|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ২৩   * ৫০ হাজার টাকা করে অনুদান পেলেন ২৩২ নারী উদ্যোক্তা   * কুয়েতে ভবনে আগুন, নিহত ৩৫   * মুম্বাইয়ে বসবে সোনাক্ষীর বিয়ের আসর   * ঈদ যাত্রায় বাড়তি ভাড়া নিলেই ব্যবস্থা : পুলিশ   * ইয়েমেনে নৌকাডুবির ঘটনায় নিহত ৩৮, নিখোঁজ ১০০   * নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান   * এনআইডি সেবা নিতে আসা জনগণের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করবেন না: সিইসি   * মোদিকে বাংলাদেশে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন শেখ হাসিনা : পররাষ্ট্রমন্ত্রী   * নীরবতা ভাঙলেন ক্যাট!  

   জাতীয় -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ২৩

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে বিক্রি ও সেবনের অভিযোগে ২৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।  

বুধবার (১২ জুন) সকাল ৬টা থেকে বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) সকাল ৬টা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) কে এন রায় নিয়তি জানান, গ্রেপ্তারদের কাছ থেকে ২৫১টি ইয়াবা ট্যাবলেট, ২৫২  গ্রাম হেরোইন ও ৫ কেজি ৩০০ গ্রাম গাঁজা জব্দ করা হয়।

তাদের বিরুদ্ধে ডিএমপির থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ১৭টি মামলা করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ২৩
                                  

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে বিক্রি ও সেবনের অভিযোগে ২৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।  

বুধবার (১২ জুন) সকাল ৬টা থেকে বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) সকাল ৬টা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) কে এন রায় নিয়তি জানান, গ্রেপ্তারদের কাছ থেকে ২৫১টি ইয়াবা ট্যাবলেট, ২৫২  গ্রাম হেরোইন ও ৫ কেজি ৩০০ গ্রাম গাঁজা জব্দ করা হয়।

তাদের বিরুদ্ধে ডিএমপির থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ১৭টি মামলা করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

৫০ হাজার টাকা করে অনুদান পেলেন ২৩২ নারী উদ্যোক্তা
                                  

দেশের ২৩২ জন নারী উদ্যোক্তাকে ৫০ হাজার টাকা করে অনুদান দেওয়া হয়েছে।  ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বুধবার (১২ জুন) তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অধীন উদ্ভাবন ও উদ্যোক্তা উন্নয়ন একাডেমি প্রতিষ্ঠাকরণ (আইডিয়া) প্রকল্পের আওতায় স্টার্টআপদের পাশাপাশি নারী উদ্যোক্তাদের উন্নয়ন, উৎসাহ প্রদান এবং ব্যবসাকে ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে স্মার্ট নারী উদ্যোক্তা অনুদান দেন।

প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, আজকে যে ২৩২ জন নারী উদ্যোক্তারা এই ৫০ হাজার টাকা অনুদান পেয়েছেন এটা অনুদান নয়, প্রধানমন্ত্রীর ভালোবাসা। এ অনুদান নিয়ে যারা আরও বড় পরিসরে ব্যবসায় করবে, ইনোভেটিভ সল্যুশন নিয়ে আসবে, তাদের উদ্যোক্তা হিসেবে সফল করার জন্য আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আইডিয়া প্রকল্পের মাধ্যমে ৫০ হাজার থেকে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত অফেরতযোগ্য অনুদানের ব্যবস্থা করা হবে।

তিনি বলেন, আমাদের যে স্টার্টআপগুলো ভালো করবে তাদের জন্য ৫০ লাখ টাকা থেকে শুরু করে পাঁচ কোটি টাকা পর্যন্ত স্টার্টআপ বাংলাদেশ কোম্পানি লিমিটেড এর মাধ্যমে ইক্যুইটি ইনভেস্টমেন্ট গ্রহণ করার সুযোগ রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ইতোমধ্যে আমরা দুই হাজার নারী উদ্যোক্তাকে ৫০ হাজার করে টাকা অনুদান হিসেবে দিয়েছি। নতুন করে আরও পাঁচ হাজার স্মার্ট নারী উদ্যোক্তাকে ৫০ হাজার করে টাকা অনুদান দেওয়া হবে।

প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, আমরা আরেকটি নতুন মাস্টারক্লাস শুরু করতে যাচ্ছি যেখানে সারা দেশের নারী উদ্যোক্তাদের জন্য প্রশিক্ষণ, মেন্টরশিপ, ইন্টার্নশিপ, কো-ওয়ার্কিং স্পেসের ব্যবস্থা করা হবে।

তিনি বলেন, দেশের নারীসমাজকে মূল অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত করতে না পারলে আমরা আমাদের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবো না।  

তিনি আরও বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান থেকে শুরু করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশে নারী জাগরণ, ক্ষমতায়ন এবং কর্মসংস্থানের মাধ্যমে দেশের নারীদের আত্মনির্ভরশীল করে গড়ে তোলার জন্য কাজ করেছেন। সরকার ও পরিবারের দিক থেকে আমরা যদি সহায়ক হিসেবে উৎসাহ এবং সহযোগিতার হাত বাড়াই তাহলে আমাদের দেশের নারীও সাফল্যের উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পারবেন।

অনুষ্ঠানের বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক রণজিৎ কুমারের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব মো. সামসুল আরেফিন, আইডিয়া প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, ওমেন অ্যান্ড ই-কমার্স ফোরাম (উই) এর প্রেসিডেন্ট নাসিমা আক্তার নিশা। পরে, প্রতিমন্ত্রী স্মার্ট নারী উদ্যোক্তাদের চেক বিতরণ করেন।

ঈদ যাত্রায় বাড়তি ভাড়া নিলেই ব্যবস্থা : পুলিশ
                                  

ঈদ যাত্রাকে কেন্দ্র করে কোনো পরিবহন বাড়তি ভাড়া আদায় করলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার (ট্রাফিক) মুনিবুর রহমান।

বুধবার (১২ জুন) দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ হুঁশিয়ারি জানান তিনি।

তিনি বলেন, আপনারা জানেন যে প্রতিটি বাস টার্মিনালে সার্ভিলেন্স টিম আছে। সার্ভিলেন্স টিম কিন্তু বিভিন্ন সংস্থার সমন্বয়ে হয়।
সেখানে পুলিশের প্রতিনিধি, বিআরটিএ-এর প্রতিনিধি, সিটি করপোরেশনের প্রতিনিধি ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট থাকে। ভাড়ার চার্ট অনুযায়ী তা আদায় হচ্ছে কি না, ভাড়া দুই থেকে তিন গুণ বেশি আদায় করা হচ্ছে কি না অথবা বাড়তি ভাড়া নেওয়া হচ্ছে কি না এগুলো দেখভালের দায়িত্ব সার্ভিলেন্স টিমের।

এই কর্মকর্তা আরো বলেন, পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ আদালত থাকে। যেখানে অযাচিতভাবে ভাড়া আদায় করা হয় এমন কোনো অভিযোগ এলে সেখানে কিন্তু কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা গ্রহণ করে।
বাড়তি ভাড়া নিয়ে নিয়মের ব্যত্যয় ঘটালে সার্ভিলেন্স টিম প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।

লোকাল বাসগুলো যাত্রী নিয়ে ঈদের সময় ঢাকার বাইরে যায় এ বিষয়ে পুলিশ ব্যবস্থা নেবে কি না জানতে চাইলে বলেন, অনেক সময় তাদের আটকানো যায় না। কিন্তু আটকানো না গেলেও আমরা তাদের বিরুদ্ধে ভিডিও মামলা করতে পারব। পরে যেন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া যায়।
আমরা যদি তাদের রুট পারমিট ও ফিটনেসবিহীন গাড়ি শনাক্ত করতে পারি আইন অনুযায়ী যে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা সেই ব্যবস্থাও নিতে পারব।

মুনিবুর রহমান বলেন, ঈদের ছুটি শুরুর আগে বিশেষ করে এক থেকে দুই দিন আগে সড়কে চাপ বাড়ে। তখন অধিকাংশ শ্রমিক ঢাকা ছাড়ে। তাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি থাকেন পোশাক শ্রমিকরা। তারাও ঈদের এক থেকে দুই দিন আগে বাড়িতে যেতে চান।
আর ঈদ যাত্রার ট্রিপ নিয়ে যেসব গাড়ি ঢাকা ছেড়ে যায়, তারা আবার সঠিক সময়ে ফিরে আসতে পারে না। আর এই সুযোগটা নেয় লোকাল বাসগুলো। শ্রমিকরা অনেকটা জোর-জবরদস্তি করে এসব লোকাল বাসে করে গ্রামে যায়।

জননেত্রী শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে বঙ্গমাতা সাংস্কৃতিক জোটের আলোচনা সভা
                                  

জননেত্রী শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে তোপখানা রোডে  বঙ্গমাতা সাংস্কৃতিক জোট কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত আলোচনা সভায় সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মির্জা সাখাৎয়াত হোসেনে এর সভাপতিত্বে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক অনুপ কুমার বড়ুয়ার পরিচালনায় উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ সরকার আলম ,এস বিজয় ,সাংগঠনিক সম্পাদক জেসমিন শিলা ,দপ্তর সম্পাদক মেজবা উদ্দিন, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক জয়নুল আবেদীন, অর্থ সম্পাদক আরেফিন হক আলভী, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক শাকের আহমেদ সহ সংগঠনের বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে দিকনির্দেশনা মূলক বক্তব্য রাখেন এবং শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে বঙ্গমাতা সাংস্কৃতিক জোটের প্রতিটি জেলা উপজেলায় সংগঠনগুলোকে উন্নয়নের অংশীদারিত্ব হিসেবে প্রচার করার জন্য অনুরোধ জানান।

নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান
                                  

বাংলাদেশের পরবর্তী সেনাপ্রধান হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উর-জামানকে। মঙ্গলবার আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‘আগামী ২৩ জুন অপরাহ্ন থেকে বিএ-২৯০২ লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান, ওএসপি, এসজিপি, পিএসসি, চিফ অব জেনারেল স্টাফ (সিজিএস)-কে জেনারেল পদবিতে পদোন্নতি প্রদানপূর্বক ওই তারিখ অপরাহ্ন থেকে ৩ বছরের জন্য সেনাবাহিনী প্রধান পদে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।’

এনআইডি সেবা নিতে আসা জনগণের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করবেন না: সিইসি
                                  

এনআইডি সেবা নিতে আসা জনগণের সঙ্গে যেন দুর্ব্যবহার করা না হয় সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সতর্ক করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল।

তিনি বলেন, জাতীয় পর্যায়ে এনআইডির গুরুত্ব এখন অপরিসীম। আমাদের ভোটার তালিকাও এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ডিজিটালাইজড হয়ে গেছে। জনগণ এলে তাকে সেবা দিতে যেন বিলম্ব না হয়। আমি সরকারি কর্মচারী, তাদের যেন হয়রানি না করি, দুর্ব্যবহার না করি, সেটা নিশ্চিত রাখতে হবে।


সোমবার নির্বাচনী প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের সম্মেলন কক্ষে ‘এনআইডি সংশোধনের আবেদন ক্যাটাগরিকরণ ও দ্রুত নিষ্পত্তি’ শীর্ষক কর্মশালায় এসব কথা বলেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার।

তিনি বলেন, এনআইডি এখনো শতভাগ সেটেলড ডাউন হয়েছে এটা আমার কাছে মনে হয় না। অনেকে কমপ্লেন করেন যে, পরিবর্তন, সংশোধন করতে হবে। আবার সংশোধনের কিছু কিছু ক্ষেত্রে যারা আবেদনকারী তাদের কারণে ভুল হয়ে থাকে। আবার কিছু কিছু ক্ষেত্রে তথ্যগুলো আমি যখন লেখছি, তখন সঠিকভাবে লেখছি না। কিছু কিছু সংকট আমাদের আছে। এনআইডি ব্যবস্থাপনা একটি হাইলি কমপ্লিকেটেড।


সিইসি আরও বলেন, বিয়ের পর অনেক সময় স্বামীর নাম পরিবর্তন করতে হয়। কোনো কোনো দেশে এটা অপরিহার্য হিসেবে প্রয়োজন হয়। তাই স্বামীর নামটা অরিজিনালি থাকা উচিত। তাহলে বিড়ম্বনা হবে না।

এনআইডিতে ঠিকানা পরিবর্তনের বিষয়টি উল্লেখ করে সিইসি বলেন, আমি জানি স্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তন হয় না। তবে অস্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তন হয়। আমার হয়তো অস্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তন হয় না, কিন্তু বস্তিতে যারা থাকেন তাদের ঘন ঘন অস্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তন করতে হয়, তাহলে কী এনআইডি সংশোধন করতে পারবো, সে দিকটাও দেখতে হবে।

তিনি বলেন, বেওয়ারিশ লাশ শনাক্তকরণ, ব্যাংক ও আর্থিক খাতে এনআইডির ব্যবহার হচ্ছে। এটা আমাদের আধুনিক ব্যবস্থাপনা সুশৃঙ্খল ব্যবস্থাপনায় নিয়ে এসেছে। এর প্রয়োজন ছিল।

সিইসি আরও বলেন, এনআইডি নিয়ে যে ম্যানিপুলেশন হচ্ছে, প্রায়ই শুনি এ ওর নাম নিয়ে ভিন্ন পরিচয় ধারণ করে এনআইডি নিয়েছে। বিভিন্ন অপরাধে সম্পৃক্ত হচ্ছে। অনেকে বাবার নাম পরিবর্তন করে চাচার নাম নিয়ে সহায়-সম্পত্তি দখল করে ফেলছে। এই জিনিসগুলো গভীরভাবে চিন্তা-ভাবনা করে কোনো একটা উপায় বের করতে হবে। যাতে এ ধরনের ঘটনা না ঘটে। এ ধরনের ঘটনা ঘটলে আমরাও দোষী হয়ে যাচ্ছি।

এনআইডি সংশোধনের ক্ষেত্রে স্ট্যান্ডার্ড প্রসিডিউর থাকে উল্লেখ করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, কেউ যদি ১০টা দেশের নাগরিক হন এবং বাংলাদেশের নাগরিক হন তাহলে তিনি এনআইডি পাবেন। দ্বৈত নাগরিকত্বের অজুহাতে কাউকে এনআইডি দেওয়া থেকে বাদ রাখা যাবে না। যদি তিনি কোনোভাবে বাংলাদেশের নাগরিক হন, সনদের প্রয়োজন নেই তাকে এনআইডি দিতে হবে।

এনআইডি সেবা নিতে আসা জনগণের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করবেন না: সিইসি
                                  

এনআইডি সেবা নিতে আসা জনগণের সঙ্গে যেন দুর্ব্যবহার করা না হয় সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সতর্ক করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল।

তিনি বলেন, জাতীয় পর্যায়ে এনআইডির গুরুত্ব এখন অপরিসীম। আমাদের ভোটার তালিকাও এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ডিজিটালাইজড হয়ে গেছে। জনগণ এলে তাকে সেবা দিতে যেন বিলম্ব না হয়। আমি সরকারি কর্মচারী, তাদের যেন হয়রানি না করি, দুর্ব্যবহার না করি, সেটা নিশ্চিত রাখতে হবে।


সোমবার নির্বাচনী প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের সম্মেলন কক্ষে ‘এনআইডি সংশোধনের আবেদন ক্যাটাগরিকরণ ও দ্রুত নিষ্পত্তি’ শীর্ষক কর্মশালায় এসব কথা বলেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার।

তিনি বলেন, এনআইডি এখনো শতভাগ সেটেলড ডাউন হয়েছে এটা আমার কাছে মনে হয় না। অনেকে কমপ্লেন করেন যে, পরিবর্তন, সংশোধন করতে হবে। আবার সংশোধনের কিছু কিছু ক্ষেত্রে যারা আবেদনকারী তাদের কারণে ভুল হয়ে থাকে। আবার কিছু কিছু ক্ষেত্রে তথ্যগুলো আমি যখন লেখছি, তখন সঠিকভাবে লেখছি না। কিছু কিছু সংকট আমাদের আছে। এনআইডি ব্যবস্থাপনা একটি হাইলি কমপ্লিকেটেড।


সিইসি আরও বলেন, বিয়ের পর অনেক সময় স্বামীর নাম পরিবর্তন করতে হয়। কোনো কোনো দেশে এটা অপরিহার্য হিসেবে প্রয়োজন হয়। তাই স্বামীর নামটা অরিজিনালি থাকা উচিত। তাহলে বিড়ম্বনা হবে না।

এনআইডিতে ঠিকানা পরিবর্তনের বিষয়টি উল্লেখ করে সিইসি বলেন, আমি জানি স্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তন হয় না। তবে অস্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তন হয়। আমার হয়তো অস্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তন হয় না, কিন্তু বস্তিতে যারা থাকেন তাদের ঘন ঘন অস্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তন করতে হয়, তাহলে কী এনআইডি সংশোধন করতে পারবো, সে দিকটাও দেখতে হবে।

তিনি বলেন, বেওয়ারিশ লাশ শনাক্তকরণ, ব্যাংক ও আর্থিক খাতে এনআইডির ব্যবহার হচ্ছে। এটা আমাদের আধুনিক ব্যবস্থাপনা সুশৃঙ্খল ব্যবস্থাপনায় নিয়ে এসেছে। এর প্রয়োজন ছিল।

সিইসি আরও বলেন, এনআইডি নিয়ে যে ম্যানিপুলেশন হচ্ছে, প্রায়ই শুনি এ ওর নাম নিয়ে ভিন্ন পরিচয় ধারণ করে এনআইডি নিয়েছে। বিভিন্ন অপরাধে সম্পৃক্ত হচ্ছে। অনেকে বাবার নাম পরিবর্তন করে চাচার নাম নিয়ে সহায়-সম্পত্তি দখল করে ফেলছে। এই জিনিসগুলো গভীরভাবে চিন্তা-ভাবনা করে কোনো একটা উপায় বের করতে হবে। যাতে এ ধরনের ঘটনা না ঘটে। এ ধরনের ঘটনা ঘটলে আমরাও দোষী হয়ে যাচ্ছি।

এনআইডি সংশোধনের ক্ষেত্রে স্ট্যান্ডার্ড প্রসিডিউর থাকে উল্লেখ করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, কেউ যদি ১০টা দেশের নাগরিক হন এবং বাংলাদেশের নাগরিক হন তাহলে তিনি এনআইডি পাবেন। দ্বৈত নাগরিকত্বের অজুহাতে কাউকে এনআইডি দেওয়া থেকে বাদ রাখা যাবে না। যদি তিনি কোনোভাবে বাংলাদেশের নাগরিক হন, সনদের প্রয়োজন নেই তাকে এনআইডি দিতে হবে।

মোদিকে বাংলাদেশে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন শেখ হাসিনা : পররাষ্ট্রমন্ত্রী
                                  

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ সাংবাদিকদের এ কথা জানান। ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুস্তাফিজুর রহমান এবং প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব নাঈমুল ইসলাম খান এ সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন।

ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লির আইটিসি মৌর্য হোটেলে গতকাল রবিবার রাতে মন্ত্রী হাছান সাংবাদিকদের বলেন, পরপর তৃতীয়বারের মতো ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নরেন্দ্র মোদির শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সাথে একান্ত সাক্ষাতে মিলিত হন।

এ সময় তিনি নরেন্দ্র মোদি এবং এনডিএ জোটকে নির্বাচনে বিজয়ের জন্য আবারও অভিনন্দন দেন এবং প্রধানমন্ত্রী মোদিকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান।

রাষ্ট্রপতি ভবনে এ সাক্ষাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দু`দেশের বন্ধনকে আরও দৃঢ় করতে নরেন্দ্র মোদির নতুন সরকারের সাথে কাজ করার আন্তরিক আগ্রহ ব্যক্ত করেন, জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় উন্নীত হয়েছে এবং নিকটতম প্রতিবেশী হিসেবে বাংলাদেশ ও ভারতের অনেক কাজের সুযোগ রয়েছে। মানুষে মানুষে সংযোগ বৃদ্ধিতে যোগাযোগ অবকাঠামো উন্নয়নসহ উভয় দেশের আরও উন্নতিকল্পে আমাদের একযোগে কাজ করে যেতে হবে, বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

এর আগে ভারতের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ লোকসভার ১৮তম নির্বাচনে ৫৪৩ আসনের ২৯৩টিতে বিজয়ী এনডিএ জোটের নেতা নরেন্দ্র মোদির পরপর তৃতীয়বারের মতো ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে অন্যতম শীর্ষ বিশ্বনেতা হিসেবে আমন্ত্রিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শনিবার বিকেলে দিল্লি পৌঁছান।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব ও রাষ্ট্রদূত মুক্তেশ পরদেশী বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানান।

রবিবার সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতি ভবনে সারাবিশ্ব থেকে আগত প্রায় ৮ হাজার অতিথির সাথে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী। তার কন্যা ও বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক সায়মা ওয়াজেদ, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এবং প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন।
 

আজ সোমবার বিকালে প্রধানমন্ত্রীর দিল্লি থেকে ঢাকা রওনা হওয়ার কথা রয়েছে।

সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত
                                  

কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলায় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে মো. আনোয়ার হোসেন (৫০) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।
গুগল নিউজে ফলো করুন আরটিভি অনলাইন

রোববার (৯ জুন) সকাল ৮টায় উপজেলার বাকশীমুল ইউনিয়নের জামতলা এলাকায় ভারতীয় সীমান্তে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আনোয়ার হোসেন বাকশীমুল ইউনিয়নের মীরপুর গ্রামের মরহুম চারু মিয়ার ছেলে।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য মো. আবুল কাশেম বলেন, জামতলা সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে মো. আনোয়ার হোসেন নিহত হয়েছেন। মরদেহ কাঁটাতার-সংলগ্ন এলাকায় রয়েছে।

বুড়িচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু হাসনাত খন্দকার বলেন, মরদেহটি ভারতীয় সীমান্তে পড়ে আছে। বিজিবি-বিএসএফের পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে মরদেহ নিয়ে আসা হতে পারে।

ঢামেকে নবজাতক চুরি, তথ্য সংগ্রহে নিষেধাজ্ঞা পরিচালকের
                                  
কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ গণমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দিবে না বলে একটি চিঠি ইস্যু করেছেন হাসপাতালে ঢামেক পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো: আসাদুজ্জামান।
 
মঙ্গলবার(০৪ জুন)ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ আসাদুজ্জামানের স্বাক্ষরিত( স্মারক নং- ঢামেকহা/প্রশা/ ৭১৩০/১১৪)এক চিটিতে এই আদেশ দেওয়া হয়।
 
আদেশে বলা হয়েছে, সংশ্লিষ্ট সকলের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আগত বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক, প্রিন্ট মিডিয়া প্রতিনিধির  সাথে অত্র হাসপাতালে কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ কর্তৃপক্ষের অনুমতি ব্যতিত সাক্ষাতকার বা বক্তব্য প্রদান থেকে বিরত থাকার জন্য অনুরোধ করা হলো। এই কপিগুলো হাসপাতাল সহ ১৩ টি বিভাগে পাঠানো হয়েছে।
 
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই বলেন, এর আগেও হাসপাতালে বেশ কয়েকজন পরিচালক এসেছেন তারা এ ধরনের কোন চিঠি ইস্যু হয়নি। গণমাধ্যমের সাথে সবাই কথা বলে তবে কেন তিনি এ ধরনের চিঠি ইস্যু করলেন সে বিষয়টি আমরা বলতে পারছি না এটার জবাব তিনিই ভালো দিতে পারবেন।
 
উল্লেখ্য, যেদিন তিনি চিঠি ইস্যু করেন সেই দিনে ঢাকা মেডিকেল থেকে সদ্য ভুমিষ্ট হওয়া নবজাতক চুরির অভিযোগ পাওয়া যায় এই ঘটনায় ভুক্তভোগীর বাবা ও একটি মামলা দায়ের করেন শাহবাগ থানায়। তবে তিনি ওইদিন বাচ্চা চুরির বিষয় নিয়ে সাংবাদিকদের ক্যামেরার সামনে কোন কথা বলেননি।
সিম কিনতে দিতে হবে ৩০০ টাকা ট্যাক্স
                                  

নতুন অর্থবছরে সিম ট্যাক্স ৩০০ টাকা প্রস্তাব করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। বাজেট প্রস্তাবে এবার প্রতিটি সিমকার্ড বা ই-সিম সরবরাহের বিপরীতে বিদ্যমান মূসকের পরিমাণ ২০০ টাকার পরিবর্তে ৩০০ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়। দেশে সর্বপ্রথম ৮০০ টাকা দিয়ে এই সিম ট্যাক্সের যাত্রা।

এরপর ২০১১-১২ অর্থবছরে তা ২০০ টাকা কমিয়ে ৬০০ টাকা করা হয়। পরে এই ট্যাক্স অর্ধেক কমে আসে ৩০০ টাকায়। এরপর ২০১৫-১৬ অর্থবছর থেকে সিম ট্যাক্স ১০০ টাকা করে শুরু হয়।  সে বছর বাজেটে ২০০ টাকা কমানো হয় এই ট্যাক্স।
তারপর গত কয়েক বছর ধরে এই ট্যাক্স ছিল ১০০ টাকা। পরে ২০১৯-২০ অর্থবছরে সিম ট্যাক্স দ্বিগুণ করে ২০০ টাকা করা হয়।

ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস আগামীকাল
                                  



আগামীকাল ৭ জুন ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস। ১৯৬৬ সালের এই দিনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষিত বাঙালি জাতির মুক্তির সনদ ৬ দফা দাবির পক্ষে দেশব্যাপী তীব্র গণআন্দোলনের সূচনা হয়।

এই দিনে আওয়ামী লীগের ডাকা হরতালে টঙ্গি, ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জে তৎকালীন পুলিশ ও ইপিআর-এর গুলিতে মনু মিয়া, শফিক ও শামসুল হকসহ ১১ জন বাঙালি শহীদ হন। এরপর থেকেই বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আপোসহীন সংগ্রামের ধারায় ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানের দিকে এগিয়ে যায় পরাধীন বাঙালি জাতি।

প্রতিবছরের মত এবারও যথাযোগ্য মর্যাদায় বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিবসটি পালিত হবে। ঐতিহাসিক এই দিনটি উপলক্ষে আওয়ামী লীগসহ অন্যান্য সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

আওয়ামী লীগের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে আগামীকাল সকাল ৬টা ৩০ মিনিটে বঙ্গবন্ধু ভবন, কেন্দ্রীয় কার্যালয় ও দেশব্যাপী আওয়ামী লীগ দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন।  সকাল ৮ টায় বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হবে। এছাড়াও  বিকাল সাড়ে তিনটায় তেজগাঁওস্থ ঢাকাজেলা আওয়ামী লীগের কার্যলয়ে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এতে সভাপতিত্ব করবেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৬৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি তাসখন্দ চুক্তিকে কেন্দ্র করে লাহোরে অনুষ্ঠিত সম্মেলনের সাবজেক্ট কমিটিতে ৬-দফা উত্থাপন করেন এবং পরের দিন সম্মেলনের আলোচ্য সূচিতে যাতে এটি স্থান পায় সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করেন। কিন্তু, এই সম্মেলনে বঙ্গবন্ধুর দাবির প্রতি আয়োজক পক্ষ গুরুত্ব প্রদান করেনি। তারা এই দাবি প্রত্যাখ্যান করে। প্রতিবাদে বঙ্গবন্ধু সম্মেলনে যোগ না দিয়ে লাহোরে অবস্থানকালেই ৬-দফা উত্থাপন করেন। এই নিয়ে তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানের বিভিন্ন খবরের কাগজে বঙ্গবন্ধুকে বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা বলে চিহ্নিত করা হয়। পরে ঢাকায় ফিরে বঙ্গবন্ধু ১৩ মার্চ ৬-দফা এবং এই ব্যাপারে দলের অন্যান্য বিস্তারিত কর্মসূচি আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদে অনুমোদন করিয়ে নেন।

৬-দফার মূল বক্তব্য ছিল প্রতিরক্ষা ও পররাষ্ট্র বিষয় ছাড়া সকল ক্ষমতা প্রাদেশিক সরকারের হাতে থাকবে। পূর্ববাংলা ও পশ্চিম পাকিস্তানে দু’টি পৃথক ও সহজ বিনিময়যোগ্য মুদ্রা থাকবে। সরকারের কর, শুল্ক ধার্য ও আদায় করার দায়িত্ব প্রাদেশিক সরকারের হাতে থাকাসহ দুই অঞ্চলের অর্জিত বৈদেশিক মুদ্রার আলাদা হিসাব থাকবে এবং পূর্ববাংলার প্রতিরক্ষা ঝুঁকি কমানোর জন্য এখানে আধা-সামরিক বাহিনী গঠন ও নৌবাহিনীর সদর দফতর স্থাপন করতে হবে।
বঙ্গবন্ধু ঘোষিত ৬-দফা দাবির মুখে পাকিস্তানের তৎকালীন সামরিক শাসক আইয়ুব খান বিচলিত হয়ে পড়েন। তিনি হুমকি দিয়ে বলেন, ৬-দফা নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে অস্ত্রের ভাষায় উত্তর দেয়া হবে।

এদিকে, ৬-দফা কর্মসূচি জনগণের মাঝে পৌঁছে দেয়ার জন্য বঙ্গবন্ধ শেখ মুজিবুর রহমানসহ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ সমগ্র পূর্ববাংলা সফর করেন এবং ৬ দফাকে বাঙালির বাঁচার দাবি হিসেবে অভিহিত করেন। ফলে,শাসকগোষ্ঠী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ অন্যান্য নেতাকে বিভিন্নভাবে হয়রানি করে। যশোর, ময়মনসিংহ ও সিলেটসহ অন্যান্য কয়েকটি স্থানে ৬ দফার পক্ষে প্রচারকালে বঙ্গবন্ধু গ্রেফতার হন।

ছয় দফা দাবি আদায় প্রসঙ্গে ‘কারাগারের রোজনামচা’ গ্রন্থে বঙ্গবন্ধু লিখেছেন, ‘আওয়ামী লীগ কর্মীরা যথেষ্ট নির্যাতন ভোগ করেছে। ছয় দফা দাবি যখন তারা দেশের কাছে পেশ করেছে তখনই প্রস্তুত হয়ে গিয়েছে যে তাদের দুঃখ কষ্ট ভোগ করতে হবে। এটা ক্ষমতা দখলের সংগ্রাম নয়, জনগণকে শোষণের হাত থেকে বাঁচাবার জন্য সংগ্রাম।’

তিনি আরও লিখেছেন, ‘আমার বিশ্বাস আছে আওয়ামী লীগের ও ছাত্রলীগের নিঃস্বার্থ কর্মীরা তাদের সাথে আছে। কিছু সংখ্যক শ্রমিক নেতা, যারা সত্যই শ্রমিকদের জন্য আন্দোলন করে-তারাও নিশ্চয়ই সক্রিয় সমর্থন দেবে। এত গ্রেপ্তার করেও এদের দমাইয়া দিতে পারে নাই।’

পরবর্তী সময়ে ঐতিহাসিক ৬ দফাভিত্তিক নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনই ধাপে ধাপে বাঙালির স্বাধীনতা সংগ্রামে পরিণত হয়। এই দাবির সপক্ষে বাঙালি জাতির সর্বাত্মক রায় ঘোষিত হয় ১৯৭০ সালের ঐতিহাসিক সাধারণ নির্বাচনের মধ্যদিয়ে। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে বাঙালিরা বিজয়ী হয়।
অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধুর দলকে জনগণ বিজয়ী করলেও স্বৈরাচারী পাকিস্তানের শাসকরা বিজয়ী দলকে সরকার গঠন করতে না দিলে আবারো বঙ্গবন্ধু জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে স্বাধীনতার পক্ষে আন্দোলন শুরু করেন। এরই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ১৯৭১ সালে সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অভ্যুদয় ঘটে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের।

দুদকে সময় চেয়ে বেনজীরের আবেদন
                                  

জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধানে পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদকে ৬ জুন তলব করেছিল দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। তবে আইনজীবীর মাধ্যমে তিনি সময় চেয়েছেন বলে জানা গেছে।

বুধবার (৫ জুন) দুদক কমিশনার জহুরুল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, আমি সঠিকভাবে জানি না। তবে, শুনতে পেরেছি, তিনি (বেনজীর) সময় চেয়ে আবেদন করেছেন। যদিও এটা অনুসন্ধান টিমের বিষয়, এটা তাদের বিষয়। তারা ভালো জানবেন। কারণ, এ বিষয়টি কমিশন পর্যন্ত আসে না।

দুদক কমিশনার আরও বলেন, আইনে সুযোগ আছে সময় চাওয়ার। সময় চাইলে দুদক ১৫ দিন সময় দিতে পারবে।

গত ২২ এপ্রিল বেনজীর, তার স্ত্রী জিসান মির্জা, দুই মেয়ে ফারহিন রিশতা বিনতে বেনজীর ও তাশিন রাইসা বিনতে বেনজীরের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধান শুরু করে দুদক। সংস্থাটির প্রধান কার্যালয়ের উপপরিচালক হাফিজুল ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বিশেষ অনুসন্ধান টিম অভিযোগের বিষয়ে অনুসন্ধান করছে। টিমের অন্য দুই সদস্য হলেন, সহকারী পরিচালক নিয়ামুল আহসান গাজী ও জয়নাল আবেদীন।

এর আগে, গত ৩১ মার্চ ‘বেনজীরের ঘরে আলাদিনের চেরাগ’ ও ৩ এপ্রিল ‘বনের জমিতে বেনজীরের রিসোর্ট’ শিরোনামে একটি দৈনিক পত্রিকায় প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এতে সাবেক আইজিপি বেনজীর ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ উঠে আসে। অভিযোগ যাচাই-বাছাই শেষে অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয় দুদক।

আগামীকাল ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা
                                  

স্বাধীন বাংলাদেশের ৫৩তম বাজেট উত্থাপন হতে যাচ্ছে আগামীকাল। অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী আগামী ২০২৪-২৫ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থাপন করবেন। এটি হবে তাঁর প্রথম বাজেট ঘোষণা এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের টানা চতুর্থ মেয়াদের প্রথম বাজেট। আগামীকাল বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টায় সংসদে তিনি প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থাপন করবেন।
অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে প্রস্তাবিত বাজেটের অকার হবে ৭ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকা। বাজেটে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা থাকছে ৫ লাখ ৪১ হাজার কোটি টাকা। বাকি ২ লাখ ৫৬ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেয়ার লক্ষ্যমাত্রা থাকবে। ২ লাখ ৬৫ হাজার কোটি টাকার বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) ইতোমধ্যে অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

এবারের বাজেট বক্তব্যের শিরোনাম করা হয়েছে ‘সুখী, সমৃদ্ধ, উন্নত ও স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে অঙ্গীকার’। সাধারণত বাজেট অধিবেশন দীর্ঘ হয়। আগামী ৩০ জুন বাজেট পাস হওয়ার কথা রয়েছে।

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে বেশ কিছু নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য করছাড় সুবিধা পেতে পারে বলে জানিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড সূত্র।

আসন্ন বাজেট পরিকল্পনা প্রসঙ্গে সম্প্রতি অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খান বাসসকে বলেন, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ, রপ্তানিপণ্যের বৈচিত্র্যকরণ, কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও প্রান্তিক মানুষের সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি এবারের বাজেটে অগ্রাধিকারে থাকবে। বাজেটে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ অগ্রাধিকার পাচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, নিম্ন আয়ের মানুষকে স্বস্তি দিতে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় উপকারভোগীর সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, যেসব খাত দীর্ঘদিন কর অবকাশ সুবিধা পেয়ে আসছে, সেসব খাত থেকে এবারে কর অব্যাহতির সুবিধা উঠিয়ে দেয়ার বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ যে নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছিলো, সেই লক্ষ্য পূরণকে সর্বাগ্রে জোর দেয়া হচ্ছে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী।

অর্থ মন্ত্রণালয় আজ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে-অর্থ বিভাগের ওয়েবসাইট www.mof.gov.bd এবং জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ওয়েবাসইট www.nbr.gov.bd- এ বাজেটের সব তথ্যাদি ও গুরুত্বপূর্ণ দলিল যেকোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান পড়তে পারবেন এবং ডাউনলোডও করা যাবে। এছাড়া দেশ ও দেশের বাইরে থেকে budgetfeedback@finance.gov.bd –এ ইমেলের মাধ্যমে বাজেট সম্পর্কে মতামত ও সুপারিশ পাঠাতে পারবেন।

সরকার দেশ, মানুষ ও প্রকৃতিকে রক্ষা করতে চায় : প্রধানমন্ত্রী
                                  

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে দেশ, দেশের জনগণ ও প্রকৃতিকে রক্ষা করাই তাঁর সরকারের লক্ষ্য উল্লেখ করে পরিবেশ রক্ষায় বাসা-বাড়ি, চারপাশ ও অফিসের ফাঁকা জায়গায় গাছের চারা রোপণের আহ্বান জানিয়েছেন।
তিনি বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে, প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে দেশ, দেশের জনগণ এবং প্রকৃতিকে সুরক্ষিত রাখা।’

প্রধানমন্ত্রী আজ সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘বিশ^ পরিবেশ দিবস ও পরিবেশ মেলা-২০২৪’এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে একথা বলেন।
পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ‘জাতীয় বৃক্ষরোপন অভিযান ও বৃক্ষমেলা-২০২৪’ এর ও উদ্বোধন করেন।
তিনি বলেন, আমাদের সুন্দর জীবন ও সুস্বাস্থ্যের জন্য সুন্দর পরিবেশ দরকার। কাজেই সেদিকে সকলেই সচেতন হোন সেটাই আমি চাই।
তিনি বলেন, আমার লক্ষ্যই হচ্ছে প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে দেশ, দেশের মানুষ এবং প্রকৃতিকে সুরক্ষিত রাখা।

সরকার প্রধান এই সময় দেশবাসীর প্রতি বৃক্ষরোপনের আহবান পুনর্ব্যক্ত করে বলেন, যারা এখানে উপস্থিত আছেন এবং এর বাইরেও সকলকে অনুরোধ করবো প্রত্যেকে যেখানেই পারেন অন্তত তিনটি করে গাছ লাগান। একটি ফলজ, একটি বনজ এবং একটি ওষুধি গাছ। ফলের গাছ লাগালে ফল খেতে পারবেন, আর বনজ গাছ লাগালে সেটা বড় হলে বিক্রি করে টাকা পাবেন। ভালো টাকা পাওয়া যায় এখন। আর ওষুধি গাছ সেটা ওষুধ তৈরি বা বিভিন্ন কাজে লাগে।
তিনি বলেন, সকলে যদি গাছ লাগায়, শুধু আমাদের বাড়ি ঘর না, কর্মস্থল, অফিস আদালত স্কুল কলেজ মসজিদ মাদ্রাসার প্রাঙ্গনে যেখানেই খালি জায়গা আছে, সেখানে গাছ লাগান। আপনারা যদি গাছ লাগান এতো গরমে গাছের নীচে গিয়ে বসলে বেশ ঠান্ডাএবং আরামদায়ক ছায়া পাবেন।

ছাদ বাগান করাসহ গাছ লাগানোর পরামর্শ দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, নিজের হাতে গাছ লাগানোর তৃপ্তিটাই আলাদা। তাঁর সংগঠন থেকে সেই ’৮৪-৮৫ সাল থেকেই বৃক্ষরোপন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।
সরকার প্রধান বলেন, বৃক্ষরোপন, বন সম্প্রসারণ ও বন সংরক্ষণের বিষয়টি অতীতে উপেক্ষিত থাকায় অতীতে দেশে বৃক্ষ আচ্ছাদনের পরিমাণ যেথানে ছিল ১৭ ভাগ এখন তা ২৫ ভাগের কাছাকাছিতে উন্নীত হয়েছে। বিভিন্ন নার্সারীতে ১১ কেটি ২১ লাখ চারা বিক্রয়-বিতরণ, ২ লাখ ১৭ হাজার ৪০২ হেক্টরে ব্লক বাগান তৈরি, ৩০ হাজার ২৫২ কি.মি. সরু বাগান সৃজনের কাজ ইতোমধ্যে তাঁর সরকার করে যাচ্ছে।

তাছাড়া, শুধু বনেই বনায়ন নয়, যখনই তাঁর সরকার রাস্তা-ঘাট তৈরি করছে বা স্থাপনা নির্মাণ করছে সেখানে একটি সুনির্দিষ্ট নির্দেশ থাকে যে কী পরিমাণ বৃক্ষ রোপন করতে হবে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, যে কোন উন্নয়ন পরিকল্পনা যখন আমরা নিই সেখানে অবশ্যই আমাদের পরিবেশ রক্ষার বিষয়টি এবং যদি কোথাও আমাদের জায়গার জন্য গাছ কাটা পড়ে তাহলে যে পরিমাণ গাছ কাটা হবে তার তিনগুণ গাছ লাগানোর শর্তটি আমরা জুড়ে দেই।

তিনি বলেন, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের শ্লোগান হোক ‘সুস্থ পরিবেশ স্মার্ট বাংলাদেশ’।

প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের মাঝে ‘বঙ্গবন্ধু অ্যাওয়ার্ড ফর ওয়াইল্ড লাইফ কনজারভেশন’ (২০২৩-২০২৪), ‘জাতীয় পরিবেশ পদক’ (২০২৩), ‘বৃক্ষরোপনে প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার’ ২০২২-২০২৩) এবং উপকারভোগীদের মাঝে ‘সামাজিক বনায়নের লভ্যাংশ’-এর চেক প্রদান করেন।
পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি দীপংকর তালুকদার এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. ফারহিনা আহমেদ অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।
অনুষ্ঠানে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সার্বিক কার্যক্রমের ওপর একটি ভিডিও প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রকৃতি আপন খেয়ালে চলে। এবারের ঘুর্ণিঝড় রিমেলের মতো এতো দীর্ঘস্থায়ী ঘুর্ণিঝড় এবং জলোচ্ছ্বাস অতীতে আর কখনো দেখি নাই। তিনবার জলোচ্ছ্বাসের ধাক্কা দিয়েছে এবং দীর্ঘসময় অবস্থান করছিল। একদিকে পূর্ণিমা আর একদিকে জোয়ারের সংমিশ্রনে এটি ভয়ঙ্কর রুপ নেয়। কিন্তু আল্লাহর রহমতে আমাদের মানুষদের আমরা বাঁচানোর জন্য ৮ লাখ মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে আনতে সক্ষম হয়েছি।

শেখ হাসিনা বলেন, তাঁর সরকার গৃহহীনদের মাঝে বিনামূল্যে ঘর বিতরণের অংশ হিসেবে উপকূলীয় এলাকায় দুর্যোগ সহনশীল ঘর নির্মাণ করে দিয়েছে। যে গুলো ঘুর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি। এমনকী ভাষাণচরে রোহিঙ্গাদের জন্য যে ঘর করে দিয়েছে সেগুলোও ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘অ্যাডাপটেশন এন্ড মিটিগেশন প্লান’ করে এবং কারো মুখাপেক্ষী না হয়ে নিজস্ব অর্থায়নে জলবায়ু ট্রাস্ট ফান্ড করে নিজেদের মত করে তাঁর সরকার মানুষকে রক্ষার উদ্যোগ নিয়েছে। যেটা আজকে বিশে^র অনেক দেশ অনুসরণ করছে।

তিনি অতিমাত্রায় রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ব্যবহার না করারও পরামর্শ দেন।
সরকার প্রধান বলেন, আমরা চাই এই প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে আমাদের দেশ ও দেশের মানুষকে রক্ষা করতে এবং সাথে সাথে বৃক্ষায়ন এবং আমাদের খাদ্য উৎপাদন বাড়িয়ে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে। তাছাড়া বিশাল সমুদ্র অঞ্চল অর্জন করায় তাঁর সরকার উপকূলীয় এলাকাগুলোর উন্নয়নেও ব্যাপক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।

প্রাকৃতিক দুর্যোগে আমাদের নাচারাল ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবন প্রকৃতির বিরুদ্ধে ঢালের কাজ করে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এটা প্রকৃতিগত ভাবেই আমাদের ঝড়, ঝাঞ্ঝা এবং জলোচ্ছ্বাস থেকে রক্ষা করে।
শেখ হাসিনা বলেন, কাজেই সুন্দরবনকে আরো সুরক্ষিত করা দরকার। ইতোমধ্যে এর কার্বন মজুদের পরিমাণও বৃ্িদ্ধ পেয়েছে। ২০০৯ সালে সুন্দরবনে যে কার্বন মজুদের পরিমাণ ছিল ১০৬ মিলিয়ন মেট্রিক টন যা ২০১৯ সালে হয়েছে ১৩৯ মিলিয়ন মেট্রিক টন।

পরিবেশ এবং প্রতিবেশ রক্ষা করা প্রতিটি নাগরিকের দায়িত্ব উল্লেখ করে পরিবেশ ও দেশের উপকূলীয় অঞ্চলকে প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং ঘুর্ণিঝড় থেকে রক্ষায় জাতির পিতার বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতার পদাংক অনুসরণ করেই আমরা ব্যাপকভাবে মুজিব কেল্লা এবং ঘুর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র নির্মাণ করে যাচ্ছি এবং পরিবেশ ও বনজ সম্পদ রক্ষায় বিভিন্ন পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করছি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের বনজ সম্পদ বৃদ্ধি এবং বন পুন:প্রতিষ্ঠার জন্য এই বছর বর্ষার মওসুমে ৮ কোটি ৩৮ লাখ চারা রোপন করা হবে। সেভাবেই আমরা পদক্ষেপ নিচ্ছি। আর মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে দলের পক্ষ থেকে আমরা এক কোটি বৃক্ষরোপনের পদক্ষেপ নিয়েছিলাম যার থেকে অনেক বেশি বৃক্ষ রোপন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ছাত্রলীগ, যুবলীগসহ অন্যান্য সংগঠন বৃক্ষরোপনের কর্মসূচি শুরু করেছে।

এক সময় সামাজিক বনায়নের টাকা সাধারণ মানুষ পেত না উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, তাঁর সরকার সামাজিক বনায়নের লভ্যাংশ ৩০ ভাগ থেকে ৭০ ভাগে উন্নীত করেছে। ফলে মানুষের উৎসাহ বেড়েছে কারণ এর টাকা আর অন্য কেউ ‘নয় ছয়’ করে খেতে পারে না।

তিনি বলেন, ৬শ’১৫টি গ্রামে ৪১ হাজার বন নির্ভর পরিবারকে তাদের পছন্দানুযায়ী বিকল্প জীবিকার ওপর প্রশিক্ষণ ও আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়েছে। ২০০৯ সাল থেকে এই পর্যন্ত সামাজিক বনায়নের উপকারভোগীদের মাঝে ৩শ’ ২৭ কোটি টাকা বিতরণ করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণের লক্ষ্যে ২২টি সুরক্ষিত এলাকায় স্থানীয় জনগণকে সম্পৃক্ত করে ২৮টি সহ-ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠন করা হয়েছে এবং তরুণ প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ করতে এই বছরই প্রথম আমরা ‘ওয়াইল্ড লাইফ অলিম্পিয়াড’ এর আয়োজন করেছি।

‘উপকৃলীয় বনায়নে বাংলাদেশি বিশ্বের অন্যতম পথিকৃৎ’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই পর্যন্ত উপকূলীয় অঞ্চলে ২ লাখ ৬১ হাজার ৫শ’ ৭০ হেক্টর বনায়ন সৃষ্টি করা হয়েছে। ্২০০৯ থেকে এই পর্যন্ত ৮৯ হাজার ৮শ’ ৫৩ হেক্টর সবুজ বেষ্টনী আমরা সৃষ্টি করেছি।
তিনি বলেন, বৈশ্বিক উষ্ণায়ণে বাংলাদেশের ভূমিকা নগণ্য হলেও তাঁর সরকার গ্রীন হাউজ গ্যাস নি:সরণ হ্রাসের প্রতিশ্রুতি প্রদান করে বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুপ প্রভাব মোকাবিলায় বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকারের বৃক্ষরোপন ও পরিবেশ-প্রতিবেশ সংরক্ষণ ও উন্নয়ন একটি ধারবাহিক প্রক্রিয়া। ২০০১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত বিএনপি জামায়াত জোট বা পরবর্তী দু’বছর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় এই ধারাবাহিকতা রক্ষা করা হয়নি।


তিনি বলেন, ‘শুধু তাই নয়, আপনারা দেখেছেন ২০১৩ সালে সরকার উৎখাতের আন্দোলনের নামে অগ্নিসন্ত্রাস করে মানুষকে যেমন হত্যা করা হয় তেমনি আমাদের বাস,ট্রাক, গাড়ি, রেল, লঞ্চ-আগুনে জ্বালিয়ে দেওয়া আর বৃক্ষ নিধন করা হয়। হাজার হাজার, লাখ লাখ, গাছ তারা কেটে ফেলে দেয় সেই সময়। অর্থাৎ আমরা যেখানে গাছ লাগিয়েছি সেগুলো তারা ধ্বংস করেছে। এটাই হচ্ছে দুর্ভাগ্যের বিষয়।’
 এই ধ্বংসযজ্ঞ সত্যিই দেশের জন্য ক্ষতিকর বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

নরেন্দ্র মোদীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন
                                  

লোকসভা নির্বাচনে জয় পাওয়ায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার (৪ জুন) এক বার্তায়  মোদীকে অভিনন্দন জানান শেখ হাসিনা।
 

অভিনন্দন বার্তায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নরেন্দ্র মোদীর উদ্দেশে লেখেন, ১৮তম লোকসভা নির্বাচনে ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) নেতৃত্বে জাতীয় গণতান্ত্রিক জোটের (এনডিএ) জয়ে বাংলাদেশের জনগণ এবং আমার পক্ষ থেকে আপনাকে আন্তরিক অভিনন্দন।

মঙ্গলবার ভারতের লোকসভা নির্বাচনের ভোট গণনা হয়।

ভারতের নির্বাচন কমিশন ও গণমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী, বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট ২৮৬ আসন পেয়েছে। ইন্ডিয়া জোট পেয়েছে ২০২টি আসন। বিজেপি একা সরকার গঠনের জন্য ২৭২টি আসন পায়নি। দলটি পেয়েছে ২৪০ আসন। কংগ্রেস পেয়েছে ৯৯টি।


   Page 1 of 37
     জাতীয়
রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ২৩
.............................................................................................
৫০ হাজার টাকা করে অনুদান পেলেন ২৩২ নারী উদ্যোক্তা
.............................................................................................
ঈদ যাত্রায় বাড়তি ভাড়া নিলেই ব্যবস্থা : পুলিশ
.............................................................................................
জননেত্রী শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে বঙ্গমাতা সাংস্কৃতিক জোটের আলোচনা সভা
.............................................................................................
নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান
.............................................................................................
এনআইডি সেবা নিতে আসা জনগণের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করবেন না: সিইসি
.............................................................................................
এনআইডি সেবা নিতে আসা জনগণের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করবেন না: সিইসি
.............................................................................................
মোদিকে বাংলাদেশে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন শেখ হাসিনা : পররাষ্ট্রমন্ত্রী
.............................................................................................
সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত
.............................................................................................
ঢামেকে নবজাতক চুরি, তথ্য সংগ্রহে নিষেধাজ্ঞা পরিচালকের
.............................................................................................
সিম কিনতে দিতে হবে ৩০০ টাকা ট্যাক্স
.............................................................................................
ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস আগামীকাল
.............................................................................................
দুদকে সময় চেয়ে বেনজীরের আবেদন
.............................................................................................
আগামীকাল ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা
.............................................................................................
সরকার দেশ, মানুষ ও প্রকৃতিকে রক্ষা করতে চায় : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
নরেন্দ্র মোদীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন
.............................................................................................
নির্ধারিত সময়ে কর্মী না পাঠা‌নোর দায় মাল‌য়ে‌শিয়া ও বাংলা‌দেশ সরকা‌রের : বায়রা
.............................................................................................
২১ জুন নয়াদিল্লি ও ৯ জুলাই চীন সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
৮৫ শতাংশ নৌযান অবৈধ, তবু নেই কার্যকর ব্যবস্থা
.............................................................................................
কাল শুরু হচ্ছে পরিবেশ ও বৃক্ষমেলা
.............................................................................................
সরকার ২০৩০ সালের মধ্যে কুষ্ঠ নির্মূলে অঙ্গীকারবদ্ধ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে চায়ের বহুবিধ ব্যবহারের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
.............................................................................................
সহকারী পরিচালক শামসুল কবিরের ইশারায় বিআরটিএর ঘুষ বানিজ্য"
.............................................................................................
মিরপুরে যুবককে কুপিয়ে হত্যা
.............................................................................................
পুরাণ ঢাকার চকবাজার রাজউক এর উচ্ছেদ অভিযান।
.............................................................................................
ভালো ফলাফলের জন্যে আত্মবিশ্বাস থাকা প্রয়োজন : লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল
.............................................................................................
ঢাকা মেডিকেল রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি মাসুদ সাধারণ সম্পাদক আমানত
.............................................................................................
দক্ষিণ সিটির আওতাধীন এলাকার সকল নির্বাচনী কেন্দ্রে বিশেষ মশক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম পরিচালিত
.............................................................................................
মিরপুর বিআরটিএ দালালমুক্ত করবে দ্বায়িত্বে থাকা আনসার কমান্ডার হাশেম
.............................................................................................
বস্তিতে বসবাসকারী বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের জীবনমান উন্নয়নে সহযোগিতার আশ্বাস তুরস্কের
.............................................................................................
জর্জিয়ার অনাবাসিক রাষ্ট্রদূত হিসাবে মোঃ আমানুল হক-এর পরিচয় পত্র পেশ
.............................................................................................
বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং প্রখ্যাত শিল্পী, সাহিত্যিক ও সংস্কৃতকর্মীদের নামে ডিএনসিসির বিভিন্ন সড়কের নামকরণ করা হবে: মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম
.............................................................................................
জনবহুল স্থানে প্রয়োজনীয়তা অনুসারে প্রতিটি ওয়ার্ডেই গণশৌচাগার নির্মাণ করা হবেঃ ঢাদসিক মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস
.............................................................................................
ডিএনসিসিতে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান বিজয় দিবস উদযাপিত
.............................................................................................
নির্বাচন অনুকূল-প্রতিকূল পরিবেশের ওপর নয়, জনগণের রায়ের ওপর নির্ভর করেঃ ঢাদসিক মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস
.............................................................................................
তুরস্কের কোনিয়ায় বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ফরেস্ট উদ্বোধন
.............................................................................................
তুরস্কস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস আংকারায় ‘ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের শুভউদ্বোধন
.............................................................................................
আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে পিএনপির উদ্যোগে র‌্যালি অনুষ্ঠিত
.............................................................................................
এইচএসসিতে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে রাফিউর রহমান অয়ন
.............................................................................................
তুরস্কে জাতীয় সংবিধান দিবস-২০২৩ উদযাপন
.............................................................................................
বিআরটিএ`র মিরপুর কার্যালয়ে অভিযান; ০৭ দালালের সাজা
.............................................................................................
নয়াপল্টনে যুব সমাবেশে জড়ো হচ্ছেন নেতাকর্মীরা
.............................................................................................
মেয়েদের জরায়ুমুখ ক্যান্সার প্রতিরোধে ১৫ অক্টোবর থেকে দক্ষিণ সিটিতে বিনামূল্যে এইচপিভি টিকাদান কর্মসূচি শুরু
.............................................................................................
তুর্কমেনিস্থানের অনাবাসিক রাষ্ট্রদূত হিসাবে মোঃ আমানুল হক-এর পরিচয় পত্র পেশ
.............................................................................................
স্বচ্ছতা-জবাবদিহিতা বজায় রেখে নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই দোকান বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছেঃ ঢাদসিক মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস
.............................................................................................
নিরাপদ ও টেকসই পয়ঃবর্জ্য ব্যবস্থাপনায় ডিএনসিসি ও ঢাকা ওয়াসার মধ্যে সমঝোতা স্মারক সাক্ষর
.............................................................................................
জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন কার্যক্রমে `অসাধারণ অবদানের` জন্য দক্ষিণ সিটিকে স্বীকৃতি
.............................................................................................
সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে জনগণের মধ্যে সচেতনতা ছড়ানোর আহবান ডিএনসিসি মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলামের
.............................................................................................
মন্ত্রী ও মেয়রের উপস্থিতিতে ডিএনসিসির মশক বিরোধী ঝটিকা অভিযান
.............................................................................................
রক্তদান করতে গিয়ে এক্সিডেন্ট
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রকাশক: রিনা বেগম
প্রধান সম্পাদক : মো: হাবিবুর রহমান
প্রকাশক কতৃক ৫১/৫১ এ পুরানা পল্টন থেকে প্রকাশিত । সোনালী প্রিন্টিং প্রেস ২/১/এ ইডেন ভবন ১৬৭ ইনার সার্কুলার রোড মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত । বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয় : ৫১/৫১ এ পুরানা পল্টন (৪র্থ তলা) , ঢাকা - ১০০০।
ফোন: ০২২২৩৩৮০৮৭২ , মোবাইল: ০১৭১১১৩৬২২৬

Web: www.bhorersomoy.com E-mail : dbsomoy2010@gmail.com
   All Right Reserved By www.bhorersomoy.com    
Dynamic SOlution IT Dynamic POS | Super Shop | Dealer Ship | Show Room Software | Trading Software | Inventory Management Software Computer | Mobile | Electronics Item Software Accounts,HR & Payroll Software Hospital | Clinic Management Software Dynamic Scale BD Digital Truck Scale | Platform Scale | Weighing Bridge Scale Digital Load Cell Digital Indicator Digital Score Board Junction Box | Chequer Plate | Girder Digital Scale | Digital Floor Scale