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর থেকে এটিই এ যাবতকালের একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত রোগীর সংখ্যা। এর আগে গত বছরের ২ জুলাই চার হাজার ১৯ জন রোগী শনাক্ত হয়েছিল করোনায় গত টানা দুদিন ৪৫ জন করে মোট ৯০ জনের মৃত্যু হয়। গত বছরের ১৮ মার্চ প্রথম করোনা রোগীর মৃত্যু হয়। ৩০ মার্চ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮ হাজার ৯৯৪ জনে। স্বাস্থ্য বিধি মেনে না চললে সামনে মহাদুর্যোগ হতে পারে আশঙ্কা করে রোগতত্ত্ব ও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অব্যাহতভাবে নতুন করোনা রোগী শনাক্ত হলেও তাদের কন্ট্রাক্ট ট্রেসিং, আইসোলেশন ও কোয়ারেন্টাইন যথাযথভাবে হচ্ছে না। রোগী শনাক্ত হওয়ার পর মোবাইল ফোনে রোগীর সঙ্গে কথা বলে কন্ট্রাক্ট ট্রেসিংয়ের কাজটি করে থাকে স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। মোবাইল ফোনে এ কাজটি করার জন্য আইইডিসিআরে চিকিৎসকের সংখ্যা মাত্র ১০/১২জন। কন্ট্রাক্ট ট্রেসিংসহ রোগীর শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে জানার জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুসারে যে প্রশ্নপত্র তৈরি করা হয়েছে তা ফলো করে একেকজন রোগীর তথ্য সংগ্রহে ১০/১৫ মিনিট সময়ও লেগে যায়। সেক্ষেত্রে চিকিৎসকরা বড় জোর দৈনিক ১০০ জন রোগীর তথ্য সংগ্রহ করতে পারছেন। গত দুই সপ্তাহ ধরে যে ক্রমবর্ধমান হারে রোগীর সংখ্যা বাড়ছে তাতে জনবলের অভাবে সঠিকভাবে কন্ট্রাক্ট ট্রেসিং করা যাচ্ছে না! পরিস্থিতি সামাল দিতে জরুরিভিত্তিতে চুক্তিভিত্তিক হলেও কমপক্ষে ১০০ জন চিকিৎসক নিয়োগ দেয়া উচিত বলে বিশেষজ্ঞরা জানান। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রোগীদের ক্লিনিক্যাল ফলোআপের কাজটি স্বাস্থ্য অধিদফতরের এমআইএস শাখাও করে থাকে। কিন্তু প্রতিদিনই এত বিপুল সংখ্যক রোগী শনাক্ত হওয়ার ফলে তাদের পক্ষেও রোগীর ক্লিনিক্যাল ফলোআপ করা সম্ভব হচ্ছে না। রোগী শনাক্ত হওয়ার পর পরই তার সঙ্গে কথা বলে চিকিৎসা পদ্ধতি সম্পর্কে অবহিত করা ও নিয়মিত ফলোআপ করার কথা থাকলেও ১০দিন পরও তা করা সম্ভব হচ্ছে না। যখন তারা ক্লিনিক্যাল ফলোআপ করছেন তখন হয় রোগী সুস্থ হওয়ার পথে কিংবা ততক্ষণে মারা গেছেন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মীরজাদি সেব্রিনা ফ্লোরা সোমবার (২৯ মার্চ) ভার্চুয়াল এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, করোনা পরিস্থিতি ক্রমেই খারাপ হচ্ছে। আগে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকিতে অধিক বয়স্করা বলা হলেও বর্তমানে আবালবৃদ্ধবনিতা কেউ নিরাপদ নয়। এহেন পরিস্থিতিতে দেশের শতভাগ মানুষের মাস্ক পরিধানসহ প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মেনে না চললে সমুহবিপদ। করোনা সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি (ঘরের বাইরে বের হলে সার্বক্ষণিক মাস্ক পরিধান করা, ঘন ঘন সাবান বা ছাই দিয়ে হাত ধোয়া, কমপক্ষে দুই ফুট দূরত্ব বজায় রেখে চলা এবং জনসমাগম এড়িয়ে চলা) মেনে চলা সর্বোৎকৃষ্ট উপায়- এ কথা রাজধানীসহ সারাদেশের আবালবৃদ্ধবনিতা কারও অজানা নয়। দেশে গত এক বছরেরও বেশি সময় ধরে সর্বোচ্চ উচ্চারিত বাক্যগুলোর মধ্যে করোনা স্বাস্থ্যবিধি অন্যতম। জাতীয় ও আঞ্চলিক দৈনিক পত্রিকা, কমিউনিটি রেডিও, জাতীয় রেডিও, টেলিভিশন, লিফলেট, পোস্টার ও দেয়াল লিখনসহ স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার কথা বলা হচ্ছে। করোনা স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে সবাই জানলেও কারও মধ্যে মানার প্রবণতা নেই। কেউ কেউ বলছেন, করোনার সংক্রমণরোধে সরকার যে ১৮ দফা নির্দেশনা দিয়েছে তাতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে মানুষকে বাধ্য করার কোনো কঠোর নির্দেশনা নেই। আইইডিসিআরের সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মুশতাক হোসেন বলছেন, করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুর ঊর্ধ্বগতির লাগাম এখনই টেনে না ধরলে সামনে মহাদুযোর্গ। এ মুহূর্তে রোগী শনাক্ত হওয়ার পর কন্ট্রাক্ট ট্রেসিং, তাদের আইসোলেশন ও নমুনা পরীক্ষার দ্রুত ব্যবস্থা, কোয়ারেন্টাইন ও কোয়ারেন্টাইনে থাকার সময় বিশেষত দরিদ্র রোগী ও তাদের পরিবারের খাবারের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন। তিনি বলেন, বর্তমানে শিক্ষিত অনেকেই চাকরি হারানোর ভয়ে করোনার উপসর্গ নিয়ে অফিস করছেন। তার মাধ্যমে অন্যদের মধ্যে রোগের সংক্রমণ ঘটছে। দরিদ্র মানুষ যারা দিন আনে দিন খায় তারা কেউ পরীক্ষা করাতেই যাচ্ছে না। ফলে ঝুঁকি বাড়ছে। ড. মুশতাক হোসেন বলেন, বিদেশ থেকে আগত যাত্রীদের হেলথ স্ক্রিনিং ও কোয়ারেন্টাইনের ব্যাপারে সরকার যতটা সিরিয়াস দেশের বিপুল জনগোষ্ঠীর কক্ট্রাক্ট ট্রেসিং, আইসোলেশন ও কোয়ারেন্টাইনে ততটা সিরিয়াস নয়। এ ব্যাপারে সরকারের নজরদারি বৃদ্ধি করা প্রয়োজন মন্তব্য করে তিনি আরও বলেন, প্রয়োজনে নির্দিষ্ট সময়ের জন্য গ্রাম শহর নির্বিশেষে কমিউনিটি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার চালু করে সেখানে থাকা ও খাওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

করোনার টিকা নিলেন ওবায়দুল কাদের
                                  

করোনাভাইরাসের টিকা নিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বুধবার সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) প্রথম ডোজের টিকা গ্রহণ করেন। স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, সারাদেশে জাতীয় টিকাদান কর্মসূচিতে এখন পর্যন্ত মোট টিকা নিয়েছেন ৫৩ লাখ ১৯ হাজার ৬৭৯ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ৩৩ লাখ ১০ হাজার ১৪১ জন, নারী ২০ লাখ নয় হাজার ৫৩৮ জন। টিকা গ্রহণকারীদের মধ্যে এখন পর্যন্ত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে ৯৩১ জনের। টিকা গ্রহণকারীদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের আছেন ১৬ লাখ ৪৮ হাজার ২৯ জন, ময়মনসিংহ বিভাগে দুই লাখ ৫৭ হাজার ১৩২ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ১০ লাখ ৭১ হাজার ৯১০ জন, রাজশাহী বিভাগে ছয় লাখ তিন হাজার ৬৮৫ জন, রংপুর বিভাগে পাঁচ লাখ ৪২ হাজার ৪৭৪ জন, খুলনা বিভাগে ছয় লাখ ৮৫ হাজার ৯৭০ জন, বরিশাল বিভাগে দুই লাখ ৩৪ হাজার ২১৯ জন এবং সিলেট বিভাগে দুই লাখ ৭৬ হাজার ২৬০ জন।

গণপরিবহনে সামাজিক দূরত্বের বালাই নেই, ভাড়া দ্বিগুণ
                                  

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে ধারণক্ষমতার অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের শর্তে গণপরিবহনে ৬০ ভাগ ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। তবে সে সিদ্ধান্ত মানছে না অধিকাংশ গণপরিবহন। আবার কিছু পরিবহন অর্ধেক যাত্রী নিলেও তাদের বিরুদ্ধে বাড়তি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। বুধবার (৩১ মার্চ) রাজধানীর যাত্রাবাড়ি, চানখারপুল, গুলিস্তান, পল্টন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের বদলে দাঁড়িয়ে আবার কোনো কোনো জায়গায় ঝুলে যাত্রীরা গণপরিবহনে চলাচল করছেন। তবে নীলাচল, মনজিল, হিমাচল, ঢাকার চাকাসহ বেশি কিছু পরিবহন অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলাচল করছে। কিন্তু এর মধ্যে অধিকাংশ পরিবহনের বিরুদ্ধে বাড়তি ভাড়া নেয়ার অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা। তারা বলছেন, সরকার ৬০ শতাংশ ভাড়া বাড়ালেও পরিবহনগুলো ভাড়া দ্বিগুণ করেছে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত মিরাজ ফকির জাগো নিউজকে বলেন, কাজলা থেকে কলাবাগান বাস ভাড়া ২৫ টাকা। কিন্তু আজকে ভাড়া নিল ৫০ টাকা। এক সিট খালি রেখে বসা সাপেক্ষে সরকার ৬০ শতাংশ ভাড়া বাড়ালেও গাড়িতে অনেক বেশি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। আর গাড়ির সংকটও অনেক বেশি। অন্যদিন কোনোভাবে দাঁড়িয়ে যেতে পারলেও আজ আধা ঘণ্টার বেশি সময় দাঁড়িয়েও গাড়িতে উঠতে পারিনি। তাই বাধ্য হয়ে এই গাড়িতে উঠলাম। নীলাচল পরিবহনের হেলপার সাগর বলেন, আমরা সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ভাড়া ৬০ শতাংশ বাড়িয়েছি। তবে লোকাল কিছু যাত্রী নিলে সেক্ষেত্রে এই হিসাব রাখা যায় না, তখন একটু বেশিই ভাড়া নিচ্ছি। তবে আমার ওয়েবিলের হিসাব অনুযায়ী যারা যাচ্ছে তাদের কাছ থেকে ৬০ শতাংশ ভাড়াই বাড়তি নিচ্ছি, বেশি নিচ্ছি না। নইলে আমার জরিমানা হবে। এদিকে গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিষয়ে সরকারের নির্দেশনার পর প্রথম কর্মদিবসে যানবাহন সংকট দেখা গেছে। অন্যান্য দিনের তুলনায় কিছু কিছু জায়গায় সড়কে কম সংখ্যক যান চলাচল করছে। আবার কিছু গাড়ি সরকারি নির্দেশনা মেনে অর্ধেক যাত্রী পরিবহন করায় যাত্রীরা যানবাহন সংকটে পড়েছেন। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আরেক যাত্রী মো. কামরুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করে গাড়ি পাচ্ছিলাম না। কিছুক্ষণ আগে গাড়ি পেলেও ভাড়া দিগুণ। আসলে অর্ধেক যাত্রী পরিবহনে সরকার নির্দেশ দিলেও যানবাহন তো দ্বিগুণ হয়নি, ফলে গাড়ির সংকট বেড়েছে। আসলে এভাবে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে যানবাহন চলাচলের চেয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সব সিটে যাত্রী পরিবহন করা যায়। কারণ সাধারণ সময়ই আমরা দাঁড়িয়ে বা ঝুলে চলাচল করি, সেখানে অর্ধেক যাত্রী নিলে গাড়ি সংকট হওয়া স্বাভাবিক। তিনি কিছুটা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, মার্কেট, বাজারে তো স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই; সব স্বাস্থ্যবিধি গণপরিবহনে পালন হলেই তো করোনা চলে যাবে না। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে ধারণক্ষমতার অর্ধেক যাত্রী পরিবহন করায় গণপরিবহনে ৬০ ভাগ ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। বুধবার (৩১ মার্চ) থেকে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়েছে এবং পরবর্তী দুই সপ্তাহ তা বহাল থাকবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

করোনা নিয়ন্ত্রণে সরকারের ১৮ দফা নির্দেশনা
                                  

ক্রমেই অবনতি হতে থাকা করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসতে আনতে ১৮ দফা নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। সোমবার (২৯ মার্চ) প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এই নির্দেশনা দেওয়া হয়। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত আগামী দুই সপ্তাহের জন্য এই নির্দেশনা বহাল থাকবে বলে প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়েছে।

সরকারের ১৮ দফা নির্দেশনার মধ্যে রয়েছে,

১. সবধরনের জনসমাগম ও অপ্রয়োজনীয় চলাফেরা নিষিদ্ধ করতে হবে

২. মসজিদসহ সকল ধর্মীয় উপাসনালয়ে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি পরিপালন নিশ্চিত করতে হবে

৩. পর্যটন, বিনোদনকেন্দ্র, সিনেমাহল, থিয়েটারহলে জনসমাগম সীমিত করতে হবে

৪. গণপরিবহনের ধারণ ক্ষমতার অর্ধেক যাত্রী নিতে হবে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে

৫. সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাতে আন্তঃজেলা যান চলাচল সীমিত করতে হবে, প্রয়োজনে বন্ধ করতে হবে

৬. বিদেশফেরতদের ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে হবে

৭. নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য-সামগ্রী খোলা/উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কেনা-বেচা করতে হবে, ওষুধের দোকানে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে হবে

৮. স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানসমূহে মাস্ক পরিধানসহ যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে

৯. শপিংমলে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়েরই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে

১০. সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে

১১. প্রয়োজন ছাড়া রাত ১০ টার পর বাইরে থাকা থেকে বিরত থাকতে হবে

১২. প্রয়োজনে ঘরের বাইরে গেলে মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে

১৩. করোনা আক্রান্ত ও লক্ষণযুক্ত ব্যক্তির আইসোলেশন নিশ্চিত করতে হবে, আক্রান্ত ব্যক্তির কাছে আসা অন্যান্যদেরও কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে হবে

১৪. জরুরি সেবা ছাড়া সব সরকারি-বেসরকারি অফিস অর্ধেক জনবল দ্বারা পরিচালিত করতে হবে

১৫. সভা, সেমিনার, প্রশিক্ষণ কর্মশালা যথাসম্ভব অনলাইনে আয়োজনের ব্যবস্থা করতে হবে

১৬. সশরীরে উপস্থিত হতে হয় এমন যেকোনো গণ-পরীক্ষার ক্ষেত্রে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে

১৭. হোটেল, রেস্তোরাঁসমূহে ধারণ ক্ষমতার অর্ধেক মানুষের প্রবেশ করতে পারবে

১৮. কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ এবং অবস্থানকালীন সর্বদা বাধ্যতামূলক মাস্ক পরিধানসহ যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে

অদক্ষদের জন্য বন্ধ হচ্ছে সৌদি শ্রমবাজার
                                  

সাত দশকের আধুনিক দাস প্রথা কাফালা বিলুপ্তির পর সৌদি আরব কর্মদক্ষহীন পেশাজীবীদের ছাঁটাইয়ে নতুন আইন প্রণয়ন করেছে। চলতি বছরের জুলাই থেকে কার্যকর হতে যাওয়া এই নতুন আইনে দেশটিতে প্রফেশনাল ভিসায় কাজ করা অভিবাসীদের কর্ম-দক্ষতার পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। যারা যেতে চান তাদেরও পরীক্ষা দিতে হবে। আর এ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলেই কেবল সৌদিতে কাজ করা যাবে। অন্যথায় তাদের সৌদি আরব ছাড়তে হবে। চিকিৎসক, নার্স, শিক্ষক, প্রকৌশলী, হিসাবরক্ষকসহ বিভিন্ন দাপ্তরিক পেশায় নিয়োজিতদের পেশাগত দক্ষতার পরীক্ষা গ্রহণ করা হবে পাঁচটি ভাষায়। যে কোনো একটিতে বাছাই পরীক্ষা দিতে হবে। পাঁচটি ভাষা হলো আরবি, ইংরেজি, হিন্দি, উর্দু ও ফিলিপিনো। আইনটি প্রণয়নের পর পরই সৌদির পাকিস্তান, ফিলিপাইন ও শ্রীলঙ্কার দূতাবাসগুলো তাদের দেশের নাগরিকদের পেশাগত দক্ষতার মান উন্নীত করা এবং প্রফেশনাল টেস্টে সফল হওয়ার জন্য কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করেছে বলে বার্তা সংস্থা এসপিএ জানিয়েছে। সৌদি প্রেস এজেন্সি ও আরব নিউজের খবরে বলা হয়েছে, সৌদি আরব সরকারের ’ভিশন ২০৩০’ অনুযায়ী দেশটির শ্রমবাজারে ৭০ শতাংশ সৌদি আরবের নাগরিককে যুক্ত করার পরিকল্পনা গৃহীত হয়েছে। সে কারণে অদক্ষ শ্রমিক ছাঁটাই করে নিজ দেশে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। সেখানে কর্মরত অধিকাংশ বাংলাদেশি শ্রমিক অদক্ষ ও স্বল্প দক্ষ। আগামী জুলাই থেকে পরীক্ষা শুরু হবে বলে জানিয়েছে দেশটির শ্রম মন্ত্রণালয়। কর্মসূচির নাম দেওয়া হয়েছে, ‘পেশাদার যাচাইকরণ’। সব পেশাজীবীর ব্যবহারিক ও তাত্ত্বিক পরীক্ষায় অংশ নেওয়া বাধ্যতামূলক।

আজ পবিত্র শবে বরাত
                                  

আজ পবিত্র শবে বরাত। হিজরি সালের শাবান মাসের ১৪ তারিখ রাতটি মুসলমানরা সৌভাগ্যের রজনী হিসেবে পালন করে। এই মর্যাদাপূর্ণ রাতে মহান আল্লাহ বান্দাদের জন্য তার রহমতের দরজা খুলে দেন। ‘শব’ শব্দের অর্থ রাত এবং ‘বরাত’ শব্দের অর্থ সৌভাগ্য। আরবি ‘লাইলাতুল বরাত’ মানে সৌভাগ্যের রাত। যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় সোমবার (২৯ মার্চ) দিবাগত রাতে পবিত্র শবে বরাত পালিত হবে। মহিমান্বিত এই রাতে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা পরম করুণাময়ের অনুগ্রহ লাভের আশায় বেশি বেশি নফল নামাজ,  কোরআন তিলাওয়াত,  জিকিরে মগ্ন থাকবেন। অনেকে রোজা রাখেন,  দান-খয়রাত করেন। অতীতের গুনাহের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা এবং ভবিষ্যৎ জীবনের কল্যাণ কামনা করে মোনাজাত করেন। এ উপলক্ষে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদসহ দেশের বিভিন্ন মসজিদ ও মাদরাসায় ওয়াজ মাহফিল, দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। করোনা মহামারির কারণে গত বছর মসজিদে না গিয়ে মুসল্লিদের ঘরে বসে ইবাদত করার আহ্বান জানিয়েছিল ধর্ম মন্ত্রণালয়। তবে এবার এমন কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়নি। 


   Page 1 of 71
     জাতীয়
পেঁয়াজের দাম কমেছে
.............................................................................................
আবারও বাড়ল আমদানির চাল বাজারে আনার সময়
.............................................................................................
‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা
.............................................................................................
ঢাকা আসছেন ভারতের সেনাপ্রধান
.............................................................................................
ঝড়-বৃষ্টি বাড়ছে, তাপমাত্রা আরও কমবে
.............................................................................................
ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের মধ্যেই শুরু হলো টিকার দ্বিতীয় ডোজ
.............................................................................................
মানুষ বাঁচাতে আরও কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
ইডেন পার্কে টানা বৃষ্টি, অনিশ্চয়তায় বাংলাদেশের ম্যাচ
.............................................................................................
বেখেয়ালি চলাফেরা আরও বিপর্যয় নিয়ে আসবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
আজ যেসব জায়গায় কালবৈশাখী হতে পারে
.............................................................................................
নেই কঠোর নির্দেশনা, স্বাস্থ্যবিধি সবাই জানে কিন্তু মানে না
.............................................................................................
করোনার টিকা নিলেন ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
গণপরিবহনে সামাজিক দূরত্বের বালাই নেই, ভাড়া দ্বিগুণ
.............................................................................................
করোনা নিয়ন্ত্রণে সরকারের ১৮ দফা নির্দেশনা
.............................................................................................
অদক্ষদের জন্য বন্ধ হচ্ছে সৌদি শ্রমবাজার
.............................................................................................
আজ পবিত্র শবে বরাত
.............................................................................................
আমাদের আরও অনেক দূর যেতে হবে
.............................................................................................
আরও ১২ লাখ করোনার টিকা আসছে শুক্রবার
.............................................................................................
মতিঝিলে মোদিবিরোধী বিক্ষোভ, ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল আটক
.............................................................................................
সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
মোদীর সফরে দুই প্রকল্পে মিলবে ভারতীয় অনুদান
.............................................................................................
রাত ৮টার মধ্যে দোকানপাট বন্ধের আহ্বান তাপসের
.............................................................................................
সুখবর দিল আবহাওয়া অফিস
.............................................................................................
সৌজন্য সাক্ষাতে শেখ হাসিনা-লোটে শেরিং
.............................................................................................
কঠোর না হলে করোনায় ভয়াবহ বিপদ ঘটতে পারে: ডা. লেলিন
.............................................................................................
ইউপি ভোট: তালিকা ধরে সন্ত্রাসী গ্রেফতারের নির্দেশ
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর প্রতি নেপালের প্রেসিডেন্টের শ্রদ্ধা
.............................................................................................
জাতীয় স্মৃতিসৌধে ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
.............................................................................................
২৪ ঘণ্টায় ২২ মৃত্যু, শনাক্ত ২১৭২
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর স্বাধীনতার মিথ্যা ঘোষক দাঁড় করানো হয়েছিল
.............................................................................................
সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি
.............................................................................................
ঢাকার মানুষের কাছে আতঙ্কের অন্যতম নাম মশা
.............................................................................................
মোদিবিরোধী মিছিল-মিটিং হলে শক্তভাবে আইনানুগ ব্যবস্থা
.............................................................................................
বিমানের সুরক্ষা ও যাত্রীসেবায় মান নিশ্চিত করার আহ্বান
.............................................................................................
রাজউকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সংকটে অবৈধ ভবন উচ্ছেদ কার্যক্রম ব্যাহত অবৈধ ভবন নির্মানকারীরা অবাধে ভবন নির্মাণ করছে
.............................................................................................
বাকেরগঞ্জে ৩নং দাড়িয়ালের নৌকার মাঝি শহিদুল ইসলাম হাওলাদার’কে ফুলের শুভেচ্ছা ।
.............................................................................................
‘শ্বশুরবাড়ি বলে কথা, একটু বেশি শুনতেই হবে’
.............................................................................................
চট্টগ্রামে ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত ১২৭
.............................................................................................
হিফজ বিভাগের শিক্ষার্থীকে নির্মম নির্যাতনের ভিডিও ভাইরাল
.............................................................................................
উচ্ছেদেই দায় শেষ ডিএসসিসির, পরিষ্কারে উদ্যোগ নেই
.............................................................................................
রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে ৪৩ গ্রেফতার
.............................................................................................
দুদক মহাপরিচালক মফিজুর রহমান মারা গেছেন
.............................................................................................
বক্তব্য-আন্দোলনে নয়, যোগ্যতায় নারীদের অধিকার আদায় করতে হবে
.............................................................................................
উপসচিব পদে পদোন্নতি পেলেন ৩৩৭ কর্মকর্তা
.............................................................................................
৭ মার্চ উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান সেজেছে ভিন্নরূপে
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ পৃথিবীর কালজয়ী ভাষণগুলোর অন্যতম
.............................................................................................
ঐতিহাসিক ৭ মার্চ আজ
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
.............................................................................................
রাজউক ম্যাজিষ্ট্রেট কর্তৃক উচ্ছেদের পরও অবৈধ ভবন নির্মান করছে দৌলত প্রপার্টিজ
.............................................................................................
৭ মার্চ সারাদেশে একযোগে প্রচার হবে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো : মাহবুবুর রহমান ।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মো: হাবিবুর রহমান । সম্পাদক কর্তৃক বিএস প্রিন্টিং প্রেস ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, সুত্রাপুর ঢাকা খেকে মুদ্রিত
ও ৬০/ই/১ পুরানা পল্টন (৭ম তলা) থেকে প্রকাশিত বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৫১,৫১/ এ রিসোর্সফুল পল্টন সিটি (৪র্থ তলা), পুরানা পল্টন, ঢাকা -১০০০।
ফোনঃ-০২-৯৫৫০৮৭২ , ০১৭১১১৩৬২২৬

Web: www.bhorersomoy.com E-mail : dbsomoy2010@gmail.com
   All Right Reserved By www.bhorersomoy.com Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD