ঢাকা,সোমবার,১১ মাঘ ১৪২৭,২৫,জানুয়ারী,২০২১
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * ভারতীয় ক্রিকেটারদের লিফটেও উঠতে দিতো না অস্ট্রেলিয়া!   * রোনালদোর পর মেসিরও ‘না’   * গাপটিলের ক্যাচ দেখে চোখ ছানাবড়া সবার   * কক্সবাজারে ডিউরেবল প্লাস্টিকের পরিবেশক সম্মেলন শুরু   * আল-আরাফাহ ব্যাংকের বার্ষিক ব্যবসা উন্নয়ন সম্মেলন   * অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের নতুন কমিটি   * বিদ্যুৎ সহযোগিতা সংক্রান্ত বাংলাদেশ-ভারত স্টিয়ারিং কমিটির সভা   * পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসির ফল প্রকাশে আইন পাস   * যত বাধাই আসুক পিছু হটবে না ডিএনসিসি : মেয়র আতিক   * মাদকসেবীদের জীবনের পরিণতি হয় ভয়াবহ : পররাষ্ট্রমন্ত্রী  

   খেলাধুলা -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
ভারতীয় ক্রিকেটারদের লিফটেও উঠতে দিতো না অস্ট্রেলিয়া!

এবার অস্ট্রেলিয়া সফরে গিয়ে নানামুখী ‘অত্যাচারের মুখে’ই পড়েছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। করোনার কারণে হোটেলে শুধু বন্দি থাকাই নয়, রুম-টয়লেট পরিষ্কারসহ সব কাজ নিজেদের হাতেই করতে হয়েছে রোহিত-পূজারাদের। যা নিয়ে ভারতীয় দলের পক্ষ থেকে অভিযোগও জানানো হয়।

অস্ট্রেলিয়ানদের অভব্য আচরণ এখানেই থেমে থাকেনি। মাঠের মধ্যে বর্ণবিদ্বেষের শিকারও হয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। এবার রবিচন্দ্রন অশ্বিন ফাঁস করলেন এমন এক বিস্ফোরক খবর, যা শুনে অসিদের প্রতি ভারতীয় সমর্থকদের ক্ষোভটা আরও বাড়বে। নিজের ইউটিউব চ্যানেলে ফিল্ডিং কোচ আর শ্রীধরের সঙ্গে কথোপকথনে অশ্বিন জানিয়েছেন, সিডনিতে লিফটের ভেতরে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটাররা থাকলে, ভারতীয়দের ঢুকতে দেয়া হতো না।

অশ্বিন বলছেন, ‘আমরা সিডনি পৌঁছানোর পরই কঠোর সব নিষেধাজ্ঞা আমাদের উপরে চাপিয়ে দেওয়া হয়। কার্যত বন্দি করে ফেলা হয় আমাদের। খুব অবাক করার মতো একটা অভিজ্ঞতাও হয়েছিল আমাদের। অস্ট্রেলীয় খেলোয়াড়েরা যখন লিফটের ভেতরে থাকত, আমাদের প্রবেশ করতে দেয়া হতো না।’

ভারতীয় অফস্পিনার যোগ করেন, ‘ঘটনাটা খুব বিস্মিত করার মতো। দু’টো দলই তো একই জৈব সুরক্ষা বলয়ে ছিল। সত্যি কথা বলতে কী, আমাদের সবাইকে খুব অবাক করেছিল এই নিষেধাজ্ঞা।’ অশ্বিন জানিয়েছেন, বিশেষ করে তৃতীয় টেস্ট খেলতে সিডনিতে গেলে তাদের সঙ্গে বেশি খারাপ আচরণ শুরু করে অস্ট্রেলীয়রা, যা কিনা মেনে নেয়া কঠিন হয়ে পড়েছিল ভারতীয় ক্রিকেটারদের। ‘এ রকম কিছু যে ঘটতে পারে, তা আমরা ভাবতেও পারিনি। সত্যিই আমাদের সকলের খুব খারাপ লেগেছিল। আমরা একই জায়গায়, একই বলয়ের মধ্যে আছি। অথচ, একই সঙ্গে লিফ্ট ব্যবহার করতে পারব না? এই ব্যাপারটা হজম করাই খুব কঠিন ছিল’-ক্ষুব্ধ কণ্ঠে বলেন অশ্বিন।

চার টেস্ট সিরিজের প্রথমটিতে ভারতকে ৩৬ রানে অলআউট করার লজ্জা দেয়ার সঙ্গে বড় ব্যবধানে জিতে রীতিমত উড়ছিল অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু মেলবোর্নে দ্বিতীয় টেস্টেই দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় ভারত, ১-১ সমতা ফেরায় সিরিজে। এরপরই নাকি অস্ট্রেলিয়ানদের আচরণ পাল্টে যায়। অশ্বিন বলেন, ‘মেলবোর্নে প্রচুর নাটক হলো। অস্ট্রেলিয়ায় যখন আমরা এসেছিলাম, তখন কিন্তু বলা হয়েছিল ইতিমধ্যেই আমরা আইপিএলের জৈব সুরক্ষা বলয়ে থেকে এসেছি। তাই খুব কঠোর কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে না। ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনের পরে আমরা কফি পান করতে যেতে পারি, সিনেমা দেখতে যেতে পারি, বাইরে যাওয়ার উপরে কোনও নিষেধাজ্ঞা ছিল না। সে রকমই আমাদের বলা হয়েছিল।’

অশ্বিন যোগ করেন, ‘কিন্তু সিরিজ ১-১ হতেই সব কিছু পাল্টে গেল। তখনই আমাদের বলে দেওয়া হল, হোটেলের ঘর থেকে নড়াচড়া করা যাবে না। অনন্তকাল ধরে কী করে হোটেলের ঘরে বন্দি থাকা সম্ভব? আমি অস্ট্রেলিয়াতে পরিবার নিয়ে গিয়েছিলাম। আমার বাচ্চারা কান ঝালাপালা করে দিচ্ছিল বাইরে বেরোবে বলে। সেই সময়টা সত্যিই খুব কঠিন ছিল আমাদের জন্য।’

কিন্তু কঠিন সেই পরিস্থিতি সামলে সিডনিতে ড্র আর শেষ টেস্টে অবিশ্বাস্য এক জয়ে সিরিজ নিজেদের করে নেয় ভারত। সিডনিতে ৪০ ওভারের উপরে ব্যাট করে অশ্বিন এবং হনুমা বিহারি হারা ম্যাচ ড্র করে দেন। ওই ম্যাচ নিয়ে অশ্বিনের উপলব্ধি, অস্ট্রেলিয়া শর্ট বল করার কৌশল নিয়ে ভুলই করেছিল।

ভারতীয় অলরাউন্ডারের ভাষায়, ‘আমি পা নাড়াতে পারছিলাম না। আর বিহারি শরীরে আঘাত পেয়েও দাঁড়িয়ে ছিল। দু’জনেই চোট নিয়ে লড়ছিলাম। অস্ট্রেলিয়া আমাদের দুর্বলতার জায়গাটা ধরতেই পারেনি। ওরা যদি আমাকে সামনে পা বাড়িয়ে খেলানোর চেষ্টা করত, হয়তো ক্যাচ দিয়ে আউট হয়ে যেতে পারতাম। তার বদলে ভয় পাওয়ানোর জন্য ক্রমাগত শর্ট বল করে গেল।’ কিন্তু ওই কৌশল হিতে বিপরীত হয়েছে অসিদের। অশ্বিন-বিহারির প্রতিরোধ দেখে উইকেটের পেছন থেকে ক্রমাগত স্লেজিং করতে থাকেন অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক টিম পেইন। তখনই অশ্বিনরা বুঝে গিয়েছিলেন স্বাগতিকরা চাপ নিতে পারছে না।

অশ্বিন বলেন, ‘ওদের এই রণনীতিতে হিতে বিপরীত হল। যত আমাদের শরীরে বল লাগছিল, তত আমাদের জেদ-প্রতিজ্ঞা বাড়ছিল। ভেতরে ভেতরে ততই আরও শক্ত হচ্ছিলাম আমি। নিজেকে বলছিলাম, আর কত মারবে ওরা? মারুক না। এর সঙ্গে টিম পেইন উইকেটের পেছন থেকে কথা বলতে শুরু করল। আমি আর বিহারি সেই সময়ে বলাবলি করতে শুরু করি যে, অস্ট্রেলিয়া নকশাটা হারিয়ে ফেলছে।’

ভারতীয় ক্রিকেটারদের লিফটেও উঠতে দিতো না অস্ট্রেলিয়া!
                                  

এবার অস্ট্রেলিয়া সফরে গিয়ে নানামুখী ‘অত্যাচারের মুখে’ই পড়েছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। করোনার কারণে হোটেলে শুধু বন্দি থাকাই নয়, রুম-টয়লেট পরিষ্কারসহ সব কাজ নিজেদের হাতেই করতে হয়েছে রোহিত-পূজারাদের। যা নিয়ে ভারতীয় দলের পক্ষ থেকে অভিযোগও জানানো হয়।

অস্ট্রেলিয়ানদের অভব্য আচরণ এখানেই থেমে থাকেনি। মাঠের মধ্যে বর্ণবিদ্বেষের শিকারও হয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। এবার রবিচন্দ্রন অশ্বিন ফাঁস করলেন এমন এক বিস্ফোরক খবর, যা শুনে অসিদের প্রতি ভারতীয় সমর্থকদের ক্ষোভটা আরও বাড়বে। নিজের ইউটিউব চ্যানেলে ফিল্ডিং কোচ আর শ্রীধরের সঙ্গে কথোপকথনে অশ্বিন জানিয়েছেন, সিডনিতে লিফটের ভেতরে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটাররা থাকলে, ভারতীয়দের ঢুকতে দেয়া হতো না।

অশ্বিন বলছেন, ‘আমরা সিডনি পৌঁছানোর পরই কঠোর সব নিষেধাজ্ঞা আমাদের উপরে চাপিয়ে দেওয়া হয়। কার্যত বন্দি করে ফেলা হয় আমাদের। খুব অবাক করার মতো একটা অভিজ্ঞতাও হয়েছিল আমাদের। অস্ট্রেলীয় খেলোয়াড়েরা যখন লিফটের ভেতরে থাকত, আমাদের প্রবেশ করতে দেয়া হতো না।’

ভারতীয় অফস্পিনার যোগ করেন, ‘ঘটনাটা খুব বিস্মিত করার মতো। দু’টো দলই তো একই জৈব সুরক্ষা বলয়ে ছিল। সত্যি কথা বলতে কী, আমাদের সবাইকে খুব অবাক করেছিল এই নিষেধাজ্ঞা।’ অশ্বিন জানিয়েছেন, বিশেষ করে তৃতীয় টেস্ট খেলতে সিডনিতে গেলে তাদের সঙ্গে বেশি খারাপ আচরণ শুরু করে অস্ট্রেলীয়রা, যা কিনা মেনে নেয়া কঠিন হয়ে পড়েছিল ভারতীয় ক্রিকেটারদের। ‘এ রকম কিছু যে ঘটতে পারে, তা আমরা ভাবতেও পারিনি। সত্যিই আমাদের সকলের খুব খারাপ লেগেছিল। আমরা একই জায়গায়, একই বলয়ের মধ্যে আছি। অথচ, একই সঙ্গে লিফ্ট ব্যবহার করতে পারব না? এই ব্যাপারটা হজম করাই খুব কঠিন ছিল’-ক্ষুব্ধ কণ্ঠে বলেন অশ্বিন।

চার টেস্ট সিরিজের প্রথমটিতে ভারতকে ৩৬ রানে অলআউট করার লজ্জা দেয়ার সঙ্গে বড় ব্যবধানে জিতে রীতিমত উড়ছিল অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু মেলবোর্নে দ্বিতীয় টেস্টেই দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় ভারত, ১-১ সমতা ফেরায় সিরিজে। এরপরই নাকি অস্ট্রেলিয়ানদের আচরণ পাল্টে যায়। অশ্বিন বলেন, ‘মেলবোর্নে প্রচুর নাটক হলো। অস্ট্রেলিয়ায় যখন আমরা এসেছিলাম, তখন কিন্তু বলা হয়েছিল ইতিমধ্যেই আমরা আইপিএলের জৈব সুরক্ষা বলয়ে থেকে এসেছি। তাই খুব কঠোর কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে না। ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনের পরে আমরা কফি পান করতে যেতে পারি, সিনেমা দেখতে যেতে পারি, বাইরে যাওয়ার উপরে কোনও নিষেধাজ্ঞা ছিল না। সে রকমই আমাদের বলা হয়েছিল।’

অশ্বিন যোগ করেন, ‘কিন্তু সিরিজ ১-১ হতেই সব কিছু পাল্টে গেল। তখনই আমাদের বলে দেওয়া হল, হোটেলের ঘর থেকে নড়াচড়া করা যাবে না। অনন্তকাল ধরে কী করে হোটেলের ঘরে বন্দি থাকা সম্ভব? আমি অস্ট্রেলিয়াতে পরিবার নিয়ে গিয়েছিলাম। আমার বাচ্চারা কান ঝালাপালা করে দিচ্ছিল বাইরে বেরোবে বলে। সেই সময়টা সত্যিই খুব কঠিন ছিল আমাদের জন্য।’

কিন্তু কঠিন সেই পরিস্থিতি সামলে সিডনিতে ড্র আর শেষ টেস্টে অবিশ্বাস্য এক জয়ে সিরিজ নিজেদের করে নেয় ভারত। সিডনিতে ৪০ ওভারের উপরে ব্যাট করে অশ্বিন এবং হনুমা বিহারি হারা ম্যাচ ড্র করে দেন। ওই ম্যাচ নিয়ে অশ্বিনের উপলব্ধি, অস্ট্রেলিয়া শর্ট বল করার কৌশল নিয়ে ভুলই করেছিল।

ভারতীয় অলরাউন্ডারের ভাষায়, ‘আমি পা নাড়াতে পারছিলাম না। আর বিহারি শরীরে আঘাত পেয়েও দাঁড়িয়ে ছিল। দু’জনেই চোট নিয়ে লড়ছিলাম। অস্ট্রেলিয়া আমাদের দুর্বলতার জায়গাটা ধরতেই পারেনি। ওরা যদি আমাকে সামনে পা বাড়িয়ে খেলানোর চেষ্টা করত, হয়তো ক্যাচ দিয়ে আউট হয়ে যেতে পারতাম। তার বদলে ভয় পাওয়ানোর জন্য ক্রমাগত শর্ট বল করে গেল।’ কিন্তু ওই কৌশল হিতে বিপরীত হয়েছে অসিদের। অশ্বিন-বিহারির প্রতিরোধ দেখে উইকেটের পেছন থেকে ক্রমাগত স্লেজিং করতে থাকেন অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক টিম পেইন। তখনই অশ্বিনরা বুঝে গিয়েছিলেন স্বাগতিকরা চাপ নিতে পারছে না।

অশ্বিন বলেন, ‘ওদের এই রণনীতিতে হিতে বিপরীত হল। যত আমাদের শরীরে বল লাগছিল, তত আমাদের জেদ-প্রতিজ্ঞা বাড়ছিল। ভেতরে ভেতরে ততই আরও শক্ত হচ্ছিলাম আমি। নিজেকে বলছিলাম, আর কত মারবে ওরা? মারুক না। এর সঙ্গে টিম পেইন উইকেটের পেছন থেকে কথা বলতে শুরু করল। আমি আর বিহারি সেই সময়ে বলাবলি করতে শুরু করি যে, অস্ট্রেলিয়া নকশাটা হারিয়ে ফেলছে।’

রোনালদোর পর মেসিরও ‘না’
                                  

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর পথেই হাঁটলেন লিওনেল মেসিও। সৌদি আরবের লোভনীয় এক প্রস্তাবকে ‘না’ বলে দিয়েছেন আর্জেন্টাইন খুদেরাজ। এর আগে রোনালদোও এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন। নিজেদের পর্যটন শিল্পকে বিশ্ব দরবারে আরও পরিচিত করতে নতুন প্রচারণা ক্যাম্পেইন ‘ভিজিট সৌদি’ চালু করতে যাচ্ছে সৌদি আরব। তারই অংশ হিসেবে মেসি- রোনালদোকে লোভনীয় প্রস্তাব দেয় তারা।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক গণমাধ্যম ‘টেলিগ্রাফ’-এর রিপোর্ট, রোনালদোকে এই প্রচারণার বিনিময়ে বছরে ছয় মিলিয়ন ইউরো অফার করা হয়েছিল। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় ৬২ কোটি টাকা! কিন্তু এত বড় অংকের প্রস্তাবও নাকচ করে দিয়েছেন সিআরসেভেন। সৌদি আরবের অনুরোধে মন গলেনি জুভেন্টাস তারকার। মন গলেনি মেসিরও। তবে তাকে কেমন অংক প্রস্তাব করা হয়েছিল, সেটি জানা যায়নি।

আগামী মাস থেকে প্রচারণা ক্যাম্পেইন শুরু করবে সৌদি আরবের পর্যটন বোর্ড। বিশ্বজুড়ে এই ক্যাম্পেইনকে নজরে আনার লক্ষ্যেই ক্রীড়া জগতের বড় বড় তারকাদের এতে যুক্ত করতে চাইছে আরব দেশটি। রাজনৈতিক নানা কারণে ইমেজ সংকটে পড়া সৌদি সরকার খেলাধুলার মাধ্যমে সেই সংকট কাটিয়ে ওঠার কৌশল নিয়েছে। ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করার অংশ হিসেবেই ২০১৯ সালে বার্সেলোনা, রিয়াল মাদ্রিদ, অ্যাটলেতিকো মাদ্রিদ ও ভ্যালেন্সিয়াকে নিয়ে স্প্যানিশ সুপার কাপ নিজেদের দেশে আয়োজন করেছিল সৌদি আরব।

গাপটিলের ক্যাচ দেখে চোখ ছানাবড়া সবার
                                  

এ কী ক্যাচ নিলেন মার্টিন গাপটিল! কিউই ব্যাটসম্যানের কাণ্ড দেখে চোখ ছানাবড়া সবার। অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে নিউজিল্যান্ডের ঘরোয়া ক্রিকেটে তার অবিশ্বাস্য এক ক্যাচের ভিডিও এখন ভাইরাল নেট দুনিয়ায়।

টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট সুপার স্প্যাশে গাপটিল নিয়েছেন তাক লাগানো ক্যাচটি। অকল্যান্ড এসেসের ছুড়ে দেয়া ২০০ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করছিল সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্ট। ইনিংসের চতুর্থ ওভারের ঘটনা। অকল্যান্ড বোলার লুইস ডেলপোর্টের মাথার ওপর দিয়ে লং অনের দিকে বল তুলে মেরেছিলেন সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্ট ওপেনার জর্জ ওয়ার্কার। হয়তো ভেবেছিলেন ছক্কাই হয়ে যাবে।

কিন্তু দূর থেকে দৌড়ে এসে বাজপাখির মতো এক হাতেই ছোঁ মেরে অবিশ্বাস্য এক ক্যাচ নিয়ে নেন গাপটিল। এটা যে ক্যাচ হয়েছে, বিশ্বাস হচ্ছিল না ব্যাটসম্যান ওয়ার্কারেরও। সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টের ওটা ছিল দ্বিতীয় উইকেট। শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেটে ১৮২ রানেই আটকে যায় দলটি, ম্যাচে তারা হেরেছে ১৭ রানে।পরে দুর্দান্ত এক ক্যাচ নিয়ে আলোচনায় আসলেও অবশ্য নিজের আসল দায়িত্ব ব্যাটিংয়ে স্বরূপে দেখা যায়নি গাপটিলকে। ৩১ বলে ২৯ রানের ধীরগতির এক ইনিংস খেলেন অকল্যান্ড এসেস ওপেনার।

আম্পায়ারের ভুলে এক ওভারে পাঁচ বল করলেন মোস্তাফিজ
                                  

মানুষ মাত্রই ভুল। কেউই ভুলের উর্ধ্বে নয়। তবে ক্রিকেট কিংবা যে কোনো খেলাধুলায় আম্পায়ার বা ম্যাচ পরিচালকদের ভুল নিয়ে আলোচনা সবসময়ই হয় বেশি। তেমনই এক ঘটনা ঘটল বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে। মোস্তাফিজের রহমানের একটি ওভারে পাঁচ বল করিয়েছেন আম্পায়ার গাজী সোহেল। এক বল বাকি থাকতেই তিনি দিয়েছেন ওভারের সংকেত।

ঘটনা ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটিং ইনিংসের ৪০তম ওভারের। মাত্র ১২০ রানে ৯ উইকেট হারিয়ে ধুঁকছিল ক্যারিবীয়রা। তাদের শেষ উইকেট তুলে নেয়ার চেষ্টায় বোলিংয়ে আসেন মোস্তাফিজ। সেই ওভারের প্রথম দুই বলে কোনো রান নিতে পারেননি পাওয়েল। তৃতীয় বলটি নো করে বসেন দ্য ফিজ, ফ্রি-হিট পায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি নিয়ে দ্বন্দ্বে পড়ে যান সবাই। ওভার শেষ হওয়ার আগেই কেন চলে গেলেন মোস্তাফিজ? প্রেসবক্সে উপস্থিত স্কোরাররাও নিশ্চিত করেছেন, সে ওভারে পাঁচটি বলই করেছেন মোস্তাফিজ। স্কোরারদের ধারণা, ভুল করে পাঁচ বলে ওভার দিয়ে ফেলেছেন আম্পায়ার গাজী সোহেল। যেহেতু বাইরে থেকে বলে আম্পায়ারের এই ভুল শোধরানোর সুযোগ নেই, তাই পাঁচ বলেই শেষ করতে হয়েছে ওভারটি।

অবশ্য এমন পাঁচ বলে ওভারের ঘটনা এটাই প্রথম নয়। ২০১২ সালে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে হওয়া কমনওয়েলথ সিরিজে ভারত-শ্রীলঙ্কা ম্যাচে পাঁচ বলে ওভার দিয়েছিলেন আম্পায়ার সাইমন ফ্রাই। অ্যাডিলেডে সেদিন ভারতের ইনিংসের ৩৮তম ওভারটি করছিলেন মালিঙ্গা। তিনি পাঁচ বল করতেই ওভারের ঘোষণা দেন আম্পায়ার ফ্রাই।

উইন্ডিজ থামল ১৪৮ রানে
                                  

রোভম্যান পাওয়েল শেষ দুই জুটিতে প্রতিরোধ গড়েছিলেন। ফিফটির কাছাকাছি ছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটসম্যান, সঙ্গে দলীয় স্কোর দেড়শ ছাড়ানোর পথে ছিল। কিন্তু মেহেদী হাসান মিরাজ তাকে নিজের চতুর্থ শিকার বানান। ৪৩.৪ ওভারে ১৪৮ রানে গুটিয়ে গেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

বাংলাদেশের বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচে একশ করা নিয়ে সংশয়ে ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। কিন্তু রোভম্যান পাওয়েল ও আলজারি জোসেফ প্রতিরোধ গড়ে স্কোর একশ পার করেন। স্কোরবোর্ডে ১২০ রান তোলার পর তাদের বিচ্ছিন্ন করেন মোস্তাফিজুর রহমান।

৩২ রানের এই জুটি ভাঙে উইকেটকিপার লিটন দাশকে আলজারি ক্যাচ দিলে। ২১ বলে তিন চারে ১৭ রান করেন তিনি। রোভম্যানের সঙ্গে শেষ জুটিতে নেমেছেন আকিল হোসেন। ৩৮ ওভারে ৯ উইকেটে ১২০ রান ওয়েস্ট েইন্ডিজের। ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্যাভিলিয়নে ফেরার মিছিলে এবার যোগ দিলেন রেমন রেইফার। ৩০তম ওভারের চতুর্থ বলে নিজের তৃতীয় উইকেট পেলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। উইন্ডিজ ব্যাটসম্যানের বিরুদ্ধে এলবিডাব্লিউর জোরালো আপিলে আম্পায়ার সাড়া না দিলে রিভিউ নেয় বাংলাদেশ এবং সিদ্ধান্ত যায় তাদের পক্ষে। ১২ বলে ২ রান করে অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠ ছাড়েন রেইফার। ৩০ ওভারে ৮ উইকেটে ৮৮ রান ওয়েস্ট ইন্ডিজের। রোভম্যান পাওয়েলের সঙ্গে ক্রিজে আছেন আলজারি জোসেফ।
শেষ মুহূর্তে ইনজুরি, অধিনায়ককে ছাড়াই নামল শ্রীলঙ্কা
                                  

ম্যাচের দিন সকালেও ইনজুরির ধাক্কা পিছু ছাড়ল না শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের। আঙুলের ইনজুরিতে একদম শেষ মুহূর্তে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টের একাদশ থেকে বাদ পড়ে গেলেন লঙ্কানদের নিয়মিত অধিনায়ক দিমুথ করুনারাত্নে। তার জায়গায় অধিনায়কত্ব করছেন দিনেশ চান্দিমাল।

গল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন শ্রীলঙ্কার ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক চান্দিমাল। ব্যাটিংয়ে নেমেছেন দুই ওপেনার লাহিরু থিরিমান্নে এবং কুশল পেরেরা। শুধু করুনারাত্নেই নয়, এ ম্যাচে দলের অভিজ্ঞ পেসার সুরাঙ্গা লাকমলকেও পায়নি শ্রীলঙ্কা। তবে করুনারাত্নের ইনজুরিতে কপাল খুলেছে কুশল মেন্ডিসের। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সবশেষ সিরিজে টানা তিন ইনিংসে শূন্য রানে আউট হয়েছিলেন তিনি। এবার করুনারাত্নে না থাকায় টিকে গেছেন একাদশে।

এদিকে ইংল্যান্ড দলে অভিষেক হয়েছে ২৩ বছর বয়সী ডানহাতি ব্যাটসম্যান ড্যান লরেন্সের। তিনি ইংল্যান্ডের ৬৯৭তম টেস্ট খেলোয়াড়। শ্রীলঙ্কা একাদশ: কুশল পেরেরা, লাহিরু থিরিমান্নে, কুশল মেন্ডিস, দিনেশ চান্দিমাল, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউজ, নিরোশাল ডিকভেলা, দাসুন শানাকা, ভানিন্দু হাসারাঙ্গা, দিলরুয়ান পেরেরা, লাসিথ এম্বুলদেনিয়া এবং আসিথা ফার্নান্দো।

ইংল্যান্ড একাদশ: ডম সিবলি, জ্যাক ক্রাওলি, জনি বেয়ারস্টো, জো রুট, ড্যান লরেন্স, জস বাটলার, স্যাম কুরান, ডম বেস, জ্যাক লিচ, মার্ক উড এবং স্টুয়ার্ট ব্রড।

বিকেএসপিতে তামিম-মাহমুদউল্লাহদের পরীক্ষা শুরু
                                  

জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচ শুরু হয়েছে বিকেএসপিতে। যেখানে মুখোমুখি হয়েছে তামিম ইকবাল একাদশ ও মাহমুদউল্লাহ একাদশ। ৪০ ওভারের ম্যাচ খেলতে দুই দল মাঠে নেমেছে। প্রথমে ব্যাটিং করছে তামিম ইকবাল একাদশ। প্রাথমিক দলের ২২ ক্রিকেটার দুই গ্রুপে ভাগ হয়ে এই ম্যাচ খেলছে। প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো ও দুই অধিনায়ক নিজেদের দল নির্বাচন করেছেন। শক্তির বিচারে মাহমুদউল্লাহ একাদশকে এগিয়ে রাখতে হবে। মাহমুদউল্লাহ বাদেও দলে রয়েছেন সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম। এছাড়া নাঈম শেখ, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোসাদ্দেক হোসেনও রয়েছেন। পেস বোলিং সামলাবেন হাসান মাহমুদ, আল-আমিন হোসেন ও শরীফুল ইসলাম।

অনলাইনে ম্যাচটি দেখানোর সুযোগ নেই। সচরাচর পিচ ভিশন দেশের সকল প্রতিযোগিতামূলক ও অনুশীলন ম্যাচ সম্প্রচার করে। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে বিকেএসপিতে তাদের প্রবেশ নিষিদ্ধ। একদিন পর ১৬ জানুয়ারি হবে ক্রিকেটারদের দ্বিতীয় অনুশীলন ম্যাচ। জৈব সুরক্ষা বলয়ে থাকা নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু ও হাবিবুল বাশার সুমন ম্যাচগুলো মাঠে থেকে দেখবেন।

তামিম একাদশ: তামিম ইকবাল খান, লিটন দাশ, নাজমুল হোসেন শান্ত, মোহাম্মদ মিথুন, সৌম্য সরকার, আফিফ হোসেন ধ্রুব, মাহাদি হাসান, সাইফ উদ্দিন, নাসুম আহমেদ, রুবেল হোসেন ও মোস্তাফিজুর রহমান।

মাহমুদউল্লাহ একাদশ: ইয়াসির আলী চৌধুরী, নাঈম শেখ, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, হাসান মাহমুদ, আল-আমিন হোসেন ও শরীফুল ইসলাম। 

ম্যানইউকে হারিয়ে ফাইনালে ম্যানসিটি
                                  

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে তাদেরই মাঠে হারিয়ে ইএফএল কাপের ফাইনাল নিশ্চিত করেছে ম্যানচেস্টার সিটি। ফাইনালে সিটি মুখোমুখি হবে টটেনহাম হটস্পারের বিপক্ষে। বুধাবার রাতে ওল ট্রাফোর্ডে ইউনাইটেডকে ২-০ গোলে হারায় সিটি। দ্য সিটিজেনসদের হয়ে গোল দুটি করেন জন স্টোনস ও ফার্নান্দিনহো। প্রথমার্ধে কোনো দলই গোল পায়নি। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে এসে অবশেষে প্রথম গোলের দেখা পায় সিটি। ফিল ফোডেনের ফ্রি কিক থেকে পাওয়া বল ডি বক্সে পেয়ে গোলের সূচনা করেন স্টোনস।

ম্যাচের শেষ দিকে ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার ফার্নান্দিহোর গোলে ব্যবধান দিগুণ করে সিটি। ডি বক্সের বাইরে থেকে দুর্দান্ত ভলিতে ম্যাচের ৮৩ মিনিটের সময় ইউনাইটেডের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দেন ফার্নান্দিহো। ম্যানসিটি চতুর্থবারের মতো ইএফএল কাপের ফাইনাল নিশ্চিত করে। এর আগে তিনবার উঠে তিনবারই ট্রফি জয় করে মাঠ ছাড়ে দ্যা সিটিজেনসরা।  

ওয়ানডের পর টেস্টেও ‘প্রথম’ ক্লেয়ার
                                  

অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের মধ্যকার চলতি বোর্ডার-গাভাস্কার ট্রফির তৃতীয় ম্যাচে আম্পায়ারদের তালিকায় চোখ বুলালে একটি নামে চোখ আটকে যাবে যে কারো। ম্যাচের দুই মূল আম্পায়ার পল রাইফেল, পল উইলসন এবং টিভি আম্পায়ার ব্রুস অক্সেনফোর্ডকে চিনবে সবাই।

কিন্তু চতুর্থ আম্পায়ার হিসেবে ক্লেয়ার পলোস্যাকের নামটি নিশ্চয় অদ্ভুত ঠেকারই কথা। কেননা পুরুষদের টেস্ট ক্রিকেটে এর আগে যে কখনও নারী আম্পায়ারের দেখা মেলেনি। এবারই প্রথমবারের মতো ছেলেদের টেস্ট ক্রিকেটে ম্যাচ পরিচালনার দায়িত্ব পেলেন কোনো নারী আম্পায়ার।

তিনি ক্লেয়ার পলোস্যাক, বয়স ৩২ বছর ২৭৫ দিন। এ বয়সে এখনও ক্রিকেট খেলে চলেছেন অনেক নারী খেলোয়াড়। তবে তিনি বেছে নিয়েছেন আম্পায়ার, গড়েছেন ইতিহাস। প্রথম নারী আম্পায়ার হিসেবে ছেলেদের ওয়ানডে ম্যাচের পর এবার টেস্টেও দায়িত্ব পালন করছেন ক্লেয়ার।

২০১৯ সালের এপ্রিলে নামিবিয়া ও ওমানের মধ্যকার একটি ওয়ানডে ম্যাচে মূল আম্পায়ার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন ক্লেয়ার। তবে এবার সিডনি টেস্ট তিনি আছেন রিজার্ভ আম্পায়ার হিসেবে। ম্যাচের দুই স্ট্যান্ডিং আম্পায়ারের কারও কোনো সমস্যা দেখা দিলেই কেবল মাঠের দায়িত্ব বর্তাবে ক্লেয়ারের কাঁধে। আপাতত চতুর্থ আম্পায়ারের সকল কাজ যেমন পিচ প্রস্তুতি, খেলার সরঞ্জামাদি পরিবর্তন এবং মাঠের দুই আম্পায়ারকে সহায়তা প্রদান করবেন ক্লেয়ার।

অবিশ্বাস্য মূল্যে বাংলাদেশ-উইন্ডিজ সিরিজের টিভি স্বত্ব বিক্রি
                                  

বাংলাদেশ ও উইন্ডিজ সিরিজের টিভি স্বত্ব কিনেছে ব্যান-টেক নামের একটি বিজ্ঞাপনী সংস্থা । অবিশ্বাস্য মূল্যে এ স্বত্ব কিনেছে প্রতিষ্ঠানটি। জানা গেছে, তিন ওয়ানডে এবং দুই টেস্টের জন্য ১৭ কোটি ৯৭ লাখ টাকা বিসিবির কোষাগারে জমা দিয়েছে ব্যান-টেক।

আবার করোনার পরবর্তী সময়ের কথা বিবেচনায় আনা হয়েছে। পরিকল্পনার অংশ হিসেবে উইন্ডিজের বিপক্ষে হোম সিরিজের জন্য দরপত্র আহ্বান করে বিসিবি। তাতে তিনটি প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করলেও অবিশ্বাস্য মূল্যে সবাইকে ছাড়িয়ে সম্প্রচার স্বত্ব কিনে নেয় ব্যান-টেক।

জানা গেছে, বিজ্ঞাপনী সংস্থা ব্যান-টেক এ স্বত্ব কিনলেও তারা দেশের প্রথম ক্রীড়া চ্যানেল টি স্পোর্টসের কাছে বিক্রি করবে। ফলে আসন্ন সিরিজটি দেখা যাবে টি স্পোর্টসে। বিসিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিজামউদ্দীন চৌধুরী সুজন গণমাধ্যম বলেন, ‘ব্যান-টেক সর্বোচ্চ মূল্য দিয়ে আসন্ন সিরিজের সম্প্রচার স্বত্ব কিনে নিয়েছে। তারা নিজেদের চ্যানেল কিংবা অন্য কোনো প্রতিষ্ঠিত চ্যানেলে এ স্বত্ব বিক্রি করতে পারবে।’  

হাসপাতাল ছেড়ে সৌরভ বললেন, ‘আবার উড়তে প্রস্তুত’
                                  

অবশেষে ভক্ত-সমর্থকদের দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি দিয়ে হাসপাতাল ছাড়লেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ও বর্তমানে ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান সৌরভ গাঙ্গুলি। মৃদু হার্ট অ্যাটাকের পর এখন প্রায় পুরোপুরি সুস্থ আছেন কলকাতার দাদা।

আজ (বৃহস্পতিবার) বাংলাদেশ সময় বেলা ১১টার কিছুক্ষণ পর দক্ষিণ কলকাতার উডল্যান্ডস হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নিয়েছেন মহারাজখ্যাত এ সাবেক ক্রিকেটার। খবর এবিপি আনন্দ। হাসপাতাল থেকে বের হয়ে সংবাদমাধ্যমে সঙ্গে কিছুক্ষণ কথা বলেছেন সৌরভ। পরে ব্যক্তিগত গাড়িতে করে নিজের বেহালার বাড়িতে চলে যান তিনি। এসময় তার আশপাশে ছিল কড়া পুলিশি পাহাড়া।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এবিপি আনন্দে প্রকাশিত প্রতিবেদন মোতাবেক হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে সৌরভ বলেছেন, ‘উডল্যান্ডস কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ। এতদিন যারা আমার মঙ্গল কামনা করেছেন, এখানে থেকেছেন ধন্যবাদ তাদেরও। আমি আবারও উড়তে প্রস্তুত।’

এদিকে হাসপাতাল সূত্রের খবর, ছাড়পত্র দেয়া হলেও, সৌরভের স্বাস্থ্যের বিষয়টি হালকাভাবে ছেড়ে দিচ্ছেন না তারা। আজ বেলা ১২টায় দেবি শেঠির উপস্থিতিতে বসবে চিকিৎসকদের বৈঠক। যেখানে সিদ্ধান্ত হবে সৌরভের বাকি থাকা দুইটি এনজিওপ্লাস্টির ব্যাপারে।

উল্লেখ্য, গত শনিবার (২ জানুয়ারি) সকালে জিমনেসিয়ামে গিয়ে ব্যায়াম করার সময় সৌরভ গাঙ্গুলি জানান, তার বুকে ব্যথা করছে। হার্ট অ্যাটাকের কথা বুঝতে পেরে এরপর দ্রুত তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। প্রয়োজনীয় পরীক্ষার পর দেখা গেছে, সৌরভের হৃৎপিণ্ডে রক্ত সরবরাহকারী তিনটি ধমনীতে ‘ব্লক’ রয়েছে। ফলে শনিবার রাতেই এনজিওপ্লাস্টি করা হয়েছিল, বসানো হয়েছিল একটি স্টেন্ট। বাকি দুইটি স্টেন্টের বিষয়ে তখন সিদ্ধান্ত হয়নি।

পরে মঙ্গলবার সৌরভের সঙ্গে কথা বলেন বিশিষ্ট হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ দেবি শেঠি। সৌরভের শারীরিক অবস্থা নিয়ে মেডিক্যাল বোর্ডের সঙ্গে আলোচনা করেন তিনি। পরে জানান, সৌরভের স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে কোনও বাধাই নেই। তার হার্ট অত্যন্ত ভাল রয়েছে। এমনকি তিনি চাইলে ক্রিকেটও খেলতে পারবেন।

হোঁচট খেয়ে শুরু পচেত্তিনোর পিএসজি অধ্যায়
                                  

অধ্যায়ের শুরুটা ভালো চান সবাই। আরো ভালোভাবেই শুরু হয় আবার কারো হোঁচট খেয়ে। এ যেমন প্যারিস সেন্ট জার্মেইর (পিএসজি) নতুন কোচ মাউরিসিও পচেত্তিনোর পিএসজি অধ্যায় শুরু হোঁচট খেয়ে। লিগ ওয়ানে তার প্রথম ম্যাচে জয় পায়নি পিএসজি। লিগ ওয়ানে সেন্ট এতিয়নের বিপক্ষে গতকাল রাতে ড্র’তেই সন্তুষ্ট থাকতে হয় পিএসজিকে। ম্যাচের ১৯তম মিনিটেই রোমেইন হামোউমার গোলে এগিয়ে যায় এতিয়েন। তিন মিনিট পরেই মোয়েজ কিনের গোলে পিএসজি শোধও করে ফেলে।

২০২২ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত পচেত্তিনোর সঙ্গে চুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেছে পিএসজি। এর আগে পিএসজিতেই একসময় খেলেছিলেন পচেত্তিনো। ২০০১ থেকে ২০০৩ পর্যন্ত প্যারিসের ক্লাবটির হয়ে খেলছিলেন। এবার আসছেন কোচ হয়ে। তবে যাত্রাটা ভালো হলো না এই আর্জেন্টাইন কোচের। শেষ পর্যন্ত তার ভাগ্যে কি আছে বলে দেবে সময়।  

চতুর্থ টেস্ট না খেলেই দেশে ফিরতে পারে ভারত, চিন্তিত অস্ট্রেলিয়া
                                  

ভারতের বিপক্ষে সিরিজ মানেই কাড়ি কাড়ি টাকার গন্ধ। অস্ট্রেলিয়ার মতো দলগুলোও তাই ভারতকে বেশি কিছু বলতে চায় না। কিন্তু করোনার এই সময়টায় নিজের দেশের জনগণের স্বার্থ তো আগে। তাই ভারতীয় দলকে কোয়ারেন্টাইনের ব্যাপারে কোনোরকম ছাড় দিতে নারাজ ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া।

যে ইস্যু নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে পাল্টাপাল্টি চলছে তো চলছেই। ভারত ইতিমধ্যে হুমকি দিয়ে বসেছে, যদি তাদের জন্য নিয়ম শিথিল করা না হয়, তবে ব্রিসবেনে সিরিজের চতুর্থ টেস্ট না খেলেই দেশের বিমান ধরবে দল। জানা গেছে, অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন প্রদেশে কোভিড-১৯ এর জন্য ভিন্ন ভিন্ন নিয়মনীতি চালু রয়েছে এবং কুইন্সল্যান্ড প্রদেশের অন্তর্গত গ্যাবায় সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের তরফ থেকে যে কঠোর নিয়মবিধি বলবৎ রয়েছে তাতে সেখানে গিয়ে ফের কঠোর কোয়ারেন্টাইনে প্রবেশ করতে হবে ভারতীয় ক্রিকেটারদের।

কুইন্সল্যান্ড প্রশাসন জানিয়েছে, সিডনি থেকে যাওয়া দুই দেশের ক্রিকেট দলকেই গ্যাবায় প্রবেশ করে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। অর্থাৎ, আইপিএল খেলে সিডনিতে পৌঁছনোর পর যেভাবে তাদের উপর ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনের নীতি আরোপিত হয়েছিল, সেভাবে তাদের ফের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে ১৪ দিন।

কিন্তু দ্বিতীয়বার হোটেলরুমে বন্দি থেকে কোয়ারেন্টাইনের দুঃসহ অভিজ্ঞতা নিতে চান না ভারতীয় ক্রিকেটাররা। ভারতীয় দলের এক সূত্রে দাবি করা হয়েছে, ‘আমরা দুবাইয়ে গিয়ে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে থেকেছি। এরপর সিডনিতে এসেও একই জিনিস করেছি। অর্থাৎ, জৈব সুরক্ষা বলয়ে আমরা প্রায় একমাস কাটিয়েছি। কিন্তু এখানে সফর শেষেও একই কাজ করতে আমরা মোটেই ইচ্ছুক নই।’ সে কারণে প্রয়োজনে সিডনিতেই তৃতীয় টেস্ট খেলে দেশে ফিরতে চায় টিম ইন্ডিয়া। নতুবা অন্য এমন কোনো শহরে খেলতে চায়, যেখানে কোয়ারেন্টাইনের বিধিনিষেধ নেই। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার মনোভাবও এমন, ছাড় দেয়া সম্ভব নয়।

টেস্টের আগের দিন এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে পেইন বলেন, ‘এটা নিয়ে উত্তাপ ছড়াচ্ছে সত্য। কিছু একটা তো হচ্ছেই। এটা শুধু ক্রিকেটের কারণে নজরে আসছে তা নয়, অনেক অসমর্থিত সূত্রের খবর দুশ্চিন্তা বাড়াচ্ছে। শোনা যাচ্ছে, তারা চতুর্থ টেস্ট অন্য জায়গায় খেলতে চায়, সেখানে যাবে না। দেখা যাক, কী হয়।’

স্বাগতিক অধিনায়ক হিসেবে কি বাড়তি হতাশা কাজ করছে? পেইনের দুশ্চিন্তা আসলে ভারতের ক্ষমতা নিয়ে। তিনি বলেন, ‘ভেতরে হতাশা কাজ করছে না। তবে ভারতের মতো বিশ্ব ক্রিকেটের ক্ষমতাশালী এক দলের কাছ থেকে এমন কথা শুনলে কিছুটা অনিশ্চয়তা তো তৈরি হয়ই। মনে হচ্ছে, কিছু একটা হতে পারে।’

সেই কিছু একটা কি? ভারতীয় গণমাধ্যমের খবর, দলের এক সূত্র জানিয়েছে, যদি অস্ট্রেলিয়া কোয়ারেন্টাইন নিয়ে তাদের জেদ ধরে বসে থাকে, তবে সিরিজ শেষ না করেই দেশে ফিরে আসতে পারে ভারত। সূত্রটির সাফ কথা, ‘সংকটে ভুগতে থাকা অস্ট্রেলিয়া বোর্ডের এই সিরিজ থেকে যথেষ্ট লাভ হচ্ছে। তাহলে ভারতকে দয়া করা হচ্ছে, এমন মনোভাব দেখানো হচ্ছে কেন?’ সব মিলিয়ে, ব্রিসবেন টেস্ট নিয়ে জট কেবল বাড়ছে। সেই জট আদৌ খুলবে নাকি সিরিজ শেষ না করে দেশে ফেরত আসার মতো কঠিন এক সিদ্ধান্ত নিয়ে নেবে ভারত, দেখতে সময়ের অপেক্ষা।

উড়তে থাকা উইলিয়ামসন হাঁকালেন চতুর্থ ডাবল সেঞ্চুরি
                                  

নিউ জিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের ব্যাটে বইছে রানের বন্যা। পাকিস্তানের বিপক্ষে চলমান টেস্টসহ সর্বশেষ তিন টেস্টের দুটিতেই হাঁকিয়েছেন ডাবল সেঞ্চুরি। আর একটিতে সেঞ্চুরি। পিতৃত্বকালীন ছুটিতে থাকায় একটি টেস্ট খেলতে পারেননি।

ক্রাইস্টচার্চে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টের প্রথম ইনিংসে উইলিয়ামসন ক্যারিয়ারের চতুর্থ ডাবল হাঁকান। ৩২৭ বলে ২৪টি চারের মারে ২০০ রান স্পর্শ করেন এই কিউই অধিনায়ক। এর আগে গতকাল টেস্টের দ্বিতীয় দিন ১৪০ বলে ১০০ রান করেছিলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত আউট হন ২৩৮ রান করে।

এ ছাড়া তৃতীয় কিউই ব্যাটসম্যান হিসেবে ৭ হাজার রানের ক্লাবে নাম লেখান উলিয়ামসন। স্টিফেন ফ্লেমিং ৭১৭২ ও রস টেইলর ৭৩৭৯ রান নিয়ে উইলিয়ামসনের সামনে আছেন। যেভাবে এগোচ্ছেন তিনি তাদেরও ছাড়িয়ে যাবেন দ্রুত।

পাকিস্তানের দেওয়া ২৯৭ রানের লিডকে সামনে রেখে খেলতে নেমে উলিয়ামসনের ডাবল আর হ্যানরি নিকোলসের দেড়শ রানে ভর করে রানের পাহাড় গড়ছে কিউইরা। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত প্রথম ইনিংসে স্বাগতিকদের সংগ্রহ ছয় উইকেট হারিয়ে ৫৯৫ রান। পাকিস্তানের সামনে লিড ২৯৭ রান। 

ফলো অন এড়ানোর পর ফাহিমের সেঞ্চুরির আক্ষেপ
                                  

মাউন্ট ম্যাঙ্গানিউতে ফাহিম আশরাফ একাই লড়ছিলেন পাকিস্তানের হয়ে। দুই লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি। প্রথম, দলের হয়ে ফলো অন এড়ানো। দ্বিতীয়, নিজের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরির স্বাদ গ্রহণ। দলকে উদ্ধার করতে পারলেন ফাহিম। পারেননি ব্যক্তিগত মাইলফলকে পৌঁছতে। তাতে নিশ্চিত আক্ষেপ থাকবে পেস বোলিং অলরাউন্ডারের। ফাহিম আশরাফের ৯১ রানের ঝকঝকে ইনিংসে নিউ জিল্যান্ডের প্রথম ইনিংসে করা ৪৩১ রানের জবাবে পাকিস্তান তুলেছে ২৩৯ রান। স্বাগতিকরা প্রথম ইনিংসে ১৯২ রানের লিড পেয়েছে।

১ উইকেটে ৩০ রানে দিন শুরু করেছিলেন আবীদ আলী ও মোহাম্মদ আব্বাস। দিনের প্রথম সেশনে মাত্র ৩৫ রান তুলতেই সফরকারীরা হারায় ৪ উইকেট। একে একে সাজঘরে ফেরেন আবীদ আলী (২৫), আব্বাস (৫), আজহার আলী (৫) ও হারিস সোহেল (৩) । বিরতির পর এসে ফাওয়াদ আলম (৯) তাদের দেখানো পথে হাঁটেন।

৮০ রান তুলতেই পাকিস্তানের নেই ৬ উইকেট। সেখান থেকে প্রতিরোধ গড়ে তুলেন অধিনায়ক রিজওয়ান ও ফাহিম আশরাফ। দুইজনের দৃঢ়চেতা ব্যাটিং, দৃঢ় মনোসংযোগে চিড় ধরাতে পারেননি কিউই পেসাররা। দুইজনই পেয়ে যান হাফ সেঞ্চুরি। তাতে আশার আলো দেখতে থাকে সফরকারীরা। তৃতীয় দিনের খেলার চা-বিরতিতে এ জুটি ভাঙে রান আউটে। অনায়েসে দুই রান নিয়ে নিচ্ছিলেন দুই ব্যাটসম্যান। কিন্তু ডিপ স্কয়ার লেগ থেকে মিচেল স্ট্যানারের সরাসরি থ্রোতে চমকে যান রিজওয়ান। পাকিস্তানের অধিনায়ক ৭১ রানে রান আউট।

রিজওয়ান যখন আউট হন তখনও ফলো অন থেকে ৪৩ রান দূরে পাকিস্তান। মনে হচ্ছিল কিউই বোলাররা চেপে ধরবে। কিন্তু তেমনটা হয়নি। দশ নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমে শাহীন শাহ আফ্রিদি ৩০ বল খেলেন। অপরপ্রান্তে ফাহিম দ্রুত রান তোলেন। তাতে পাকিস্তান পেরিয়ে যায় ফলো অন। শেষ দিকে একা হয়ে পড়েন ফাহিম। রান তোলার গতি বাড়াতে গিয়ে নার্ভাস নাইন্টিজের শিকার।

বল হাতে ৩ উইকেট নিয়ে জেমিসন নিউ জিল্যান্ডের সেরা। ২টি করে উইকেট নেন টিম সাউদি, ট্রেন্ট বোল্ট ও নেইল ওয়াগনার। দিনের খেলা শেষ হওয়ায় নিউ জিল্যান্ডকে আর ব্যাটিংয়ে নামায়নি আম্পারারা। বিশাল রানের লিড নিয়ে মঙ্গলবার দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করবে কিউইরা। 

উইলিয়ামসনের ধীরতম সেঞ্চুরি, বড় সংগ্রহ কিউইদের
                                  

গ্রীষ্মকালেই যেন নিজের ব্যাটে বসন্ত নামিয়ে এনেছেন নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। সবশেষ ২০ ইনিংসে হাঁকালেন পাঁচটি সেঞ্চুরি, সঙ্গে রয়েছে আরও ৪টি ফিফটি। তার ব্যাটে চড়েই পাকিস্তানের বিপক্ষে বক্সিং ডে টেস্টের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের দখলে রেখেছে নিউজিল্যান্ড।

হ্যামিল্টন টেস্টে দ্বিতীয় দিন শেষে পাকিস্তানের চেয়ে ৪০১ রানে এগিয়ে রয়েছে স্বাগতিকরা। দিনের খেলা শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ২০ ওভারে ১ উইকেটে ৩০ রান। এর আগে নিউজিল্যান্ড অলআউট হয়েছে ৪৩১ রানে। নিজের ক্যারিয়ারের ধীরতম সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন কিউই অধিনায়ক।

নিকলস আউট হওয়ার আগেই টেস্ট ক্যারিয়ারের ২৩তম সেঞ্চুরি তুলে নেন নিজের সবশেষে ইনিংসেই ২৫১ রান করা উইলিয়ামসন। সেঞ্চুরিতে পৌঁছতে উইলিয়ামসন খেলেন ২৬১টি বল। যা তার ক্যারিয়ারের ধীরতম সেঞ্চুরি। এর আগেধীরতম সেঞ্চুরিটি ছিল ২০১৪ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে, ২৫৭ বল খেলে।

ষষ্ঠ ব্যাটসম্যান হিসেবে উইলিয়ামসন সাজঘরে ফেরেন দলীয় ২৮১ রানের মাথায়। তার ব্যাট থেকে আসে ২৯৭ বলে ১২ চার ও ১ ছয়ের মারে ১২৯ রান। শেষের ৪ উইকেটে আরও ১৫০ রান যোগ করে নিউজিল্যান্ড। যার মূল কৃতিত্ব উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান বিজে ওয়াটলিং ও পেসার কাইল জেমিসনের।

মিচেল স্যান্টনার ১৯ রান করে আউট হওয়ার পর অষ্টম উইকেটে ৬৬ রানের জুটি গড়েন ওয়াটলিং ও জেমিসন। দীর্ঘদেহী এ পেসারের ব্যাট থেকে আসে ৩২ রান। দলের নবম ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়ার আগে ওয়াটলিং খেলেন ৭৩ রানের ইনিংস। মূলত তার এ ইনিংসে চড়েই ৪৩১ রান পর্যন্ত যেতে পেরেছে নিউজিল্যান্ড।

পাকিস্তানের পক্ষে শাহিন আফ্রিদি নিয়েছেন ৪ উইকেট, ইয়াসির শাহর ঝুলিতে গেছে ৩টি উইকেট।

শেষ বিকেলে ব্যাটিংয়ে নেমে ২০ ওভারে ১টি উইকেট হারিয়ে ৩০ রান করেছে পাকিস্তান। ১৫.৩ ওভারে ২৮ রানের উদ্বোধনী জুটির পর শান মাসুদ আউট হয়েছেন ৪২ বলে ১০ রান করে। আরেক ওপেনার আবিদ আলি ৬৪ বলে ১৯ রান নিয়ে আছেন অপরাজিত। নাইটওয়াচম্যাচ হিসেবে নামা মোহাম্মদ আব্বাস ১৫ বল খেলে রানের খাতা খুলতে পারেননি।


   Page 1 of 44
     খেলাধুলা
ভারতীয় ক্রিকেটারদের লিফটেও উঠতে দিতো না অস্ট্রেলিয়া!
.............................................................................................
রোনালদোর পর মেসিরও ‘না’
.............................................................................................
গাপটিলের ক্যাচ দেখে চোখ ছানাবড়া সবার
.............................................................................................
আম্পায়ারের ভুলে এক ওভারে পাঁচ বল করলেন মোস্তাফিজ
.............................................................................................
উইন্ডিজ থামল ১৪৮ রানে
.............................................................................................
শেষ মুহূর্তে ইনজুরি, অধিনায়ককে ছাড়াই নামল শ্রীলঙ্কা
.............................................................................................
বিকেএসপিতে তামিম-মাহমুদউল্লাহদের পরীক্ষা শুরু
.............................................................................................
ম্যানইউকে হারিয়ে ফাইনালে ম্যানসিটি
.............................................................................................
ওয়ানডের পর টেস্টেও ‘প্রথম’ ক্লেয়ার
.............................................................................................
অবিশ্বাস্য মূল্যে বাংলাদেশ-উইন্ডিজ সিরিজের টিভি স্বত্ব বিক্রি
.............................................................................................
হাসপাতাল ছেড়ে সৌরভ বললেন, ‘আবার উড়তে প্রস্তুত’
.............................................................................................
হোঁচট খেয়ে শুরু পচেত্তিনোর পিএসজি অধ্যায়
.............................................................................................
চতুর্থ টেস্ট না খেলেই দেশে ফিরতে পারে ভারত, চিন্তিত অস্ট্রেলিয়া
.............................................................................................
উড়তে থাকা উইলিয়ামসন হাঁকালেন চতুর্থ ডাবল সেঞ্চুরি
.............................................................................................
ফলো অন এড়ানোর পর ফাহিমের সেঞ্চুরির আক্ষেপ
.............................................................................................
উইলিয়ামসনের ধীরতম সেঞ্চুরি, বড় সংগ্রহ কিউইদের
.............................................................................................
নতুন বছরের শুরুতেও অনিশ্চিত ওয়ার্নার
.............................................................................................
পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানদের সামনে কঠিন পরীক্ষা
.............................................................................................
কোভিড নেগেটিভ মাশরাফি, যোগ দিচ্ছেন খুলনা শিবিরে
.............................................................................................
২৫১ রানের ইনিংসে দুই নম্বরে উইলিয়ামসন
.............................................................................................
নিউ জিল্যান্ডকে নিয়ন্ত্রণে রেখেছেন ল্যাথাম-উইলিয়ামসন
.............................................................................................
গোল্ডেন ফুট অ্যাওয়ার্ড জিতলেন রোনালদো
.............................................................................................
আতিক উল্লাহ চৌধুরী হত্যায় ৭ আসামির মৃত্যুদণ্ড
.............................................................................................
বিসিবির জৈব সুরক্ষায় ‘খুশি’ ওয়েস্ট ইন্ডিজ
.............................................................................................
নিজেকে শাস্তি দিচ্ছিলেন ম্যারাডোনা, দাবি চিকিৎসকের
.............................................................................................
বাদ পড়ার ভয়ে ছুটি চান না পাকিস্তানের ক্রিকেটাররা!
.............................................................................................
অলরাউন্ড নৈপুণ্যে খুলনাকে জয়ে ফেরালেন শুভাগত
.............................................................................................
কাতারে জেমির কোয়ারেন্টাইন পর্ব কমানোর চেষ্টায় বাংলাদেশ
.............................................................................................
তবুও সুয়ারেজের আশা ছাড়েননি কোচ
.............................................................................................
উত্তরসূরি
.............................................................................................
অনুশীলনে ফিরেছেন মাশরাফি
.............................................................................................
হোয়াটমোরের সেরা টেস্ট একাদশে সাকিব
.............................................................................................
ওয়ার্নার ছিটকে গেলেন, কামিন্স বিশ্রামে
.............................................................................................
বৃষ্টিতে ভাসলো নিউ জিল্যান্ড-উইন্ডিজ শেষ টি-টোয়েন্টি
.............................................................................................
শেষ দিকের ঝড়ে চট্টগ্রামের বড় সংগ্রহ
.............................................................................................
চেলসিকে রুখে দিয়ে শীর্ষে ফিরলো টটেনহ্যাম
.............................................................................................
কেন পারছে না খুলনা, ব্যাখ্যা করলেন মাহমুদউল্লাহ
.............................................................................................
ম্যাচ হারের পর কোহলিদের জরিমানা
.............................................................................................
অস্ট্রেলিয়ার ঝাঁঝ টের পেল ভারত
.............................................................................................
মিরপুরে আজ গুরু-শিষ্যের লড়াই
.............................................................................................
বেয়ারস্টো ঝড়ে জিতল ইংল্যান্ড
.............................................................................................
ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ ও আর্জেন্টিনার উন্নতি
.............................................................................................
আর্জেন্টিনায় তিন দিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা
.............................................................................................
‘তোমার চেয়ে বড় সুপারস্টার আমার চোখে আর কেউ ছিল না’
.............................................................................................
ম্যারাডোনার মৃত্যুতে মেসির শোক
.............................................................................................
টসে জিতে ঢাকাকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ চট্টগ্রামের
.............................................................................................
শেষ ষোলোয় রোনালদোর জুভেন্টাস
.............................................................................................
আইসিসির নতুন চেয়ারম্যান গ্রেগ বারক্লে
.............................................................................................
সিরিজ শুরুর আগে দুই খেলোয়াড়কে হারাল নিউজিল্যান্ড
.............................................................................................
২৫ বছরের মধ্যে বাজে শুরু বার্সার
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো : মাহবুবুর রহমান ।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মো: হাবিবুর রহমান । সম্পাদক কর্তৃক বিএস প্রিন্টিং প্রেস ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, সুত্রাপুর ঢাকা খেকে মুদ্রিত
ও ৬০/ই/১ পুরানা পল্টন (৭ম তলা) থেকে প্রকাশিত বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৫১,৫১/ এ রিসোর্সফুল পল্টন সিটি (৪র্থ তলা), পুরানা পল্টন, ঢাকা -১০০০।
ফোনঃ-০২-৯৫৫০৮৭২ , ০১৭১১১৩৬২২৬

Web: www.bhorersomoy.com E-mail : dbsomoy2010@gmail.com
   All Right Reserved By www.bhorersomoy.com Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD