১৩ শাওয়াল ১৪৪১ , ঢাকা, রবিবার, ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ৭ জুন , ২০২০
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * মুক্তি পাচ্ছেন বেগম খালেদা জিয়া   * প্রধানমন্ত্রীর দশ নির্দেশনা   * সব ধরনের যাত্রীবাহী নৌযান চলাচল বন্ধ   * টিসিবি এবং ভোক্তা অধিদফতরের সকলের ছুটি বাতিল   * প্রয়োজনে দেশে জরুরি অবস্থা জারির পরামর্শ   * করোনায় বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা ১১ হাজার ছাড়াল!   * ঢাকা স্যানিটেশন ব্যবস্থার উন্নয়নে বিশ্বব্যাংকের অনুমোদন!   * করোনা প্রতিরোধে চীন থেকে বিশেষজ্ঞ আনার পরিকল্পনা সরকারের   * দেশের সকল নির্বাচন স্থগিত ঘোষণা!   * দেশে করোনায় ২য় ‍একজনের মৃত্যু, আক্রান্তের সংখ্যা ২৪!  

   উপ-সম্পাদকীয়
  শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড নয়, ইতিবাচক শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড
  Date : 3-3-2020

এ. কে. আজাদঃ

শিক্ষার অপর নাম পরির্বতন। আচরনের পরির্বতন বা বির্বতন। একটি অবস্থা থেকে অন্য অবস্থায় রুপান্তরিত হওয়া। জানার মাঝে পরিবর্তনের ধারা অব্যাহত থাকা। পরিবর্তন হওয়া বা পরিনত হওয়া। তা এমন হতে পারে যে, উন্নতি হওয়া বা অবনতি হওয়া। সৃষ্টি হওয়া বা ধ্বংস হওয়া। ভালত্ব হওয়া বা মন্দ হওয়া। আবিষ্কৃত হওয়া বা বিনাশ হওয়া। আস্তিক হওয়া বা নাস্তিক হওয়া।
শিক্ষা আসে পরিবার থেকে, সমাজ থেকে, রাষ্ট্র থেকে, প্রতিষ্ঠান থেকে। শিক্ষা আসে সহচর থেকে। যে ক্ষেত্র থেকেই শিক্ষা আসুকনা কেন, তা ব্যক্তি চরিত্রের উপর, সমাজের উপর, রাষ্ট্রের উপর প্রভাব ফেলে। ফলে ঐ ব্যক্তির আচরণের পরিবর্তন ঘটে। তার মানুষিক ও চারিত্রিক পরিবর্তন বা বিবর্তন সাধিত হয়।
প্রশ্ন হলো কি পরিবর্তন বা বিবর্তন হয়?
একটি ছেলে মিথ্যে বলায় অভ্যস্ত ছিল, এখন মিথ্যে বলেনা। একটি ছেলে আগে মিথ্যে বলতো না, এখন প্রায় মিথ্যে বলে। একজন লোক আগে ধুমপান করতো না, এখন ধুমপান করে। অন্যদিকে একজন ধুমপায়ী এখন ধুমপান ছেড়ে দিয়েছে। একজন কর্মকর্তা ঘুষ খেতেন না, তাকে সৎ অফিসার বলা হতো। তিনি এখন ঘুষ খান, তাকে এখন অসৎ অফিসার বলা হয়। এসব ঘটনার নাম শিক্ষা। কেননা প্রত্যেকের মধ্যেই একটি পরিবর্তন লক্ষ্যণীয়। পরিবর্তনের ফলে কারো চরিত্রের উন্নতি হয়েছে। আবার কারো চরিত্রের অবনতি হয়েছে।

‘শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড‘ 

এ স্লোগানটি আবহমান কাল ধরে প্রতিটি জাতি সত্ত্বার কাছে দ্বৈব বাণী। যেকোন পবিত্র ধর্ম গ্রন্থের যেন অমিয় বাণী। শিক্ষার মানে যেখানে পরিবর্তন, সেখানে শিক্ষা মাত্রই জাতির মেরুদন্ড হতে পারেনা। প্রচলিত কথায় শিক্ষার দুটি দিক বিদ্যমান। পজেটিভ দিক ও নেগেটিভ দিক। ইতিবাচক শিক্ষা ও নেতিবাচক শিক্ষা।
যে শিক্ষা মানব কল্যাণের ব্রত পালন করে, ব্যক্তি চরিত্রের উন্নয়ন সাধন করে, ব্যক্তি আচরণের কাঙ্খিত পরিবর্তন আনে, জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকলের স্থায়ী স্বত্তা প্রতিষ্ঠায় ইতিবাচক প্রভাব ফেলে, সে শিক্ষাই সঠিক শিক্ষা। ইতিবাচক শিক্ষা। সে শিক্ষাই জাতি গঠনের ভূমিকা পালন করতে পারে। জাতির যথার্থ বিবর্তনে অগ্রনী ভূমিকা রাখতে পারে। কাজেই ইতিবাচক শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড।
অপর দিকে যে শিক্ষা মানব চরিত্রের অবক্ষয় ঘটায়, মানব কল্যাণে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে, ব্যক্তি আচরণের নেতিবাচক পরিবর্তন আনে, জাতির অকল্যাণে ব্যবহৃত হয়, আইন শৃঙ্খলা বিরোধী কার্যক্রমকে উৎসাহিত করে, জাতীয় উন্নয়নকে বাধাগ্রস্থ করে, সে শিক্ষার নাম নেতিবাচক শিক্ষা। সে শিক্ষা জাতি গঠনে কোন ভূমিকা পালন করতে পারেনা। কাজেই সে শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড নয়।
আমরা জানি বিশ^বিদ্যালয়গুলো শিক্ষার শ্রেষ্ঠতম বিদ্যাপিঠ। সেখান থেকে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে আমাদের যুবসমাজ ছড়িয়ে পরবে দেশ থেকে দেশান্তরে। দেশ গঠনে তারা আত্মনিয়োগ করবে। জাতি হিসেবে তাদের কাছে এটা আমাদের প্রত্যাশা। তারা হবে জাতির সেবক আর দেশ প্রেমিক। মমত্মবোধ আর ভালোবাসা নিয়ে দাড়াবে মানুষের পাশে। তাদের শিক্ষায় সাধারণ মানুষ দেখবে আলোর পথ। ভুলে যাবে অসভ্যতা, হানাহানি আর স্বার্থের দ্বন্দ। এ শিক্ষাটাই হবে ইতিবাচক শিক্ষা। যা জাতির মেরুদন্ডকে মজবুত করে তুলতে পারে।
কিন্তু যখন দেখি মেধাবী ছেলেগুলোর হাতে মদদ পুষ্ঠ অবৈধ অস্ত্র, হত্যা করে সহপাঠি বন্ধুটিকে। ধর্ষণ করে পালন করে সেঞ্চুরী উৎসব। চাঁদাবাজী, দখলদারী, ছিনতাই করে অবৈধ অর্থ উপার্জন করে। নেশা করে চুড় হয়ে পরে থাকে বিশ‍্ববিদ্যালয়ের কোন ছাত্রাবাসে বা ক্যাম্পাসে। এদেরকে কি বিশেষণ দিবো? এ কেমন পরিবর্তন তাদের! এ শিক্ষা জাতি গঠনে কি ভূমিকা রাখবে? এটাই নেতিবাচক শিক্ষা। একটি জাতিকে, একটি সভ্যতাকে পঙ্গু করে দেয়ার শিক্ষা। এ শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড হতে পারেনা। তাইতো শিক্ষা মাত্রই জাতির মেরুদন্ড নয়।
জাতির মেরুদন্ড হচ্ছে জাতির মূল্যবোধ বৃদ্ধি করণ, চরিত্রের উন্নয়ন সাধন, অগ্রগতি তরান্বিত করণ এবং যথাযথ বিবর্তন নিশ্চিত করা। শিক্ষার ইতিবাচক প্রভাব একটি জাতিকে অন্ধকার থেকে আলোর পথ দেখাতে পারে। ক্ষয়ে যাওয়া একটি জাতিকে পুনর্গঠন করতে পারে। হারানো ঐতিহ্যকে পুনরুদ্ধার করতে পারে। কিন্তু শিক্ষার নেতিবাচক প্রভাব একটি সুন্দর সুঠামো জাতিকে মূহুর্তের মধ্যে ধ্বংস করে দিতে পারে। তাই শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড নয়। ইতিবাচক শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড।



       
   শেয়ার করুন
Share Button
   আপনার মতামত দিন
     উপ-সম্পাদকীয়
শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড নয়, ইতিবাচক শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড
.............................................................................................
মিস্টার বিড়ালের বাংলাদেশ এবং অনুচ্চারিত খবিশ ও রাবিশ
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো : মাহবুবুর রহমান ।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মো: হাবিবুর রহমান । সম্পাদক কর্তৃক বিএস প্রিন্টিং প্রেস ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, সুত্রাপুর ঢাকা খেকে মুদ্রিত
ও ৬০/ই/১ পুরানা পল্টন (৭ম তলা) থেকে প্রকাশিত বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৫১,৫১/ এ রিসোর্সফুল পল্টন সিটি (৪র্থ তলা), পুরানা পল্টন, ঢাকা -১০০০।
ফোনঃ-০২-৯৫৫০৮৭২ , ০১৭১১১৩৬২২৬

Web: www.bhorersomoy.com E-mail : dbsomoy2010@gmail.com
   All Right Reserved By www.bhorersomoy.com Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD