ঢাকা,রবিবার,২৮ শ্রাবণ ১৪২৭,১১,এপ্রিল,২০২১
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * বাংলাদেশ ১৬-২০ গ্রেড সরকারি কর্মচারী সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন   * বিএনপির অপরাজনীতিতে বিভ্রান্তির কারণে করোনা বাড়ছে : কাদের   * ক্যান্সার আক্রান্ত আম্পায়ার নাদির শাহর পাশে পিচ ফাউন্ডেশন   * পেঁয়াজের দাম কমেছে   * আবারও বাড়ল আমদানির চাল বাজারে আনার সময়   * ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা   * ঢাকা আসছেন ভারতের সেনাপ্রধান   * ঝড়-বৃষ্টি বাড়ছে, তাপমাত্রা আরও কমবে   * ভারতে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ, সোয়া লাখ শনাক্তে ফের রেকর্ড   * ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের মধ্যেই শুরু হলো টিকার দ্বিতীয় ডোজ  

   রাজনীতি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
বিএনপির সুবর্ণজয়ন্তীর কর্মসূচি প্রত্যাহার রহস্যজনক : কাদের

করোনাভাইরাসের অজুহাতে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বিএনপি যে কর্মসূচি গ্রহণ করেছিল তা প্রত্যাহার করে নেয়া রহস্যজনক বলেও মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, ইতিহাসের অনেক মীমাংসিত বিষয় নিয়ে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়বে জেনেই বিএনপি স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর কর্মসূচি প্রত্যাহার করেছে। বৃহস্পতিবার (২৫ মার্চ) বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে ‘২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস’ উপলক্ষে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের তার বাসভবন থেকে সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হন। ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি মুখে মুখে মুক্তিযুদ্ধের কথা বললেও একাত্তরের গণহত্যা নিয়ে একটি কথাও বলেনি। এ ব্যাপারে তাদের নীরবতা হানাদার বাহিনীর পক্ষে তাদের অবস্থান স্পষ্ট করে। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর নির্যাতন নিয়েও বিএনপির মুখে কিছু শোনা যায় না। পক্ষান্তরে তারা শুধু সরকারের অন্ধ সমালোচনায় ব্যস্ত।’ আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানাক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব-উল-আলম হানিফ ও ডা. দীপু মনি প্রমুখ।

বিএনপির সুবর্ণজয়ন্তীর কর্মসূচি প্রত্যাহার রহস্যজনক : কাদের
                                  

করোনাভাইরাসের অজুহাতে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বিএনপি যে কর্মসূচি গ্রহণ করেছিল তা প্রত্যাহার করে নেয়া রহস্যজনক বলেও মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, ইতিহাসের অনেক মীমাংসিত বিষয় নিয়ে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়বে জেনেই বিএনপি স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর কর্মসূচি প্রত্যাহার করেছে। বৃহস্পতিবার (২৫ মার্চ) বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে ‘২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস’ উপলক্ষে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের তার বাসভবন থেকে সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হন। ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি মুখে মুখে মুক্তিযুদ্ধের কথা বললেও একাত্তরের গণহত্যা নিয়ে একটি কথাও বলেনি। এ ব্যাপারে তাদের নীরবতা হানাদার বাহিনীর পক্ষে তাদের অবস্থান স্পষ্ট করে। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর নির্যাতন নিয়েও বিএনপির মুখে কিছু শোনা যায় না। পক্ষান্তরে তারা শুধু সরকারের অন্ধ সমালোচনায় ব্যস্ত।’ আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানাক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব-উল-আলম হানিফ ও ডা. দীপু মনি প্রমুখ।

এখনো সাধারণ ছুটির সিদ্ধান্ত হয়নি : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
                                  

বর্তমান করোনা প্রেক্ষাপটে এখনো সাধারণ ছুটি বা লকডাউনের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। বুধবার (২৪ মার্চ) স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এমবিবিএস পরীক্ষা নিয়ে বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান। দিন দিন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে, এমন পরিস্থিতিতে সাধারণ ছুটি বা লকডাউনের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত আছে কি-না জানতে চাইলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এ বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে এমন কোনো সিদ্ধান্ত হলে জানিয়ে দেব।’ জাহিদ মালেক বলেন, এটা সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে সিদ্ধান্ত হয়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে কোনো অর্ডার পাস করে না। তিনি বলেন, আমরা পরীক্ষা নিচ্ছি। স্বাস্থ্যবিধি ও সেবায় বেশি নজর দিচ্ছি। যেসব জায়গায় করোনা বাড়ছে সেগুলো তুলে ধরেছি। সেসব জায়গা নিয়ন্ত্রণ করতে পারলে সংক্রমণ বাড়বে না। তাই করোনার উৎপত্তিস্থল বন্ধ করতে হবে। পর্যটনকেন্দ্রগুলো থেকে করোনার সংক্রমণ বেশি হচ্ছে, তাই সেগুলো সীমিত করার বিষয়েও জোর দেন মন্ত্রী।

যানজটমুক্ত রাখতেই পাতাল রেল নির্মাণের পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার
                                  

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, নগরবাসীর অসহনীয় দুর্ভোগ যানজট ও জনজটমুক্ত রাখতেই সরকার পাতাল রেল নির্মাণের পরিকল্পনা নিয়েছে। বুধবার (২৪ মার্চ) সকালে রাজধানীর একটি হোটেলে ঢাকা শহরে পাতাল রেল (সাবওয়ে) নির্মাণের সম্ভাব্যতা সমীক্ষা শীর্ষক সেমিনারে এ কথা জানান তিনি। মন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন। সেতুমন্ত্রী বলেন, ঢাকা শহরে পাতাল রেল নির্মাণের জন্য স্পেনের টিপসার নেতৃত্বে যৌথভাবে জাপানের পেডিকো, বিসিএল অ্যাসোসিয়েটস, কেএসসি এবং বেটসকে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ঢাকায় পাতাল রেল নেটওয়ার্কের জন্য প্রাথমিকভাবে ১১টি রুটের এলাইনমেন্ট প্রস্তাব করে। যার মধ্যে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চারটি রুট প্রাথমিক ডিজাইন কাজের অন্তর্ভুক্ত। এই চারটি রুট হলো- ঝিলমিল থেকে টঙ্গী পর্যন্ত প্রায় ২৯ কিলোমিটার, শাহকবির মাজার রোড থেকে সদরঘাট পর্যন্ত প্রায় ২৩ কিলোমিটার, কেরানীগঞ্জ থেকে সোনাপুর পর্যন্ত প্রায় ২০ কিলোমিটার এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নারায়ণগঞ্জ পর্যন্ত প্রায় ৪৮ কিলোমিটার। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী আশা করেন, এ প্রকল্পটি নির্মাণের ফলে ঢাকা শহরের প্রায় ৮০ লাখ কর্মজীবী মানুষের মধ্যে ৪০ লাখ মানুষ মাটির নিচে স্থানান্তর হবে এবং মাটির উপরিভাগ যানজট ও জনজটমুক্ত হবে। দেশের সবচেয়ে বড় মেগা প্রকল্প পদ্মা সেতুতে রেলওয়ে এবং সড়কপথের স্ল্যাব বসানোর কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, এখন পর্যন্ত মূল সেতুর নির্মাণকাজের অগ্রগতি শতকরা ৯২.৫০ ভাগ, নদীশাসন কাজ শতকরা ৮০ ভাগ এবং প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি শতকরা ৮৪.৫০ ভাগ। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, ২০২২ সালের জুন মাসের মধ্যে পদ্মা সেতু নির্মাণকাজ শেষে যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হবে।

সেতুমন্ত্রী জানান, চট্টগ্রামে কর্ণফুলী নদীর তলদেশ দিয়ে নির্মাণাধীন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল ইতোমধ্যে প্রায় আড়াই কিলোমিটার দীর্ঘ একটি টিউবের রিং প্রতিস্থাপনসহ বোরিং কাজ শেষ হয়েছে। এর মধ্যে টিউবটির ২০০ মিটার রোড স্ল্যাব নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে। দ্বিতীয় টিউবটির ৭০০ মিটার বোরিং কাজ শেষ হয়েছে। এ পর্যন্ত টানেলের নির্মাণকাজের অগ্রগতি শতকরা ৬৫ ভাগ। এছাড়া সেতু বিভাগের অধীনে বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পগুলো হলো- মেট্রোরেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, বিআরটির এবং ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্প। ঢাকা শহরে পাতাল রেল (সাবওয়ে) নির্মাণের সম্ভাব্যতা সমীক্ষা শীর্ষক সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন সেতু সচিব মো. বেলায়েত হোসেনসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। পরে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাম্প্রতিক রাজনৈতিক বিষয়ে কথা বলেন। তিনি বিএনপি নেতাদের উদ্দেশ করে বলেন, ৭ মার্চ ও ১৭ মার্চ ঢাকাসহ সারাদেশে জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ কি বিএনপি দেখতে পায় না? বিএনপি নেতারা স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালনে জনগণের সম্পৃক্ততা দেখতে পান না, তারা নিজেরা জনবিচ্ছিন্ন বলেই জনসম্পৃক্ততা দেখতে পান না। ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, এদেশের সাধারণ মানুষের অক্লান্ত পরিশ্রমেই উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় উঠে এসেছে বাংলাদেশ। তিনি বলেন, দেশের উন্নয়ন অর্জন যেমন বিএনপি দেখতে পায় না তেমনি দেখতে পায় না নেতিবাচক রাজনীতির কারণে তাদের জনগণ প্রত্যাখ্যান করেছে। সাম্প্রতিক পৌরসভা নির্বাচন এবং বিভিন্ন উপনির্বাচনে তাই প্রমাণিত হয়েছে। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে রাষ্ট্রের অর্জন বিএনপি সহ্য করতে পারে না মন্তব্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনার অব্যাহত উন্নয়ন যাত্রা এখন বিএনপির গাত্রদাহ। বিএনপি নিজের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গের দর্শনে বিশ্বাসী বলেও মনে করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, ভারতের সঙ্গে সম্পর্কের সেতুবন্ধ তৈরি করেছে শেখ হাসিনা সরকার। অন্যদিকে বিএনপি তৈরি করেছিল অবিশ্বাসের কৃত্রিম দেয়াল। যারা গঙ্গার পানি বণ্টনের বিষয়টি ভারত সফরকালে বেমালুম ভুলে যায় তারা আজ তিস্তার পানি বণ্টনের কথা স্মরণ করিয়ে দেয় উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতেই সরকারের সমালোচনার কৌশল এখন তাদের ভোতা অস্ত্র হয়ে গেছে।

দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গে কঠিন সিদ্ধান্ত আসছে : কাদের
                                  

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘শেখ হাসিনা দলীয় শৃঙ্খলার বিষয়ে অত্যন্ত কঠোর অবস্থানে রয়েছেন। শৃঙ্খলা না মানলে যত বড় নেতা বা জনপ্রতিনিধি হোন না কেন, দল কাউকে ছাড় দেবে না। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানমালা শেষে দলের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় দলীয় শৃঙ্খলার বিষয়ে কঠিন সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’ ওবায়দুল কাদের আজ (সোমবার) সকালে নওগাঁ জেলার পোরশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। তিনি তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সম্মেলনে যুক্ত হন। বিভিন্ন নির্বাচনী প্রচারণা ও দলীয় কার্যক্রমে বক্তব্য দেয়ার ক্ষেত্রে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘খেয়াল খুশিমতো কথা বলা এবং অরাজনৈতিক বক্তব্য দলের ও সরকারের অর্জনকে প্রশ্নবিদ্ধ করে। কথাবার্তায় দলের শৃঙ্খলার বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে। কারো ব্যক্তিগত অনিয়মের দায় দল বহন করবে না।’ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে নিবেদিত ও ত্যাগী কর্মীদের মূল্যায়ন করার নির্দেশ দিয়ে বলেন, ‘বিতর্কিত ব্যক্তি ও বসন্তের কোকিলদের দলে আনা যাবে না। দলের দুঃসময়ে এদের কেউ পাশে থাকবে না। ত্যাগীরাই দলকে আঁকড়ে ধরে থাকবে।’

এ সময় কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর কর্মসূচি পালনের জন্য নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের তিনি বলেন, ‘সাম্প্রদায়িক অপশক্তি আবারো মাথা চাড়া দিয়ে উঠছে। আর তাদের উস্কানি ও পৃষ্ঠপোষকতা করছে বিএনপি। আওয়ামী লীগকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। এসব অপশক্তির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার কোনো বিকল্প নেই।’ তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য ও দূরদর্শী নেতৃত্বে এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশ যখন বিদেশি সরকার প্রধানদের প্রশংসায় ভাসছে, তখন সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট ও দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার অপচেষ্টায় নির্লজ্জ মিথ্যাচারে নেমেছে বিএনপি।’ সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এখনো বাতাসে ষড়যন্ত্রের গন্ধ শোনা যাচ্ছে। এখনো কাল নাগিনীর বিষাক্ত ছোবল ও উগ্র-সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প ছড়ানো হচ্ছে, এদের বিরুদ্ধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।’ ইউপি নির্বাচনে দলীয় শৃঙ্খলা মেনে দলের মনোনীত প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের। নওগাঁ জেলার পোরশা উপজেলার সম্মেলনে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আনোয়ারুল ইসলামের সভাপতিত্বে সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডাক্তার রোকেয়া সুলতানা, কেন্দ্রীয় কার্যকরী সদস্য নুরুল ইসলাম ঠান্ডু, নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আবদুল মালেক, খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, সংসদ সদস্য শহীদুজ্জামান সরকার, ব্যারিস্টার নিজাম উদ্দিন জলিল জন ও আনোয়ার হোসেন হেলাল প্রমুখ।

স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের সুযোগও রাখা হয়নি : গয়েশ্বর
                                  

স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের সুযোগ রাখা হয়নি মন্তব্য করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, ‘আজকে স্বাধীনতা বিপন্ন। স্বাধীনতা দিবস আমরা অন্যান্য বছর যেভাবে উদযাপন করেছি, সেটুকু সুযোগও আমাদের জন্য রাখা হয়নি। সাধারণভাবে ২৬ মার্চ প্রতিবছর পালন করি, সেই সুযোগটাও রাখা হয়নি।’ সোমবার (২২ মার্চ) রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচে ঢাকা জেলা বিএনপি আয়োজিত এক মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে তিনি এ মন্তব্য করেন। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, বিএনপি নেতা বেগম সেলিমা রহমান, রুহুল কবির রিজভী, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, খোন্দকার মাশুকুর রহমান এবং ডা. দেওয়ান মো. সালাহউদ্দিনসহ দলটির অঙ্গসংগঠনের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের রোগমুক্তি কামনায় এ দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। গয়েশ্বর বলেন, ‘বিদেশীদের সার্টিফিকেট এখন বেশি প্রয়োজন হয়ে গেছে। কারণ মানুষের আস্থার জায়গাটা শেখ হাসিনার জন্য ক্ষীণ হয়ে গেছে। সকল দেশের রাষ্ট্রপ্রধানরা আসুক, ভালো কথা। এটা তো ভালো। সুবর্ণজয়ন্তীতে আসবেন, এটা আমরা স্বাগত জানাই। কিন্তু তাদের কারণে আমাদের ঘরে বন্দি থাকতে হবে, আমরা আমাদের উচ্ছ্বাস ও আনন্দ উপভোগ করতে পারবো না, এটা কিসের স্বাধীনতা?’ বিএনপির এই নেতা আরও বলেন, ‘প্রতিবেশী রাষ্ট্রের প্রধানমন্ত্রী আসবেন। আবার বলেন আসবেন না, আবার বলেন আসবেন। আবার সরকার না কি চায় না, তিনি আসুক। এমন একটা গুজব কিন্তু আছে। তিনি আসবেন ২৬-২৭ মার্চ, নিরাপত্তার প্রশ্ন। তিনি স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী দিবস পালন করতে আসবেন। তিনি মন্দির ভিজিট করবেন। জাতীয় মন্দির তো ঢাকেশ্বরী মন্দির, রমনা কালী মন্দির এখানে আছে। কিন্তু তিনি গোপালগঞ্জের মন্দিরে যাবেন। তিনি সাতক্ষীরা মন্দিরে যাবেন। এর আশেপাশের লোক এখনই ঘর ছাড়া। নিরাপত্তা বলে একটা কথা আছে। যেখানে যাবেন ওড়াকান্দি ঠাকুরবাড়িতে। তার ভক্ত লক্ষ লক্ষ। একটা অনুষ্ঠান হয়, ৭ দিনব্যাপী। সেখানে ১০ থেকে ১৫ লাখ লোকের আগমন হয়। এই প্রধানমন্ত্রীর জন্য যদি এতো লোকের আগমন হয় তাহলে স্বাস্থ্যবিধিটা কোথায় থাকবে? সেখানে স্বাস্থ্যবিধির বাধা নাই?’ খালেদা জিয়া অসুস্থ জানিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, ‘উনি কারাবন্দির জায়গায় গৃহবন্দি। কারাগারে থাকা অবস্থায় সরকারের যে আচরণ ছিল, গৃহে থাকা অবস্থায়ও সরকারের একই আচরণ আছে। তিনি মুক্ত নন।’ আয়োজক সংগঠনের সহ-সভাপতি আজগর হোসেনের সভাপতিত্বে দোয়া মাহফিলে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

মোহমুক্ত হয়ে সঠিক ইতিহাস চর্চা করতে হবে : ন্যাপ মহাসচিব
                                  

রাজনৈতিক সংকীর্ণতার ঊর্ধ্বে উঠে এবং মোহমুক্ত হয়ে সঠিক ইতিহাস রচনা ও চর্চার আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুঁইয়া। মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) নয়াপল্টনের যাদু মিয়া মিলনায়তনে ‘স্বাধীন পূর্ব বাংলা দিবস’ স্মরণে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (স্বাধীন পূর্ব বাংলা দিবস) আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান বক্তা হিসেবে তিনি এ আহ্বান জানান। ন্যাপ মহাসচিব বলেন, ‘স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পেছনে যার যতটুকু অবদান আছে তাকে তার প্রাপ্য মর্যাদা দেয়া উচিত। তাদের প্রতি জাতি হিসেবে আমাদের কৃতজ্ঞ থাকা উচিত। মনে রাখতে হবে- অকৃতজ্ঞ জাতি কখনো এগিয়ে যেতে পারে না, তবে কৃতজ্ঞতাবোধ একটি জাতিকে বহুদূর নিয়ে যেতে পারে।’ তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রাম আর মুক্তিযুদ্ধ হুট করে শুরু হয়নি। বাংলার জনগণকে মুক্তির স্বপ্ন দেখিয়ে মুক্তিযুদ্ধের দিকে ধাবিত করেছিলেন মজলুম জননেতা মওলানা ভাসানী। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চের পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বক্তব্যকে সমর্থন জানিয়ে স্বাধীনতার চূড়ান্ত ডাক দেয়ার আহ্বান জানান মওলানা ভাসানী। সেই সময় ২৩ মার্চ পাকিস্তান দিবসে পল্টনে মওলানা ভাসানীর আহ্বানে ন্যাপ ‘স্বাধীন পূর্ব বাংলা দিবস’ পালন করে। সেখান থেকেই ন্যাপের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান যাদু মিয়া পল্টন ময়দানে দলের পক্ষ থেকে স্বাধীনতার দাবি তুলে ধরেন এবং পাকিস্তানের পতাকা নামিয়ে ফেলেন। ওই সমাবেশে যাদু মিয়া বলেন, “ন্যাপ স্বাধীনতার প্রশ্নে আপসনামা-সমঝোতায় বিশ্বাস করে না”।’ গোলাম মোস্তফা ভুঁইয়া বলেন, ‘আজ ইতিহাস থেকে সেই ঘটনা সহ অনেক ঘটনাই মুছে মুছে ফেলা হয়েছে। যা কখনোই শুভ লক্ষণ নয়।’ তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাসকে বিশেষ ব্যক্তি, গোষ্ঠী বা দলের একক অবদান দাবি করে প্রকারান্তরে যারা ইতিহাসকে বিকৃত করছে তাদের ইতিহাস ক্ষমা করবে না। জাতি হিসেবে আমাদের শ্রেষ্ঠ অর্জন হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা। আর শ্রেষ্ঠ এই অর্জনে মওলানা ভাসানীসহ যারাই জাতিকে স্বপ্ন দেখিয়েছেন, তৈরি করেছেন তাদের সবাইকে যথাযথ সম্মান প্রদর্শন জাতি হিসেবে আমাদের কর্তব্য।’ বাংলাদেশ ন্যাপের ভাইস চেয়ারম্যান বাবু স্বপন কুমার সাহার সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন এনডিপি মহাসচিব মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা, সমাজতান্ত্রিক মজদুর পার্টির সাধারণ সম্পাদক ডা. শামসুল আলম, ন্যাপ যুগ্ম মহাসচিব এহসানুল হক জসীম, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. কামাল ভুঁইয়া, নগর সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো. নজরুল ইসলাম প্রমুখ। সভাপতির বক্তব্যে বাবু স্বপন কুমার সাহা বলেন, ‘১৯৭১ সালের ২৩ মার্চ প্রেসিডেন্ট ভবন ও সেনাবাহিনীর সদর দফতর ছাড়া বাংলাদেশের কোথাও পাকিস্তানের পতাকা ওড়েনি। স্বাধীন বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহ্বানে সেদিন ‘প্রতিরোধ দিবস’ পালিত হয়। আর মওলানা ভাসানীর আহ্বানে ন্যাপ ‘পূর্ব বাংলা দিবস’ পালন করে।’

কাঠালিয়া উপজেলার আওরাবুনিয়া ইউনিয়নে নৌকার মাঝি: মিঠু সিকদার
                                  

নিজস্ব প্রতিনিধি...

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ঝালকাঠি কাঠালিয়া উপজেলার ৬নং আওরাবুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা পেলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মো: মিঠু সিকদার। তিনি বলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মত এত বড় একটি দল থেকে আমার হাতে নৌকা তুলে দেওয়ায় আমি বঙ্গবন্ধুর কন্যা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ আলহাজ্ব আমির হোসেন আমু, উপজেলা চেয়ারম্যান এমদাদুল হক মনির’এর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। ৬নং আওরাবুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অনেকেই রাজনীতি করেন তারমধ্য থেকে আমার হাতে নৌকা তুলে দিয়েছে,আমি নির্বাচিত হয়ে কোন এলাকায় কি সমস্যা ঐএলাকার লোকজন নিয়েই সমাধান করব। সরেজমিনে গিয়ে দেখাযায় ভোটারদের মাঝে শুরু হয়েছে নুতান হিসাব নিকাশ। কাকে ভোট দিলে এলাকার উন্নয়ন হবে। তবে নুতান ভোটারের হিসাব ভিন্ন তারা মনে করেন। এই তরুনকে বিজয়ী করতে পারলে এলাকার উন্নয়ন হবেবলে মনে করেন।

পকেট ভারী করতে বসন্তের কোকিলদের দলে টানবেন না : কাদের
                                  

দলের ত্যাগী নেতাদের কমিটিতে মূল্যায়নের আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, ‘ত্যাগীরা আওয়ামী লীগের প্রাণ। তাদেরকে কমিটিতে রাখতে হবে। পকেট ভারী করতে বসন্তের কোকিলদের দলে টানবেন না।’ বৃহস্পতিবার (১১ মার্চ) জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন তিনি। ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সম্মেলনে যুক্ত হন। নেতাকর্মীদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ঐক্যবদ্ধ থাকার বিকল্প নেই। মতভেদ ভুলে দলকে সুসংগঠিত ও শক্তিশালী করতে হবে।’ কোম্পানিগঞ্জের ঘটনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘অভিযান অব্যাহত আছে। জড়িতদের কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।’ দলের নেতাকর্মীরা অনিয়ম, দুর্নীতি ও শৃঙ্খলাবিরোধী কাজে জড়ালে কেউ ছাড় পাবেন না উল্লেখ করে কাদের বলেন, ‘দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শৃঙ্খলার বিষয়ে অত্যন্ত কঠোর অবস্থানে। দলের শৃঙ্খলা না মানলে যত বড় নেতা বা জনপ্রতিনিধি হোন না কেন, দল ছাড় দেবে না। কেউ অনিয়ম ও দুর্নীতিতে জড়ালে দুর্নীতি দমন কমিশন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নেবে। এ ব্যাপারে কঠোর নির্দেশনা আছে।’ আন্দোলনে নিজেদের ব্যর্থতার দায় অন্যের ওপর চাপিয়ে বিএনপি পুলিশ ও জনগণকে নিজেদের প্রতিপক্ষ হিসেবে দাঁড় করাচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, অব্যাহত ব্যর্থতা আর ক্ষমতার রাজনীতি থেকে ছিটকে পড়ে বিএনপি এখন দিশেহারা পথিকের মতো। তারা পুলিশ ও জনগণকে এখন প্রতিপক্ষ হিসেবে দাঁড় করাচ্ছে। জনগণকে জিম্মি করে কোনো কর্মসূচি দেয়া যাবে না উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘জনগণ আমাদের শক্তি, তাদের সেবা করাই মূল লক্ষ্য। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার জনগণের জন্য অবিরাম কাজ করে যাচ্ছে। দেশেল প্রতিটি জনপদে এখন উন্নয়ন দৃশ্যমান।’ আগামীদিনের রাজনীতি উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি ঘিরে হবে বলে মনে করেন ওবায়দুল কাদের। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিএনপির অপরাজনীতিতে জনগণের আস্থা নেই। তাদেরকে অপপ্রচার ও অপরাজনীতি ছেড়ে ইতিবাচক ধারায় ফিরতে হবে। আক্কেলপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মোকসেদ আলী মন্ডলের সভাপতিত্বে সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, এসএম কামাল হোসেন, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা প্রমূখ।

১০ ও ১৬ মার্চ ঢাকায় সমাবেশ করবে বিএনপি
                                  

নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে রাজধানীতে দুটি সমাবেশ করবে বিএনপি। আগামী ১০ মার্চ ঢাকা উত্তর সিটি ও ১৬ মার্চ দক্ষিণ সিটিতে সমাবেশ করবে দলটি। ঢাকা উত্তরে কারওয়ান বাজার মোড়, মোহাম্মদপুর শহীদ পার্ক এবং খিলগাঁও তালতলা মাঠ এবং দক্ষিণে নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে, ব্রাদার্স ইউনিয়ন ক্লাব মাঠ অথবা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের যেকোনো স্থানে সমাবেশ দুটি করবে বিএনপি। সমাবেশের বিষয়ে অবহিত করতে সোমবার (৮ মার্চ) দুপুরে ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার মনির হোসেনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বিএনপির প্রতিনিধি দল। সাক্ষাৎ শেষে বের হয়ে সাংবাদিকদের বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী বলেন, ‘ইতোমধ্যে প্রত্যেক বিভাগীয় শহরে কর্মসূচি হাতে নিয়েছি আমরা। কর্মসূচিগুলো হলো ভোট কারচুপি প্রসঙ্গে। সর্বশেষ বেশ কয়েকটি সিটি করপোরেশন নির্বাচন ও সারাদেশে যে নির্বাচন হচ্ছে সে নির্বাচনগুলোতে ভোট কারচুপি হচ্ছে, দিনের ভোট রাতে হচ্ছে এবং ভোটের অধিকার থেকে দেশের মানুষ বঞ্চিত হচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে ঢাকায়ই আমরা দুটি জনসভার আহ্বান করেছি। একটি ঢাকা উত্তর এবং আরেকটি ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায়। এ বিষয়ে ইতোমধ্যে আমরা ডিএমপি যুগ্ম কমিশনার মনির হোসেনকে অবহিত করেছি। আশা করছি এই দুটি সমাবেশ করতে পারব।’ বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক কমিটির সদস্য ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন বলেন, ‘এখানে অনুমতি চাওয়ার জন্য আসিনি। আমাদের সংবিধানে কোথাও বলা নেই যে, অনুমতি নিয়ে সভা-সমাবেশ করতে হবে। আমরা সমাবেশ করব। আমাদের সমাবেশের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য আজকে ডিএমপির যুগ্ম কমিশনারকে অবহিত করতে এসেছি। আর কার কাছে অনুমতি চাইব? এই সরকারকে তো আমরা বৈধতাই দিচ্ছি না।’ বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল বলেন, ‘আমরা এখন পর্যন্ত আশাবাদী আগামী ১০ ও ১৬ তারিখ ঢাকা মহানগরে দুটি সমাবেশ করতে পারব। আমরা সবসময় ইতিবাচক আন্দোলনের মধ্যে রয়েছি। আশা করছি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আমাদের সর্বাত্মক সহায়তা করবে।’

নারীর পথ রুদ্ধ করার কাজে পৃষ্ঠপোষক বিএনপি
                                  

যে অপশক্তি ধর্মের নামে নারীর এগিয়ে যাওয়ার পথকে রুদ্ধ করে রাখতে চায়, বিএনপি তাদের পৃষ্ঠপোষক বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ‘এ সরকারের আমলে দেশের নারীরা অধিকার বঞ্চিত,’ নারী দিবসে বিএনপি নেতাদের এমন অভিযোগের জবাবে এ কথা বলেন তিনি। মঙ্গলবার (৯ মার্চ) সরকারি বাসভবন থেকে নিয়মিত ব্রিফিং করেন ওবায়দুল কাদের। ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘শেখ হাসিনা সরকার নারীদের অর্থনৈতিক-রাজনৈতিক ক্ষমতায়নের পাশাপাশি তাদের কর্মের স্বীকৃতিতে বিশ্বাসী। নারীদের সম্মান এবং মর্যাদা প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি সামাজিক ও রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে বর্তমান সরকারের উদ্যোগ দেশ-বিদেশে প্রশংসিতও হয়েছে। যা ইতোমধ্যে আন্তর্জাতিকভাবেও স্বীকৃতি বয়ে আনছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘কর্মক্ষেত্রে নারীদের নিরাপত্তা বিধানের পাশাপাশি দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত বিনা বেতনে অধ্যয়নের সুযোগ করে দিয়েছে সরকার। সরাসরি ভোটে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানে নারী প্রতিনিধি নির্বাচন হচ্ছে, জাতীয় সংসদে বাড়ানো হয়েছে সংরক্ষিত নারী আসন। নারী উদ্যোক্তা তৈরিতে জামানতবিহীন ঋণ প্রদান করা হয়েছে। চ্যালেঞ্জিং পেশায় বাড়ছে নারীদের অংশগ্রহণ। সন্তানের পরিচয় ও নিবন্ধনে বাবার পাশাপাশি মায়ের নাম যুক্ত করার মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা নারীদের দিয়েছেন অনন্য স্বীকৃতি। অথচ ’৭৫ পরবর্তী বাংলাদেশে যত সরকার এসেছে, তারা নারীদের পিছিয়ে রাখতে চেয়েছে। নারীর ক্ষমতায়নে শেখ হাসিনাই প্রমাণ করেছেন তার সরকার, নারী বান্ধব সরকার।’ বিএনপি শাসনামলে নারী নির্যাতনের ফিরিস্তি তুলে ধরে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ফাহিমা, পূর্ণিমার মতো হাজারো নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছিল। সংখ্যালঘু নারীদের ওপর যে নির্যাতন চালিয়েছিল তা ৭১-এর পাকিস্তানি হানাদারদের বর্বরতাকেও হার মানিয়েছিল। আর শেখ হাসিনা সরকার একদিকে নারীর প্রতি লাঞ্ছনাকারীদের বিরুদ্ধে যেমন কঠোর, অপরদিকে নারী উন্নয়নের সকল সম্ভাবনার দ্বার উন্মুক্ত করে দিতেও সচেষ্ট থেকেছে। এদেশের নারীরা বন্দি নয়, বরং শেখ হাসিনা তাদের দেখিয়েছেন সম্ভাবনার মুক্ত আকাশ। তাদের হাতে হাতে এখন বিশ্বজয়ের প্রযুক্তি, ঘরে বসে আয় করছে লাখ লাখ নারী। গৃহকোণ থেকে মোবাইলে প্রতি মুহূর্তে যোগাযোগ করছে দেশ-বিদেশে, নিচ্ছে তথ্য সেবা।’ বাস থেকে একজন নারী যাত্রীকে ফেলে দেয়ার বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ও গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের বিষয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘এ ঘটনা অনাকাঙ্ক্ষিত এবং দুঃখজনক। ইতোমধ্যেই বিআরটিএ-কে এ ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে এবং প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ ও যাচাই-বাছাই করে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতেও বলা হয়েছে।’ 

‘বিএনপির অগণতান্ত্রিক আচরণ গণতন্ত্রের ধারা বিঘ্নিত করছে’
                                  

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপির অগণতান্ত্রিক আচরণ এবং রাজনীতি এদেশের গণতন্ত্রের চলমান ধারাকে বিঘ্নিত করছে। সোমবার (৮ মার্চ) সরকারি বাসভবনে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেন তিনি। ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির আন্দোলনের বিকল্প হচ্ছে আগুন সন্ত্রাস, অপরাজনীতি আর গুজব তৈরি করা। বিকল্প আন্দোলনের নামে দেশের সম্পদ এবং জীবনহানি ঘটানোর অপপ্রয়াস জনগণ ও সরকার মেনে নেবে না। তিনি আরও বলেন, বিএনপির বিকল্প আন্দোলন হচ্ছে দেশ-বিদেশে গোপন বৈঠক আর ষড়যন্ত্র। জনবিচ্ছিন্ন এসব আন্দোলনের ভয় দেখিয়ে কোনো লাভ নাই। কারণ মুজিব আদর্শের সৈনিকেরা রাজপথ ভয় পায় না। আন্দোলনে বাধা দিলে বিএনপি বিকল্প পথে আন্দোলন করবে, এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, যারা এ পর্যন্ত রাজপথে কোনো ধরনের আন্দোলনের ঢেউ তুলতে পারেনি, তাদের বাধা দেয়ার দরকার হয় না। বিএনপি আন্দোলনে জনগণকে সম্পৃক্ত করতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। বিরোধী মত দমাতে ভয়ঙ্কর কোনো শক্তি কাজ করছে, বিএনপি মহাসচিবের এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের ‘সেই শক্তির পরিচয় জনসম্মুখে প্রকাশ করতে’ তার প্রতি আহ্বান জানান। দেশে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নেই, বিএনপির এমন অভিযোগের বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সরকারের সমালোচনার জন্য এ পর্যন্ত একজন বিএনপি নেতাকেও গ্রেফতার করা হয়নি, সুতরাং দেশে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সম্পূর্ণভাবে বিরাজমান। বিএনপিই এদেশে দুর্নীতিকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়েছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, ক্ষমতার অপব্যবহারের মহোৎসব তাদের শাসনামলে হয়েছিল আর হাওয়া ভবন নামে বিকল্প ক্ষমতা-কেন্দ্র তৈরি করেছিলো। বর্তমানের শেখ হাসিনা সরকার গণতন্ত্রকে এগিয়ে নিতে অবিরাম প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে অথচ বিএনপি কোনোরূপ সহযোগিতা না করে অপরাজনীতির মাধ্যমে গণতন্ত্রের এগিয়ে যাওয়ার গতিকে বারবার থামিয়ে দিচ্ছে।

রাজনৈতিক কৌশলে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করছে বিএনপি
                                  

বিএনপি রাজনৈতিক কৌশলের আশ্রয় নিয়ে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। রোববার (৭ মার্চ) সকাল ৯টায় ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ মন্তব্য করেন তিনি। এ সময় তার সঙ্গে আওয়ামী লীগের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি ৭ মার্চ নিষিদ্ধ করেছিল। এখন তারা স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করছে। এটা তাদের রাজনৈতিক কৌশল। বাংলাদেশের সব অপশক্তিকে পরাজিত করে সোনার বাংলা গড়ে তোলা হবে। ওবায়দুল কাদেরের আগে সকাল ৭টায় ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রব্ধা জনান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ‍

বিএনপির ৭ মার্চের কর্মসূচি ভণ্ডামি : ওবায়দুল কাদের
                                  

বিএনপির ৭ মার্চের কর্মসূচি ভণ্ডামি ছাড়া কিছুই নয় বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। শনিবার (৬ মার্চ) আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সঙ্গে ঢাকা মহানগর উত্তর, দক্ষিণ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের যৌথ সভায় এ কথা বলেন তিনি। ৭ মার্চের কর্মসূচি সফল করতে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে এই যৌথ সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণকে নিষিদ্ধ করে এখন বিএনপি ৭ মার্চের কর্মসূচি পালন করছে। এটা ভণ্ডামি ছাড়া আর কিছুই না।’ এ সময় রাজশাহীতে বিএনপির সমাবেশে একজন নেতার ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করেন তিনি। সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘জনগণের সাড়া না পেয়ে বিএনপি এখন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার চেষ্টা করছে। এখন তারা বুঝতে পেরেছে, জনগণ তাদের প্রত্যাখান করেছে।’ এ সময় বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী বাস্তবায়ন জাতীয় কমিটির সঙ্গে সঙ্গতি রেখে ২৬ মার্চের কর্মসূচি নেয়া হবে বলেও জানান ওবায়দুল কাদের।

গণতন্ত্রের মুখোশে বিএনপি স্বাধীনতার চেতনা ভূলুণ্ঠিত করেছে
                                  

গণতন্ত্রের মুখোশের আড়ালে বিএনপি বারবার স্বাধীনতার চেতনা ও মানবাধিকার ভূলুণ্ঠিত করেছে বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, ‘স্বাধীনতা বিরোধীদের সঙ্গে মিলে বিএনপির স্বাধীনতা দিবস পালন তামাশা ছাড়া কিছু নয়।’ বুধবার (৩ মার্চ) দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ উপ-কমিটির পরিচিতি সভায় এ কথা বলেন কাদের। তিনি তার সরকারি বাস ভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে সভায় যুক্ত হন। বিএনপির সমাবেশ উপলক্ষে বাস বন্ধ করে দেয়ার অভিযোগের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপির সমাবেশের কারণে বাসমালিকরা জ্বালাও পোড়াওয়ের ভয়ে বাস চালানো বন্ধ করে দেয়। এতে সরকারের কোনো হাত নেই। বিএনপি লাঠিসোটা দিয়ে পুলিশকে পেটাচ্ছে এটা জনগণ দেখছে। এটাই বিএনপির রাজনীতি। বিএনপি তাদের নেতিবাচক রাজনীতির ধারা থেকে বের হয়ে আসতে পারেনি।’

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘অপরাজনীতির কারণে জনগণ ও নেতাকর্মী থেকে বিএনপি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। তাদের ভোট নেই। তাই পরাজয় নিশ্চিত জেনে তৃণমূল নির্বাচন থেকে সরে যাচ্ছে।’ এ সময় নিজ দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘অনেকেই উপ-কমিটিতে নাম লেখানোর পর আর খোঁজ-খবর পাওয়া যায় না। উপ-কমিটির সদস্য পদে নাম লিখিয়ে কেউ কেউ কার্ড ছাপিয়ে নানা অপকর্মের সাথে জড়িয়ে পড়ে। এদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। আবার একজন বিভিন্ন কমিটেতে নাম লেখান, তাদের নাম সব কমিটি থেকে বাদ দেয়া হবে।’ এ সময় সততা ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে সবাইকে কাজ করার পরামর্শ দেন ওবায়দুল কাদের আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক ও আয়োজক কমিটির সদস্য সচিব সুজিত রায় নন্দীর সঞ্চালনায় পরিচিতি সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলি, স্বাস্থ্য সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতান, শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক শামসুন্নাহার চাপাসহ ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপ-কমিটির নবনির্বাচিত নেতৃবৃন্দ। ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ উপ-কমিটির চেয়ারম্যান এ কে এম রহমতুল্লাহ অসুস্থ থাকায় সভায় অংশগ্রহণ করেননি। এর আগে সকালে ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দীর নেতৃত্বে উপ-কমিটির সদস্যরা ধানমন্ডি ৩২-এ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন।

রাজধানীতে পুলিশ-ছাত্রদল সংঘর্ষ : সাংবাদিকসহ আহত ৩৫
                                  

রাজধানীতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ছাত্রদলের বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘিরে পুলিশের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়েছে। রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টার দিকে এ ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশসহ আহত হয়েছেন অন্তত ১২ জন। জানা গেছে, অনুমতি ছাড়াই প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ শুরু করে ছাত্রদল। সমাবেশের এক পর্যায়ে অনেক কর্মীকে মোটরসাইকেল ভাঙচুর ও আশেপাশের ভবন ভাঙচুর করতে দেখা যায়। অনেক সাংবাদিকও আহত হন। পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছোড়ে ছাত্রদলের কর্মীরা। এরপর পুলিশ টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। ছাত্রদলের কর্মসূচিতে অংশ নেয়া বিএনপি নেতাকর্মীরা প্রেসক্লাবে ঢুকে পড়ে আর প্রেসক্লাবের গেট বন্ধ করে দেয়া হয়। এরপর পুলিশ প্রেসক্লাব চত্বরে ঢুকে পড়লেও সেখানে বিএনপির নেতাকর্মীদের পাওয়া যায়নি তারা প্রেসক্লাব ভবনে ঢুকে পড়ে। আর প্রেসক্লাবের মূলভবনে পুলিশকে ঢুকতে না দেয়ায় নেতাকর্মীদের আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশ পুরো এলাকা নিয়ন্ত্রণে আনে। এই সমাবেশে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের অংশ নেয়ার কথা থাকলেও তিনি আসার আগেই সেখানে রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।

ক্ষমতার অপব্যবহারকারীরা নজরদারিতে: ওবায়দুল কাদের
                                  

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘দলের যেসব নেতাকর্মী ক্ষমতার অপব্যবহার করছে, তাদের বিরুদ্ধে দলীয় নজরদারি রয়েছে। দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গকারীদের জন্য দল কঠোর অবস্থানে আছে। দলের ঐক্য বিনষ্ট করা যাবে না। সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বরদাস্ত করবে না দল।’ বুধবার সকাল ১১টার দিকে রাজধানীর একটি হোটেলে দেশরত্ন শেখ হাসিনা`র নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ক্ষুদা, দারিদ্র্য, দুর্নীতি ও জঙ্গিমুক্ত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বির্নিমানের লক্ষ্যে ঢাকা মহানগর দক্ষিন আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত তিনি এসব কথা বলেন। কাদের বলেন, ‘শত বাঁধা, ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে আওয়ামী লীগ জনসেবা করছে। জনগণ ভালবেসে সরকার গঠনের যে সু্যোগ দিয়েছে তার মর্জাদা রক্ষা করতে হবে নেতা-কর্মীদের।’ তিনি বলেন, ‘আগামী তিন মাসের মধ্যে গঠনতন্ত্র অনুসরণ করে ইউনিট কাউন্সিল সম্পন্ন করতে হবে। দলে ত্যাগীদের মূল্যায়ন করতে হবে। এমন কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকতে হবে যেন দল সরকারি উন্নয়ন যেন প্রশ্ন বিদ্ধ না হয়।’ এ সময় আন্তর্জাতিক কুচক্রী মহলকে নিয়ে দেশ বিরোধীরা যে ষড়যন্ত্র করছে তা ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রতিহত করার আহ্বান জানান তিনি। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু আহমেদ মন্নাফী`র সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত ও দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডাক্তার দীপু মনি ও সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম। সভা পরিচালনা করেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হুমায়ুন কবির।


   Page 1 of 20
     রাজনীতি
বিএনপির সুবর্ণজয়ন্তীর কর্মসূচি প্রত্যাহার রহস্যজনক : কাদের
.............................................................................................
এখনো সাধারণ ছুটির সিদ্ধান্ত হয়নি : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
যানজটমুক্ত রাখতেই পাতাল রেল নির্মাণের পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার
.............................................................................................
দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গে কঠিন সিদ্ধান্ত আসছে : কাদের
.............................................................................................
স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের সুযোগও রাখা হয়নি : গয়েশ্বর
.............................................................................................
মোহমুক্ত হয়ে সঠিক ইতিহাস চর্চা করতে হবে : ন্যাপ মহাসচিব
.............................................................................................
কাঠালিয়া উপজেলার আওরাবুনিয়া ইউনিয়নে নৌকার মাঝি: মিঠু সিকদার
.............................................................................................
পকেট ভারী করতে বসন্তের কোকিলদের দলে টানবেন না : কাদের
.............................................................................................
১০ ও ১৬ মার্চ ঢাকায় সমাবেশ করবে বিএনপি
.............................................................................................
নারীর পথ রুদ্ধ করার কাজে পৃষ্ঠপোষক বিএনপি
.............................................................................................
‘বিএনপির অগণতান্ত্রিক আচরণ গণতন্ত্রের ধারা বিঘ্নিত করছে’
.............................................................................................
রাজনৈতিক কৌশলে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করছে বিএনপি
.............................................................................................
বিএনপির ৭ মার্চের কর্মসূচি ভণ্ডামি : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
গণতন্ত্রের মুখোশে বিএনপি স্বাধীনতার চেতনা ভূলুণ্ঠিত করেছে
.............................................................................................
রাজধানীতে পুলিশ-ছাত্রদল সংঘর্ষ : সাংবাদিকসহ আহত ৩৫
.............................................................................................
ক্ষমতার অপব্যবহারকারীরা নজরদারিতে: ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
আ. লীগ পাল্টাপাল্টি কর্মসূচিতে বিশ্বাসী নয় : কাদের
.............................................................................................
ঢাকাস্থ নড়িয়া উপজেলার ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নবাসির মতবিনিময় সভা
.............................................................................................
ষড়যন্ত্রের রাজনীতিই গণতন্ত্রের বিকাশে প্রধান বাধা: কাদের
.............................................................................................
বিএনপি হত্যা-সন্ত্রাসের রাজনীতি জন্মলগ্ন থেকেই বহন করে চলেছে
.............................................................................................
করোনামুক্ত হলেন জিএম কাদের
.............................................................................................
ভ্যাকসিন নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াবেন না: সেতুমন্ত্রী
.............................................................................................
রাজধানীর শীতার্ত মানুষের পাশে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা
.............................................................................................
বিএনপির নেতাকর্মীরা টিকা নিতে চান কি না সন্দেহ তথ‌্যমন্ত্রীর
.............................................................................................
ফখরুল ‘ডিমেনশিয়ায় আক্রান্ত কি-না’ সন্দেহ হাছান মাহমুদের
.............................................................................................
টিকা ব্যবস্থাপনা নিয়ে মিথ্যাচার করছে বিএনপি : কাদের
.............................................................................................
৫৬ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে বন ও পরিবেশ উপকমিটির শ্রদ্ধা
.............................................................................................
বিদ্রোহী প্রার্থীদের সতর্ক করলেন যুবলীগ চেয়ারম্যান
.............................................................................................
৫৬ পৌরসভায় আ.লীগের মনোনয়ন বিতরণ শুরু আজ
.............................................................................................
রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে যেতে বিরোধিতা অযৌক্তিক: সেতুমন্ত্রী
.............................................................................................
সীমান্ত সমস্যা নিয়ে বিএনপির কর্মসূচি লোক দেখানো: কাদের
.............................................................................................
সাম্প্রদায়িক অপশক্তি এখনও ষড়যন্ত্র করছে: কাদের
.............................................................................................
জঙ্গিবাদ ও উগ্রবাদের কোন স্থান নেই ---- শেখ শাহ অলম
.............................................................................................
ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক চারলেনে উন্নীত হচ্ছে: কাদের
.............................................................................................
নিরাপদ সড়ক নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা সরকারের অগ্রাধিকার: সেতুমন্ত্রী
.............................................................................................
৬৪ জেলায় জাতির জনকের ভাস্কর্য নির্মাণ দাবি
.............................................................................................
নতুন সড়ক আইন আংশিক কার্যকর: কাদের
.............................................................................................
অগণতান্ত্রিক পথ খোঁজা বিএনপির পুরনো অভ্যাস: কাদের
.............................................................................................
‘বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে বি‌রো‌ধিতার ভিন্ন উদ্দেশ্য থাকতে পারে’
.............................................................................................
বিএনপির মুখে অভ‌্যন্তরীণ গণতন্ত্র নিয়ে কথা শোভনীয় নয়: কাদের
.............................................................................................
নড়াইল পৌর মেয়রের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক
.............................................................................................
আ.লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক হলেন সিরাজুল মোস্তফা
.............................................................................................
আ. লীগ কখনো অপরাধীকে রক্ষার ঢাল হবে না: কাদের
.............................................................................................
স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃতি করাই বিএনপির গণতন্ত্র: কাদের
.............................................................................................
আওয়ামী লীগ কখনো প্রতিশোধের রাজনীতি করে না: কাদের
.............................................................................................
ওবায়দুল কাদেরের মুখে প্রতিদিন বিএনপির আলোচনা কেন: ফখরুল
.............................................................................................
বিএনপির গণতন্ত্র হচ্ছে খাবার স্যালাইনের মতো: ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
দুর্যোগের সুযোগ নিয়ে অধিক মুনাফা লাভের চেষ্টা পরিহার করতে নাসিমের আহ্বান
.............................................................................................
এপ্রিল পর্যন্ত সকল ধরনের সভা-সমাবেশ স্থগিত করল আওয়ামী লীগ
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো : মাহবুবুর রহমান ।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মো: হাবিবুর রহমান । সম্পাদক কর্তৃক বিএস প্রিন্টিং প্রেস ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, সুত্রাপুর ঢাকা খেকে মুদ্রিত
ও ৬০/ই/১ পুরানা পল্টন (৭ম তলা) থেকে প্রকাশিত বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৫১,৫১/ এ রিসোর্সফুল পল্টন সিটি (৪র্থ তলা), পুরানা পল্টন, ঢাকা -১০০০।
ফোনঃ-০২-৯৫৫০৮৭২ , ০১৭১১১৩৬২২৬

Web: www.bhorersomoy.com E-mail : dbsomoy2010@gmail.com
   All Right Reserved By www.bhorersomoy.com Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD