|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা অপরিহার্য ....... লায়ন গনি মিয়া বাবুল   * বঙ্গবন্ধুকে ফিরে না পেলে স্বাধীনতা পূর্ণতা পেত না: তাপস   * আমরা শিশু   *  বিএনপির সমাবেশ নিয়ে মানুষ আতঙ্কে আছে: ওবায়দুল কাদের   * কী হতে চলেছে ১০ ডিসেম্বর?   *  কাগজ সংকটে বন্ধ ছাপানো, শিক্ষার্থীদের বই পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা   *  ইন্দোনেশিয়ায় ভূমিকম্প : ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা বহু   *  পুলিশের মুখে স্প্রে করে আসামি ছিনতাই: মামলার তদন্তে সিটিটিসি   * বিদ্যুতের দাম বাড়ছেই, ঘোষণা দুপুরে   * গ্যাস সংকটে বড় ক্ষতির মুখে সিরামিক খাত  

   আর্ন্তজাতিক -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
বাংলাদেশ দূতাবাস আংঙ্কারায় বঙ্গবন্ধুর স্বদেশপ্রত্যাবর্তন দিবস উদ্যাপন

বিশেষ প্রতিবেদক, আবুল মনসুর আহমেদ ঃ আঙ্কারা, ১০ জানুয়ারি ২০২৩ঃ  আঙ্কারাস্থ বাংলাদেশ দুতাবাসের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উদ্যাপন করা হয়। দূতাবাসের ”বিজয়-৭১ মিলনায়তন”-এ আয়োজিত অনুষ্ঠানের শুরুতেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবার এবং শহিদদের রুহের মাগফিরাত কামনায় পবিত্র কোরআন থেকে তিলাওয়াত, দোয়া ও বিশেষ মোনাজাত করা হয়।
অত:পর দূতাবাসে কর্মকর্তা/কর্মচারীদের উপস্থিতিতে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরে একটি আলোচনা অনুষ্ঠানেরআয়োজন করা হয়। আলোচনার শুরুতে ঐতিহাসিক ১০ জানুয়ারি উপলক্ষে মহামান্য রাষ্ট্রপতি কর্তৃক প্রেরিত বাণী পাঠ করেন চার্জ দ্য এ্যাফেয়ার্স শাহ্নাজ গাজী এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রেরিত বাণী পাঠ করেন মিশনের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা মোঃ রাশেদ ইকবাল।অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন দ্বিতীয় সচিব ও দূতালয় প্রধান মোঃ রফিকুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের উপর নির্মিত একটি তথ্যবহুলপ্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শিত হয়।
আলোচনা পর্বে চার্জ দ্য এ্যাফেয়ার্স প্রথমেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। অত:পর বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর অসামান্য নেতৃত্ব গুণ এবং তাঁর অতুলনীয়অবদানের কথা গভীর কৃতজ্ঞতা ও শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন এবং বঙ্গবন্ধুর “সোনার বাংলা” গড়ে তোলার স্বপ্ন বাস্তবায়নে সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। তিনি মুক্তিযোদ্ধা এবং মুক্তিযুদ্ধে আত্মোৎসর্গী শহীদদের স্মরণ করেন। তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বের কথা বর্ণনাপূর্বক ১৯৭১ সালের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধ, বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও ঐতিহাসিক বিজয় অর্জন এবং ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর পাকিস্তান কারাগার হতে সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশে প্রত্যাবর্তনের প্রেক্ষাপট তুলে ধরেন। তিনি উল্লেখ করেন, বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ সম্পাদনে এবং তাঁর স্বপ্নপূরণে বঙ্গবন্ধূ কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরলসভাবে  কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বের ভূয়োসী প্রশংসা করে বলেন বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বুকে দীপ্তগতিতে এগিয়ে যাওয়া দ্রুত অগ্রসরমান একটিঅর্থনৈতক শক্তি। চলমান অর্থনৈতিক, সামাজিক, শিক্ষা, স্বাস্থ্য প্রভৃতি খাতের উন্নয়ন আজ চোখে পড়ার মতো যা বাংলাদেশকে বিশ্বের বুকে রোল মডেলে পরিনত করেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নেতৃত্বে ভিশন-২০৪১ এবং ডেলটা প্লান লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করবে বলে চার্জ দ্য এ্যাফেয়ার্স দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেন এবং এ অভিষ্ট লক্ষ্য অর্জনে আমাদের সবাইকে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে নিজ নিজ অবস্থান থেকে ভূমিকা পালনের আহ্বান জানিয়ে তাঁর বক্তব্যের পরিসমাপ্তি করেন।

বাংলাদেশ দূতাবাস আংঙ্কারায় বঙ্গবন্ধুর স্বদেশপ্রত্যাবর্তন দিবস উদ্যাপন
                                  

বিশেষ প্রতিবেদক, আবুল মনসুর আহমেদ ঃ আঙ্কারা, ১০ জানুয়ারি ২০২৩ঃ  আঙ্কারাস্থ বাংলাদেশ দুতাবাসের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উদ্যাপন করা হয়। দূতাবাসের ”বিজয়-৭১ মিলনায়তন”-এ আয়োজিত অনুষ্ঠানের শুরুতেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবার এবং শহিদদের রুহের মাগফিরাত কামনায় পবিত্র কোরআন থেকে তিলাওয়াত, দোয়া ও বিশেষ মোনাজাত করা হয়।
অত:পর দূতাবাসে কর্মকর্তা/কর্মচারীদের উপস্থিতিতে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরে একটি আলোচনা অনুষ্ঠানেরআয়োজন করা হয়। আলোচনার শুরুতে ঐতিহাসিক ১০ জানুয়ারি উপলক্ষে মহামান্য রাষ্ট্রপতি কর্তৃক প্রেরিত বাণী পাঠ করেন চার্জ দ্য এ্যাফেয়ার্স শাহ্নাজ গাজী এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রেরিত বাণী পাঠ করেন মিশনের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা মোঃ রাশেদ ইকবাল।অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন দ্বিতীয় সচিব ও দূতালয় প্রধান মোঃ রফিকুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের উপর নির্মিত একটি তথ্যবহুলপ্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শিত হয়।
আলোচনা পর্বে চার্জ দ্য এ্যাফেয়ার্স প্রথমেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। অত:পর বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর অসামান্য নেতৃত্ব গুণ এবং তাঁর অতুলনীয়অবদানের কথা গভীর কৃতজ্ঞতা ও শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন এবং বঙ্গবন্ধুর “সোনার বাংলা” গড়ে তোলার স্বপ্ন বাস্তবায়নে সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। তিনি মুক্তিযোদ্ধা এবং মুক্তিযুদ্ধে আত্মোৎসর্গী শহীদদের স্মরণ করেন। তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বের কথা বর্ণনাপূর্বক ১৯৭১ সালের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধ, বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও ঐতিহাসিক বিজয় অর্জন এবং ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর পাকিস্তান কারাগার হতে সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশে প্রত্যাবর্তনের প্রেক্ষাপট তুলে ধরেন। তিনি উল্লেখ করেন, বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ সম্পাদনে এবং তাঁর স্বপ্নপূরণে বঙ্গবন্ধূ কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরলসভাবে  কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বের ভূয়োসী প্রশংসা করে বলেন বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বুকে দীপ্তগতিতে এগিয়ে যাওয়া দ্রুত অগ্রসরমান একটিঅর্থনৈতক শক্তি। চলমান অর্থনৈতিক, সামাজিক, শিক্ষা, স্বাস্থ্য প্রভৃতি খাতের উন্নয়ন আজ চোখে পড়ার মতো যা বাংলাদেশকে বিশ্বের বুকে রোল মডেলে পরিনত করেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নেতৃত্বে ভিশন-২০৪১ এবং ডেলটা প্লান লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করবে বলে চার্জ দ্য এ্যাফেয়ার্স দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেন এবং এ অভিষ্ট লক্ষ্য অর্জনে আমাদের সবাইকে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে নিজ নিজ অবস্থান থেকে ভূমিকা পালনের আহ্বান জানিয়ে তাঁর বক্তব্যের পরিসমাপ্তি করেন।

বাংলাদেশের সঙ্গে স্থায়ী অংশীদারীত্বকে গুরুত্ব দেয় যুক্তরাষ্ট
                                  

বিশেষ প্রতিবেদক, মনসুর আহমেদ ঃ

রোববার (৮ জানুয়ারি) উত্তর আমেরিকান নেতাদের শীর্ষ সম্মেলনে অংশ নিতে মেক্সিকোর রাজধানী মেক্সিকো সিটির ‍উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এর এক ফাঁকে তিনি টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের এল পাসো সিটিতে যাত্রাবিরতী নেন ও সীমান্ত পরিদর্শনে যান। এল পাসো শহরটি মেক্সিকো সীমান্তে অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্রের বৃহত্তম শহরগুলোর মধ্যে একটি ও মেক্সিকোর সিউদাদ জুয়ারেজের সঙ্গে সংযুক্ত। এ শহর দিয়েই প্রতিদিন হাজার হাজার অভিবাসী যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করেন। জানা যায়, জো বাইডেনের মেক্সিকো সফরের মূল উদ্দেশ্য হলো মেক্সিকো সীমান্ত ব্যবহার করে যুক্তরাষ্ট্রে বিপুলসংখ্যক অনুপ্রেবেশ বন্ধে কার্যকরী ব্যবস্থা নিশ্চিত করা। সোমবার (৯ জানুয়ারি) মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট আন্দ্রেস ম্যানুয়েল লোপেজ ওব্রাডরের সঙ্গেও দেখা করবেন তিনি।

প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই অভিবাসন নীতি নিয়ে বিপাকে পড়েছেন ডেমোক্রেটিক এ নেতা। অভিবাসনের বিরোধিতা করে আসা রিপাবলিকান দলের নেতারা ও বামপন্থী ডেমোক্র্যাট নেতাদের পক্ষ থেকে ক্রমাগত চাপের মুখোমুখি হচ্ছেন তিনি।

রিপাবলিকান নেতারা দাবি করছেন, বাইডেন প্রশাসন খুব নমনীয় ও তরা অভিবাসন নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ভূমিকা রাখতে ব্যর্থ হচ্ছে। অন্যদিকে, দেশটির মানবাধিকার কর্মীদের দাবি, সরকারের নতুন ঘোষিত পদক্ষেপের ফলে আশ্রয়প্রার্থীদের জীবন ঝুঁকিতে পড়বে।

টেক্সাস অঙ্গরাজ্যে সাংবাদিকদের প্রশ্নে বাইডেন বলেন, মেক্সিকো-যুক্তরাষ্ট্র সীমান্তে কী ঘটছে, তা আমি নিজ চোখে দেখতে চাই। তাছাড়া, আমরা অভিবাসন প্রত্যাশীদের জন্য বৈধ প্রক্রিয়া প্রণয়ন করতে যাচ্ছি। এদিকে, বর্তমান অভিবাসন নীতিকে গভীর রাজনৈতিক উত্তেজনা সৃষ্টির মূল কারণ হিসেবে দাবি করে জো বাইডেনকে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের রিপাবলিকান গভর্নর গ্রেগ অ্যাবট। সেখানে বলা হয়, কেন্দ্রীয় আইন প্রয়োগে প্রেসিডেন্টের ব্যর্থতার প্রত্যক্ষ ফলাফল হলো সীমান্তে সৃষ্ট বিশৃঙ্খলা।

এ সফরের আগে জো বাইডেন বলেছিলেন, তার নতুন পরিকল্পনার অধীনে টাইটেল ৪২ নামক আইনটিকে আরও সম্প্রসারিত করা হবে, যাতে সীমান্তরক্ষীরা স্থলপথে আসা বিপুলসংখ্যক অভিবাসীদের তাৎক্ষণিকভাবে ফিরিয়ে দিতে পারেন।অন্যদিকে, নিজের বামপন্থী সমর্থকদের থেকে আসা চাপ ঠেকাতে বাইডেন ঘোষণা দেন, প্রতি মাসে কিউবা, হাইতি, নিকারাগুয়া ও ভেনিজুয়েলা থেকে ৩০ হাজার অভিবাসী নেবে যুক্তরাষ্ট্র। তবে এর জন্য প্রথমে অভিবাসন প্রত্যাশীদের নিজ দেশ থেকে আবেদন করতে হবে, অবশ্যই মার্কিন স্পন্সর থাকতে হবে ও সবার জীবনবৃত্তান্ত খুঁটিয়ে দেখার পর বৈধ অভিবাসী হিসেবে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে।

যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্ত পরিদর্শনে জো বাইডেন
                                  

আবুল মনসুর, ঢাকা

যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্ত পরিদর্শন করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ২০২২ সালে ক্ষমতায় আসার পর এবারই প্রথম এ সীমান্ত পরিদর্শন করলেন তিনি। রোববার (৮ জানুয়ারি) উত্তর আমেরিকান নেতাদের শীর্ষ সম্মেলনে অংশ নিতে মেক্সিকোর রাজধানী মেক্সিকো সিটির ‍উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এর এক ফাঁকে তিনি টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের এল পাসো সিটিতে যাত্রাবিরতী নেন ও সীমান্ত পরিদর্শনে যান।

এল পাসো শহরটি মেক্সিকো সীমান্তে অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্রের বৃহত্তম শহরগুলোর মধ্যে একটি ও মেক্সিকোর সিউদাদ জুয়ারেজের সঙ্গে সংযুক্ত। এ শহর দিয়েই প্রতিদিন হাজার হাজার অভিবাসী যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করেন। জানা যায়, জো বাইডেনের মেক্সিকো সফরের মূল উদ্দেশ্য হলো মেক্সিকো সীমান্ত ব্যবহার করে যুক্তরাষ্ট্রে বিপুলসংখ্যক অনুপ্রেবেশ বন্ধে কার্যকরী ব্যবস্থা নিশ্চিত করা। সোমবার (৯ জানুয়ারি) মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট আন্দ্রেস ম্যানুয়েল লোপেজ ওব্রাডরের সঙ্গেও দেখা করবেন তিনি।

প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই অভিবাসন নীতি নিয়ে বিপাকে পড়েছেন ডেমোক্রেটিক এ নেতা। অভিবাসনের বিরোধিতা করে আসা রিপাবলিকান দলের নেতারা ও বামপন্থী ডেমোক্র্যাট নেতাদের পক্ষ থেকে ক্রমাগত চাপের মুখোমুখি হচ্ছেন তিনি রিপাবলিকান নেতারা দাবি করছেন, বাইডেন প্রশাসন খুব নমনীয় ও তরা অভিবাসন নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ভূমিকা রাখতে ব্যর্থ হচ্ছে। অন্যদিকে, দেশটির মানবাধিকার কর্মীদের দাবি, সরকারের নতুন ঘোষিত পদক্ষেপের ফলে আশ্রয়প্রার্থীদের জীবন ঝুঁকিতে পড়বে।

টেক্সাস অঙ্গরাজ্যে সাংবাদিকদের প্রশ্নে বাইডেন বলেন, মেক্সিকো-যুক্তরাষ্ট্র সীমান্তে কী ঘটছে, তা আমি নিজ চোখে দেখতে চাই। তাছাড়া, আমরা অভিবাসন প্রত্যাশীদের জন্য বৈধ প্রক্রিয়া প্রণয়ন করতে যাচ্ছি। এদিকে, বর্তমান অভিবাসন নীতিকে গভীর রাজনৈতিক উত্তেজনা সৃষ্টির মূল কারণ হিসেবে দাবি করে জো বাইডেনকে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের রিপাবলিকান গভর্নর গ্রেগ অ্যাবট। সেখানে বলা হয়, কেন্দ্রীয় আইন প্রয়োগে প্রেসিডেন্টের ব্যর্থতার প্রত্যক্ষ ফলাফল হলো সীমান্তে সৃষ্ট বিশৃঙ্খলা।

এ সফরের আগে জো বাইডেন বলেছিলেন, তার নতুন পরিকল্পনার অধীনে টাইটেল ৪২ নামক আইনটিকে আরও সম্প্রসারিত করা হবে, যাতে সীমান্তরক্ষীরা স্থলপথে আসা বিপুলসংখ্যক অভিবাসীদের তাৎক্ষণিকভাবে ফিরিয়ে দিতে পারেন। অন্যদিকে, নিজের বামপন্থী সমর্থকদের থেকে আসা চাপ ঠেকাতে বাইডেন ঘোষণা দেন, প্রতি মাসে কিউবা, হাইতি, নিকারাগুয়া ও ভেনিজুয়েলা থেকে ৩০ হাজার অভিবাসী নেবে যুক্তরাষ্ট্র। তবে এর জন্য প্রথমে অভিবাসন প্রত্যাশীদের নিজ দেশ থেকে আবেদন করতে হবে, অবশ্যই মার্কিন স্পন্সর থাকতে হবে ও সবার জীবনবৃত্তান্ত খুঁটিয়ে দেখার পর বৈধ অভিবাসী হিসেবে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে।

সূত্র: আল-জাজিরা

বাংলাদেশ দূতাবাস আঙ্কারা, তুরস্ক
                                  

আবুল মনসুর আহমেদ:

বাংলাদেশ দূতাবাস,  আনন্দ উৎসবের মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশের

৫১তম ‘মহান বিজয় দিবস’ উদযাপিত

১৬ ডিসেম্বর ২০২২ঃ আনন্দ উৎসবের মধ্যে
দিয়ে বাংলাদেশ দূতাবাস আংকারা মহান বিজয়ের ৫১তম বার্ষিকী পালন করেছে।
সকালে চার্জ দ্যা এ্যাফেয়ার্স শাহ্ধসঢ়;নাজ গাজী-এর নেতৃত্বে দূতাবাস
প্রাঙ্গণে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও বঙ্গবন্ধুর আবক্ষে পুষ্পস্তবক অর্পণ করার মধ্য
দিয়ে দিবসটি পালনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়।
অনুষ্ঠানের দ্বিতীয়াংশে, দূতাবাসের ’বিজয় একাত্তর মিলনায়তন’-এ
মহান মুক্তিযুদ্ধে শহিদদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত এবং দেশ ও জাতির মঙ্গল
কামনায় পবিত্র কোরআন থেকে তিলাওয়াত ও বিশেষ মোনাজাত করা হয় এবং
মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের স্মরনে ১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। দিবসটি উপলক্ষে
মহামান্য রাষ্ট্রপতি কর্তৃক প্রদত্ত বাণী পাঠ করে শোনান চার্জ দ্য এ্যাফেয়ার্স
শাহ্ধসঢ়;নাজ গাজী, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা
ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ রাশেদ ইকবাল, মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাণী পড়েন
দ্বিতীয় সচিব ও দূতালয় প্রধান মোঃ রফিকুল ইসলাম এবং মাননীয় পররাষ্ট্র
প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রেরীত বাণী পাঠ করেন দূতাবাসের প্রতিরক্ষা দপ্তরের
সুপারেনটেনডেন্ট মোঃ ফরহাদ হোসেন। অত:পর দিবসটি উপর নির্মিত একটি
প্রমান্যচিত্র প্রদর্শিত হয়। এরপর দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও তাঁদের
পরিবারবর্গ, প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিক/ছাত্র-ছাত্রী এবং বিপুল সংখ্যক তুর্কী
নাগরিকের উপ¯ি’তিতে একটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা
হয়। এই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশি শিশু-কিশোর এবং তুর্কী শিল্পীদের
কবিতা ও গান দর্শকদের মুগ্ধ করে।
চার্জ দ্য এ্যাফেয়ার্স, তাঁর বক্তব্যে স্বাধীন বাংলাদেশের রূপকার জাতির জনক
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং মুক্তিযুদ্ধে শহিদদের প্রতি বিনম্র শ্ধসঢ়;্রদ্ধা
নিবেদন করেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষাপট এবং শহিদদের আত্মত্যাগের
বিনিময়ে প্রাপ্ত বাংলাদেশের বিজয় অর্জন নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি
বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণের স্বপ্ন বাস্তবায়ন এবং মাননীয়
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃৃত্বে বাংলাদেশের চলমান উন্নয়ন
কার্যক্রমে অংশীদার হওয়ার জন্য সকলকে নিজ নিজ অব¯’ান থেকে কাজ করার জন্য
সকলকে আহ্বান জানান। অত:পর ১২ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখের ‘ডিজিটাল
বাংলাদেশ’ শিরোনামের উপর ঘোষিত চিত্রাঙ্কন ও রচনা প্রতিযোগিতায়

অংশগ্রহনকারীদের এবং বিজয় দিবস উপলক্ষে ‘বাংলাদেশের মহান বিজয় দিবস’
বিষয়ব¯‘র উপর চিত্রাঙ্কন, কবিতা আবৃত্তি-এর উপর শিশু-কিশোর ও প্রবাসী
বাংলাদেশি ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।
পরিশেষে, অনুষ্ঠানে আগত অতিথিবৃন্দদেরকে সাথে নিয়ে কেক কাটা হয় ও
বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী খাবার পরিবেশিত হয়।
----------------

 ইন্দোনেশিয়ায় ভূমিকম্প : ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা বহু
                                  

এশিয়ার দেশ ইন্দোনেশিয়ার পশ্চিমাঞ্চলীয় জাভা প্রদেশে আঘাত হেনেছে ৫.৬ মাত্রার ভূমিকম্প। সোমবারের এ কম্পনে এখন পর্যন্ত ১৬২ জন নিহত হয়েছেন। এছাড়া ধসে পড়েছে অসংখ্য বাড়ি-ঘর।
শক্তিশালী ভূমিকম্পের আঘাতে ধসে পড়া এসব স্কুল, বাড়ি-ঘর ও অন্যান্য স্থাপনার ধ্বংসস্তূপের নিচে এখনো অনেক মানুষ আটকে আছেন। এতে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন কর্মকর্তারা। জানা গেছে, এখন পর্যন্ত যারা নিহত হয়েছেন তাদের বেশিরভাগই স্কুল শিক্ষার্থী ও শিশু।
ইন্দোনেশিয়ার সোমবার স্থানীয় সময় দুপুর ১টা ২১ মিনিটে ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে জাভা। ওই সময় চলছিল স্কুলের পাঠদান। কম্পনে স্কুলগুলো ধ্বংসপ্রাপ্ত হওয়ায় অনেক শিক্ষার্থী ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা পড়েন। এখন ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকে পড়াদের উদ্ধারে আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছেন উদ্ধারকারীরা।
ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ছিল পশ্চিম জাভার পাহাড়ী এলাকা সিয়ানজুর। এটি ইন্দোনেশিয়ার সবচেয়ে জনবহুল প্রদেশ। ভূমিকম্পে এত মানুষ আহত হয়েছেন যে, সিয়ানজুরের হাসাপাতালের গাড়ি পার্কের স্থান, বেজমেন্টে মানুষের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়। অন্যদিকে টর্চের আলোতে আহতদের কাটা-ছেঁড়া সেলাই করতে দেখা যায় চিকিৎসকদের।
ব্রিটিশ বার্তাসংস্থা রয়টার্সকে কান্নাজড়িত কণ্ঠে কুকু নামে ৪৮ বছর বয়সী এক নারী হাসপাতাল থেকে বলেন, ‘আমার নিচের সবকিছু ধসে পড়ে। বাচ্চাদের নিচে আমি চাপা পড়েছিলাম।’
কুকু রয়টার্সকে আরও জানান, ধ্বংসস্তুপ থেকে নিজের দুই সন্তানকে বের করে নিয়ে আসতে সমর্থ হন তিনি। এরপর তাদের হাসপাতালে নিয়ে আসেন। কিন্তু তার এক সন্তান এখনো নিখোঁজ রয়েছেন।
ইন্দোনেশিয়ার পুলিশের একজন মুখপাত্রের বরাতে বার্তাসংস্থা অন্তরা নিউজ জানিয়েছে, মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকালে ঘটনাস্থলে কয়েকশ পুলিশ সদস্যকে পাঠানো হয়েছে। আহত ব্যক্তিদের খুঁজে বের করে উদ্ধার করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে তাদের।
পশ্চিম জাভার গভর্নর রিদওয়ান কামিল জানান, সোমবারের ভূমিকম্পে ১৬২ জন নিহত হওয়ার ব্যাপারে নিশ্চিত হয়েছেন তারা। তিনি আরও জানান, দুর্গম কিছু এলাকায় মানুষ এখনো আটকে আছেন। এতে মৃতের সংখ্যা বাড়বে। সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আহত ও মৃতের সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে এ বিষয়টি মাথায় রেখেই তারা কাজ করছেন।
ভূমিকম্পের প্রভাবে কিছু কিছু জায়গায় ভূমিধসও হয়েছে। ভূমিধসের কারণে কিউজেনাং নামে একটি অঞ্চল পুরোপুরি যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। সেখানে উদ্ধারকারীরা যেতে পারছেন না। বিদ্যুৎ বিভ্রাটেও উদ্ধারকাজ ব্যহত হচ্ছে।
এদিকে বড় ভূমিকম্প আঘাত হানার পর অন্তত আরও ৮০ বার ছোট ছোট কম্পনে (আফ্টারশক) কেঁপে ওঠে জাভা। ভূমিকম্পপ্রবণ দেশ ইন্দোনেশিয়ায় প্রায়ই এরকম কম্পন অনুভূত হয়।

পোল্যান্ডে বিস্ফোরণের পর বিশ্বনেতাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠকে বাইডেন
                                  

টানা প্রায় ৯ মাস ধরে রাশিয়া-ইউক্রেনের যুদ্ধ চলছে। দীর্ঘ সময় ধরে চলা এই যুদ্ধ উভয় দেশ একে অপরের বিরুদ্ধে পাল্টাপাল্টি হামলা চালিয়ে আসছে। আর এর মধ্যেই পূর্ব ইউরোপের দেশ পোল্যান্ডে আঘাত হেনেছে একটি ক্ষেপণাস্ত্র।
রাশিয়ার তৈরি ওই ক্ষেপণাস্ত্রের বিস্ফোরণের জন্য দায়ী করা হচ্ছে রাশিয়াকে। তবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, পোল্যান্ডে বিস্ফোরিত ক্ষেপণাস্ত্রটি রাশিয়া থেকে নাও ছোঁড়া হতে পারে। বুধবার (১৬ নভেম্বর) সকালে এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পূর্ব ইউরোপের দেশ পোল্যান্ডে বুধবার স্থানীয় সময় সকালে আঘাত হেনেছে একটি ক্ষেপণাস্ত্র। পোল্যান্ডের দাবি এটি রাশিয়ার তৈরি ক্ষেপণাস্ত্র। ওই ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় দু’জন নিহত হন এবং এর পরপরই যুক্তরাষ্ট্র এবং তার সামরিক জোট ন্যাটোর মিত্ররা বিস্ফোরণের তদন্ত শুরু করে।
এছাড়া পরিস্থিতি বিবেচনায় বিশ্বনেতাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠকে বসেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তিনি বলেছেন, প্রাথমিক তথ্য থেকে যা জানা যাচ্ছে তাতে পোল্যান্ডে গিয়ে পড়া ক্ষেপণাস্ত্রটি রাশিয়া থেকে নাও নিক্ষেপ করা হতে পারে।a
রয়টার্স বলছে, বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ আন্তর্জাতিক গোষ্ঠী গ্রুপ অব টোয়েন্টির বা জি-২০ শীর্ষ সম্মেলন উপলক্ষে বর্তমানে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশ ইন্দোনেশিয়ার বালিতে অবস্থান করছেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনসহ অন্য বিশ্বনেতারা। বুধবার সকালে পোল্যান্ডে মারাত্মক বিস্ফোরণের পরে বাইডেন বিশ্বনেতাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠকে বসেন এবং পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন।
ন্যাটোর সদস্য দেশ পোল্যান্ডে হওয়া এই বিস্ফোরণের ঘটনায় রাশিয়া জড়িত কিনা এমন প্রশ্নের বিষয়ে প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেন: ‘প্রাথমিক যে তথ্য রয়েছে তাতে রাশিয়ার জড়িত থাকার দাবি নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। আমরা এটি সম্পূর্ণরূপে তদন্ত না করা পর্যন্ত বলতে চাই না, তবে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের ট্র্যাজেক্টোরির লাইন অনুযায়ী এটি অসম্ভাব্য যে রাশিয়া থেকেই এটি ছোঁড়া হয়েছিল। কিন্তু আমরা বিষয়টি আরও খতিয়ে দেখব।’
বাইডেন আরও বলেন, ‘যেকোনো পদক্ষেপ বা প্রতিক্রিয়া দেখানোর আগে যুক্তরাষ্ট্র এবং ন্যাটো দেশগুলো বিষয়টি সম্পূর্ণরূপে তদন্ত করবে।’
এদিকে হোয়াইট হাউস জানিয়েছে, ইউক্রেনের সীমান্তের কাছে পূর্ব পোল্যান্ডের প্রজেওডো নামক গ্রামে ক্ষেপণাস্ত্র বিস্ফোরণে দুইজন নিহত হওয়ার পরে বাইডেন জরুরিভাবে নিজেই এই বৈঠকটি আহ্বান করেন। বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, কানাডা, নেদারল্যান্ডস, জাপান, স্পেন, ইতালি, ফ্রান্স ও যুক্তরাজ্যের নেতারা অংশ নেন।
বৈঠকে অংশ নেওয়া জাপান ছাড়া বাকি সবাই সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্য। এছাড়া মার্কিন নেতৃত্বাধীন এই প্রতিরক্ষা জোটের মধ্যে পোল্যান্ডও রয়েছে।
মূলত বিশ্বের বৃহত্তম সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্য পোল্যান্ডে ক্ষেপণাস্ত্র পড়ায় উত্তেজনা বৃদ্ধি পেয়েছে। কারণ ন্যাটোর আর্টিকেল-৫ অনুযায়ী— জোটের কোনো একটি দেশের ওপর হামলা মানে পুরো জোটের ওপর হামলা। ক্ষেপণাস্ত্র পড়ার পর ন্যাটোর মহাসচিব জেনস স্টলটেনবার্গ জরুরি বৈঠক ডাকেন। এছাড়া জি-৭ জোট ও জাতিসংঘও বৈঠক ডেকেছে।
তবে পোল্যান্ডের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, তারা এ মূহুর্তে ক্ষেপণাস্ত্র পড়ার বিষয়টিকে ‘পোল্যান্ডের ওপর রাশিয়ার হামলা’ হিসেবে বিবেচনা করছে না।

এবার ১০ হাজার কর্মী ছাঁটাই করবে অ্যামাজন
                                  

সম্প্রতি কর্মী ছাঁটাই করে আলোচনায় আসে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটার। এরপর একই পথে হাটে ফেসবুকের মূল কোম্পানি মেটা। এবার বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় আরেক প্রতিষ্ঠান অ্যামাজন তাদের কর্মী ছাঁটাই করতে যাচ্ছে। ১০ হাজার কর্মী ছাঁটাই করবে প্রতিষ্ঠানটি। অ্যামাজন সংশ্লিষ্ট এক ব্যক্তির বরাতে এ তথ্য জানায় রয়টার্স।
মার্কিন গণমাধ্যম নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, ছাঁটাই হতে যাওয়া কর্মীদের বেশিরভাগই অ্যামাজনের ডিভাইস ইউনিটের। এছাড়া সংস্থার রিটেইল বিভাগ এবং মানবসম্পদ বিভাগেও কর্মী ছাঁটাই হবে। শুধু তাই নয়, কর্মী নিয়োগও স্থগিত করা হয়েছে।
অ্যামাজনের সূত্রটি বলছে, মার্কিন অর্থনৈতিক পরিস্থিতি খুব একটা ভালো নয়। এই অবস্থায় অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মতো অ্যামাজনও অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তার মুখে রয়েছে।
অ্যামাজন মনে করছে, চলতি বছরে উৎসবের সময়গুলোতে, যেমন বড়দিন বা নববর্ষে তাদের ব্যবসা আগের তুলনায় কমে যাবে।
গত মাসে সাংবাদিকদের অ্যামাজনের চিফ ফাইন্যান্সিয়াল অফিসার ব্রায়ান ওলসাভস্কি বলেছিলেন যে, মানুষ কেনাকাটায় তাদের বাজেট কমিয়ে ফেলেছে।

মার্কিন সিনেটের নিয়ন্ত্রণ বাইডেনের দলের হাতেই
                                  

যুক্তরাষ্ট্রের নেভাদা অঙ্গরাজ্যে জয় পেয়েছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ডেমোক্র্যাটিক পার্টি। এর মধ্য দিয়ে গত সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হওয়া মার্কিন মধ্যবর্তী নির্বাচনে কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটের নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখল ডেমোক্রেটরা।
অবশ্য মধ্যবর্তী নির্বাচনের আগাম ফলাফলে মার্কিন কংগ্রেসের উভয় কক্ষে রিপাবলিকানদের জয়ের ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন অনেকে। তবে সেসব ভবিষ্যদ্বাণীকে ভুল প্রমাণ করল বাইডেনের দল। রোববার (১৩ নভেম্বর) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা এএফপি এবং সংবাদমাধ্যম বিবিসি।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনগুলোতে ঐতিহ্যগতভাবে ক্ষমতায় থাকা দলের বিরুদ্ধে ভোট দিয়ে থাকেন মার্কিন নাগরিকরা। মূলত মুদ্রাস্ফীতি বৃদ্ধি এবং বাইডেনের জনপ্রিয়তা কমে যাওয়াকে কেন্দ্র করে সর্বশেষ মধ্যবর্তী নির্বাচনে সিনেট ও প্রতিনিধি পরিষদ দখল করার প্রত্যাশা করেছিল রিপাবলিকানরা।
বিবিসি বলছে, ডেমোক্র্যাটিক পার্টি নেভাদায় একটি গুরুত্বপূর্ণ লড়াইয়ে জেতার পর মার্কিন সিনেটের সংখ্যাগরিষ্ঠ নিয়ন্ত্রণ এখন এই দলটির হাতেই বজায় থাকবে। মূলত নেভাদায় ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী ক্যাথরিন কর্টেজ মাস্টো জয় পেয়েছেন। তিনি সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থিত প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী অ্যাডাম ল্যাক্সাল্টকে পরাজিত করেন।
এতে করে মার্কিন কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির আসনসংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫০টিতে। আর রিপাবলিকান পার্টি জয় পেয়েছে ৪৯টি আসনে।
এছাড়া মার্কিন সিনেটের জন্য জর্জিয়ার ফলাফল এখনও পাওয়া যায়নি। মূলত গত সপ্তাহের নির্বাচনে কোনো প্রার্থীই সরাসরি সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় আগামী ৬ ডিসেম্বর সেখানে রান-অফ নির্বাচন অর্থাৎ দ্বিতীয় দফায় ভোট অনুষ্ঠিত হবে।
এদিকে, কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে ট্রাম্পের রিপাবলিকান পার্টি এখন পর্যন্ত সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের কাছাকাছি রয়েছে।
সংবাদমাধ্যম বলছে, সিনেটের নিয়ন্ত্রণ পেয়ে গেলেও নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদ নিয়ে চিন্তায় রয়েছে ডেমোক্র্যাটরা। কারণ রিপাবলিকানরা প্রতিনিধি পরিষদে এখন পর্যন্ত ২১১টি আসনে জয় পেয়েছে।
অন্যদিকে ডেমোক্র্যাটরা জয় পেয়েছে ২০৪টি আসনে। প্রতিনিধি পরিষদে সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য প্রয়োজন ২১৮টি আসন। ফলে হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভ রিপাবলিকানদের হাতেই যাচ্ছে বলে আপাতদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে।

১৫ নভেম্বর বিশ্বের জনসংখ্যা হবে ৮০০ কোটি
                                  

আগামী ১৫ নভেম্বর বিশ্বের জনসংখ্যা নতুন এক মাইলফলক স্পর্শ করতে যাচ্ছে। তা হলো গ্রহ হিসেবে পৃথিবীতে জনসংখ্যা হবে ৮০০ কোটি।
জাতিসংঘের জনসংখ্যা তহবিলের প্রধান নাতালিয়া কানেম বলেন, ৮০০ কোটি মানুষ, মানবসভ্যতার জন্য একটি স্মরণীয় মুহূর্ত। তিনি প্রত্যাশিত আয়ু বৃদ্ধি এবং মা ও শিশুমৃত্যু কমে যাওয়ার প্রশংসা করেন।
তিনি বলেন, যদিও আমি বুঝতে পারছি স্মরণীয় এই মুহূর্তটি সবাই উদযাপন নাও করতে পারেন। পৃথিবীতে জনসংখ্যা বেশি বলে অনেকে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। আমি এখানে পরিষ্কার করে বলতে চাই, মানুষের এই সংখ্যা ভয়ের কোনো কারণ নয়।
অতিরিক্ত জনসংখ্যার ভয়ের পরিবর্তে, আমাদের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তিদের গ্রহের সম্পদের অতিরিক্ত ব্যবহারের দিকে মনোনিবেশ করা উচিত বলেও উল্লেখ করেন কানেম।
নিউইয়র্কের রকফেলর বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবরেটরি অব পপুলেশনসের জোয়েল কোহেন বলেন, জনসংখ্যা কাদের জন্য অনেক বেশি, কিসের জন্য অনেক বেশি? যদি আপনি আমাকে প্রশ্ন করেন, আমিও কি অনেক বেশি? আমি এমন মনে করি না।
জাতিসংঘের এক পরিসংখ্যান বলছে, ২০৫০ সাল নাগাদ পৃথিবীর জনসংখ্যা হবে ৯৭০ কোটি। ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, ২০২২ সালে বিশ্বে ১১ কোটি ৯৫ লাখের বেশি মানুষ জন্মগ্রহণ করেছেন।
এদিকে থিঙ্কট্যাঙ্ক গ্লোবাল ফুটপ্রিন্ট নেটওয়ার্ক ও ডব্লিউডব্লিউএফ বলছে, যদি আমরা সবাই একজন মার্কিনির মতো খাবার গ্রহণ করি তাহলে প্রতিবছর আমাদের এরকম ৫টি গ্রহের প্রয়োজন হবে।

শ্রীলঙ্কায় কমলো জ্বালানি তেলের দাম
                                  

এবার জ্বালানি তেলের দাম কমালো শ্রীলঙ্কার সরকার। অক্টোবর মাসেই দ্বিতীয় দফায় জ্বালানি তেলের দাম কমালো অর্থনৈতিক গোলযোগে পড়া দেশটি। শ্রীলঙ্কার অর্থনীতি এ বছর ৯ দশমিক ২ শতাংশ সংকুচিত হতে পারে, এমন পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। এর মাঝে জ্বালানি তেলের দাম কমানো হলো।
শ্রীলঙ্কার বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মন্ত্রী কাঞ্চনা উইজেসেকেরা জানান, সিলন পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন (সিপিসি) প্রতি লিটার পেট্রলের দাম ৪০ রুপি কমিয়েছে এবং ডিজেলের দাম কমিয়েছে ১৫ রুপি। সোমবার থেকেই এক লিটার পেট্রল বিক্রি হচ্ছে ৩৭০ রুপি করে। অক্টোবরের শুরুতে প্রতি লিটার পেট্রলের দাম ১০ শতাংশ কমানো হয়েছিল। আর ডিজেল বিক্রি হচ্ছে ৪১৫ রুপিতে। সোমবার রাত ৯ টা থেকে কার্যকর হয় এ সিদ্ধান্ত।
অন্যান্য পেট্রোলিয়াম জাতীয় পণ্যের দাম একই থাকবে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মন্ত্রী কাঞ্চনা।
বিদ্যুৎ বিভ্রাট, গ্যাস ও পানির তীব্র সংকট, খাদ্য সংকট, প্রয়োজনীয় পণ্যের আকাশছোঁয়া দামসহ নানা সমস্যার বেড়াজালে আটকা পড়েছে শ্রীলঙ্কার সাধারণ মানুষ। শ্রীলঙ্কার নাগরিকরা বলছেন, ১৯৪৮ সালে স্বাধীনতার পর এমন বিপর্যয়ের মুখে পড়েনি দেশটির অর্থনীতি। অর্থনৈতিক সংকটের জেরে ফুঁসে উঠে দেশটির সাধারণ মানুষ। চরম আন্দোলনের মুখে দেশ ছেড়ে পালাতে বাধ্য হন সাবেক প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে। এরপর দেশের হাল ধরেন কয়েকবারের প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে।
এখন সরকার বিরোধী আন্দোলন না হলেও অর্থনৈতিক সংকট কাটিয়ে উঠতে পারেনি শ্রীলঙ্কা। পর্যটন নির্ভর দেশটি দেউলিয়াত্বের খাতায় নাম লিখিয়েছে। যদিও সরকারের নীতি নির্ধারকরা এখন পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা করছেন।
এদিকে, পালিয়ে দেশত্যাগের দেড় মাসেরও বেশি সময় পর দেশে ফিরেছেন শ্রীলঙ্কার সাবেক প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে। শ্রীলঙ্কায় ব্যাপক গণবিক্ষোভের মুখে গত ১৩ জুলাইয়ের পর থেকে দেশের বাইরে অবস্থান করেন গোতাবায়া। তবে দেশে ফিরলেও তাকে আর সেভাবে জনসম্মুখে খুব একটা দেখা যায়নি।

ইউক্রেনে আর কোনো বড় হামলা ঘটবে না, ঘোষণা পুতিনের
                                  

ইউক্রেনে রুশ বাহিনী আর বড় কোনো হামলা ঘটাবে না বলে ঘোষণা দিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। কারণ হিসেবে তিনি বলেছেন, রাশিয়া ইউক্রেনকে ধ্বংস করতে চায় না।
এছাড়া ইউক্রেন যুদ্ধে ‘রিজার্ভ সেনা’ হিসেবে দেশের সক্ষম নাগরিকদের বাধ্যতামূলক যোগদানের যে প্রক্রিয়া চলছে, তা আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে শেষ হয়ে যাবে বলে নিশ্চিত করেছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট। তবে তিনি এ ও বলেছেন, ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের জন্য তিনি অনুতপ্ত নন।
শুক্রবার কাজাখস্তানের রাজধানী আস্তানায় এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে পুতিন বলেন, ‘ইউক্রেনকে ধ্বংস করে দেওয়ার কোনো ইচ্ছে বা পরিকল্পনা আমাদের নেই। একটি দেশ ধ্বংস হয়ে যাক, তা আমরা কখনও চাইব না। এই কারণে সেখানে আর বড় কোনো হামলা ঘটবে না।’
‘সেই সঙ্গে আমি আমি আরও একটি তথ্য দিতে চাই; তা হলো—সামরিক অভিযানে রিজার্ভ সেনা হিসেবে রুশ নাগরিকদের নিয়োগের যে প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে, তা আগামী দু’সপ্তাহের মধ্যেই শেষ হয়ে যাবে।’
এশীয় এবং ইউরেশীয় দেশগুলোর জোট কনফারেন্স অন ইন্টার‌্যাকশন অ্যান্ড কনফিডেন্স বিল্ডিং মেজার্স ইন এশিয়ার (সিআইসিএ) সম্মেলনে যোগ দিতে গত ১৩ অক্টোবর কাজাখস্তানের রাজধানী আস্তানায় গিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট। সেখানেই আয়োজন করা হয়েছিল এই সংবাদ সম্মেলনের।
আস্তানার সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের একাধিক সাংবাদিক জানিয়েছেন, শুক্রবারের সংবাদ সম্মেলনে পুতিনের চিরাচরিত গম্ভীর-দৃঢ় চেহারা দেখা যায়নি, বর‌ং এদিন তার চেহারা ও কণ্ঠস্বর ছিল বেশ কোমল।
সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের অন্যতম অঙ্গরাজ্য ইউক্রেন ১৯৯১ সালে সোভিয়েত ভেঙে যাওয়ার পর স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। দেশটির মোট জনসংখ্যার ৩০ শতাংশ সরাসরি রুশ বংশোদ্ভূত এবং রুশভাষী। সোভিয়েত আমলে রুশ জনগোষ্ঠীর সঙ্গে ইউক্রেনীয় জনগোষ্ঠীর মোটামুটি সদ্ভাব বজায় থাকলেও ইউক্রেন স্বাধীন হওয়ার পর দ্বন্দ্ব শুরু হয় এই দুই জনগোষ্ঠীর মধ্যে।
ইউক্রেনের রুশভাষী লোকজন বরাবরই নিজেদের রাশিয়ার অংশ হিসেবে বিবেচনা করে। অন্যদিকে ইউক্রেনীয়রা সবসময়ই নিজেদের স্বাধীন ও স্বতন্ত্র জাতি মনে করতে অভ্যস্ত। এটিই মূলত দুই জনগোষ্ঠীল দ্বন্দ্বের মূল কারণ এবং স্বাধীন হওয়ার পর থেকেই ইউক্রেনে এই ইস্যুতে দুই জনগোষ্ঠীর মধ্যে দ্বন্দ্ব-সংঘাত লেগেই ছিল। গত প্রায় ৩ দশকে ইউক্রেনে জাতিগত দ্বন্দ্বে নিহত হয়েছেন ১৫ হাজারেরও বেশি মানুষ।
২০১৪ সালে ইউক্রেনের সীমানাভুক্ত ক্রিমিয়া উপদ্বীপ দখল করে রাশিয়া। এক্ষেত্রে ইউক্রেনের রুশভাষী জনগোষ্ঠী রাশিয়ার সেনাবাহিনী ও সরকারকে সরাসরি সহায়তা করেছিল।
এদিকে সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে স্বাধীনতা লাভের পর থেকেই রাশিয়ার প্রধান বৈরীপক্ষ যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের রাজনৈতিক বলয়ে ঢুকতে দেন-দরবার করছিল ইউক্রেন। রাশিয়ার কাছে ক্রিমিয়া হারানোর পর এই তৎপরতা আরও বৃদ্ধি পায়। ২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্যপদের জন্য আবেদন করে ইউক্রেন।
ইউক্রেনের এসব কর্মকাণ্ডে স্বাভাবিকভাবেই ক্ষুব্ধ হয় মস্কো এবং ইউক্রেনকে ন্যাটোর সদস্যপদের জন্য আবেদন প্রত্যাহার করে নেওয়ার আহ্বানও জানানো হয়। কিন্তু কিয়েভ তাতে কান দেয়নি।
প্রায় চার বছর এই ইস্যুতে ‍দুই দেশের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলার পর অবশেষে ২০২২ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি রুশ বাহিনীকে ইউক্রেনে বিশেষ সামরিক অভিযান শুরুর নির্দেশ দেন পুতিন।
গত ৯ মাসের অভিযানে ইউক্রেনের চার প্রদেশ খেরসন, ঝাপোরিজ্জিয়া, দনেৎস্ক ও লুহানস্ক প্রদেশ দখল করে নিজের সীমানভূক্ত করেছে রাশিয়া। হাজার হাজার সামরিক-বেসামরিক মানুষ নিহত হয়েছেন, ছোট-বড় প্রায় সব শহর গোলার আঘাতে বিধ্বস্ত হয়েছে।
অভিযানে অবশ্য রাশিয়ারও ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, যুদ্ধে এ পর্যন্ত নিহত হয়েছেন ৬ হাজারেরও বেশি রুশ সেনা। এছাড়া যুদ্ধ শুরুর পর থেকে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপ একের পর এক নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে রাশিয়ার ওপর। এসব নিষেধাজ্ঞার কারণে বেশ বড় ধাক্কা খেয়েছে রাশিয়ার অর্থনীতি।
তবে আস্তানার সংবাদ সম্মেলনে পুতিন বলেছেন, ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের জন্য তিনি অনুতপ্ত নন। কারণ তার মতে, এই অভিযান অবশ্যম্ভাবী ছিল।
‘আমি পরিষ্কারভাবে বলতে চাই, (ইউক্রেনে) আজ যা হচ্ছে, তা অপ্রীতিকর ও অনাকাঙ্ক্ষিত; কিন্তু পরিস্থিতি যেদিকে যাচ্ছিল—তাতে চলতি বছরই, কিংবা তার পরের বছর এই সংঘাত অবশ্যম্ভাবী ছিল এবং সেক্ষেত্রে প্রাণহানি ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ হতো আরও অনেক অনেক বেশি। আমরা ঠিক সময়ে ঠিক কাজটি করেছি।’

জাতিসংঘে রাশিয়ার বিরুদ্ধে ভোট দিলো বাংলাদেশসহ ১৪৩ দেশ
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইউক্রেনের চার অঞ্চলকে সীমানাভুক্ত করায় রাশিয়ার নিন্দা জানিয়ে জাতিসংঘের একটি প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দিয়েছে বাংলাদেশসহ ১৪৩টি দেশ। তবে ভোটদানে বিরত ছিল ভারত, পাকিস্তান, চীনসহ ৩৫টি দেশ। আর এ প্রস্তাবের বিপক্ষে ভোট দিয়েছে উত্তর কোরিয়া-সিরিয়াসহ মোট পাঁচ দেশ।
বুধবার (১২ অক্টোবর) আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সীমানার মধ্যে ইউক্রেনের সার্বভৌমত্ব, স্বাধীনতা, ঐক্য এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতা পুনর্নিশ্চিত করতে একটি প্রস্তাব উত্থাপন করা হয় জাতিসংঘে। এতে সাধারণ পরিষদের তিন-চতুর্থাংশ সদস্যই রাশিয়ার বিপক্ষে ভোট দেয়।
নিন্দা প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছে কেবল রাশিয়া, সিরিয়া, নিকারাগুয়া, উত্তর কোরিয়া ও বেলারুশ। সাধারণ পরিষদের ১৯৩ সদস্যের মধ্যে বাকি ১০ সদস্য কোনো মতামতই দেয়নি।
গত ২৪ ফেব্রুয়ারি রুশ সৈন্যরা ইউক্রেন আক্রমণ করার পর থেকে এ পর্যন্ত জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে রাশিয়ার বিরুদ্ধে চারটি নিন্দা প্রস্তাব পাস হয়েছে। তবে এগুলোর মধ্যে বুধবারই মস্কোর বিপক্ষে সবচেয়ে বেশি ভোট পড়েছে।
ভোটের আগে জাতিসংঘে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া অভিযোগ করেন, এই প্রস্তাব রাজনৈতিক ও উসকানিমূলক। এটি চলমান সংকটের কূটনৈতিক সমাধানের পক্ষে সব প্রচেষ্টা নস্যাৎ করতে পারে।
তবে ভোটের ফলাফলকে ‘আশ্চর্যজনক’ উল্লেখ করে উল্লাস প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘে ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত সের্গেই কিসলিয়্যাস। আর সংস্থাটিতে মার্কিন রাষ্ট্রদূত লিন্ডা থমাস গ্রিনফিল্ড বলেছেন, এই ফলাফল দেখিয়ে দিয়েছে, রাশিয়া বিশ্বকে ভয় দেখাতে পারেনি।
২০১৪ সালে রাশিয়া ক্রিমিয়া দখল করার পর একই ধরনের নিন্দা প্রস্তাব উত্থাপন করেছিল জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ। সেদিন এর পক্ষে ভোট দিয়েছিল ১০০টি দেশ, বিপক্ষে ১১টি এবং ভোটদানে বিরত ছিল ৫৮টি দেশ।
কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, বুধবার ভোটের আগে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো রাশিয়ার বিপক্ষে জনমত বাড়াতে লবিং করেছিল। গত মঙ্গলবার ১০০টির বেশি দেশের কূটনীতিকদের সঙ্গে ভার্চুয়ালি বৈঠক করেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন। এর পরিপ্রেক্ষিতেই ২০১৪ সালের তুলনায় রাশিয়ার বিপক্ষে এবার কয়েক ডজন ভোট বেশি পড়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
এর আগে, গত ২ মার্চ ইউক্রেনে হামলা বন্ধে সাধারণ পরিষদে একটি প্রস্তাব পাস হয়। এর পক্ষে ভোট পড়ে ১৪১টি। এদিন ভোটদানে বিরত ছিল বাংলাদেশ।
তবে গত ২৪ মার্চ ইউক্রেনে সৃষ্ট মানবিক সংকট মোকাবিলায় দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার প্রশ্নে জাতিসংঘের প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দিয়েছিল বাংলাদেশ। সেদিন ১৪০ ভোটে প্রস্তাবটি পাস হয়।
এছাড়া গত ৭ এপ্রিল মানবাধিকার পরিষদ থেকে রাশিয়াকে বরখাস্ত করার প্রশ্নেও ভোটদানে বিরত ছিল বাংলাদেশ। সেদিন যুক্তরাষ্ট্রের উত্থাপিত প্রস্তাবের পক্ষে ভোট পড়ে ৯৩টি। বিপক্ষে ভোট দেয় ২৪টি দেশ এবং ভোটদানে বিরত ছিল ৫৮ দেশ। সদস্য দেশগুলোর দুই-তৃতীয়াংশের সমর্থন পাওয়ায় জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদ থেকে রাশিয়াকে বরখাস্ত করা হয়।

পরমাণু হামলা করলে রাশিয়াকে ভয়াবহ পরিণতি ভোগ করতে হবে: যুক্তরাষ্ট্র
                                  

ইউক্রেনে পরমাণু হামলা করলে রাশিয়াকে ভয়াবহ পরিণতি ভোগ করতে হবে হুঁশিয়ারি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।গতকাল যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভান এমন হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।এনবিসির মিট দ্য প্রেস নিউজ প্রোগ্রামকে সুলিভান বলেছেন, রাশিয়া যদি এই পরমাণু অস্ত্র ব্যবহারের সীমা অতিক্রম করে তবে রাশিয়ার ভয়াবহ পরিণতি ভোগ করতে হবে। যুক্তরাষ্ট্র বেশ স্পষ্টভাবে প্রতিক্রিয়া জানাবে।
তবে যুক্তরাষ্ট্র কেমন প্রতিক্রিয়া জানাবে তা নিয়ে বিস্তারিত কিছু জানাননি সুলিভান।  
গত বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে দেওয়ায় ভাষণে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, পুতিন প্রকাশ্যে ইউরোপের বিরুদ্ধে পারমাণবিক হামলার হুমকি দিচ্ছেন।
এর আগে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছিলেন, রাশিয়ার ভূখণ্ড রক্ষার জন্য তিনি পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করতে প্রস্তুত।  জাতিসংঘে অনেকটা একই কথা বলেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ।

বিশ্বে দুর্ভিক্ষের মুখে সাড়ে ৩৪ কোটিরও বেশি মানুষ : জাতিসংঘ
                                  

বিশ্বের ৮২টি দেশের অন্তত ৩৪ কোটি ৫০ লাখ মানুষ চুড়ান্ত খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে; এবং যদি রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ দীর্ঘস্থায়ী হয়, সেক্ষেত্রে শিগিরই এই সংখ্যার সঙ্গে আরও ৭০ কোটি মানুষ যুক্ত হবেন।
জাতিসংঘের খাদ্য নিরাপত্তা বিভাগের প্রধান ডেভিড বিসলি বৃহত্তম এই বৈশ্বিক সংস্থার সবচেয়ে প্রভাবশালী বিভাগ নিরাপত্তা পরিষদের শুক্রবারের বৈঠকে এ তথ্য জানিয়েছেন।
নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে নিজ বক্তব্যে জাতিসংঘের খাদ্য নিরাপত্তা বিভাগের এই শীর্ষ নির্বাহী বলেন, করোনা মহামারির শুরুর পর্যায়ে বিশ্বজুড়ে যতসংখ্যক মানুষ খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছিল, মহামারির আড়াই বছরে এই সংখ্যা বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি।
এই মুহূর্তে বিশ্বের অন্তত ৪৫টি দেশে দুর্ভিক্ষ পরিস্থতির সৃষ্টি হয়েছে উল্লেখ করে বিসলি বলেন, ‘মহামারির আগ পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে ক্ষুধার যে ঢেউ ছিল, মহামারির প্রভাবে তা সুনামিতে পরিণত হয়েছে। বর্তমানে খাদ্যপণ্যের মূল্য যে হারে বাড়ছে, তা অব্যাহত থাকলে আগামী ২০২৩ সালে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে খাদ্য সংকট শুরু হবে। ফলে শিগগিরই বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে দুর্ভিক্ষ শুরু হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।’
নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে জাতিসংঘের মানবিক সহায়তা বিভাগের প্রধান মার্টিন গ্রিফিথও উপস্থিতি ছিলেন। তিনি জানান, ইথিওপিয়া, নাইজেরিয়া, দক্ষিণ সুদান, ইয়েমেন, সোমালিয়া, আফগানিস্তানসহ এশিয়া ও আফ্রিকার বেশ কিছু দরিদ্র দেশে খাদ্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি ইতোমধ্যেই মানবিক বিপর্যয় পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে।
‘সোমালিয়ায় ইতোমধ্যে দুর্ভিক্ষ শুরু হয়ে গেছে। অন্যান্য দেশে এখনও দুর্ভিক্ষ শুরু না হলেও অবস্থা খুবই সঙ্গীন। সেসব দেশে লাখ লাখ মানুষ একবেলাও ঠিকমতো খেতে পারছে না,’ বলেন জাতিসংঘের মানবিক সহায়তা বিভাগের প্রধান।
সংকটে থাকা বিভিন্ন দেশের একটি পরিসংখ্যান তুলে ধরে গ্রিফিথ আরও বলেন, ‘ইয়েমেনে গুরুতর খাদ্যাভাবে ভুগছে অন্তত ১লাখ ৬০ হাজার মানুষ এবং দেশটির অন্তত ৫ লাখ ৩৮ হাজার শিশু অপুষ্টির শিকার। দক্ষিণ সুদানে বর্তমানে ৬০ শতাংশ মানুষের হাতে পুষ্টিকর খাদ্য কেনার মতো অর্থ নেই। ইথিওপিয়ায় এই সংখ্যা আরও বেশি— ১ কোটি ৩০ লাখ। নাইজেরিয়ায় দুই বেলা খাবারের নিশ্চয়তা নেই— এমন মানুষের সংখ্যা প্রায় ৬ লাখ।’
শুক্রবারের বৈঠকে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বন্ধে নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যদের অবিলম্বে সক্রিয় পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানান ডেভিড বিসলি ও মার্টিন গ্রিফিথ।

ক্ষুধার্ত থাকছে লঙ্কান শিশুরা, প্রতিবেশীদেরও সতর্ক করলো জাতিসংঘ
                                  

চরম অর্থসংকটের মুখে ক্ষুধার্ত অবস্থায় ঘুমাতে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কার শিশুরা। একই পরিস্থিতি দক্ষিণ এশিয়ার বাকি দেশগুলোতেও হতে পারে বলে সতর্ক করেছে জাতিসংঘ। খবর এএফপির।
স্বাধীনতার-উত্তর সবচেয়ে ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকটে ভুগছে শ্রীলঙ্কা। দেশটির বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ প্রায় শূন্যে পৌঁছেছে। ফলে খাদ্য, ওষুধ, জ্বালানির মতো অতিজরুরি পণ্য আমদানি করতে পারছে না লঙ্কান সরকার। অভূতপূর্ব এই অর্থনৈতিক সংকট দ্বীপরাষ্ট্রটিতে রাজনৈতিক সংকটও তৈরি করেছে।
শুক্রবার (২৬ আগস্ট) জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফের দক্ষিণ এশিয়া পরিচালক জর্জ লারিয়া-আদজেই বলেছেন, রান্নার উপকরণগুলোর দাম ধরাছোঁয়ার বাইরে চলে যাওয়ায় নিয়মিত খাবার বাদ দিয়েছে শ্রীলঙ্কার অনেক পরিবার। তারাই এই সংকট তীব্রভাবে অনুভব করেছে।
তিনি বলেন, শিশুরা ক্ষুধা নিয়ে ঘুমাতে যাচ্ছে। তারা জানে না, পরবর্তী খাবার কোথা থেকে আসবে।
৫ হাজার ১০০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণের কিস্তি পরিশোধ করতে না পেরে গত এপ্রিলে নিজেদের দেউলিয়া ঘোষণা করে শ্রীলঙ্কা। অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে দেশটি বর্তমানে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) থেকে ঋণ পেতে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে।
লারিয়া-আদজেই বলেন, ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের পরিপ্রেক্ষিতে জ্বালানির দাম বেড়ে যাওয়া প্রতিবেশী দেশগুলোকেও ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। শ্রীলঙ্কার মতো এ অঞ্চলের অন্য দেশগুলোতেও পুষ্টি সংকট তৈরি হতে পারে বলে সতর্ক করেছেন তিনি।
ইউনিসেফ কর্মকর্তা বলেন, তীব্র অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা এবং দক্ষিণ এশিয়াজুড়ে মূল্যস্ফীতি শিশুদের জীবনকে আরও হুমকির মুখে ফেলতে চলেছে। আমি শ্রীলঙ্কায় যা দেখেছি, তা দক্ষিণ এশিয়ার অন্য দেশগুলোর জন্য সতর্কবার্তা।
শ্রীলঙ্কায় শিশুদের জনসংখ্যার অন্তত অর্ধেকের জরুরি চাহিদা মেটাতে ২ কোটি ৫০ লাখ ডলার সহায়তার আবেদন জানিয়েছে ইউনিসেফ।
শিশুদের মধ্যে দ্রুত ছড়িয়ে পড়া অপুষ্টি মোকাবিলায় চলতি মাসে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছে লঙ্কান সরকারও।
২০২১ সালের সরকারি পরিসংখ্যান অনুসারে, শ্রীলঙ্কায় ৫ লাখ ৭০ হাজার প্রাক-স্কুল শিক্ষার্থীর মধ্যে ১ লাখ ২৭ হাজার জনই অপুষ্টিতে ভুগছিলো। কর্মকর্তাদের বিশ্বাস, এরপর থেকে ব্যাপক খাদ্য ঘাটতি ও ক্রমাগত মূল্যস্ফীতির জেরে অপুষ্টিতে ভোগা শিশুর সংখ্যা আকাশচুম্বী হয়েছে।

ইউরোপে ফের গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করছে রাশিয়া
                                  

ইউরোপে গ্যাস সরবরাহের প্রধান পাইপলাইন ফের বন্ধ রাখতে যাচ্ছে রাশিয়া। দেশটির জ্বালানি সংস্থা গ্যাজপ্রোম জানিয়েছে, নড স্ট্রিম-১ পাইপ লাইনটি নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ কাজের অংশ হিসেবে চলতি মাসের শেষের দিকে তিন দিন বন্ধ থাকবে।
প্রতিবেদনে বলা হয়, রাশিয়ার অনির্ধারিত রক্ষণাবেক্ষণের আদেশের ফলে ইউরোপে এরই মধ্যে তীব্র গ্যাস সংকট দেখা দিয়েছে। আকাশচুম্বী হয়েছে মূল্যস্ফীতি। এমন পরিস্থিতিতে অঞ্চলটিতে অর্থনৈতিক মন্দার ঝুঁকি তৈরি হয়েছে। বাল্টিক সাগরের তলদেশ স্থাপনা করা নর্ড স্ট্রিম পাইপ লাইনের মাধ্যমে রাশিয়া থেকে জার্মানিতে গ্যাস যায়। সেখান থেকে পুরো ইউরোপে সরবরাহ করা হয়।
শুক্রবার (১৯ আগস্ট) অনলাইনে পোস্ট করা একটি বিবৃতিতে গ্যাজপ্রোম জানিয়েছে, পাইপলাইন বরাবর একটি মূল কম্প্রেসার স্টেশনে একমাত্র সচল টারবাইনের রক্ষণাবেক্ষণের জন্য লাইনটি ৩১ আগস্ট থেকে ২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বন্ধ থাকবে।
বর্তমানে পাইপলাইনটি দিয়ে সক্ষমতার এক-পঞ্চমাংশ গ্যাস সরবরাহ করছে রাশিয়া। এর আগেও নিয়মিত কাজের জন্য এটির কার্যক্রম বন্ধ রাখে পুতিন প্রশাসন।
রাশিয়া শুরু থেকেই পাইপলাইনটির মাধ্যমে কম গ্যাস সরবরাহের জন্য প্রযুক্তিগত সমস্যার কথা জানিয়ে আসছে। তবে জার্মানি বলছে ইউক্রেনের সংঘাতকে কেন্দ্র করে রাশিয়া অনিশ্চয়তা তৈরি করতে চায়।


   Page 1 of 76
     আর্ন্তজাতিক
বাংলাদেশ দূতাবাস আংঙ্কারায় বঙ্গবন্ধুর স্বদেশপ্রত্যাবর্তন দিবস উদ্যাপন
.............................................................................................
বাংলাদেশের সঙ্গে স্থায়ী অংশীদারীত্বকে গুরুত্ব দেয় যুক্তরাষ্ট
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্ত পরিদর্শনে জো বাইডেন
.............................................................................................
বাংলাদেশ দূতাবাস আঙ্কারা, তুরস্ক
.............................................................................................
 ইন্দোনেশিয়ায় ভূমিকম্প : ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা বহু
.............................................................................................
পোল্যান্ডে বিস্ফোরণের পর বিশ্বনেতাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠকে বাইডেন
.............................................................................................
এবার ১০ হাজার কর্মী ছাঁটাই করবে অ্যামাজন
.............................................................................................
মার্কিন সিনেটের নিয়ন্ত্রণ বাইডেনের দলের হাতেই
.............................................................................................
১৫ নভেম্বর বিশ্বের জনসংখ্যা হবে ৮০০ কোটি
.............................................................................................
শ্রীলঙ্কায় কমলো জ্বালানি তেলের দাম
.............................................................................................
ইউক্রেনে আর কোনো বড় হামলা ঘটবে না, ঘোষণা পুতিনের
.............................................................................................
জাতিসংঘে রাশিয়ার বিরুদ্ধে ভোট দিলো বাংলাদেশসহ ১৪৩ দেশ
.............................................................................................
পরমাণু হামলা করলে রাশিয়াকে ভয়াবহ পরিণতি ভোগ করতে হবে: যুক্তরাষ্ট্র
.............................................................................................
বিশ্বে দুর্ভিক্ষের মুখে সাড়ে ৩৪ কোটিরও বেশি মানুষ : জাতিসংঘ
.............................................................................................
ক্ষুধার্ত থাকছে লঙ্কান শিশুরা, প্রতিবেশীদেরও সতর্ক করলো জাতিসংঘ
.............................................................................................
ইউরোপে ফের গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করছে রাশিয়া
.............................................................................................
পারমাণবিক কেন্দ্রে বিপর্যয়ের ঝুঁকি ‘প্রতিদিন বাড়ছে’: ইউক্রেন
.............................................................................................
তেলের মূল্যবৃদ্ধি: রাস্তায় ভিক্ষা না হয় অনাহারে মৃত্যুর আশঙ্কা
.............................................................................................
ট্রাম্পের বাসভবন থেকে গোপন নথি উদ্ধার
.............................................................................................
ইউক্রেনের পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কাছে রাশিয়ার হামলায় ১৪ জন নিহত
.............................................................................................
জুলাইয়ের তীব্র তাপপ্রবাহে ব্রিটেনে হাজারো মানুষের মৃত্যু হতে পারে
.............................................................................................
করোনায় কমেছে প্রাণহানি, শনাক্ত-মৃত্যুর শীর্ষে জাপান
.............................................................................................
বিশ্ববাজারে আরও কমলো জ্বালানি তেলের দাম
.............................................................................................
ফিলিস্তিনে ইসরায়েলের ‘পূর্বপরিকল্পিত’ হামলা, শিশুসহ নিহত ১০
.............................................................................................
আঞ্চলিক শান্তির জন্য তাইওয়ানে এসেছি: পেলোসি
.............................................................................................
ইউক্রেন যুদ্ধে সরাসরি জড়িয়ে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্র, অভিযোগ রাশিয়ার
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে গোলাগুলি, হতাহত ৬
.............................................................................................
আফগানিস্তানে মার্কিন ড্রোন হামলায় আল-কায়েদা প্রধান নিহত
.............................................................................................
জরুরি অবস্থার মেয়াদ বাড়ছে মিয়ানমারে
.............................................................................................
রাশিয়ার হামলায় ইউক্রেনের শীর্ষ ধনী ব্যবসায়ী নিহত
.............................................................................................
বেসামরিকদের দোনেৎস্ক ছাড়ার আহ্বান জেলেনস্কির
.............................................................................................
লাটভিয়ায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করল রাশিয়া
.............................................................................................
মধ্যস্থতাকারী জার্মানি নিরপেক্ষতা হারানোয় তুরস্কের নিন্দা
.............................................................................................
করোনায় দৈনিক মৃত্যু বেড়ে ১৯০০, শনাক্ত সাড়ে ৮ লক্ষাধিক
.............................................................................................
পানি ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশের সঙ্গে কাজ করতে চায় আইআইটি গৌহাটি
.............................................................................................
ইউক্রেনে জেলেনস্কিকে সরাতে চায় রাশিয়া
.............................................................................................
পশ্চিমবঙ্গের শিল্পমন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জি গ্রেফতার
.............................................................................................
যুক্তরাজ্যে আগুন ছড়িয়ে পড়ায় জরুরি অবস্থা জারি
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রে স্বাধীনতা দিবসের কুচকাওয়াজে গুলি, নিহত ৬
.............................................................................................
মহানবীকে অবমাননা: রাজস্থানে দর্জি খুন ঘিরে উত্তেজনা, কারফিউ
.............................................................................................
একটা গর্জন হলো, ঘরের ছাদ ভেঙ্গে আটকা পড়ে গেলাম...
.............................................................................................
আফগানিস্তানে ভূমিকম্পে ২৫০ জনের মৃত্যু
.............................................................................................
কলম্বিয়ার প্রথম বামপন্থী প্রেসিডেন্ট গেরিলা পেট্রো
.............................................................................................
ইউক্রেনে ৩২ সাংবাদিক নিহত
.............................................................................................
নেপালে বিধ্বস্ত উড়োজাহাজের খোঁজ মিলেছে, ১৪ আরোহীর মরদেহ উদ্ধার
.............................................................................................
মাঙ্কিপক্স ছড়াতে পারে ২১৯টি দেশে, উদ্বেগে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা
.............................................................................................
মাঝ আকাশে ২২ যাত্রী নিয়ে ‘উধাও’ বিমান
.............................................................................................
ব্রাজিলে প্রবল বৃষ্টি-ভূমিধসে নিহত অন্তত ৩৫
.............................................................................................
টেক্সাসে স্কুলে বন্দুকধারীর গুলিতে ১৯ শিশুসহ ২১জন নিহত
.............................................................................................
সব এলাকা পুনরুদ্ধার না করা পর্যন্ত লড়াই চলবে: জেলেনস্কি
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রকাশক: রিনা বেগম
প্রধান সম্পাদক : মো: হাবিবুর রহমান
প্রকাশক কতৃক ৫১/৫১ এ পুরানা পল্টন থেকে প্রকাশিত । সোনালী প্রিন্টিং প্রেস ২/১/এ ইডেন ভবন ১৬৭ ইনার সার্কুলার রোড মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত । বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয় : ৫১/৫১ এ পুরানা পল্টন (৪র্থ তলা) , ঢাকা - ১০০০।
ফোন: ০২২২৩৩৮০৮৭২ , মোবাইল: ০১৭১১১৩৬২২৬

Web: www.bhorersomoy.com E-mail : dbsomoy2010@gmail.com
   All Right Reserved By www.bhorersomoy.com    
Dynamic SOlution IT Dynamic POS | Super Shop | Dealer Ship | Show Room Software | Trading Software | Inventory Management Software Computer | Mobile | Electronics Item Software Accounts,HR & Payroll Software Hospital | Clinic Management Software Dynamic Scale BD Digital Truck Scale | Platform Scale | Weighing Bridge Scale Digital Load Cell Digital Indicator Digital Score Board Junction Box | Chequer Plate | Girder Digital Scale | Digital Floor Scale