ঢাকা,শুক্রবার,৩১০ ভাদ্র ১৪২৮,১৪,মে,২০২১
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * বাংলাদেশ বন্ধু সমাজকে জাতীয় করনে দাবী এফ. আহমেদ খান রাজীব   * ৬ মিনিটেই শেষ পশ্চিমবঙ্গের মন্ত্রিসভার শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান   * অবশেষে খালেদার সঠিক জন্মদিন প্রকাশ পেল : কাদের   * বিদেশিদের হজের অনুমতি বিষয়ে আলোচনা চলছে: সৌদি   * ৫২ দিন পর হাসপাতাল থেকে বাসায় ফিরলেন রিজভী   * বাংলাদেশের পরিস্থিতি ভারতের চেয়ে ভয়াবহ হতে পারে   * এক ফেরিতে পার হলো ৩০০০ যাত্রী   * ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে গাড়িচাপায় নিহত ২   * চারদিন পর ভারতে করোনা শনাক্ত ৪ লাখের নিচে   * চীনের উপহারের ৫ লাখ টিকা দেশে পৌঁছাবে ১২ মে  

   জাতীয় -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
বাংলাদেশ বন্ধু সমাজকে জাতীয় করনে দাবী এফ. আহমেদ খান রাজীব

নিজস্ব প্রতিবেদক: 

বাংলাদেশ বন্ধু সমাজ’র সভাপতি এফ. আহমেদ খান রাজীব বলেন, মানুষের মাঝে বন্ধুত্ব ও সম্প্রীতির পরিবেশ সৃষ্টি করাই হচ্ছে বাংলাদেশ বন্ধু সমাজের মূল লক্ষ্য হিংসা-বিদ্বেষ-অহংকার পরিত্যাগ করে ভ্রাতৃত্ব-বন্ধুত্ব-সৌহার্দের মিশ্রণে সম্প্রীতি ও বন্ধুত্বের দেশ গড়তে পারলেই দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হবে। এজন্য বিভিন্ন দিবসের ন্যায় ২৩ নভেম্বর দিনটি ‘হিংসামুক্ত বিশ্ব সম্প্রীতি দিবস’ হিসেবে উদযাপন করে আসছি এবং বাংলাদেশসহ পৃথিবীবাসীকে পালনের আহ্বান জানাচ্ছি। এসময় তিনি বাংলাদেশ বন্ধু সমাজকে সাংবিধানিক বৈধতাসহ জাতীয়ভাবে স্বীকৃতি প্রদান অথবা জাতীয়করণ করার জন্য শান্তিকামী দেশবাসীর পক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীসহ সকল নীতি-নির্ধারক মহোদয়গণকে অনুরোধ জানান। আজ সোমবার (১০ মে) বিকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের দ্বিতীয় তলার জহুর হোসেন চৌধুরী হলে বাংলাদেশ বন্ধু সমাজ আয়োজিত আলোচনা সভা, দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। আলোচনা শেষে ইফতারের আগ মুহুর্তে দেশবাসীসহ পৃথিবীর সকল মানুষের মঙ্গল ও কল্যাণে চলমান করোনা ভাইরাস সংক্রমণ হতে মুক্তির লক্ষ্যে মহান আল্লাহর সু-দৃষ্টি প্রাপ্তিতে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। দেশবাসীকে ৩১ ডিসেম্বর ‘কৃতজ্ঞতা প্রকাশ দিবস’ পালন করার আহ্বান জানিয়ে এফ. আহমেদ খান রাজীব বলেন, মানুষজাতির পক্ষে একযোগে কৃতজ্ঞতা প্রকাশের প্রত্যাশা বাস্তবায়নে বছরের শেষ দিন ৩১ ডিসেম্বর ‘কৃতজ্ঞতা প্রকাশ দিবস’ পালনের জন্য ইতোমধ্যে ঘোষনা দিয়েছি। এরই ধারাবাহিকতায় চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর ‘কৃতজ্ঞতা প্রকাশ দিবস’-এ ভালো কর্মের জন্য দেশবরেণ্য ৫০ জন ব্যক্তিকে কৃতজ্ঞতা সম্মাননা পদক উপহার দেয়ার প্রত্যাশাও জ্ঞাপন করছি। এসময় তিনি বাংলাদেশকে সম্প্রীতি এবং বন্ধুত্বের দেশ গড়ার সহযোগিতায় বাংলাদেশ বন্ধু সমাজ’র কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠান আগামী ২৩ নভেম্বর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে বলে ঘোষনা দেন। পাশাপাশি ওই অভিষেক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীকে প্রধান অতিথির আসন অলঙ্করনের প্রত্যাশাও ব্যক্ত করেন এফ.আহমেদ খান রাজীব। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন- বিচারপতি ফয়সাল মাহমুদ ফয়েজী, ভাষা সৈনিক মঞ্জুরুল হক সিকদার, এনামুজ্জামান চৌধুরী, কলমযোদ্ধা লিয়াকত আলী খান, পিপলস গ্রীন পার্টির চেয়ারম্যান রাজু আহম্মদ খান, এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, সৈয়দ মুইনুজ্জামান লিটু, মঞ্জুর হোসেন ঈসা, সাংবাদিক নেতা ডি এম আমিরুল ইসলাম অমর, এইচ এম মনিরুজ্জামান প্রমুখ।

বাংলাদেশ বন্ধু সমাজকে জাতীয় করনে দাবী এফ. আহমেদ খান রাজীব
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক: 

বাংলাদেশ বন্ধু সমাজ’র সভাপতি এফ. আহমেদ খান রাজীব বলেন, মানুষের মাঝে বন্ধুত্ব ও সম্প্রীতির পরিবেশ সৃষ্টি করাই হচ্ছে বাংলাদেশ বন্ধু সমাজের মূল লক্ষ্য হিংসা-বিদ্বেষ-অহংকার পরিত্যাগ করে ভ্রাতৃত্ব-বন্ধুত্ব-সৌহার্দের মিশ্রণে সম্প্রীতি ও বন্ধুত্বের দেশ গড়তে পারলেই দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হবে। এজন্য বিভিন্ন দিবসের ন্যায় ২৩ নভেম্বর দিনটি ‘হিংসামুক্ত বিশ্ব সম্প্রীতি দিবস’ হিসেবে উদযাপন করে আসছি এবং বাংলাদেশসহ পৃথিবীবাসীকে পালনের আহ্বান জানাচ্ছি। এসময় তিনি বাংলাদেশ বন্ধু সমাজকে সাংবিধানিক বৈধতাসহ জাতীয়ভাবে স্বীকৃতি প্রদান অথবা জাতীয়করণ করার জন্য শান্তিকামী দেশবাসীর পক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীসহ সকল নীতি-নির্ধারক মহোদয়গণকে অনুরোধ জানান। আজ সোমবার (১০ মে) বিকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের দ্বিতীয় তলার জহুর হোসেন চৌধুরী হলে বাংলাদেশ বন্ধু সমাজ আয়োজিত আলোচনা সভা, দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। আলোচনা শেষে ইফতারের আগ মুহুর্তে দেশবাসীসহ পৃথিবীর সকল মানুষের মঙ্গল ও কল্যাণে চলমান করোনা ভাইরাস সংক্রমণ হতে মুক্তির লক্ষ্যে মহান আল্লাহর সু-দৃষ্টি প্রাপ্তিতে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। দেশবাসীকে ৩১ ডিসেম্বর ‘কৃতজ্ঞতা প্রকাশ দিবস’ পালন করার আহ্বান জানিয়ে এফ. আহমেদ খান রাজীব বলেন, মানুষজাতির পক্ষে একযোগে কৃতজ্ঞতা প্রকাশের প্রত্যাশা বাস্তবায়নে বছরের শেষ দিন ৩১ ডিসেম্বর ‘কৃতজ্ঞতা প্রকাশ দিবস’ পালনের জন্য ইতোমধ্যে ঘোষনা দিয়েছি। এরই ধারাবাহিকতায় চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর ‘কৃতজ্ঞতা প্রকাশ দিবস’-এ ভালো কর্মের জন্য দেশবরেণ্য ৫০ জন ব্যক্তিকে কৃতজ্ঞতা সম্মাননা পদক উপহার দেয়ার প্রত্যাশাও জ্ঞাপন করছি। এসময় তিনি বাংলাদেশকে সম্প্রীতি এবং বন্ধুত্বের দেশ গড়ার সহযোগিতায় বাংলাদেশ বন্ধু সমাজ’র কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠান আগামী ২৩ নভেম্বর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে বলে ঘোষনা দেন। পাশাপাশি ওই অভিষেক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীকে প্রধান অতিথির আসন অলঙ্করনের প্রত্যাশাও ব্যক্ত করেন এফ.আহমেদ খান রাজীব। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন- বিচারপতি ফয়সাল মাহমুদ ফয়েজী, ভাষা সৈনিক মঞ্জুরুল হক সিকদার, এনামুজ্জামান চৌধুরী, কলমযোদ্ধা লিয়াকত আলী খান, পিপলস গ্রীন পার্টির চেয়ারম্যান রাজু আহম্মদ খান, এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, সৈয়দ মুইনুজ্জামান লিটু, মঞ্জুর হোসেন ঈসা, সাংবাদিক নেতা ডি এম আমিরুল ইসলাম অমর, এইচ এম মনিরুজ্জামান প্রমুখ।

বাংলাদেশের পরিস্থিতি ভারতের চেয়ে ভয়াবহ হতে পারে
                                  

দেশে করোনা ভাইরাসের যে ভয়াবহ সংক্রমণ চলছে তা বোঝার কোনো উপায়ই নেই। গত তিন দিন স্বাস্থ্যবিধি না মেনে গ্রামের বাড়ির উদ্দেশ্যে পথে পথে ঢল নেমেছে লাখো মানুষের। ঈদের কেনাকাটা করতে দোকানপাট ও শপিংমলে দেখা যাচ্ছে উপচে পড়া ভিড়। রাস্তাঘাটে, অলিতে-গলিতে মানুষ ঘুরে বেড়াচ্ছে ইচ্ছেমতো। কেউ মাস্ক পরছে না, স্বাস্থ্যবিধি মানছে না।

এদিকে, করোনা ভাইরাসের ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ইতিমধ্যে দেশে প্রবেশ করার পরও সর্বস্তরে স্বাস্থ্যবিধি না মানার পরিপ্রেক্ষিতে বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকরা আশঙ্কা করছেন, ঈদের পর দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউ আসতে পারে—যা হবে ভয়াবহ। ডাক্তার-নার্সের সংকটে ব্যাহত হবে চিকিত্সাসেবা। পরিস্থিতি ভারতের চেয়ে ভয়াবহ হতে পারে। দেখা দেবে অক্সিজেনের ভয়াবহ সংকট। চিকিত্সার অভাবে রোগীরা যেখানে সেখানে মারা যাবে। প্রসঙ্গত, বিশ্বখ্যাত কার্ডিয়াক সার্জন ডা. দেবী শেঠি মনে করেন, ভারতে কোভিড রোগীদের অক্সিজেন সংকট সমাধান হয়ে গেলে যে সমস্যাটি দেখা যাবে তা হলো—আইসিইউতে থাকা রোগীদের মৃত্যু। কারণ, তাদের চিকিত্সাসেবা দেওয়ার মতো যথেষ্ট নার্স-চিকিত্সক পাওয়া যাবে না। তখন চিকিত্সক ও নার্সের ঘাটতি মেটানো বড় চ্যালেঞ্জ হবে। সম্প্রতি ভারতের সিম্বিয়োসিস ইন্টারন্যাশনাল (ডিমড বিশ্ববিদ্যালয়) আয়োজিত স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে এক ভার্চুয়াল সম্মেলনের প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস। সেখানে এমন আশঙ্কার কথা জানান ডা. দেবী শেঠি। এদিকে শিমুলিয়া ফেরিঘাটে ঘরমুখী মানুষের প্রচণ্ড স্রোত। মানুষের ভিড়ে অ্যাম্বুলেন্স পারাপার হতে পারছে না। অক্সিজেনের অভাবে ইতিমধ্যে একজন শিশু সেখানে মারা গেছে। মানুষের বেপরোয়া আচরণ ও চলাফেরায় ডাক্তাররা রীতিমতো আতঙ্কিত। তারা বলছেন, যে যেখানে আছে সেখানেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে আমেরিকা, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্সের মতো উন্নত দেশগুলো হিমশিম খেয়েছে। তারা দিশেহারা হয়ে পড়েছিল। কোনো কোনো দেশ কারফিউ দিয়েছিল। পরবর্তী সময়ে ঐ সব দেশ স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরিস্থিতি সামাল দিতে পেরেছে। বর্তমানে তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছে। এসব উন্নত দেশের তুৃলনায় বাংলাদেশের চিকিত্সাসেবার সক্ষমতা কম। তাই ঐ সব দেশের মতো করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশে হলে তা মোকাবিলা করা কঠিন হবে। এবার করোনার তৃতীয় ঢেউ এলে দেখা যাবে চিকিত্সার অভাবে বাবার কোলে সন্তান, সন্তানের কোলে বাবা-মা মারা যাচ্ছেন। কেউ ভেবে দেখছেন না, একবার গ্রামে ঈদ না করলে কী হয়? মানুষের ঢেউ গ্রামমুখী, তারা আবার ঈদের পর ঢাকায় আসবে। এতে করোনা ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়বে। তখন চিকিত্সাসেবা দেওয়া সম্ভব হবে না। গত মার্চে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামাল দিতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয়েছিল। আইসিইউ পাওয়া যাচ্ছিল না। তৃতীয় ঢেউ এলে পরিস্থিতি হবে আরো করুণ। স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা বলেন, স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে শুধু স্বাস্থ্য বিভাগকে এককভাবে দায়ী করা যাবে না। আমরা দিনের পর দিন বলেই যাচ্ছি, কেউই শুনছে না। স্বাস্থ্যবিধি মানানোর ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও ভূমিকা রাখতে পারে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত চিকিত্সক অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ বলেন, স্বাস্থ্যবিধি না মানার কারণে সামনে করোনার তৃতীয় ঢেউ আসার সম্ভবনা বেশি। তখন পরিস্থিতি হবে ভয়াবহ। রোগী বেড়ে গেলে অক্সিজেনের অভাব হবে। স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে অবহেলা আমাদের যে কতটা ভয়ংকর পরিস্থিতির দিকে নিয়ে যাবে, তা এখন কেউ বুঝতে পারছে না। স্বাস্থ্যবিধি মানাতে কঠোর হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ) অধ্যাপক ডা. নাজমুল হক বলেন, আমরা সব সময় পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি, স্বাস্থ্যবিধি মানতে অনুনয়-বিনয় করছি। কিন্তু কে শুনে কার কথা। ঈদে গ্রামমুখী মানুষের ঢল, ঈদের পর তারা আবার ঢাকায় ফিরবে। তখন কী যে হবে আল্লাহ জানে। তবে করোনার তৃতীয় ঢেউ আসতে পারে। এ ক্ষেত্রে বড় ধরনের সংক্রমণ বিস্ফোরণ হতে পারে। তিনি বলেন, করোনা মোকাবিলা করতে বিশ্বের শক্তিশালী দেশগুলো হিমশিম খাচ্ছে। উন্নত দেশের তুলনায় আমরা কিছুই না। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো আমাদের দেশের অনেক চিকিত্সক করোনায় মারা গেছেন। আর তৃতীয় ঢেউ আসলে কী হবে তা কল্পনা করা যাচ্ছে না। তাই সবার স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। আর স্বাস্থ্যবিধি মানাতে আইনের কঠোর প্রয়োগ ঘটাতে হবে। মুগদা মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবীর বলেন, বারবার সতর্ক করা হলেও কোনো কিছুই মানা হচ্ছে না। একবার ঈদে গ্রামের বাড়িতে না গেলে কী হয়? কিন্তু গ্রামমুখী মানুষের ঢল নেমেছে। বউ-বাচ্চা নিয়ে গ্রামে যাচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি মানছে না। এটা চরম ভয়ের ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। তিনি বলেন, ঈদের পর তিন চার দিন কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া উচিত। যে যেখানে আছে, তাকে সেখানেই রাখতে হবে। তিনি বলেন, স্বাস্থ্যবিধি না মানলে সামনে ভয়াবহ বিপদ। তৃতীয় ঢেউ এলে কঠিন অবস্থার মধ্যে পড়তে হবে আমাদের। স্বাধীনতা চিকিত্সক পরিষদের মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এম এ আজিজ বলেন, ঈদ সামনে রেখে যেভাবে গ্রামমুখী মানুষের ঢল নেমেছে, তাতে ঈদের পর করোনার বন্যা হওয়ার আশঙ্কা। জাতীয় পরামর্শক কমিটির ১৪ দফার ভিত্তিতে লকডাউন শিথিল করা হলেও কেউই তা মানছে না। এমন অবস্থার মধ্যে করোনার তৃতীয় ঢেউ এলে অক্সিজেনের সংকট দেখা দেবে। চিকিত্সা তো পাবেই না। তাই সবারই স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। আইইডিসিআরের প্রধান উপদেষ্টা ড. মুশতাক হোসেন বলেন, গণপরিবহন, ফেরিঘাট ও দোকানপাট—এই তিন জায়গায় ঝুঁকি বেশি। ঈদের পর সংক্রমণ বাড়ার আশঙ্কা। সব কাজ স্বাস্থ্যবিধি মেনে করা সম্ভব। কিন্তু আমরা কেউই তা করছি না। এতে নিজেদের বিপদ নিজেরাই ডেকে আনছি। স্বাস্থ্যবিধি মানাতে কঠোর হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

চীনের উপহারের ৫ লাখ টিকা দেশে পৌঁছাবে ১২ মে
                                  

চীনের উপহারের ৫ লাখ করোনার টিকা আগামী ১২ মে মধ্যে দেশে পৌঁছাবে বলে জানিয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত লি জিমিং। আজ সোমবার (১০ মে) এ তথ্য জানান তিনি। গত কয়েকদিন আগেই দেশে চীন ও রাশিয়ার ভ্যাকসিন উৎপাদনের অনুমোদন দেয় সরকার। এ প্রক্রিয়া সম্পর্কে সম্প্রতি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, রাশিয়া ডকুমেন্ট পাঠিয়েছে, আমাদের রাষ্ট্রদূতের মাধ্যমে তারা তাগাদা দিচ্ছে। রাশিয়ার ডকুমেন্ট স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে আছে। আমরা রাশিয়া এবং চীনেরটা যৌথভাবে উৎপাদন করতে চাই, তবে এটা সময় লাগবে; আজ চুক্তি হলো কাল হয়ে যাবে এমনটা না। তবে আমরা খুব দ্রুত পেতে চাই। রাশিয়া ও চীনের সঙ্গে যৌথ ভ্যাকসিন উৎপাদনে বাংলাদেশের ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানিগুলো সক্ষমতার মাধ্যমে দেশেই মিলিয়ন ডোজ ভ্যাকসিন উৎপাদন সম্ভব বলেও জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার সরবরাহ সংকটে টিকাদান কার্যক্রম নিয়ে জটিলতার মধ্যে দ্রুত রাশিয়া ও চীনের টিকার অনুমোদন দেওয়া হয় দেশে। এর আগে সোমবার (৩ মে) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছিলেন, উপহার হিসেবে চীনের দেওয়া ৫ লাখ ডোজ করোনাভাইরাসের টিকা ১০ মের মধ্যে বাংলাদেশে পৌঁছাতে পারে।

খালেদার চিকিৎসার বিষয়ে আইন মন্ত্রণালয়ের মতামত স্বরাষ্ট্রে
                                  

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ পাঠানোর আবেদনের বিষয়ে আইন মন্ত্রণালয়ের মতামত সম্বলিত নথি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। রোববার (৯ মে) আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. রেজাউল করিম এ তথ্য জানান। বেলা ১০টা ৩৮ মিনিটে তিনি বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ পাঠানোর আবেদনের বিষয়ে আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের মতামত সম্বলিত নথি কিছুক্ষণ আগে আইন ও বিচার বিভাগের সচিবের দফতর থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।’ দুটি মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত খালেদা জিয়া কারাবন্দি ছিলেন। নির্বাহী আদেশে খালেদা জিয়ার দণ্ড স্থগিত রয়েছে। বিদেশে যাওয়া যাবে না এবং বাড়িতে বসে চিকিৎসা নিতে হবে- এই দুটি শর্তে তার দণ্ড স্থগিত করা হয়। গত ১১ এপ্রিল খালেদা জিয়ার করোনা শনাক্ত হয়। এরপর ২৭ এপ্রিল রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে। শ্বাসকষ্ট বেড়ে যাওয়ায় গত ৩ মে তাকে করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) স্থানান্তর করা হয়। খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ নিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের কাছে আবেদন করেন বিএনপি চেয়ারপারসনের ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার। গত ৫ মে রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসায় গিয়ে শামীম ইস্কান্দার আবেদনটি দিয়ে আসেন। পরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে আবেদনটি আইন মন্ত্রণালয়ের মতামতের জন্য পাঠানো হয়। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন বকশীবাজার আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ আদালত। রায় ঘোষণার পর খালেদাকে পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে অবস্থিত পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি রাখা হয়। এরপর ৩০ অক্টোবর এই মামলায় আপিলে তার আরও পাঁচ বছরের সাজা বাড়িয়ে ১০ বছর করেন হাইকোর্ট। একই বছরের ২৯ অক্টোবর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়াকে সাত বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেন একই আদালত। রায়ে সাত বছরের কারাদণ্ড ছাড়াও খালেদা জিয়াকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাসের কারাদণ্ডের আদেশ দেন। গত বছরের মার্চে করোনা মহামারি শুরু হলে পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাহী আদেশে দণ্ড স্থগিত করে কারাবন্দি খালেদা জিয়াকে সরকার শর্তসাপেক্ষে ছয় মাসের জন্য মুক্তি দেয়। প্রথম দফা মুক্তির মেয়ার শেষ হয়ে আসলে গত বছরের ২৫ আগস্ট তার পরিবারের পক্ষ থেকে স্থায়ী মুক্তি চেয়ে আবেদন করা হয়। এই পরিপ্রেক্ষিতে সরকার দ্বিতীয় দফায় গত ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে ছয় মাসের জন্য তার মুক্তির মেয়াদ বাড়ায়। সর্বশেষ গত ২৫ মার্চ থেকে মুক্তির মেয়াদ আরও ছয় মাস বাড়ানো হয়।

ঈদের আগে দূরপাল্লার গণপরিবহন চালুর দাবি মালিক-শ্রমিকদের
                                  

স্বাস্থ্যবিধি মেনে দূরপাল্লার যাত্রী এবং পণ্যবাহী পরিবহন চালুর দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতি, বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন। শনিবার (৮ মে) বেলা ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানায় সংগঠনগুলো। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি শাজাহান খান। তিনি বলেন, ‘গত ৬ মে থেকে লকডাউন শিথিল রেখে মহানগর ও জেলার অভ্যন্তরে গণপরিবহন পরিচালনার সিদ্ধান্ত দিয়েছে সরকার। কিন্তু দূরপাল্লার গণপরিবহন বন্ধ রয়েছে। এতে মালিক ও শ্রমিকদের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। অথচ বাস-মিনিবাস, সিএনজি চালিত অটোরিকশায় গাদাগাদি করে মানুষ যাতায়াত করছে। এতে করোনা আরও বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে। তাই স্বাস্থ্য বিধি মেনে দূরপাল্লার গণ এবং পণ্য পরিবহন চালু করে দিতে হবে।’

লিখিত বক্তব্যে পাঁচ দফা দাবি জানিয়েছেন শাজাহান খান। তিনি বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে মোট আসনের অর্ধেক যাত্রী নিয়ে দূরপাল্লার পরিবহনসহ সব ধরনের গণপরিবহন এবং স্বাভাবিক মালামাল নিয়ে পণ্য পরিবহন চলাচলের সুযোগ দিতে হবে। লকডাউনের কারণে কর্মহীন সড়ক পরিবহন শ্রমিকদের আসন্ন ঈদের আগে আর্থিক অনুদান ও খাদ্য সহায়তা প্রদান করতে হবে। লকডাউনে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় মালিকদের যানবাহন মেরামত, কর্মচারী ও শ্রমিকের বেতন, ভাতা ও ঈদ বোনাস ইত্যাদি দেয়ার জন্য নামমাত্র সুদ ও সহজ শর্তে পাঁচ হাজার কোটি টাকা প্রণোদনা দিতে হবে।

jagonews24

সারাদেশে বাস ও ট্রাক টার্মিনালগুলোতে পরিবহন শ্রমিকদের জন্য আসন্ন ঈদের আগে ও পরে ১০ টাকায় ওএমএস-এর চাল বিক্রির ব্যবস্থা করতে হবে। কোভিড-১৯ এর কারণে গণপরিবহন ব্যবসায় অর্থ বিনিয়োগের বিপরীতে সব ব্যাংক ঋণ, আর্থিক প্রতিষ্ঠান ঋণ ও ব্যক্তি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের ঋণের সুদ মওকুফসহ কিস্তি আগামী ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত স্থগিত করতে হবে এবং ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্ট নিয়ে ক্লাসিফাইড ঋণগুলো আনক্লাসিফাইড করতে হবে। এছাড়া লকডাউনে বন্ধ থাকার সময় গাড়ির ট্যাক্স-টোকেন, রুট পারমিট ফি, আয়কর, ড্রাইভিং লাইসেন্স ফিসহ সব ধরনের ফি, কর ও জরিমানা মওকুফ করে ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ পর্যন্ত কাগজপত্র হালনাগাদ করার সুযোগ দিতে হবে। এই ৫ দফা দাবি বাস্তবায়ন করা না হলে ঈদের নামাজ শেষে সারাদেশের মালিক ও শ্রমিকরা নিজ নিজ এলাকায় বাস ও ট্রাক টার্মিনালে সকাল ১০টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত অবস্থান কর্মসূচি পালন করবে বলেও জানান শাজাহান খান। এছাড়া, ঈদের পর পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি মসিউর রহমান রাঙ্গা, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্লাহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এফবিসিসিআই’র পরিচালক হলেন যশোদা জীবন দেবনাথ
                                  

ভোরের সময় প্রতিবেদন:
ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশনের (এফবিসিসিআই) পরিচালক পদে ড. যশোদা জীবন দেবনাথ (সিআইপি) বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়া পরিচালক পদে ড. যশোদা জীবন দেবনাথ সহ মোট ৭৮ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।
আগামী ৫ মে সংগঠনটির সাধারণ সদস্যদের নেতা নির্বাচনের জন্য ভোট দিতে হবে না। ৭ মে বিকেল ৩টায় নির্বাচিত (বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়) পরিচালকরা ২০২১-২০২৩ মেয়াদের জন্য সভাপতি, সিনিয়র সহ-সভাপতি ও ছয় জন সহ-সভাপতি নির্বাচন করবেন। ৯ মে চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হবে।
ডক্টর যশোদা জীবন দেবনাথ সিআইপি বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেডের পরিচালক, টেকনো মিডিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও বাংলাদেশ চেম্বার অব ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালকের দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও তিনি মাইক্রো শিল্প ক্যাটাগরিতে চার বার সিআইপি নির্বাচিত হয়েছেন। একই সঙ্গে তিনি ফরিদপুর জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি। তিনি কমনওয়েলথ ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্টেট এর পরিচালক ও ইন্ডিয়া বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ ক্লাবের সহ-সভাপতি এবং জাতীয় দৈনিক ভোরের সময় পত্রিকার প্রধান উপদেষ্টা।
ড. যশোদা জীবন দেবনাথ সরকারি শ্যামপুর সুগার মিলস লিমিটেডের পরিচালক ও অডিট কমিটির চেয়ারম্যান। তিনি ২০০৬ সালে প্লাস্টিক কার্ড আইডি লিমিটেডের পরিচালক, ২০১১ সালে প্রটেক্টশন অন প্রাইভেট লিমিটেড-এর চেয়ারম্যান, ২০১২ সালে রাজেন্দ্র ইকো রিসোর্ট, একই সালে ইমপুরুভমেন্ট মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিঃ-এর পরিচালক, ২০১৩ সালে মানিপ্লান্ট লিংক লিমিটেড-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সিইও, একই সালে টেকনোকনফিডেন্স সিকিউরিটিস লিমিটেড এর চেয়ারম্যান, ২০১৫ সালে ডেল্টা ফোর্স লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক, একই সালে বাংলাদেশ চেম্বার অব ইন্ডাস্ট্রিজ (বিসিআই) এর পরিচালক, ২০১৯ সালে এন আর বি গ্লোবাল লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের পরিচালক, ২০১৯ সালে বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড এর পরিচালক, পে-ইউনিয়ন (বিডি) লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক, লেনদেন বিডি লিমিটেড এর চেয়ারম্যান, শ্যামপুর সুগার মিল লিঃ এর পরিচালক (স্বতন্ত্র), ব্যাংকিং লিজিং এবং সিক ইন্ডাস্ট্রি এর চেয়ারম্যান, ২০২০ সালে এনআরবি গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডে এর পরিচালক হিসাবে নিজেকে আত্মপ্রকাশ করেন।
ব্যাংকিং সেক্টর ডিজিটাইজেশনে গুরুত্বপূর্ন অবদানের জন্য তাকে বাংলাদেশের আইডল হিসেবে বিবেচিত করা হয়। ড. যশোদা জীবন দেবনাথকে ফরিদপুরের মানুষ শুধু জেলার গর্ব হিসেবে নয় সারাদেশের গর্ব হিসেবে মনে করে থাকেন।
ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই’র পরিচালক পদে ফরিদপুরের সন্তান ড. যশোদা জীবন দেবনাথকে মনোনিত করায় জেলাবাসি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।
এফবিসিসিআই সূত্র গণমাধ্যমে জানিয়েছে, ২০২১- ২৩ মেয়াদের নির্বাচনে পরিচালক পদে মোট ৮৩ জন প্রার্থী হয়েছেন। মোট পদের সংখ্যা ৮০টি। এর মধ্যে মনোনীত পরিচালক পদে চেম্বার গ্রুপে ১৭টি ও অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপে ১৭টি পদে বিপরীতে ১৬ জন করে মোট ৩২ জন প্রার্থী হয়েছেন। দুটি মনোনীত পরিচালক পদে প্রার্থী দেয়নি গোপালগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ ও বায়রা।
অপরদিকে ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত হওয়ার জন্য চেম্বার গ্রুপের ২৩ পদের বিপরীতে ২৫ জন এবং অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপের ২৩ পদের বিপরীতে ২৫ জন প্রার্থী হয়েছেন।
প্রার্থী তালিকায় অনুযায়ী, এবারের নির্বাচনে একমাত্র সভাপতি প্রার্থী বেঙ্গল গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান মো. জসিম উদ্দিন ছাড়াও অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপ থেকে মনোনীত পরিচালক হয়েছেন এ কে এম সেলিম ওসমান, ইকবাল হোসেন চৌধুরী জুয়েল, নজরুল ইসলাম মজুমদার, সৈয়দ সাদাত আলমাস কবির, এস এম সফিউজ্জামান, মো. আমিন উল্লাহ, আনোয়ার উল আলম চৌধুরী পারভেজ, এ কে এম মনিরুল হক, মোহাম্মাদ মাহবুবুর রহমান পাটোয়ারী, আবু হোসাইন ভুইঁয়া রানা, খোন্দকার এনায়েত উল্লাহ, মোহাম্মদ আলী খোকন, মুনির হোসেন ও আলমগীর শামসুল আলামিন কাজল।
অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপ থেকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন আবু মোতালেব, রব্বানী জব্বার, খন্দকার মনিউর রহমান জুয়েল, জামাল উদ্দিন, মুনতাকিম আশরাফ, মীর নিজাম উদ্দিন আহমেদ, রাশিদুল হাসান চৌধুরী রনি, এম জে আর নাসির মজুমদার, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন, এম এ মোমেন, হাবিব উল্লাহ ডন, শফিকুল ইসলাম ভরসা, আমিন হেলালী, হাফেজ হারুন, ড. ফেরদৌসী বেগম, আমজাদ হোসেন, নিজাম উদ্দিন রাজেশ, আসলাম সেরনিয়াবাত, ড. কাজী এরতেজা হাসান, শাহিন আহমেদ, শমী কায়সার, আবু নাসের এবং ড. নাদিয়া বিনতে আমিন।
অপরদিকে, চেম্বার গ্রুপ থেকে মনোনীত পরিচালক হয়েছেন যশোদা জীবন দেবনাথ, প্রীতি চক্রবর্তী, সেরনিয়াবাত ময়নউদ্দিন আব্দুল্লাহ, নিজাম উদ্দিন, মোহাম্মদ নুরুন নেওয়াজ, এ এম মাহবুব চৌধুরী, ড. মুনাল মাহবুব, আবুল কাশেম খান, নাজ ফারহানা, কাজী আমিনুল হক, সাইফুল ইসলাম, আমিনুল হক শামীম, মো. শামসুজ্জামান, মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু, রেজাউল ইসলাম মিলন ও তাহমিন আহমেদ।
চেম্বার গ্রুপ থেকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন হাসিনা নেওয়াজ, মাসুদুর রহমান মিলন, দিলিপ কুমার আগরওয়ালা, মাসুদ পারভেজ খান ইমরান, মোহাম্মদ আনোয়ার সাদাত সরকার, রেজাউল করিম রেজনু, গাজী গোলাম আশরিয়া, গোলাম মোহাম্মদ, বিজয় কুমার কেজরিওয়াল, সুজিব রঞ্জন দাস, ইকবাল শাহারিয়ার, আলী হোসেন, শাহ জালাল, মোহাম্মদ বজলুর রহমান, তবারাকুল তোসাদ্দেক হোসেন খান টিটু, মোহাম্মদ রিয়াদ আলী, খায়রুল হুদা চপল, খান আহমেদ শুভ, মুতাসিরুল ইসলাম, এস এম জাহাঙ্গীর আলম মানিক, এম এ রাজ্জাক খান, হুমায়ূন রশিদ খান পাঠান ও সালাউদ্দিন আলমগীর।

বিধিনিষেধের মেয়াদ বাড়ছে ১৬ মে পর্যন্ত
                                  

করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে চলমান লকডাউনের (বিধিনিষেধ) মেয়াদ আগামী ১৬ মে পর্যন্ত বাড়ছে। তবে ৬ মে থেকে জেলার মধ্যে গণপরিবহন চলবে। তবে আন্তঃজেলা গণপরিবহন বন্ধ থাকবে। এছাড়া ট্রেন ও লঞ্চ বন্ধ থাকবে। সোমবার (৩ মে) সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে এ কথা জানান। কোভিড-১৯ সংক্রমণ রোধে গত ১৪ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে আটদিনের কঠোর লকডাউন শুরু হয়। লকডাউনের মধ্যে পালনের জন্য ১৩টি নির্দেশনা দেয়া হয় সরকারের পক্ষ থেকে। পরে সাতদিন করে দু-দফা লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হয়। সেই মেয়াদ শেষ হবে আগামী ৫ মে (বুধবার) মধ্যরাতে। নির্দেশনা অনুযায়ী, লকডাউনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকান ও শপিংমল সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা রয়েছে। খোলা রয়েছে শিল্প-কারখানা। এছাড়া জরুরি সেবা দেয়া প্রতিষ্ঠান ছাড়া যথারীতি সরকারি-বেসরকারি অফিস, গণপরিবহন বন্ধ রয়েছে। সীমিত পরিসরে ব্যাংকে লেনদেন করা যাচ্ছে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘গতকাল মাননীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সভাপতিত্বে একটা মিটিং হয়েছে। সেখানে সুপারিশ করা হয়, আজকে সেই বিষয়ে ক্যাবিনেট সিদ্ধান্ত দিয়েছে- আজকে থেকে পুলিশ, সিটি কর্পোরেশন, ম্যাজিস্ট্রেট ও অ্যাডমিনিস্ট্রেশন তারা দেশের প্রত্যেকটি মার্কেট সুপারভাইস করবে। কোন মার্কেটে এতে লোক হয়তো কন্ট্রোল করা যাবে না কিন্তু মাস্ক ছাড়া যদি বেশি লোকজন ঘোরাফেরা করে প্রয়োজনে আমরা সেসব মার্কেট বন্ধ করে দেব। ক্লিয়ারলি এটা বলে দেয়া হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘দোকান-মালিক সমিতির সভাপতি ওনারা আমাদের সহযোগিতা করবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন। ওনারা নিজেরাও এটা সুপারভাইস করবেন।’ ‘বাইরে প্রচার করতে হচ্ছে যে, কোন অবস্থায় যদি স্বাস্থ্যবিধির ব্যাপক ভায়োলেশন হয় তবে প্রয়োজন হলে আমরা ওই মার্কেট বন্ধ করে দেব।’ মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘আজকে সিদ্ধান্ত হয়েছে লকডাউন যেটা আছে সেটা ১৬ মে পর্যন্ত এভাবেই কন্টিনিউ করবে। ৬ মে থেকে গণপরিবহন জেলার মধ্যে চলাচল করতে পারবে। আন্তঃজেলা বাস চলাচল করতে পারবে না। ঢাকার বাস ঢাকার মধ্যে চলাচল করবে। এছাড়া লঞ্চ ও ট্রেন বন্ধ থাকবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘গণপরিবহন মালিকরা আমাদের কথা দিয়েছেন, কোনভাবেই গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘন করা হবে না। লঙ্ঘন করা হলে বন্ধ করে দেয়া হবে। সেই নির্দেশনাও দেয়া আছে। সেটা আমরা দেখব।’ ঈদ আগামী ১৪ মে শুক্রবার হতে পারে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোন বন্ধ দেয়া যাবে না। ঈদের ছুটি তিনদিন এর মধ্যে দুটি পড়েছে শুক্র ও শনিবার। শিল্পকারখানাও এই সময়ে বন্ধ দিতে পারবে না।’ সরকারি অফিস বন্ধ সেগুলোর বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত আছে কিনা- জানতে চাইলে খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘যেগুলো যেভাবে আছে সেভাবেই থাকবে।’ 

বন্ধ থাকবে ব্যাংক-আর্থিক প্রতিষ্ঠান
                                  

বুধবার (১৪ এপ্রিল) থেকে শুরু হয়ে আগামী ২১ এপ্রিল পর্যন্ত করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে সার্বিক কার্যাবলি/চলাচলের ওপর আট দিনের বিধিনিষেধ দিয়েছে সরকার। সোমবার (১২ এপ্রিল) এ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। প্রজ্ঞাপনে বিধিনিষেধ আরোপ করে ১৩টি নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। নির্দেশনা অনুযায়ী আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকবে। এতে বলা হয়, সকল সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিস/আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ও সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করবেন। তবে বিমান, সমুদ্র, নৌ ও স্থলবন্দর এবং এ সংশ্লিষ্ট অফিসগুলো এ নিষেধাজ্ঞার আওতাবহির্ভূত থাকবে। নির্দেশনায় যেসব কথা বলা হয়, তার মধ্যে রয়েছে শিল্প-কারখানাগুলো স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় চালু থাকবে। তবে শ্রমিকদের নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থাপনায় আনা-নেয়া নিশ্চিত করতে হবে। এছাড়া আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিষেবা, যেমন- কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা প্রদান, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরগুলোর (স্থলবন্দর, নদীবন্দর ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাক সেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিস, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতার বাইরে থাকবে। এসব নির্দেশনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ প্রয়োজনে সম্পূরক নির্দেশনা জারি করতে পারবে বলেও প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়।

১৪ এপ্রিল থেকে সব অফিস-গণপরিবহন বন্ধ, শিল্প-কারখানা খোলা
                                  

আগামী ১৪ থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত আট দিনের জন্য লকডাউন ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার। সোমবার (১২ এপ্রিল) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এই প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) পরিস্থিতি অবনতির কারণে আগের নির্দেশনার ধারাবাহিকতায় আগামী ১৪ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত ১৩টি বিধি-নিষেধ আরোপ করার কথা বলা হয়েছে প্রজ্ঞাপনে।

প্রজ্ঞাপনে যেসব নির্দেশনা দেয়া হয়েছে সেগুলো হলো :

১. সকল সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিস/আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ও সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করবেন। তবে বিমান, সমুদ্র, নৌ ও স্থলবন্দর এবং এ সংশ্লিষ্ট অফিসগুলো এ নিষেধাজ্ঞার আওতাবহির্ভূত থাকবে।

২. বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আদালতগুলোর জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা জারি করবে।

৪. শিল্প-কারখানাগুলো স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় চালু থাকবে। তবে শ্রমিকদের নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থাপনায় আনা-নেয়া নিশ্চিত করতে হবে।

৫. আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিষেবা, যেমন- কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা প্রদান, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরগুলোর (স্থলবন্দর, নদীবন্দর ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাক সেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিস, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতার বাইরে থাকবে।

৬. অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া (ঔষধ ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ইত্যাদি) কোনভাবেই বাড়ির বাইরে বের হওয়া যাবে না। তবে টিকা কার্ড প্রদর্শন সাপেক্ষে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়াত করা যাবে।

৭. খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং রাত ১২টা থেকে ভোরর ৬টা পর্যন্ত কেবল খাদ্য বিক্রয়/সরবরাহ (সরাসরি/অনলাইন) করা যাবে। শপিংমলসহ অন্যান্য দোকান বন্ধ থাকবে।

৮. কাঁচাবাজার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে। বাজার কর্তৃপক্ষ/স্থানীয় প্রশাসন বিষয়টি নিশ্চিত করবে।

৯. বোরো ধান কাটার জরুরি প্রয়োজনে কৃষি শ্রমিক পরিবহনের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসন সমন্বয় করবে।

১০. সারা দেশে জেলা ও মাঠ প্রশাসন উল্লিখিত নির্দেশনা বাস্তবায়নের কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করবে এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিয়মিত টহল জোরদার করবে।

১১. স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক তার পক্ষে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ বিভাগকে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রয়োজনীয় ক্ষমতা দেবেন।

১২. স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে জুমা ও তারাবি নামাজের জমায়েত বিষয়ে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় নির্দেশনা জারি করবে।

১৩. এসব নির্দেশনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ প্রয়োজনে সম্পূরক নির্দেশনা জারি করতে পারবে। করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বাড়তে থাকায় গত ৫ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে সাত দিনের লকডাউন বা বিধি-নিষেধ জারি করে সরকার। এই বিধি-নিষেধের মেয়াদ শেষ হয় রোববার (১১ এপ্রিল)।

বিধি-নিষেধের সময়ে পালনের জন্য ১১টি নির্দেশনা দেয়া হয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে ৪ এপ্রিল জারি করা প্রজ্ঞাপনে। বিধি-নিষেধ শুরু হলে গণপরিবহন না পেয়ে দুর্ভোগে পড়েন থোলা থাকা সরকারি-বেসরকারি অফিসের কর্মীরা। গণপরিবহন না পেয়ে বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করেন যাত্রীরা। একই সঙ্গে দোকান ও মার্কেট খুলে দিতেও আন্দোলনে নামেন মালিক-শ্রমিকরা। এরই মধ্যে গত ৭ এপ্রিল সিটি কর্পোরেশন এলাকার মধ্যে গণপরিবহন খুলে দেয়া হয়। সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত চলাচল করছে বাস। তবে শপিংমল ও দোকান মালিক-শ্রমিকদের আন্দোলন চলছিল। শেষে শুক্রবার (৯ এপ্রিল) থেকে আগামী ১৩ এপ্রিল সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকানপাট ও শপিংমল খোলা রাখা যাবে বলে গত ৮ এপ্রিল নির্দেশনা জারি করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে কঠোর লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। এ সময়ে জরুরি সেবা দেয়া প্রতিষ্ঠান ও সংস্থা ছাড়া সরকারি-বেসরকারি সব অফিস বন্ধ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়। শুক্রবার (৯ এপ্রিল) দুপুরে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জাগো নিউজকে এ তথ্য জানান। এর আগে ওইদিন সকালে সরকারি বাসভবনে ব্রিফিংয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘দেশে করোনা ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার। কিন্তু এতেও জনগণের উদাসীনতা কমেনি। এ অবস্থায় জনস্বার্থে সরকার আগামী ১৪ এপ্রিল থেকে এক সপ্তাহের জন্য সর্বাত্মক লকডাউনের বিষয়ে সক্রিয় চিন্তা ভাবনা করছে।’ লকডাউন বিষয়ে প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন সেদিন বলেন, ‘করোনার ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ কমানোর জন্য গত ২৯ মার্চ ১৮ দফা নির্দেশনা দেয়া হয়। সেটির আলোকেই ৪ এপ্রিল আরেকটি প্রজ্ঞাপন আমরা দিয়েছি। যাতে মানুষ ঘরের বাইরে না আসে। তারা যাতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে, আরও কঠোর বিধিনিষেধ দেয়া হয়েছিল। সেই আলোকেই এখন পর্যন্ত চলছে।’ তিনি বলেন, ‘জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ ও করোনার ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের কথা চিন্তা-ভাবনা করে গতকাল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একটি অনুষ্ঠানে অনলাইনে যুক্ত হয়ে বলেছেন, আমরা মানুষের জীবন বাঁচাতে কঠোর পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছি। এই পরিপ্রেক্ষিতেই আগামী ১৪ তারিখ থেকে ৭ দিনের কঠোর লকডাউন দিতে যাচ্ছি আমরা।’ ‘জরুরি সেবা ছাড়া, সব ধরণের অফিস আদালত, গণপরিবহন, দোকানপাট, মার্কেট সব কিছুই বন্ধ থাকবে। সবকিছু কঠোর লকডাউনের আওতাধীন থাকবে। শিল্প-কারখানাগুলোও বন্ধ থাকবে। মানুষ যে যেখানে আছেন, সেখনেই থাকবেন। এটা কঠোর লকডাউন হবে’ যোগ করেন প্রতিমন্ত্রী। ফরহাদ হোসেন আরও বলেন, ‘মানুষকে ঘরে থাকতে হবে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাইরে আসতে পারবে না, এটা এবার নিশ্চিত করা হবে। সবাইকে সংযত আচরণ করতে হবে। পরিস্থিতি উপলব্ধি করতে হবে। সরকারের সিদ্ধান্ত সুবিবেচনার সঙ্গে নিতে হবে। আর একটি মানুষও যাতে সংক্রমিত না হন, সেই বিষয়টি নিশ্চিত করতে সবাইকে ঘরে থাকবে হবে।’

কাঁচাবাজার চলবে ৯-৩টা পর্যন্ত
                                  
রমজানে প্রয়োজনীয় দ্রব্যের খুচরা মূল্য নির্ধারণ
                                  

রমজান মাসকে সামনে রেখে প্রয়োজনীয় দ্রব্যের যৌক্তিক খুচরা মূল্য নির্ধারণ করেছে সরকার। এ মূল্য অনুসারে পেঁয়াজ প্রতি কেজি সর্বোচ্চ ৪০ টাকা, চিনি ৬৭ টাকা এবং সয়াবিন তেল প্রতি লিটার সর্বোচ্চ ১৩৯ টাকা দরে খুচরা বাজারে বিক্রি করা যাবে। আসন্ন রমজান মাসে বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতেই সরকারের এই পদক্ষেপ। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় দেশের আকাশে হিজরি ১৪৪২ সনের রমজান মাসের চাঁদ দেখা গেলে বুধবার (১৪ এপ্রিল) থেকে রমজান মাস গণনা শুরু হবে ও মুসলমানরা রোজা রাখা শুরু করবেন। সেক্ষেত্রে মঙ্গলবার রাতেই এশার নামাজের পর তারাবি নামাজ পড়া শুরু হবে এবং রোজা রাখতে শেষ রাতে প্রথম সেহরিও খাবেন ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা। এদিকে, সৌদি আরবের আকাশে রবিবার মাহে রমজানের চাঁদ দেখা যায়নি। সোমবার ৩০ দিন পূর্ণ হবে শাবান মাস। অর্থাৎ মঙ্গলবার থেকে সৌদি আরবে রোজা শুরু হবে। এছাড়া সংযুক্ত আরব আমিরাত, কুয়েত, ওমান, মিসর, মালয়েশিয়া, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া এবং সিঙ্গাপুরেও মঙ্গলবার থেকে রোজা শুরু হবে।

অরাজকতা সৃষ্টিকারীদের কোনো ছাড় নয়: আইনমন্ত্রী
                                  

দেশে অরাজকতা সৃষ্টিকারীদের কোনো ছাড় দেয়া হবে না বলে জানিয়েছেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক। তিনি বলেন, কেউ অরাজকতা ও নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। রোববার (১১ এপ্রিল) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর আওতায় দ্বিতীয় পর্যায়ের গৃহ নির্মাণের জন্য মাটি ভরাট কাজ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন। সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের কথা উল্লেখ করে আইনমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড হচ্ছে। চলমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ড অব্যাহত রাখতে সকলের সহযোগিতা চাই। কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মাসুদ-উল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কসবা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট রাশেদুল কায়সার ভূঁইয়া জীবন, পৌর মেয়র মো. এমরান উদ্দিন জুয়েল, সদর উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান মো. মনির হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক কাজী আজহারুল ইসলাম, এম জি হাক্কানি প্রমুখ।

মোহাম্মদপুর থানায় জিডিতে মামুনুলের আরেক বিয়ের খবর
                                  

নিজের বোনকে হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের স্ত্রী দাবি করে মো. শাহজাহান নামের এক ব্যক্তি রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন। তার বোন জান্নাতুল ফেরদৌস লিপি নিখোঁজ রয়েছেন এই মর্মে জিডি করেছেন। জিডিতে বোনকে মামুনুল হকের স্ত্রী বলেও উল্লেখ করেছেন রোববার (১১ এপ্রিল) রাতে মো. শাহজাহান জিডি করেছেন বলে জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন মোহাম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুল লতিফ। তিনি বলেন, মো. শাহজাহান নামের এক ব্যক্তি তার বোন জান্নাতুল ফেরদৌস ওরফে লিপিকে খুঁজে পাচ্ছেন না বলে জিডি করেছেন। তিনি জিডিতে উল্লেখ করেন- জান্নাতুল ফেরদৌসের স্বামী হচ্ছেন হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক। জিডি করার সময় তিনি তাদের দু’জনের বিয়ের চুক্তিনামা দেখিয়েছেন। ওসি আব্দুল লতিফ আরও বলেন, ‘মো. শাহজাহান তার বোনকে খুঁজে পাচ্ছেন না উল্লেখ করে তার বোনকে পরিবারের কাছে খুঁজে দেয়ার জন্য পুলিশের সহায়তা চেয়েছেন। জিডির পর আমরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি।’ এর আগে শনিবার (১০ এপ্রিল) মামুনুলের কথিত দ্বিতীয় স্ত্রী জান্নাত আরা ঝর্ণা ‘নিখোঁজ’ জানিয়ে পল্টন থানা জিডি করেন ঝর্ণার বড় ছেলে আবদুর রহমান। ওই জিডিতে মা জান্নাত আরার সন্ধান এবং নিজের জীবনের নিরাপত্তা চেয়েছেন আব্দুর রহমান। গত ৩ এপ্রিল সোনারগাঁয়ের রয়েল রিসোর্টে এক নারীসহ হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে অবরুদ্ধ করেন স্থানীয়রা। এরপর সেখান থেকে হেফাজতের নেতাকর্মীরা মামুনুলকে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় মামুনুলের দ্বিতীয় বিয়ের বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে এবং এ নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়।

রমজান শুরু কবে জানা যাবে মঙ্গলবার
                                  

পবিত্র রমজান মাস শুরু হবে বুধবার নাকি বৃহস্পতিবার, তা জানা যাবে আগামীকাল (মঙ্গলবার) সন্ধ্যায়। রমজান মাসের চাঁদ দেখার সংবাদ পর্যালোচনায় মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) বাদ মাগরিব সভায় বসবে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি। সোমবার (১২ এপ্রিল) ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, রাজধানীর বায়তুল মোকাররমে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সভাকক্ষে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬ টা ৪৫ মিনিটে এ সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় সভাপতিত্ব করবেন ধর্ম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ও কমিটির সভাপতি মো. ফরিদুল হক খান। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় হিজরি ১৪৪২ সনের রমজান মাসের চাঁদ দেখা গেলে বুধবার (১৪ এপ্রিল) থেকে রমজান মাস গণনা শুরু হবে ও মুসলমানরা রোজা রাখা শুরু করবেন। সেক্ষেত্রে মঙ্গলবার রাতেই এশার নামাজের পর তারাবি নামাজ পড়া শুরু হবে এবং রোজা রাখতে শেষ রাতে প্রথম সেহরিও খাবেন ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা। অপরদিকে মঙ্গলবার চাঁদ দেখা না গেলে বুধবার শাবান মাসের ৩০ দিন পূর্ণ হবে, রমজান মাস গণনা শুরু হবে বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল)। এক্ষেত্রে বুধবার এশার নামাজের পর তারাবি নামাজ পড়া শুরু হবে এবং শেষ রাতে খেতে হবে সেহরি। বাংলাদেশের আকাশে কোথাও পবিত্র রমজান মাসের চাঁদ দেখা গেলে তা ৯৫৫৯৪৯৩, ৯৫৫৫৯৪৭, ৯৫৫৬৪০৭ ও ৯৫৫৮৩৩৭ টেলিফোন ও ৯৫৬৩৩৯৭ ও ৯৫৫৫৯৫১ ফ্যাক্স নম্বরে বা সংশ্লিষ্ট জেলার জেলা প্রশাসক (ডিসি) বা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে (ইউএনও) জানানোর জন্য অনুরোধ জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন। অপরদিকে রোববার সৌদি আরবের আকাশে পবিত্র রমজান মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। সেই হিসেবে দেশটিতে সোমবার (১২ এপ্রিল) শাবান মাসের ৩০ দিন পূর্ণ হবে। ফলে মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) থেকে সৌদিতে রোজা শুরু হবে।

পেঁয়াজের দাম কমেছে
                                  

সরকারঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধে আতঙ্ক ছড়ানোয় রাজধানীর বাসিন্দাদের অতিরিক্ত কেনাকাটার কারণে পেঁয়াজের দাম দুই দফা বাড়লেও এখন নিত্যপ্রয়োজনীয় এ পণ্যটির দাম কমেছে। গত দুইদিনে খুচরা পর্যায়ে কেজিতে ৫ টাকা এবং পাইকারিতে ৭ টাকা পর্যন্ত কমেছে পেঁয়াজের দাম। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে এখন ভালো মানের হালি পেঁয়াজে ভরপুর। বাজারে পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকলেও ক্রেতা কম। যে কারণে দামও কমে গেছে। ক্রেতারা আবার অস্বাভাবিক আচরণ না করলে সহসা পেঁয়াজের দাম বাড়ার সম্ভাবনা কম তারা বলছেন, লকডাউনের আতঙ্কে দুইদিন মানুষ প্রচুর পেঁয়াজ কিনেছেন। ক্রেতাদের বাড়তি ক্রয়ের কারণে বাজারে পেঁয়াজের সরবরাহ কমে যায়। এ কারণে দাম বাড়ে। বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, ভালো মানের দেশি পেঁয়াজের খুচরা পর্যায়ে কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকা। দু’দিন আগে এই পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছিল ৪০ টাকা কেজি। অপরদিকে পাইকারিতে দেশি পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৮-২৯ টাকা, যা দু’দিন আগে ছিল ৩৫ টাকা। মালিবাগ হাজীপাড়ার ব্যবসায়ী মো. জাহাঙ্গীর বলেন, পাইকারিতে দাম বাড়ায় দু’দিন আমরা পেঁয়াজের কেজি ৪০ টাকায় বিক্রি করেছি। এখন পাইকারিতে দাম কমেছে। এ কারণে আমরাও দাম কমিয়ে ৩৫ টাকা কেজি বিক্রি করতে পারছি। রামপুরার ব্যবসায়ী মিলন শেখ বলেন, পেঁয়াজের দাম কখন কী হয় বলা মুশকিল। দু’দিন আগেই দু’দফা দাম বেড়ে কেজি ৪০ টাকা হয়েছিল। এখন আবার দাম কমে ৩৫ টাকা হয়েছে। দাম কমলেও ক্রেতা পাওয়া যাচ্ছে না। দু’দিন ধরে পেঁয়াজের বিক্রি নেই বললেই চলে। এ অবস্থা থাকলে সামনে পেঁয়াজের দাম আরও কমতে পারে। বাড্ডার ব্যবসায়ী আলী ইমাম বলেন, হঠাৎ করে পেঁয়াজের দাম কমে যাওয়ায় লোকসানের মধ্যে পড়েছি। আড়ৎ থেকে ৩৫ টাকা কেজি কিনে আনা পেঁয়াজ এখন ৩৫ টাকা কেজি বিক্রি করতে হচ্ছে। ৩৫ টাকা কেজি কেনা পেঁয়াজ এখনও এক মণের ওপরে রয়েছে। সামনে দাম কমে গেলে লোকসান আরও বাড়বে। তিনি বলেন, কঠোর লকডাউনের খবরে যেভাবে পেঁয়াজের দাম বেড়েছিল, তাতে ধারনাও করতে পারিনি দু’দিনের মধ্যে দাম কমে যাবে। এমনি ব্যবসার পরিস্থিতি ভালো না। এ পরিস্থিতে পেঁয়াজ কিনে লোকসান গুনতে হচ্ছে। আমাদের কষ্ট দেখার মতো কেউ নেই। কারওয়ানবাজারের ব্যবসায়ী গৌতম বাবু বলেন, পাইকারি বাজারে এখন যে পেঁয়াজ পাওয়া যাচ্ছে, তার সবই হালি পেঁয়াজ। বাজারে ভালো মানের এই পেঁয়াজের প্রচুর সরবরাহ রয়েছে। কিন্তু ক্রেতা খুব কম। এ কারণে দাম কমে গেছে। তিনি বলেন, এর আগে লকডাউন আতঙ্কে ক্রেতারা বাড়তি পরিমাণে পেঁয়াজ কিনে রেখেছেন। যে কারণে এখন তারা পেঁয়াজ কিনছেন না। দু’দিন বাড়তি কেনার কারণে পেঁয়াজের একটু দাম বেড়ে ছিল। বিক্রি কমে যাওয়া দামও কমেছে। পেঁয়াজের এই পাইকারি বিক্রেতা আরও বলেন, এখন পাইকারিতে ভালো মানের দেশি পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৮-২৯ টাকা। রোজার আগে পেঁয়াজের দাম নতুন করে বাড়ার সম্ভাব না খুব কম। বরং কেজিতে দাম আরও এক-দুই টাকা কমতে পারে।

আবারও বাড়ল আমদানির চাল বাজারে আনার সময়
                                  

বেসরকারিভাবে আমদানির জন্য বরাদ্দ পাওয়া যেসব আমদানিকারক গত ১৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে এলসি খুলেছেন তাদের সব চাল আগামী ২০ এপ্রিলের মধ্যে বাজারজাত করতে হবে। চাল আনার সময় বাড়িয়ে বুধবার (৭ এপ্রিল) খাদ্য মন্ত্রণালয় থেকে বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। এর আগে এলসির সব চাল বাজারে আনার বেঁধে দেয়া সময় শেষ হয়েছে বুধবার। চিঠিতে বলা হয়, বেসরকারিভাবে চাল আমদানির জন্য বরাদ্দপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে যেসকল আমদানিকারকরা ১৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে এলসি খুলেছেন কিন্তু চাল বাজারজাত করতে পারেননি, তাদের এলসি করা সম্পূর্ণ চাল বাজারজাতকরণের জন্য আগামী ২০ এপ্রিল পর্যন্ত সময় বাড়ানো হলো। খাদ্যশস্যের বাজারমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রবণতা রোধ, নিম্নআয়ের জনগোষ্ঠীকে সহায়তা এবং বাজারদর স্থিতিশীল রাখতে বেসরকারি পর্যায়ে চালের আমদানি শুল্ক ৬২ দশমিক ৫০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২৫ শতাংশ নির্ধারণ করে সরকার। খাদ্য মন্ত্রণালয় থেকে গত বছরের ২৭ ডিসেম্বর বেসরকারিভাবে চাল আমদানির জন্য বৈধ আমদানিকারকদের প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্রসহ ১০ জানুয়ারির মধ্যে খাদ্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন করতে বলা হয়। খাদ্য মন্ত্রণালয় বিভিন্ন শর্তে বেসরকারি পর্যায়ে সর্বমোট ৩২০ ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানকে ১০ লাখ ১৪ হাজার ৫০০ টন চাল আমদানির অনুমতি দিয়েছে। এই অনুমতির চিঠি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। কিন্তু বরাদ্দের বেশির ভাগ চালই আনতে পারেনি আমদানিকারকরা। নির্দিষ্ট সময়ে ঋণপত্র বা এলসি খুলতে না পারায় অনেকের বরাদ্দপত্র বাতিল করা হয়। যারাও ঋণপত্র খুলতে পেরেছেন, পুরো চাল বাজারে আনতে পারছেন না তারা। বার বার তাদের চাল বাজারে আনার সময় বাড়ানো হচ্ছে।


   Page 1 of 72
     জাতীয়
বাংলাদেশ বন্ধু সমাজকে জাতীয় করনে দাবী এফ. আহমেদ খান রাজীব
.............................................................................................
বাংলাদেশের পরিস্থিতি ভারতের চেয়ে ভয়াবহ হতে পারে
.............................................................................................
চীনের উপহারের ৫ লাখ টিকা দেশে পৌঁছাবে ১২ মে
.............................................................................................
খালেদার চিকিৎসার বিষয়ে আইন মন্ত্রণালয়ের মতামত স্বরাষ্ট্রে
.............................................................................................
ঈদের আগে দূরপাল্লার গণপরিবহন চালুর দাবি মালিক-শ্রমিকদের
.............................................................................................
এফবিসিসিআই’র পরিচালক হলেন যশোদা জীবন দেবনাথ
.............................................................................................
বিধিনিষেধের মেয়াদ বাড়ছে ১৬ মে পর্যন্ত
.............................................................................................
বন্ধ থাকবে ব্যাংক-আর্থিক প্রতিষ্ঠান
.............................................................................................
১৪ এপ্রিল থেকে সব অফিস-গণপরিবহন বন্ধ, শিল্প-কারখানা খোলা
.............................................................................................
কাঁচাবাজার চলবে ৯-৩টা পর্যন্ত
.............................................................................................
রমজানে প্রয়োজনীয় দ্রব্যের খুচরা মূল্য নির্ধারণ
.............................................................................................
অরাজকতা সৃষ্টিকারীদের কোনো ছাড় নয়: আইনমন্ত্রী
.............................................................................................
মোহাম্মদপুর থানায় জিডিতে মামুনুলের আরেক বিয়ের খবর
.............................................................................................
রমজান শুরু কবে জানা যাবে মঙ্গলবার
.............................................................................................
পেঁয়াজের দাম কমেছে
.............................................................................................
আবারও বাড়ল আমদানির চাল বাজারে আনার সময়
.............................................................................................
‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা
.............................................................................................
ঢাকা আসছেন ভারতের সেনাপ্রধান
.............................................................................................
ঝড়-বৃষ্টি বাড়ছে, তাপমাত্রা আরও কমবে
.............................................................................................
ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের মধ্যেই শুরু হলো টিকার দ্বিতীয় ডোজ
.............................................................................................
মানুষ বাঁচাতে আরও কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
ইডেন পার্কে টানা বৃষ্টি, অনিশ্চয়তায় বাংলাদেশের ম্যাচ
.............................................................................................
বেখেয়ালি চলাফেরা আরও বিপর্যয় নিয়ে আসবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
আজ যেসব জায়গায় কালবৈশাখী হতে পারে
.............................................................................................
নেই কঠোর নির্দেশনা, স্বাস্থ্যবিধি সবাই জানে কিন্তু মানে না
.............................................................................................
করোনার টিকা নিলেন ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
গণপরিবহনে সামাজিক দূরত্বের বালাই নেই, ভাড়া দ্বিগুণ
.............................................................................................
করোনা নিয়ন্ত্রণে সরকারের ১৮ দফা নির্দেশনা
.............................................................................................
অদক্ষদের জন্য বন্ধ হচ্ছে সৌদি শ্রমবাজার
.............................................................................................
আজ পবিত্র শবে বরাত
.............................................................................................
আমাদের আরও অনেক দূর যেতে হবে
.............................................................................................
আরও ১২ লাখ করোনার টিকা আসছে শুক্রবার
.............................................................................................
মতিঝিলে মোদিবিরোধী বিক্ষোভ, ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল আটক
.............................................................................................
সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
মোদীর সফরে দুই প্রকল্পে মিলবে ভারতীয় অনুদান
.............................................................................................
রাত ৮টার মধ্যে দোকানপাট বন্ধের আহ্বান তাপসের
.............................................................................................
সুখবর দিল আবহাওয়া অফিস
.............................................................................................
সৌজন্য সাক্ষাতে শেখ হাসিনা-লোটে শেরিং
.............................................................................................
কঠোর না হলে করোনায় ভয়াবহ বিপদ ঘটতে পারে: ডা. লেলিন
.............................................................................................
ইউপি ভোট: তালিকা ধরে সন্ত্রাসী গ্রেফতারের নির্দেশ
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর প্রতি নেপালের প্রেসিডেন্টের শ্রদ্ধা
.............................................................................................
জাতীয় স্মৃতিসৌধে ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
.............................................................................................
২৪ ঘণ্টায় ২২ মৃত্যু, শনাক্ত ২১৭২
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর স্বাধীনতার মিথ্যা ঘোষক দাঁড় করানো হয়েছিল
.............................................................................................
সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি
.............................................................................................
ঢাকার মানুষের কাছে আতঙ্কের অন্যতম নাম মশা
.............................................................................................
মোদিবিরোধী মিছিল-মিটিং হলে শক্তভাবে আইনানুগ ব্যবস্থা
.............................................................................................
বিমানের সুরক্ষা ও যাত্রীসেবায় মান নিশ্চিত করার আহ্বান
.............................................................................................
রাজউকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সংকটে অবৈধ ভবন উচ্ছেদ কার্যক্রম ব্যাহত অবৈধ ভবন নির্মানকারীরা অবাধে ভবন নির্মাণ করছে
.............................................................................................
বাকেরগঞ্জে ৩নং দাড়িয়ালের নৌকার মাঝি শহিদুল ইসলাম হাওলাদার’কে ফুলের শুভেচ্ছা ।
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো : মাহবুবুর রহমান ।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মো: হাবিবুর রহমান । সম্পাদক কর্তৃক বিএস প্রিন্টিং প্রেস ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, সুত্রাপুর ঢাকা খেকে মুদ্রিত
ও ৬০/ই/১ পুরানা পল্টন (৭ম তলা) থেকে প্রকাশিত বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৫১,৫১/ এ রিসোর্সফুল পল্টন সিটি (৪র্থ তলা), পুরানা পল্টন, ঢাকা -১০০০।
ফোনঃ-০২-৯৫৫০৮৭২ , ০১৭১১১৩৬২২৬

Web: www.bhorersomoy.com E-mail : dbsomoy2010@gmail.com
   All Right Reserved By www.bhorersomoy.com Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD